ঢাকা, বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮, ২ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

রেডি হচ্ছেন সিয়াম

বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ শনিবার, ০৫:০৯ পিএম
রেডি হচ্ছেন সিয়াম

আসছে পয়লা বৈশাখে মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে ‘পোড়ামন ২’। তার আগে ভালোবাসা দিবসের বিশেষ নাটক ‘তবুও ভালোবাসি’। দুটি কাজ নিয়েই বেশ উচ্ছ্বসিত সিয়াম আহমেদ। খুঁটিনাটি আরও অনেক কিছু নিয়ে মুখোমুখি হয়েছেন বাংলা ইনসাইডারের।

‘পোড়ামন ২’ সিনেমার শুটিং শেষ, ব্যস্ততা কী নিয়ে?

এখন আমি কনফিউজড। হাতে আপাতত চারটা ফিল্মের অফার আছে। কোনটা ছাড়ব আর কোনটা করব তা নিয়ে টেনশনে আছি। আশাকরি কিছুদিনের মধ্যেই জানাতে পারব আমার পরের সিনেমাটি কি হচ্ছে। অথবা সামনে কি কি সিনেমায় কাজ করছি। তাছাড়া ‘পোড়ামন ২’ নিয়ে প্রমোশন করার চিন্তাভাবনা আছে। ‘পোড়ামন ২’কে আমি যতটুকু ফিল করতে পেরেছি। আর পোস্টার থেকে শুরু করে সবকিছু নিয়ে মানুষ যতটা আগ্রহ দেখাচ্ছে। আশাকরি এ বছর সিনেমাটি মুক্তির আগে যেমন আলোচনায়, মুক্তির পরেও আলোচনার সঙ্গে প্রশংসিত ও দর্শক নন্দিতও হবে।

নায়িকা পূজার সঙ্গে রসায়ন দর্শক কীভাবে নিবে বলে মনে করেন?

পূজা খুবই ট্যালেন্ট একজন অভিনেত্রী। দর্শকের পছন্দ হওয়ার নানা কারণ রয়েছে। দুষ্ট মিষ্টি, টক জ্বাল একটা কেমেস্ট্রি পাবে। মফস্বলে রিয়াল কেমেস্ট্রি যেটা। একটা সময় যে প্রেমটা পর্দায় দেখতে মানুষ খুব পছন্দ করতো। সেটা এ সিনেমায় দেখতে পাবে।

পরিচালক রায়হান রাফির বড় পর্দায় প্রথম কাজ, আপনারও প্রথম। দুজনার ক্যামেস্ট্রি কেমন ছিল?

দুজনের প্রথম হওয়াতে তো ক্যামেস্ট্রিটা আরও বেশি জমেছে। আর কাজ করতে গিয়ে যে সুবিধাটা হয়েছে। দুজনেই অনেক খুতখুতে ছিলাম। প্রতিটা শর্ট ১৪ বার ভেবে ওকে করেছি। আমরা সবসময় এই ভেবেছি, প্রথম কাজটা দিয়েই যেন দর্শকের মনে জায়গা তৈরী করে নিতে পারি। রাফির নির্মাণশৈলী আমরা আগেও দেখেছি। গল্প বলার ভঙ্গি কিংবা ভাবনাগুলো ভালো। রাফির সবচেয়ে ভালো যে ব্যাপারটা, শর্টে যাওয়ার আগে আমাদের কাছ থেকে ইনপুটটা নেয় যে তুমি কি মনে করছো। তুমি কি করতে চাও এই জায়গায়। যখন এটা বলে। তখন আমাদের একটা মত প্রকাশের জায়গা তৈরী হয়। এর ফলে আমাদের বোঝাপড়াটা অনেক ভালো হয়েছে। রাফি কি চায়, এটা মোটামুটি আমরা ওর চোখ দেখেই বুঝেছি।

নাটক থেকে সিনেমায়, জার্নিটা কেমন ছিল?

