এডিটর’স মাইন্ড

ভিসা নিষেধাজ্ঞা: প্রশাসনের মধ্যে উৎকণ্ঠা, উদ্বেগ

প্রকাশ: ০৬:০০ পিএম, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

প্রথম পর্যায়ে ভিসা নিষেধাজ্ঞা ঘোষণার পরপরই প্রশাসনের মধ্যে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা ছড়িয়ে পড়েছে। প্রশাসনের মধ্যে খোঁজ খবর নেওয়ার প্রবণতা তৈরি হয়েছে। বিভিন্ন মহল টেলিফোনে একে অন্যকে জিজ্ঞেস করছেন যে, কারা কিভাবে ভিসা নিষেধাজ্ঞার আওতায় এলেন। এ সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানার জন্য এক ধরনের মরিয়া চেষ্টা দেখা গেছে। তবে লক্ষণীয় ব্যাপার যে প্রশাসনের মধ্যে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা সবচেয়ে বেশি লক্ষ্য করা যাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং বিচার বিভাগের কর্মকর্তাদের মধ্যে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একাধিক ব্যক্তি ভিসা নিষেধাজ্ঞার আওতায় এসেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ফলশ্রুতিতে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর এক ধরনের ভয় এবং আতঙ্ক তৈরি হয়েছে।

অন্যদিকে বিচার বিভাগের কয়েকজন ব্যক্তির ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে এমন তথ্য পাওয়ার পর বিচার বিভাগের কর্মকর্তাদের মধ্যে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা লক্ষ্য করা গেছে। তাছাড়া প্রশাসনের মধ্যে এক ধরনের ভয় লক্ষ্য করা যাচ্ছে এবং তারা সামনে কি হয় এই নিয়ে আতঙ্কে রয়েছেন। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ অধিবেশনে ভাষণের পর নিউইয়র্কের সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন যে, ভিসা নিষেধাজ্ঞা নিয়ে ভয়ের কিছু নেই। আতঙ্কিত হবার কিছু নেই। 

তিনি এটিও বলেছেন যে, বাংলাদেশে যারা অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনকে বাধা প্রদানের চেষ্টা করবে, তাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশও ভিসা নিষেধাজ্ঞা দেবে। প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য প্রশাসন এবং আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীদের উদ্বেগ কতটুকু নিরসন করতে পারবে সেটি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

বাংলা ইনসাইডার বিভিন্ন মহলের সঙ্গে কথা বলে দেখেছে যে, ভিসা নিষেধাজ্ঞার প্রভাব রাজনীতিবিদদের ওপর অনেক কম পড়েছে। আওয়ামী লীগের কোনো নেতাই ভিসা নিষেধাজ্ঞা নিয়ে তেমন উদ্বিগ্ন নয়। বরং তারা মনে করছে যে, এই ভিসা নিষেধাজ্ঞাকে মাথায় রেখেই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন করতে হবে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সামনে আরও চাপ দেবে, এটাকে মাথায় নিয়েই কাজ করতে হবে। 

আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতা মনে করছেন যে, প্রধানমন্ত্রী শুরু থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যে অবস্থান নিয়েছিলেন সেই অবস্থানটি সঠিক ছিল। কিন্তু মাঝখানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং বিভিন্ন ব্যক্তিরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নের যে নাটক করেছিল সেটি সরকারের জন্য ক্ষতিকারক হয়েছে বলে তারা মনে করেন। 

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা নীতিতে আতঙ্কিত হওয়া যাবে না। বরং কঠোরভাবে নির্বাচনের রোড ম্যাপ বাস্তবায়ন করতে হবে। তবে ভিসা নীতির যে প্রভাব প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং বিচার বিভাগের কর্মকর্তাদের ওপর পড়েছে সেই প্রভাব নিরসন না করতে পারলে সরকারের জন্য সামনের দিনগুলো অনেক চ্যালেঞ্জিং হবে বলে তারা মনে করছেন। 

আওয়ামী লীগের অনেক নেতা স্বীকার করেছেন যে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং প্রশাসন সামনের দিনগুলোতে এক ধরনের অস্বস্তিতে কাটাবে এবং ভিসা নীতির ভয়ে সাধারণ কাজ করতে গিয়ে আতঙ্ক বোধ করবে। এর প্রভাব পড়বে প্রশাসনের ওপর। নির্বাচনের তিন মাস আগে প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যদি নিষ্ক্রিয় হয়ে যায় সেক্ষেত্রে বিরোধী আন্দোলন আরও চাঙ্গা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এটি প্রতিরোধের জন্য আওয়ামী লীগের নেতারা মনে করছেন যে রাজনৈতিক কর্মসূচি বাড়াতে হবে এবং সাধারণ জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে এই অবস্থানের বিপরীতে অবস্থান নিতে হবে। তা না হলে এই ভিসা নীতির আতঙ্ক প্রশাসনকে নিষ্ক্রিয় করবে।

ভিসা নিষেধাজ্ঞা   মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র   বাংলাদেশের নির্বাচন   ভিসা নীতি  


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

নানক-নাছিম বনাম ফেরদৌস-সাকিব

প্রকাশ: ১১:০০ পিএম, ০১ ডিসেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য আওয়ামী লীগ তাদের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছে গত ২৬ নভেম্বর। এবারের নির্বাচন বড়ই অদ্ভুত নির্বাচন। এই নির্বাচনে একটিই ফলাফল হতে পারে। সেটি হলো আওয়ামী লীগের বিজয়। বিএনপি এবং তার মিত্ররা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে না। জাতীয় পার্টি, তৃণমূল বিএনপি, বিএনএমসহ যেসব রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে তাদের একটাই লক্ষ্য, ‘বিরোধী দল’ হওয়া। তবে এই নির্বাচন টানা ১৫ বছর ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগের জন্য চ্যালেঞ্জের। পশ্চিমা বিশ্ব নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে আছে। সবাই চায় একটি অবাধ, সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন। আওয়ামী লীগকে যেমন একদিকে অবাধ, সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে হবে, তেমনি নির্বাচন যেন ‘অংশগ্রহণমূলক’ হয় সেটাও নিশ্চিত করতে হবে। নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি যদি ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ না হয়, তাহলে এই নির্বাচন গ্রহণযোগ্যতার সংকটে পড়বে। এই নির্বাচন আওয়ামী লীগের জন্য আরেক দিক থেকেও গুরুত্বপূর্ণ। এবারের ভোট ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের জন্য আবর্জনা পরিষ্কারের এক সুবর্ণ সুযোগ। যেহেতু নির্বাচনে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বি নেই, তাই আওয়ামী লীগ পরিচ্ছন্ন, দলের জন্য নিবেদিত প্রাণদের প্রার্থী করার এক বিরল সুযোগ পেয়েছিল। মনোনয়নের আগে এরকম একটি সুস্পষ্ট বার্তাও ছিলো।