আমি যে খুব বেশিদিন নাটক করছি এমনটা নয় কিন্তু। তবে আমি মনে করি অনেক কম সময় ভালো কিছু অর্জন করতে পেরেছি। নাটক, শর্টফিল্ম বা অন্যন্য সব দিয়ে মানুষের যে ভালবাসাটা পেয়েছিলাম আমি। ওই ভালবাসাটাই কিন্তু আমাকে সিনেমায় টেনে নিয়ে গেছে। আমি সিনেমায় যাওয়ার সাহসটা পেয়েছি। ক্যানভাসের পার্থক্যটা হলো, এটার ক্যানভাস তো অবশ্যই অনেক বড়। ছোটপর্দায় বাজেট নিয়ে আমরা সবসময় সংশয়ে থাকি। এখানে সে ব্যাপারটায় একটা শান্তির জায়গা আছে। আমি যেটা সবসময়েই চেয়েছি। ক্যারেক্টারটাকে একটা স্টাডি ভেবে সময় নিয়ে অভিনয় করা। এইটা ফিল্মেই শুধুমাত্র সম্ভব। এখানে বলে তুমি সময় নেও, দিনে দুইটা বা তিনটা সিকোয়েন্স করো। কিন্তু ভেবে ভেবে করো। পারফেক্টলি কিছু করো। ফিল্মে আমরা দিনে বড়জোর পাঁচটা থেকে ছয়টা সিকোয়েন্স করেছি। আর নাটকে দেখা যায়, দুদিনে আমাদের পুরো একটা নাটক নামাতে হয়। ওখানে তাই প্রিপারেশন নেয়া ও নিজেকে ভাঙ্গার খুব বেশি জায়গা থাকে না।

ছোটপর্দায় ফের কাজ করা, প্রথম ছবি তো মুক্তি মিললো না এখনো….

ছোটপর্দা আমার উঠতি স্থল। ছোটপর্দা আমার জন্মস্থান। জন্মস্থানে আমরা ফিরে আসবো, এটাই স্বাভাবিক। তবে এইবার কাজ করার কারণ হচ্ছে, ‘তবুও ভালোবাসি’র পরিচালক রুবায়েত মাহমুদ। তাকে আমি গত বছর কথা দিয়েছিলাম যে যদি সে ‘ক্লোজআপ কাছে আসার গল্প’ আবারও করে, তাহলে আমিই করবো। গত বছর আমরা যখন একসঙ্গে কাজ করলাম। উনি সিদ্ধান্ত নিয়ে রেখেছিলেন সামনেও সিয়ামকেই আমার লাগবে। গত বছর ‘মেঘ এনেছি ভেজা’ নাটকটি খুব প্রশংসা পায়। ভ্যালেন্টাইন উপলক্ষেই নাটকটি করা। একটা নাটকই করছি এবং তা কমিটমেন্ট রক্ষার জন্য।

তাহলে কি ছোটপর্দায় আপাতত দেখা যাবে না?

এমনটা ঠিক নয়। আসলে কনটেন্টটা এমন হতে হবে, যেটা আমাকে টানে। যদি কোন কনটেন্ট এমন হয় যে আমি না করে থাকতে পারছি না। তাহলে তা অবশ্যই করবো। ছোট হলেও আমার যে একটা অডিয়েন্স মহল আছে। তারা অপেক্ষা করছিলেন অনেকদিন ধরে সিয়ামের নাটক দেখছি না। তাঁরা নানাভাবে নক দিচ্ছিলো ভাই আপনার নাটক দেখছি না। আপনার নাটক দেখতে চাই। কাজ করতে গিয়ে একটা দায়বদ্ধতা তো তৈরি হয়েছে। এরকম যদি কোন অফার আসে যে আমি না করে থাকতে পারছি না, তাহলে অবশ্যেই করবো।

জাজের সঙ্গে সামনে কোন সিনেমার প্ল্যানিং?

আরও একটি সিনেমার কথা চলছে। পরিচালক রায়হান রাফিই থাকবে। স্ক্রিপ্টও মোটামুটি রেডি। এটা দেশপ্রেম নিয়ে। ওটার জন্য নিজেকে কতটা প্রস্তুত করতে পারবো সেটা নিয়ে একটু টেনশনে আছি। আশাকরি মার্চের দিকে এর কাজ শুরু হবে। এর থেকেও দেরী হতে পারে।

সিনেমা করতে গিয়ে স্বরণীয় কোনো ঘটনা?

বেশ কিছুই আছে। যেমন আমার যে ইনট্রডাকশন র্শট ছিল। তার ঠিক আগের রাতে আমাদের ডিওপি শাহিন ভাইয়ের তার বাবা মারা যায়। তার কমিটমেন্টের জায়গাটা এত স্ট্রং ছিল যে তার বাবাকে কবর দিয়ে আবার পরের দিন শুটিংয়ে এসেছেন। আমার শর্ট নিয়েছেন। উনি যাওয়ার আগে বলে গিয়েছিলেন সিয়াম তুমি টেনশন করো না, তোমার প্রথম শর্টটা আমিই নিবো। এইটা আমি কখনোই ভুলতে পারবো না যে ভালবাসা তিনি আমাকে দিয়েছেন। 

বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ/জেডএ