২৬ নভেম্বর আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালিকা দেখে আমি একদিকে উচ্ছসিত, অন্যদিকে আতঙ্কিত। আমি উচ্ছ্বসিত একারণে যে মাঠের নেতাদের, কর্মীবান্ধব সংগঠকদের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। ২০১৮ সালের নির্বাচনে মনোনয়ন পাননি জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, বাহাউদ্দিন নাছিম, এস.এম কামাল। এরা এবার মনোনয়ন পেয়েছেন। আওয়ামী লীগের তৃণমূলের কর্মীদের জন্য এটি একটি বিরাট বিজয়। এর ফলে কর্মীরা উচ্ছ্বসিত, উজ্জীবিত। গত পাঁচ বছর যারা সংগঠনকে আগলে রেখেছিলেন তাদের মধ্যে এরা অন্যতম। টানা ১৫ বছর ক্ষমতায় থাকার কারণে আওয়ামী লীগ নানা রোগে আক্রান্ত। এর মধ্যে সবচেয়ে আতঙ্কের রোগ হলো অনুপ্রবেশকারী, চাটুকার, সুবিধাবাদীদের দৌরাত্ম। হঠাৎ গজিয়ে ওঠা অর্বাচীন নেতাদের কারণে কর্মীরা হতাশ এবং বিরক্ত। ত্যাগী পরীক্ষিতদের একটা বড় অংশ নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান নিয়েছেন। কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব থেকে তৃণমূল সর্বত্রই অনুপ্রবেশকারীদের দাপট রীতিমতো মহামারী পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। এরকম বাস্তবতায় সংগঠনের জন্য নিবেদিত প্রাণ, দুঃসময়ের যোদ্ধারা যদি নির্বাচন থেকেও দূরে থাকতেন, তাহলে এই ঐতিহ্যবাহী সংগঠনটি গভীর সংকটে পড়ত। কিন্তু আওয়ামী লীগ সভাপতি মনোনয়ন প্রদানে মাঠের নেতা, দুঃসময়ে কান্ডারী, ত্যাগী পরীক্ষিতদের মূল্যায়ন করেছেন। জনপ্রিয় নেতা মির্জা আজম ছয়বারের এমপি। এবারও তিনি মনোনয়ন পেয়েছেন। মনোনয়ন পেয়েছেন কঠিন সময়ে দলের জন্য কাজ করা আলাউদ্দিন নাসিম চৌধুরীসহ বেশ ক’জন। এই মনোনয়ন প্রাপ্তরা সংগঠন গোছাতেই শুধু অবদান রাখবেন না, কর্মীদের ভোটের মাঠে নামাতেও উৎসাহ যোগাবেন। এই সব মাঠের কর্মীবান্ধবদের প্রার্থী হবার কারণে নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি বাড়বে, ভোট খরা কাটবে। 

নানক-নাছিমের মনোনয়ন আমাকে আরেকটি কারণে আশাবাদী করেছে। রাজনীতিতে আদর্শে অবিচল থাকলে লক্ষ্য অর্জন যে করা যায়, এরা সেই সত্যটিকে নতুন করে প্রমাণ করলেন। ২০১৮ সালে নির্বাচনে এরা মনোনয়ন বঞ্চিত হন। নিশ্চয়ই একারণে তারা দুঃখিত হয়েছিলেন, বেদনার্ত হয়েছিলেন। কিন্তু এই বঞ্চনা তাদের আদর্শচ্যুত করতে পারেনি। তারা হাত পা গুটিয়ে বসে থাকেননি। রাজনীতি থেকে সরে যাননি। কিংবা অনেকের মতো ‘স্বতন্ত্র প্রার্থী’ হয়ে নিজেদের লোভের উদগ্র প্রকাশ ঘটাননি। বেদনাকে চাপা দিয়ে রাজনীতিতে আরো নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ করেছেন নানক, নাছিম, রহমান, কামাল। ২০১৮ সালের নির্বাচনের পর যখন ভাগ-বাটোয়ারার রাজনীতির আগ্রাসন তখন তারা সংগঠনে মনোযোগী হয়েছেন। হতাশ কর্মীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। দলের সভাপতির দেয়া দায়িত্ব পালন করেছেন নিষ্ঠার সাথে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে নেতার অভাব হয় না। বিচিত্র সব নেতাদের নাদুস-নুদুস শরীরে মঞ্চ ভেঙে পড়ে। কাজের নেতা নয়, এরা সব মতলবী নেতা। নানক, নাছিমরা কাজের নেতা। তাই তাদের মনোনয়ন পাওয়ায় আওয়ামী লীগ রক্ষা পেয়েছে। কর্মীরা অন্তত নিঃশ্বাস নেয়ার সুযোগটা পাচ্ছে। এটা টানা ক্ষমতায় থাকা দলের জন্য একটা বড় সুখবর। 

তবে এই মনোনয়ন তালিকায় কয়েকজনের মনোনয়ন প্রাপ্তি আমাকে উদ্বিগ্ন করেছে, আতঙ্কিত করেছে। এদের মধ্যে আলোচিত দুইজন হলেন বাংলাদেশের ক্রিকেটের ‘পোস্টার বয়’ সাকিব আল হাসান এবং চিত্রনায়ক ফেরদৌস।

বিশ্বে ক্রিকেটারদের রাজনীতিতে আসা নতুন ঘটনা নয়। শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক অর্জুনা রনাতুঙ্গা ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়ে রাজনীতিতে যোগ দিয়েছিলেন। মন্ত্রীও হয়েছিলেন। ১৯৯৬ সালে তার নেতৃত্বে শ্রীলঙ্কার বিশ্বকাপ জয় ছিলো এক অভূতপূর্ব বিস্ময়। এই বিজয় রনাতুঙ্গাকে দিয়েছিল জাতীয় বীরের মর্যাদা। কিন্তু রাজনীতিতে সুবিধা করতে পারেননি তুখোড় এই অধিনায়ক। সেদিক থেকে ব্যতিক্রম ইমরান খান। ইমরান খান প্রায় একাই পাকিস্তানকে ক্রিকেটে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন ১৯৯২ সালে। তার নেতৃত্ব গুণ সারা বিশ্বে প্রশংসিত হয়েছিল। তিনিও হয়ে উঠেছিলেন পাকিস্তানিদের ‘জাতীয় বীর।’ ক্রিকেট থেকে অবসরের পর ইমরান খান সমাজ সেবায় মন দেন। ক্যান্সারে মারা যাওয়া মায়ের স্মৃতির প্রতি সম্মান জানিয়ে তিনি গড়ে তোলেন বিশ্বের অন্যতম আধুনিক ক্যান্সার হাসপাতাল। পাকিস্তানের মানুষের হৃদয়ে জয় করেন ইমরান; স্পষ্ট কথাবার্তা বলে, সততার নজির স্থাপন করে। তিনি মুসলীম লীগ কিংবা পিপলস পার্টিতে যোগ দিতে পারতেন। এরকম প্রলোভনও ছিলো। কিন্তু প্রচলিত ধারার বাইরে গিয়ে নিজেই একটি সংগঠন গড়ে তুলেছিলেন। ইমরান খানের নেতৃত্বে তেহরিক-ই-ইসলাম ধীরে ধীরে বিকশিত হয়। ২০১৮ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়ে ইমরান হন প্রধানমন্ত্রী। ২০২২ সালে নানা ষড়যন্ত্রে ক্ষমতাচ্যুত হন। কিন্তু এখনও পাকিস্তানের রাজনীতিতে ইমরান খান জনপ্রিয় নাম। আমাদের সাকিব আল হাসান অবশ্য অর্জুনা রনাতুঙ্গা কিংবা ইমরান খানের ধারে কাছেও নন। বিশ্বকাপ জয় তো দূরের কথা, বাংলাদেশের ক্রিকেটকে তিনি কোন অন্ধকার টানেলে নিয়ে গেছেন তা নিয়ে দিব্যি বিতর্ক হতে পারে। সাকিব মেধাবী ক্রিকেটার কোন সন্দেহ নেই। বাংলাদেশের ক্রিকেটে এ যাবৎ কালের সেরা খেলোয়াড়, এনিয়েও বিতর্ক নেই। কিন্তু দীর্ঘ ক্যারিয়ারে তিনি বারবার বিতর্ক সৃষ্টি করেছেন। কখনো দর্শকদের সাথে অশোভন আচরণ করে, মারমুখী হয়ে। এখনও খুঁজলে আম্পায়ারের দিকে তার তেড়ে-ফুড়ে আসার ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পাওয়া যাবে। বুকির সাথে যোগাযোগ, তামিমের সাথে বিরোধ, অখেলোয়াড় সুলভ আচরণ নিয়ে সব সময় আলোচনায় সাকিব আল হাসান। এবার বিশ্বকাপে বাংলাদেশের ভরাডুবির নেপথ্যে সাকিবের রাজনীতি দায়ী-এমনটা বিশ্বাস করেন দেশের বেশীরভাগ ক্রিকেট ভক্ত। বিশ্বকাপের পর তার শাস্তি পাওয়ার কথা, তিনি পেলেন পুরস্কার। গত দুবছর ক্রিকেটের চেয়ে তার মনোযোগ ছিলো ব্যবসা-বাণিজ্যে, টাকা পয়সা উপার্জনে। ক্রিকেট নিয়ন্ত্রকদের আশ্রয়ে-প্রশ্রয়ে তিনি যা খুশী তাই করেছেন, বাধাহীনভাবে। দেশের জন্য, জনগণের জন্য একটি মহৎ কাজের উদাহরণ নেই এই ক্রিকেটারের জীবনে। তাকে কেন মনোনয়ন দিতে হবে? ক্রিকেটের জন্য সাকিব প্রয়োজনীয়, গুরুত্বপূর্ণ মানলাম, কিন্তু রাজনীতির জন্য, দেশের জন্য তিনি আদৌ কি প্রয়োজনীয়? এই নির্বাচনে যদি বিএনপি আসতো, হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের শঙ্কা থাকতো তাহলে সাকিবের মনোনয়ন প্রাপ্তির একটি যৌক্তির কারণ হয়তো খুঁজে পাওয়া যেত। তাকে এমন একটি আসনে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে, যে আসনটির বর্তমান এমপি একজন ত্যাগী পরীক্ষিত কর্মী। যার গোটা পরিবারের ত্যাগ এবং আদর্শের লড়াই আওয়ামী লীগের জন্য অনুকরণীয়। ৭৫ এর পর যারা আওয়ামী লীগকে ধ্বংসস্তুপ থেকে টেনে তোলার জন্য কঠোর ত্যাগ স্বীকার করেছেন, জীবনের ঝুঁকি নিয়েছেন, সাইফুজ্জামান শিখর সেই পরিবারের উত্তরাধিকার। এক-এগারোর সময় শিখরের নিষ্ঠা, দলের নেতার প্রতি আনুগত্য আমি খুব কাছ থেকে দেখেছি। কঠিন সময়ে সাকিব আল হাসান কি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হবেন? ত্যাগীরা শুধু ত্যাগ স্বীকার করবেন, সুবিধাবাদীরা ক্রীম খাবেন?

বাংলাদেশের ক্রিকেটে যেমন এখন ঘুটঘুটে অন্ধকার। তার চেয়ে ঘোর অমানিশা সিনেমায়। শাকিব খান আর নতুন কয়েকজন সৃষ্টিশীল নির্মাতার পাগলামীতে আমাদের সিনেমা এখন কোন মতে শ্বাস নিতে পারছে। সিনেমার অধিকাংশ তারকাদের কাজ নেই। তাই তারা নানা কাজে ব্যস্ত। রাজনীতিতে নগদ নারায়ণের সৌভাগ্য ভান্ডার আছে, সেজন্য পরিত্যক্ত তারকাদের একটি বড় অংশকে এখন ক্ষমতাসীন দলের চারপাশে ঘুর ঘুর করতে দেখা যায়। গত ১৫ বছরে শোবিজে যতজন আওয়ামী লীগ হয়েছেন, দেশে ততগুলো ব্রিজ হয়েছে কিনা আমার সন্দেহ। অথচ এই সব শোবিজের সুবিধাবাদীরা দুঃসময়ে কি করে তা নিজেই দেখেছি। ২০০১ সালে আওয়ামী লীগ প্রথমবারের মতো শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করে। তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান হন বিচারপতি লতিফুর রহমান। এই সময় বিএনপি তাদের নির্বাচনী প্রচারণার জন্য নির্মাণ করে ‘সাবাশ বাংলাদেশ’ নামে একটি ধারাবাহিক প্রামাণ্য চিত্র। অধ্যাপক ডা: বদরুদ্দোজা চৌধুরী ছিলেন উপস্থাপক আর মাহি.বি.চৌধুরী নির্মাতা। এটিএন বাংলায় প্রচারের সাথে সাথে এনিয়ে হৈ চৈ পরে যায়। আওয়ামী লীগের কাছে ছিলো এটা বিনা মেঘে বজ্রপাতের মতো। পাল্টা একটা প্রামাণ্য চিত্র নির্মাণের তোড়জোড় শুরু হয়। দায়িত্ব পরে আমার উপর। প্রতিদিন একটি করে মোট ২১টি প্রামাণ্য চিত্র বানিয়েছিলাম ‘জয় বাংলা, বাংলার জয়’ শিরোনামে। ঐ অনুষ্ঠানের জন্য একজন উপস্থাপক খুঁজতে আমরা শোবিজের তারকাদের দ্বারে দ্বারে গিয়েছিলাম। তাদের বলেছিলাম আওয়ামী লীগের পক্ষে কথা বলার দরকার নেই, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কথা বলুন। শমী কায়সার ছাড়া সবাই আমাদের মুখের উপর দরজা বন্ধ করে দিয়েছিলেন। তারা বলেছিলেন, আমরা শিল্পী। এসব বিতর্কে জড়াতে চাই না। এখন দেখি তারাই মস্ত বড় আওয়ামী লীগার। সারাজীবনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা লালন করা শমী কায়সার অবশ্য আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাননি। মনোনয়ন পেয়েছেন, সুসময়ে স্তুতি গানে চ্যাম্পিয়ন ‘অবসর প্রাপ্ত’ শিল্পী ফেরদৌস। হঠাৎ বৃষ্টির জন্য আলোচিত এবং জনপ্রিয় হন শিল্পী। এরপর তিনি বাংলা চলচিত্রের জন্য কি করেছেন, তা ফেরদৌসই ভালো বলতে পারবেন। তবে, টানা ১৫ বছর তিনি বিরামহীনভাবে চাটুকারিতার কসরত করেছেন। তাকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে ধানমন্ডিতে। আমি যদ্দুর জানি, ফেরদৌস ধানমন্ডিতে থাকেন না। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত এই আসনে একজন বহিরাগতকে মনোনয়ন দেয়ার তাৎপর্য আমি বুঝতে পারিনি। ধানমন্ডিতে কোন যোগ্য লোক নেই? সাকিব আল হাসানকে নিয়ে একটা উন্মাদনা আছে। তার একটা ভক্তকূল আছে। কিন্তু ফেরদৌসের বসন্তকাল চলে গেছে বহু আগে। ফেরদৌসকে নিয়ে ধানমন্ডির আসনে কোন উচ্ছ্বাস নেই, তা আমি হলফ করে বলতে পারি। এই সাবেক নায়ক ধানমন্ডির কয়টা রাস্তার নাম বলতে পারবেন? আওয়ামী লীগের ক’জন কর্মীকে চেনেন? ধানমন্ডি সম্পর্কে তিনি কি জানেন? এই নির্বাচনে এরকম ‘অতিথি পাখি’দের পৃষ্টপোষকতা দিয়ে আওয়ামী লীগ কি বার্তা দিলো? আদর্শ চুলায় যাক, একটু চেষ্টা তদ্বির করলেই আওয়ামী লীগের মতো দলের মনোনয়ন পাওয়া কোন ব্যাপারই না। কিন্তু তারপরও আমি আশাবাদী। ত্যাগী পরীক্ষিত আদর্শবানদের কাছে সব সময়ই পরাজিত হয় সুবিধাবাদী চাটুকাররা। শেষ পর্যন্ত নানক-আযম-নাছিমরাই দুঃসময়ে আওয়ামী লীগের জন্য লড়বে। বসন্তের কোকিলরা উড়ে যাবে কঠিন সময়ে। 

সৈয়দ বোরহান কবীর, নির্বাহী পরিচালক, পরিপ্রেক্ষিত
ই-মেইল: poriprekkhit@yahoo.com


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

মান্না কেন বড়শিতে বিঁধলেন না

প্রকাশ: ১১:০০ পিএম, ২৭ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

প্রায় দু সপ্তাহ নীরব থাকার পর মাহমুদুর রহমান মান্না আবার সরব হয়েছেন। আবার রাস্তায় এসে সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেছেন। কিন্তু গত দু সপ্তাহ তিনি কোথায় ছিলেন? বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে যে, এ সময় মান্না সরকারের সাথে নির্বাচনে যাওয়া নিয়ে দেন দরবার করেছিলেন। কিন্তু শেষপর্যন্ত দেন দরবারের রফা হয়নি। সেই কারণেই মান্না এখন আবার সরব হয়েছেন। আবার বিরোধী দলের লড়াকু সৈনিক হিসেবে মাঠে নেমেছেন। মাহমুদুর রহমান মান্না যা চেয়েছিল তা দেওয়া সম্ভব হয়নি। 

তবে বিভিন্ন সূত্র বলছে, একদিকে যেমন মান্না সরকারের সঙ্গে সংলাপ করেছিলেন, অন্যদিকে লন্ডনে পলাতক তারেক জিয়ার সাথেও যোগাযোগ করেছিলেন। তারেক জিয়ার যে টোপ সেটি বেশি মাত্রায় লোভনীয় হওয়ার কারণে তিনি সরকারের টোপ গেলেননি। আর এ কারণেই মাহমুদুর রহমান মান্না আবার আগের অবস্থানে ফিরে গেছেন। 

২৮ অক্টোবর বিএনপির তাণ্ডব, নাশকতার পর বিএনপি ব্যাকফুটে চলে যায় এবং এই ব্যাকফুটে যাওয়ার পর থেকেই বিএনপির কোনো কোনো নেতা সরকারের সঙ্গে সমঝোতা করার চেষ্টা করে। বিএনপির শীর্ষ নেতারা গ্রেপ্তার হয়ে গেলে সামনে চলে আসেন মাহমুদুর রহমান মান্না। মাহমুদুর রহমান মান্না নিজে থেকেই সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন এবং নির্বাচনে যাওয়ার ক্ষেত্রে তিনি সরকারের সঙ্গে আলোচনা করতে চান এমনটাই বলেছিলেন। এরপর সরকারের সঙ্গে তার কয়েক দফা বৈঠক হয়, যেসব বৈঠকে মান্না নির্বাচনকালীন সরকারে তার মন্ত্রিত্ব, বগুড়ার একটি আসনে তার নিশ্চিত বিজয় সহ আরও বেশ কিছু দাবিদাওয়া দিয়েছিলেন। কিন্তু সরকার থেকে তাকে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয় যে, নির্বাচনকালীন সরকারে অনির্বাচিত কোন মন্ত্রীদের রাখার সুযোগ নেই। 

দ্বিতীয়ত, নির্বাচনে বগুড়া আসন থেকে তিনি জিতবেন কি জিতবেন না এটি সম্পূর্ণ ভাবে নির্ভর করে ভোটারদের অভিপ্রায়ের ওপর। ভোটাররা যদি ভোট না দেন তাহলে সরকার কাউকে জিতিয়ে আনতে পারে না। অন্যদিকে মাহমুদুর রহমান মান্নাকে হাতছাড়া করতে চাননি লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া। আর এ কারণেই মান্না যেন শেষ পর্যন্ত বিএনপির সঙ্গে থাকেন এই জন্য তাকে লোভনীয় অফার দেওয়া হয় এবং ভবিষ্যতে তার জন্য অনেকগুলো সুখবর আছে এমন আশ্বাসও দেওয়া হয়। সবকিছু হিসাব নিকাশ মিলিয়ে মান্না শেষ পর্যন্ত তারেক জিয়ার বড়শিতে বিদ্ধ হচ্ছেন এমন কথা রয়েছে। 

মান্না অবশ্য সরকারের বড়শিতে বিদ্ধ না হওয়ার একটি বড় কারণ ছিল যে তিনি যেভাবে বিএনপিকে নির্বাচনে নিয়ে আসতে চেয়েছিলেন বা বিএনপি নির্বাচনে আসবেন বলে পরিকল্পনা নিয়েছিলেন সেই পরিকল্পনা ভেস্তে যায়। কারণ বিএনপির মধ্যে একটি বড় অংশ আন্দোলনকে শেষ পর্যন্ত দেখা এবং নির্বাচন পর্যন্ত অপেক্ষা করার নীতিতে বিশ্বাসী। দলছুট হয়ে কেউই ঝুঁকি নিতে চাননি এবং বিশ্বাসঘাতক হিসেবে পরিচিত হতে চাননি। অতীতের অভিজ্ঞতার আলোকে তারা দেখেছেন, যারা বিএনপি ছেড়ে চলে গেছেন তারাই রাজনীতিতে এতিম এবং পরিত্যক্ত হয়েছে। এ কারণেই বিএনপির মধ্যে যারা নির্বাচন করতে আগ্রহী, তারাও ঝুঁকি নেওয়ার সাহস পাননি। আর এ কারণেই শেষ পর্যন্ত মান্নার মিশনও ব্যর্থ হয়েছে। মিশন ব্যর্থ হওয়ার পর তিনি আবার বিরোধী দল হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন। কিন্তু মান্নারা সব সময় সুযোগসন্ধানী। সুযোগের রাজনীতি তাদের কাছে শুধু মাত্র কিছু পাওয়া না পাওয়ার হিসেব। যখন তার পাওয়া না পাওয়ার হিসেব মেলেনি, তখন তিনি আর সরকারের সঙ্গে সমঝোতায় যাননি। নিশ্চয়ই সরকারের কাছ থেকে তিনি যা পেতেন তার চেয়ে বেশি পেয়েছেন লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের কাছে।

মাহমুদুর রহমান মান্না  


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

নির্বাচনের মাঠে ‘কোরবানির হাট’

প্রকাশ: ০৯:৫৪ এএম, ২৭ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

রাজনীতিতে শেষ কথা বলে কিছু নেই। কল্যাণ পার্টির নেতা লে. জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমের নির্বাচনে যাওয়ার আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত ঘোষণার মধ্য দিয়ে সেই সত্যটি আরেকবার প্রমাণিত হলো। ২৭ অক্টোবর, বিএনপির মহাসমাবেশের আগের দিন এই সেনা কর্মকর্তা বলেছিলেন, ‘বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাওয়া আর জাহান্নামের আগুনে ঝাঁপ দেওয়া একই কথা।’

সৈয়দ ইবরাহিম চৌকস সেনা কর্মকর্তা ছিলেন। ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ থেকে পাস করে সেনাবাহিনীতে যোগ দেন। কোরআন এবং ইসলামী ব্যাখ্যায় তিনি অনবদ্য। মুসলিম যুদ্ধের কৌশল নিয়ে একটি চমৎকার গ্রন্থের লেখক এই মেধাবী মানুষটি। সহজ সরল সদালাপী। নির্বাচনে যাওয়ার যে ব্যাখ্যা তিনি দিয়েছেন, তাতে যথেষ্ট যুক্তি আছে। আছে সহজ-সরল স্বীকারোক্তি। কিন্তু তার নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত সমর্থন করেনি শরিকরা। নির্বাচনী এলাকায় তিনি এখন বিএনপি কর্তৃক অবাঞ্ছিত। ডাকসুর সাবেক ভিপি এবং গণ অধিকার পরিষদের সভাপতি নুরুল হক নুর সৈয়দ ইবরাহিমের নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্তের কঠোর সমালোচনা করেছেন। নুর বলেছেন, ‘রাজনীতিবিদরা কোরবানির গরু-ছাগলের মতো বিক্রি হচ্ছেন।’ শুধু নুর নয়, একই রকম বক্তব্য রেখেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। গত শুক্রবার এলডিপির নেতা কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বলেছেন, ‘এ বয়সে এসে গরু-ছাগলের মতো বিক্রি হতে চাই না।’ সৈয়দ ইবরাহিম গরু-ছাগলের মতো বিক্রি হয়েছেন বলে আমি বিশ্বাস করি না। বরং নিজের বুদ্ধি বিবেচনার দ্বারাই এরকম সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে আমার ধারণা। কোরবানির হাটে নিজেকে বিক্রির অভিপ্রায় থাকলে তিনি নিশ্চয়ই তৃণমূল বিএনপি, কিংবা বিএনএমে যোগ দিতেন। এমনকি আওয়ামী লীগের সঙ্গেও যোগাযোগ করতেন। সৈয়দ ইবরাহিম তা করেননি। এটি তার নিজস্ব রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত। এ সিদ্ধান্তে ভুলত্রুটি থাকতেই পারে। তবে নির্বাচনের মাঠে এখন কেনাবেচার খেলা জমে উঠেছে। সন্দেহের তালিকায় থাকা অনেক নেতাই বলছেন, ‘আমি গরু-ছাগলের মতো বিক্রি হব না।’ রাজনীতিতে এ কেনাবেচার ইতিহাস অনেক পুরোনো। নানা সময়ে রাজনীতিবিদরা গরু-ছাগলের মতো বিক্রি হয়েছেন। নিজেদের আদর্শকে কোরবানি দিয়েছেন।

বিএনপির এখন পর্যন্ত অবস্থান নির্বাচনে না যাওয়ার। এখনো দলটি নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে আন্দোলন করছে, অন্তত কাগজে-কলমে। অবরোধের ঘোষণা দিয়ে চুপচাপ বসে নদীর ঢেউ গুনছেন নেতারা। বিএনপির সঙ্গে জোট বেঁধেছিল ৩৪টি দল। এদের মধ্যে বেশ কিছু দল এখন নির্বাচনী মাঠে নেমেছে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘সামনে আরও চমক অপেক্ষা করছে।’ বিএনপির এখন অন্যতম প্রধান লক্ষ্য হলো, নির্বাচন বর্জনের পক্ষে রাজনৈতিক দলের সংখ্যা বাড়ানো। এজন্য রাজনীতিতে কেনাবেচার খেলা চলছে। জাতীয় পার্টির একজন নেতা স্বীকার করেছেন, জাতীয় পার্টি যেন নির্বাচনে না যায় সেজন্য ‘বড় অফার’ দেওয়া হয়েছিল বিএনপির পক্ষ থেকে। কান পাতলে নানা কথা শোনা যায়। এখনো জাতীয় পার্টি নাকি নিলামে আছে। দর-কষাকষি এখনো চলছে। শেষ মুহূর্তে ভালো দর পেলে, ২০১৪ সালের মতো, নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিতে পারে দলটি, এমন গুঞ্জনও শোনা যায়। বিএনপির শরিকদের মোটা অঙ্কের উপঢৌকনের আশ্বাস দেওয়া হচ্ছে, যেন তারা নির্বাচনে না যায়। আদর্শ বা নীতি নয়, টাকার লোভে নির্বাচন থেকে দূরে থাকার সিদ্ধান্তও এক ধরনের কেনাবেচা। গরু-ছাগলের মতো কোন কোন রাজনীতিবিদের কত দাম ওঠে তা জানার অপেক্ষায় আমরা। বিএনপির প্রধান লক্ষ্য নির্বাচনে না যাওয়াদের পাল্লা ভারী করা। নির্বাচন যেন গ্রহণযোগ্যতার সংকটে পড়ে। পশ্চিমা বিশ্ব এবং যুক্তরাষ্ট্র নির্বাচনের পর বলে—‘এটা পাতানো খেলা। আবার নির্বাচন করতে হবে।’ সে আশায় রাজনীতির হাটে এখন লন্ডনি পাউন্ডের আনাগোনা লক্ষ করা যায়। শুধু জোট নয়, ঘরেই অবিশ্বাস-সন্দেহের দোলাচলে বিএনপি। দলটির বেশ কয়েকজন নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, সরকারের সঙ্গে তারা গোপন আঁতাত করছেন। নির্বাচনে যাওয়ার জন্য তারা ‘গরু-ছাগলের’ মতো বিক্রি হয়েছেন। এজন্য ঘর সামলাতে ব্যস্ত বিএনপি। এর আগে সিলেট সিটি নির্বাচনে দলের নেতাকে ধরে রাখতে ‘নজরানা’ দিয়েছিলেন দলের শীর্ষ নেতা। নির্বাচনে না দাঁড়ানোর বিনিময়ে তিনি কী কী পেয়েছেন, তা গোপনই রয়ে গেছে। তবে দলীয় পদ প্রাপ্তিও যে এক ধরনের উৎকোচ, তা নিশ্চয়ই জনগণ উপলব্ধি করে। এবার বিএনপি আরও মরিয়া। জনপ্রিয় এবং নির্বাচনে যেতে আগ্রহীদের তা থেকে দূরে রাখতে নানা টোপ দেওয়া হচ্ছে। পদ-পদবির সঙ্গে আছে নগদ প্রলোভন। আন্দোলন নয়, বিএনপিতে চলছে ‘গিভ অ্যান্ড টেক’র রাজনীতি। আদর্শহীন রাজনীতিতে টাকা-পয়সা ও পদ-পদবির লোভই শেষ অস্ত্র।

এটা স্পষ্ট, আওয়ামী লীগ বিএনপিকে ছাড়া একটি অর্থপূর্ণ নির্বাচন চায়। এমন একটি নির্বাচন যেখানে ভোটারদের উৎসাহ-উদ্দীপনা থাকবে। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। দৃশ্যত নির্বাচন হবে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ। কিন্তু আওয়ামী লীগ একা তো নির্বাচন উৎসবমুখর করতে পারবে না। এজন্যই বাজারে এসেছে তৃণমূল বিএনপি, বিএনএম, ইসলামী জোট, যুক্তফ্রন্টসহ নানা জাতের-রঙের বাহারি রাজনৈতিক দল। জাতীয় পার্টিসহ এসব নতুন রং করা পুরোনো গাড়ি নির্বাচনী মহাসড়কে চলাচল শুরু করতেই দেশে সৃষ্টি হয়েছে নির্বাচনী আমেজ। জনগণ ধীরে ধীরে নির্বাচন নিয়ে আগ্রহী হতে শুরু করেছে। ২০১৪ সালে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর সেরকম পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল। যে আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠা গোটা দেশকে আচ্ছন্ন করেছিল, এখনকার পরিস্থিতি তার ধারেকাছেও নয়, বরং দেশ স্বাভাবিক। বিএনপি রাজনীতির মূলধারা থেকে প্রায় ছিটকে যাচ্ছে ক্রমাগত। নির্বাচনের মহাসড়কে এত গাড়ি নামাতে নিশ্চয়ই আওয়ামী লীগ কসরত করেছে। বিনিয়োগ হয়েছে। এ প্রসঙ্গে ছোট একটি গল্প বলতে চাই। এক ব্যবসায়ী তার ম্যানেজারকে নির্দেশ দিলেন, একজন কর্মকর্তাকে ‘ম্যানেজ’ করে একটা কাজ বাগাতে হবে। ম্যানেজার ওই কর্মকর্তা সম্পর্কে খোঁজখবর নিলেন। এসে মালিককে বললেন, ‘উনি (ঘুষ) খান না।’ ব্যবসায়ী হেসে বললেন, ‘কত খান না?’ পরে ব্যবসায়ী নিজেই ওই কর্মকর্তার সঙ্গে দফারফা করলেন। এখন আমরা এমন এক আর্থসামাজিক বাস্তবতায় বসবাস করি, যেখানে আদর্শ মূল্যহীন, নীতি অর্থহীন। সবকিছুই কেনাবেচা হয়। রাজনীতিতে কেনাবেচা এখন ‘হালাল’। তাই কে ‘নগদে’, কে ‘আশ্বাসে’ নির্বাচনে এলো; তার হিসাব খুঁজে লাভ নেই। নির্বাচনী মাঠ এখন কোরবানির গরু-ছাগলের হাট। তবে এখানে ক্ষমতাসীনরা একাই ক্রেতা নয়। বিরোধীরাও নিলামে শক্তিশালী পক্ষ। বাংলাদেশে কেনাবেচার রাজনীতি নতুন নয়। সৈয়দ ইবরাহিমই প্রথম রাজনীতিতে ‘ডিগবাজি’ দিয়েছেন এমন ভাবার কোনো কারণ নেই। ’৭৫-এর পর থেকেই বাংলাদেশের রাজনীতিতে গরু-ছাগলের হাট প্রথা চালু হয়। সহজভাবে বলা যায়, বাংলাদেশে রাজনীতিবিদদের গরু-ছাগলের মতো কেনাবেচার জনক জিয়াউর রহমান। তিনি সামরিক গোয়েন্দাদের দিয়ে বিএনপি গঠন করেছিলেন। বিভিন্ন লোককে বিএনপিতে যোগদানের জন্য নগদ অর্থ, ব্যবসা, টেন্ডার, ব্যাংক ঋণ দেওয়ার প্রথা চালু হয় জিয়ার হাত ধরেই। তিনি একদিকে যেমন স্বাধীনতাবিরোধী শাহ আজিজ, মশিউর রহমানকে (যাদু মিয়া) দলে ভেড়ান, তেমনি চৈনিক বাম, গলাকাটা পার্টির তরিকুল ইসলাম, মান্নান ভূঁইয়াদেরও কাছে টানেন। বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারী কে এম ওবায়দুল রহমানের মতো নেতাদের বিএনপিতে নিয়ে জিয়া আওয়ামীবিরোধী ‘ককটেল’ সৃষ্টি করেন, যার নাম বিএনপি। জিয়া রাজনীতিবিদদের জন্য রাজনীতিকে সত্যিই ডিফিকাল্ট করেছিলেন। তার নেতৃত্বে রাজনীতিতে প্রবেশ করে কালো টাকার মালিক, মাস্তান, দুর্বৃত্তরা। তবে রাজনীতিতে গরু-ছাগলে হাটকে প্রায় শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিলেন প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। এরশাদ কবি ছিলেন, তাই রাজনীতিবিদদের গরু-ছাগল বানিয়েছিলেন তিনি কাব্যিক ঢঙে। বিকেলে জনসভায় এরশাদকে তুলোধোনা করেছিলেন ব্যারিস্টার কোরবান আলী। সন্ধ্যায় গোটা জাতি অবাক বিস্ময়ে দেখল স্বৈরাচারের মন্ত্রী হয়ে নিজেকে কোরবানি দিলেন মুজিব সৈনিক। কাজী জাফর আহমেদ, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ কিংবা মিজান চৌধুরীর জাতীয় পার্টিতে যোগদান ছিল একেকটি প্রতারণা এবং বিশ্বাসঘাতকতার অনুপম কাব্য। তাদের ডিগবাজি এত বিস্ময়কর যে, অলিম্পিকে এরকম কোনো খেলা থাকলে অবলীলায় তারা স্বর্ণপদক পেতেন। রাজনীতিকে এরশাদ রীতিমতো গরু-ছাগলের হাট বানিয়েছিলেন। কিন্তু সেই হাটেই এরশাদ নিঃস্ব রাখালে পরিণত হন ’৯০-এর গণঅভ্যুত্থানে। এরশাদের পতনের পর গরু-ছাগলদের রশি আর রাখালের হাতে থাকেনি। যারা এরশাদের জন্য জান কোরবার করার প্রতিযোগিতা করতেন, তাদের প্রায় সবাই যোগ দেন বিএনপিতে। স্বৈরাচারের দোসররাই যখন এরশাদকে স্বৈরাচার বলে গালি দেয়, তখন লজ্জায় মুখ লুকানো ছাড়া উপায় কি? এখানেও কেনাবেচার রাজনীতি। এরশাদের চাটুকার গোষ্ঠীর ব্যারিস্টার মওদুদ, শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনসহ বহুজনকে সস্তায় কিনে নেয় বিএনপি। ভাবখানা এমন বুড়ো গরুর দাম কম! স্বৈরাচারের উপ-রাষ্ট্রপতি ২০০১ সালে বিএনপির আইনমন্ত্রীর দায়িত্ব নেন। বিএনপির দ্বিতীয় অধ্যায়ে ডিগবাজির রাজনীতিকে প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেওয়া হয়।

‘তোমারে বধিবে যে গোকুলে বাড়িছে সে।’ বিরোধী দল ভাঙার জন্য, বিরোধী নেতাদের ভাগিয়ে আনার যে ‘অস্ত্র’ বিএনপি এবং জাতীয় পার্টি আবিষ্কার করেছিল, আজ সেই অস্ত্রেই তারা ঘায়েল হচ্ছে। ভাগ্যের কী নির্মম পরিহাস। বেশি দূরে যাওয়ার দরকার নেই। ১৯৮৮ সালে নির্বাচনের জন্য এরশাদ আ স ম আবদুর রবকে ‘গৃহপালিত’ বিরোধী দলের সম্মানে ভূষিত করেছিলেন। ’৯৬-এর ১৫ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন করতে বিএনপি মৃতপ্রায় খুনিদের দল ‘ফ্রিডম পার্টি’কে পুনরুজ্জীবিত করেছিল। ক্ষমতায় থাকার উদগ্র আকাঙ্ক্ষা থেকে রাজনীতিতে যারা ‘গরু-ছাগলের হাট’-এর প্রবর্তন করেছিলেন, তারাই এখন কোরবানির হাটের পণ্য। ’৭৫-এর পর রাজনীতির যে কেনাবেচার অধ্যায়ের সূচনা হয়েছিল, সেই অধ্যায় আজ ‘ফ্রাঙ্কেনস্টাইনের দানব’ হয়ে উঠেছে। বিএনপি এবং জাতীয় পার্টি তাতেই ক্ষতবিক্ষত। শুধু রাজনীতিবিদরা গরু-ছাগলের মতো বিক্রি হচ্ছেন না। রাজনীতিই এখন হয়ে উঠেছে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা। সবচেয়ে বড় বাণিজ্য।


সৈয়দ বোরহান কবীর, নির্বাহী পরিচালক, পরিপ্রেক্ষিত

ইমেইল: poriprekkhit@yahoo.com


কল্যাণ পার্টি   নির্বাচন   আওয়ামী লীগ  


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

রাজনীতিকে দূষণমুক্ত করার এখনই সময়

প্রকাশ: ১১:০০ পিএম, ২৪ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

যেকোনো সংকট সম্ভাবনার সৃষ্টি করে। বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক সংকটও এক অসাধারণ সম্ভাবনার দুয়ার উন্মোচন করেছে। রাজনীতিকে আবর্জনামুক্ত এবং দূষণমুক্ত করার এক সুবর্ণ সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। বাংলাদেশের রাজনীতি ১৯৭৫ এর পর থেকে দূষিত, দূর্গন্ধময় হতে হতে এখন তাতে পচন ধরেছে। দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে সর্বত্র। রাজনীতি থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে তরুণরা। সাধারণ মানুষ মনে করে, রাজনীতি হলো শর্টকাটে নির্বিঘ্নে লুটপাটের সহজ পথ। রাজনীতি এখন প্রধান ব্যবসা। দুর্নীতিবাজ, লুটেরা, দূর্বৃত্ত, অর্থপাচারকারীদের আশ্রয়স্থলে পরিণত হয়েছে রাজনীতি। জিয়াউর রহমান ঘোষণা দিয়ে রাজনীতিকে ‘ডিফিকাল্ট’ করতে চেয়েছিলেন। রাজনীতিবিদদের জন্য সত্যিই তিনি রাজনীতিকে ডিফিকাল্ট করেছেন। ভাড়াটেরা রাজনৈতিক দলগুলোকে রীতিমতো দখল করেছে, সে প্রসঙ্গে পরে আসছি। 

৭৫ এর আগস্ট ট্রাজেডি বাংলাদেশের রাজনীতিকে দুটি ধারায় বিভক্ত করেছে। একটি মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের ধারা, অন্যটি স্বাধীনতাবিরোধী ধারা। পৃথিবীর কোন দেশের রাজনৈতিক দলগুলো মৌলিক জাতীয় প্রশ্নে বিভক্ত থাকে না। একটি দেশের অস্তিত্ব, অখণ্ডতা এবং সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক দল থাকতে পারে না। বিশ্বের সব গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে রাজনৈতিক দলের আদর্শগত বিরোধ আছে, থাকবে। কিন্তু মৌলিক জাতীয় প্রশ্নে তারা একমত থাকে। যুক্তরাষ্ট্রে ডেমোক্র্যাট কিংবা রিপাবলিক যারাই ক্ষমতায় থাকুক, দেশটির ইসরায়েল নীতির পরিবর্তন হয় না। ভারতে কংগ্রেস-বিজেপির মধ্যে মতপার্থক্য অনেক। কিন্তু, কানাডা প্রশ্নে তারা অভিন্ন। কাশ্মীর ইস্যুতেও তাদের মৌলিক বিরোধ নেই। বিজেপি-কংগ্রেস উভয় দলই পাকিস্তানকে একটি সন্ত্রাসী রাষ্ট্র মনে করে। কিন্তু বাংলাদেশের রাজনীতি ভয়ংকরভাবে বিভক্ত। এই দেশের রাজনীতি এমন যে, একটি বড় এবং জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল জাতির পিতাকে অস্বীকার করে। ৭৫ এর ১৫ আগস্টকে উৎসবের দিন বানিয়ে কুৎসিত উৎসব করে। এদেশের প্রধান দুটি রাজনৈতিক দল মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস দুইভাবে ব্যাখ্যা করে। ৭১-এ যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধীতা করেছিল, সেই রাজাকার, আল-বদর যুদ্ধাপরাধীদের পুনর্বাসিত করে একটি দল। স্বাধীনতাবিরোধী ধারাকে বিকশিত করাই যেন একটি রাজনৈতিক দলের প্রধান লক্ষ্য। মৌলিক প্রশ্নে এই বিভক্তি রাজনীতিকে যেমন জটিল করেছে, তেমনি দেশকেও করেছে বিভক্ত। 

বাংলাদেশে একাধিক রাজনৈতিক দল থাকবে। আদর্শের পার্থক্য থাকবে, মতভেদ থাকবে। কিন্তু মৌলিক জাতীয় প্রশ্নে সবাই থাকবে একমত। জাতির পিতাকে নিয়ে কেউ বিতর্ক করবে না। মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতার বিরুদ্ধে কেউ অবস্থান নেবে না। স্বাধীনতাবিরোধীদের কেউ আশ্রয়-প্রশ্রয় দেবে না। এই মৌলিক প্রশ্নে একমত থেকে নানা মত ও পথের রাজনীতি দেশের গণতন্ত্রকে বিকশিত করবে। এটাই আমাদের ঐক্যের সূত্র। কিন্তু ৭৫ এর পর জিয়ার বিভাজনের রাজনীতি, স্বাধীনতাবিরোধীদের কেবল পুনর্বাসিত করেনি, শক্তিশালীও করেছে। এই ধারার মূল দল বিএনপি। 

বিএনপি নামের সংগঠনটি যতদিন থাকবে, ততদিন ‘বাংলাদেশ’ এক হতে পারবে না। দেশের মৌলিক প্রশ্নে ঐক্যমত ছাড়া একটি জাতি কখনো তার অভীষ্ট অর্জন করতে পারে না। ২০০৮ এর নির্বাচনে এদেশের জনগণ ঐক্যের পক্ষে রায় দিয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষে অবস্থান নিয়েছিল। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চেয়েছিল। ঐ নির্বাচনের পর থেকে আস্তে আস্তে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষে হাটছে বাংলাদেশ। বিভাজনের দেয়াল উপড়ে ফেলছে জনগণ। যুদ্ধপরাধীদের বিচার হয়েছে। ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে এখন আর কেক কেটে ভুয়া জন্মদিন পালনের বিভৎস উৎসব হয় না। কিন্তু বাংলাদেশে ‘বিএনপি’ নামের বিষফোঁড়া যতদিন থাকবে ততদিন ঐক্যবদ্ধ জাতি হিসেবে আমরা দাঁড়াতে পারবো না। গত ১৫ বছর ভুল রাজনীতির চোরাগলিতে গিয়ে বিএনপি এখন মুমূর্ষু। ২৮ অক্টোবর আত্মঘাতি আন্দোলন দলটিকে আইসিইউতে নিয়ে গেছে। এখন অবরোধ-হরতালের মতো গণবিরোধী কর্মসূচির কারণে বিএনপি মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে। কিছু অবুঝ বিভ্রান্ত কর্মী-সমর্থকদের কারণে দলটি এখন লাইফ সাপোর্টে। ৭ জানুয়ারির নির্বাচন বর্জন করে বিএনপি আওয়ামী লীগকে বিপদে ফেলতে চেয়েছিল। কিন্তু বিএনপির সিদ্ধান্ত বুমেরাং হয়ে গেছে। নিজেদের খোঁড়া গর্তে নিজেরাই পড়েছে। বিএনপি ভেবেছিল, তারা নির্বাচন না করলেই বোধ হয় একতরফা নির্বাচন হবে। ২০১৪’র নির্বাচনের মতো ঘটনা ঘটবে। কিন্তু এবার তা হচ্ছে না। বিএনপিকে ছাড়াই দেশে সৃষ্টি হয়েছে নির্বাচনী আমেজ। আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, তৃণমূল বিএনপি, বিএনএম, যুক্তফ্রন্টসহ নানা দল এখন নির্বাচনী মাঠে। শরিকরাও এখন বিএনপিকে গুড বাই জানিয়ে নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দিচ্ছে। এর ফলে দেশের রাজনীতির বিষাক্ত ধারাকে উপড়ে ফেলার এক সুবর্ণ সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। বাংলাদেশের রাজনীতি থেকে বিভক্তির দেয়াল ভেঙে ফেলার সুযোগ তৈরি হয়েছে। লক্ষণীয় ব্যাপার হলো, এবার এখন পর্যন্ত যে রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচনে যাবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তাদের মধ্যে চমৎকার একটি মিল লক্ষণীয়। সবাই অন্তত মুখে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলে। সবাই বঙ্গবন্ধুকে জাতির পিতা হিসেবে স্বীকার করে। বিএনপি এই নির্বাচনে না আসায় বাংলাদেশের একটা বড় লাভ হলো। এর ফলে মূলধারা থেকে ছিটকে গেল বিএনপি। বাংলাদেশের রাজনীতির মূলধারা পাপমুক্ত হলো। এটাই হওয়া উচিত রাজনীতির ধারা। দেশের মৌলিক প্রশ্নে অভিন্ন মতের রাজনৈতিক সংস্কৃতি এদেশকে নিয়ে যাবে নতুন উচ্চতায়। 

তবে, রাজনীতি কুলুষমুক্ত হবে তখনই, যখন আগামী ৭ জানুয়ারির নির্বাচন হবে অবাধ, সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ। এই নির্বাচন সুষ্ঠু এবং সুন্দর হওয়া বাংলাদেশের জন্য জরুরী। এই নির্বাচনও যদি ২০১৪ কিংবা ২০১৮ সালের মতো প্রশ্নবিদ্ধ হয় তাহলে তা হবে এদেশের রাজনীতির জন্য দুর্ভাগ্যজনক। এর ফলে আবার স্বাধীনতাবিরোধী ধারা শক্তিশালী হবে। পুনর্জন্ম হবে বিএনপির। রাজনীতির শেষ আশার প্রদীপ টুকুও নিভে যাবে। জয়-পরাজয়ের চেয়ে এবারের নির্বাচন সুষ্ঠু এবং উৎসবমুখর হওয়া জরুরী। একটি ভালো নির্বাচন বাংলাদেশের রাজনীতিতে বিভক্তির শেকড় উপড়ে ফেলতে পারে। বিএনপির কফিনে শেষ পেরেক ঠুকতে পারে। 

আরেকটি ক্ষেত্রে এবারের নির্বাচন গুরুত্বপূর্ণ। ২৮ অক্টোবরের পর মুখ থুবড়ে পড়ে বিএনপির রাজনীতি। নির্বাচন কমিশনের তফসিল ঘোষণার পর নির্বাচন নিয়ে দ্বিধা-দ্বন্দ্ব কেটে যাবে। এখন সারা দেশে সৃষ্টি হয়েছে নির্বাচনী উত্তেজনা। এবারের নির্বাচনে শুরুতেই আওয়ামী লীগের পক্ষে একটি আবহ সৃষ্টি হয়েছে। নৌকার পক্ষে একটি জোয়ার উঠেছে। যে সব দল নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে তারা সবাই দ্বিতীয় হতে চায়। জাতীয় পার্টি, তৃণমূল বিএনপি, বিএনএম সবাই প্রধান বিরোধীদল হতে চায়। আওয়ামী লীগ ছাড়া কোন দল নির্বাচনে জিতে সরকার গঠন করবে, এমনটি স্বপ্নেও ভাবে না। এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ অপ্রতিদ্বন্দ্বি। তাই রাজনীতিকে পরিশুদ্ধ করার এক ঐতিহাসিক দায়িত্ব আওয়ামী লীগের কাঁধে। ৭৫ এর পর রাজনীতিতে যে দূষণ তাতে আক্রান্ত হয়েছে আওয়ামী লীগও। অস্তিত্ব টিকে রাখার জন্য ভোটে জয়ী হতে আওয়ামী লীগকে অনেক আপোষ করতে হয়েছে। আদর্শের বাইরে লোকজনকে মনোনয়ন দিতে হয়েছে। দূর্বৃত্ত, লুটেরারা আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করে হয়েছেন মন্ত্রী, এমপি। টানা ১৫ বছর ক্ষমতায় থাকার কারণে দলের ভেতর বানের পানির মতো প্রবেশ করেছে হাইব্রিড, চাটুকার, মতলববাজরা। ভাড়াটে রাজনীতিবিদদের অত্যাচারে আওয়ামী লীগ অতিষ্ঠ। গত ১৫ বছরে ব্যাপক উন্নয়নের পরও আওয়ামী লীগের যা বদনাম তা এসব ব্যাংক লুটেরা, অর্থপাচারকারী দূর্বৃত্তদের কারণেই। গত কয়েক বছর ধরে শেখ হাসিনা সত্যিকারের ত্যাগী, পরীক্ষিতদের সামনে টেনে আনার চেষ্টা করেছেন। এদেরকে বিভিন্ন উপনির্বাচনে মনোনয়নও দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। এবারের মনোনয়নে বিতর্কিতদের বাদ দেয়ার এক সুবর্ণ সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এটি একটি মহেন্দ্রক্ষণ। আওয়ামী লীগ যদি এসব অনুপ্রবেশকারীদের মনোনয়ন না দেয় তাহলে দেশ বাঁচবে, রাজনীতি রক্ষা পাবে। এই কঠিন সিদ্ধান্ত নেয়ার এখনই সময়। আওয়ামী লীগ কি পারবে?

সৈয়দ বোরহান কবীর, নির্বাহী পরিচালক, পরিপ্রেক্ষিত
ই-মেইল: poriprekkhit@yahoo.com


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

বাংলাদেশ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের তিন কৌশল

প্রকাশ: ০৮:০০ পিএম, ২৪ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

বাংলাদেশ নিয়ে নির্বাচনের আগ পর্যন্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অত্যন্ত সরব ছিলেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একের পর এক কূটনীতিকরা বাংলাদেশ সফর করেছেন এবং তারা বাংলাদেশে নির্বাচন সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে নানা রকম পরামর্শ দিয়েছেন, হুমকিও দিয়েছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশে যেন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয় তা নিশ্চিত করার জন্য ভিসা নীতি ঘোষণা করে এবং সেই ভিসা নীতি গত সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর করা হয়েছে বলেও আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়। কিন্তু যে মুহূর্তে ২৮ অক্টোবর বিএনপি সন্ত্রাস, সহিংসতা এবং তাণ্ডব করল, সাথে সাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান বদলে যেতে শুরু করে। এরপর অবশ্য ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাস নির্বাচন কমিশন সহ বিভিন্ন জায়গায় গিয়েছিলেন, বৈঠক করেছেন। মার্কিন দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু প্রধান তিনটি রাজনৈতিক দলকে চিঠি দিয়েছিলেন, তারা যেন শর্তহীন আলোচনায় অংশগ্রহণ করে।

কিন্তু সবকিছু মিলিয়ে শেষ পর্যন্ত আর সংলাপ হয়নি। এককভাবে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। নির্বাচনের তফসিলের পর পরই ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস উড়ে চলে যান। প্রথমে কলম্বো, সেখান থেকে ওয়াশিংটনে। এখন পর্যন্ত তিনি দেশে ফেরেননি। অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন চায় এরকম একটি রুটিন বক্তব্য প্রতিনিয়ত দিয়ে যাচ্ছে। আসলে বাংলাদেশ নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কৌশল কি এটি নিয়ে কূটনীতিক বিশ্লেষকদের মধ্যে চলছে নানা রকম আলোচনা। 

কূটনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, বাংলাদেশ নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তিনটি কৌশলে এগোচ্ছে। প্রথমত, তারা এখনও গোপনে গোপনে বিএনপিকে নির্বাচনে নিয়ে আসার চেষ্টা করছে এবং এ নিয়ে তারা তাদের মিত্র দেশগুলো অর্থাৎ ইউরোপের দেশগুলোর ওপর বেশি নির্ভর করছে । ইউরোপের দেশগুলো গত কিছুদিন ধরেই আওয়ামী লীগ-বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করছেন। এসব বৈঠকের মাধ্যমে বিএনপিকে নির্বাচনের মাঠে নিয়ে আসার জন্য একটা প্রচেষ্টা হচ্ছে। 

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চাওয়া হলো যে, বাংলাদেশে এমন একটি নির্বাচন হোক যেখানে সবগুলো রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করুক। অর্থাৎ সোজাসাপটা হলো বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক। বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করলে সেই নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক বিবেচিত হবে না বলেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আগে বলেছিল। কিন্তু এখন যেহেতু বিএনপি নির্বাচন থেকে নিজেদেরকে সরে রেখেছে নির্বাচন প্রতিহতের ডাক দিয়েছে, সেজন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নির্বাচন নিয়ে একটি মৌন ব্রত অবলম্বন করছে। কিন্তু তারা শেষ পর্যন্ত বিএনপিকে নির্বাচনে আনার কৌশল অব্যাহত রাখবে বলে মনে করছেন কোন কোন কূটনীতিকরা। 

দ্বিতীয়ত, ভারতের প্রতি আস্থা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশে চীনের আধিপত্য বন্ধ দেখতে চায়। বাংলাদেশের বাজার চায়, বঙ্গোপসাগরে হিস্যা  চায়। এই বিষয়গুলোর জন্যই বাংলাদেশে নির্বাচন, গণতন্ত্র, মানবাধিকার ইত্যাদি নিয়ে তারা চাপ সৃষ্টি করছিল বলে কোন কোন কূটনীতিক মনে করেন। আর এই বিষয়টি নিয়ে এখন ভারত বাংলাদেশের পক্ষ থেকে মধ্যস্থতা করছে এবং ভারত সর্বশেষ গত ১০ নভেম্বর টু প্লাস টু সম্মেলনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তাদের অবস্থানের কথা সোজাসাপ্টা ভাবে জানিয়ে দিয়েছে। ভারতের এই অবস্থানের পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আসলে বাংলাদেশ নিয়ে কিছু করার নেই এমনটা মনে করছেন কূটনীতিকরা। কারণ ভারতের অবাধ্য হয়ে বাংলাদেশে কিছু করলে সেটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য ক্ষতি ছাড়া কোনো লাভ বয়ে আনবে না। আর তাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের যে আগ্রহ এবং আকাঙ্ক্ষার জায়গাগুলো তা ভারতকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। ভারত তাদেরকে আশ্বস্ত করেছে যে নির্বাচনের পর বিষয়গুলো দেখা হবে। এরকম একটি কৌশল থেকে বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান করছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এমনটাই মনে করছেন কোন কোন মহল। 

তৃতীয়ত, অনেকে মনে করছেন যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশে যে বিরাজনীতিকরণ এবং তৃতীয় শক্তিকে ক্ষমতায় আনার চেষ্টা করছিল তা এখনও অব্যাহত রয়েছে। তারা আসলে নির্বাচন পর্যন্ত অপেক্ষা করছে এবং নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ভুল করবেই, অতি উৎসাহীরা কারচুপি করবেই—এরকম ভুলের অপেক্ষায় আছে যুক্তরাষ্ট্র। এ রকম ভুল হলেই ভিসা নীতি সহ নানা রকম সাঁড়াশি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে যে ব্যবস্থাগুলো আওয়ামী লীগকে বিপর্যস্ত করবে এবং হয়তো শেষ পর্যন্ত তারা ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হবে। এই তিন কৌশলের যে কোন একটি বা একাধিক কৌশল নিয়ে বাংলাদেশে কাজ করছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এমনটাই মনে করেন কূটনৈতিক বিশ্লেষকরা।

বাংলাদেশের নির্বাচন   ভারত   মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন