ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ৩ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সৈয়দ শামসুল হকের প্রয়াণ দিবস আজ

বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ বৃহস্পতিবার, ০৩:৫২ পিএম
সৈয়দ শামসুল হকের প্রয়াণ দিবস আজ

কবিতা, গান, গল্প, উপন্যাস, নাটক, সিনেমার চিত্রনাট্য-শিল্প-সাহিত্যের সব শাখা চষে বেড়িয়েছেন সৈয়দ শামসুল হক। এ জন্য তাঁকে বলা হয় ‘সব্যসাচী’ লেখক। তাঁর লেখা গান ‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস দম ফুরাইলে ঠুস’ এর মতোই ২০১৬ সালের এই দিনে দম ফুরিয়ে যায় কিংবদন্তি এই লেখকের। আজ ২৭ সেপ্টেম্বর তাঁর দ্বিতীয় প্রয়াণ দিবস।

সৈয়দ শামসুল হকের জন্ম ১৯৩৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর কুড়িগ্রামে। ‘ধরলা’ নদীর পাড়ে শৈশব কাটানো এ লেখক কুড়িগ্রাম শহরের রিভারভিউ স্কুলে পড়ালেখা করেছিলেন নবম শ্রেণি পর্যন্ত। পেশায় হোমিও চিকিৎসক বাবা চাইতেন ছেলে চিকিৎসাবিদ্যায় পড়বে। কিন্তু তিনি এ চাপ এড়াতে ১৯৫১ সালে ভারতের মুম্বাই পালিয়ে যান। সেখানে তিনি বছরখানেক একটি সিনেমা প্রডাকশন হাউসে সহকারী হিসেবে কাজ করেন। এর পর দেশে ফিরে ভর্তি হন জগন্নাথ কলেজের মানবিক শাখায়। পরে ১৯৫৪ সালে তিনি ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগে। তবে পড়াশোনা অসমাপ্ত রেখেই বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়েন তিনি। এরপর নিজের প্রহম উপন্যাস ‘দেয়ালের দেশ’ প্রকাশ করে ঢুকে পড়েন সাহিত্য জগতে।

সেই থেকে শুরু। ১৯৫৭ থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত সৈয়দ হক ৩০টির মতো চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য রচনা করেন। সৈয়দ হকের লেখা ‘মাটির পাহাড়’, ‘তোমার আমার’, ‘রাজা এল শহরে’, ‘শীত বিকেল’, ‘সুতরাং’, ‘কাগজের নৌকা’ ইত্যাদি চলচ্চিত্র দর্শকপ্রিয় হয়।

সৈয়দ হক চলচ্চিত্রের জন্য গানও রচনা করেন। ‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস’, ‘তোরা দেখ দেখ দেখরে চাহিয়া’ ‘এমন মজা হয় না, গায়ে সোনার গয়না’, ‘তুমি আসবে বলে কাছে ডাকবে বলে’, ‘চাঁদের সাথে আমি দেবনা তোমার তুলনা’ এর মতো তাঁর লেখা জনপ্রিয় সব গান বাংলা চলচ্চিত্রকে সমৃদ্ধ করেছে।

গান ও চলচ্চিত্র নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও থেমে থাকেনি সৈয়দ হকের কবিতা, উপন্যাস কিংবা ছোটগল্প রচনা। জীবদ্দশায় তিনি প্রায় ৪০ টি উপন্যাস, ২০টি কবিতার বই, ৯টি ছোট গল্প এবং বহু শিশু সাহিত্য, অনুবাদ ও কাব্যনাট্য লিখেছেন।

লেখালেখিতে অসামান্য অবদানের জন্য পেয়েছেন সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সম্মাননা স্বাধীনতা পদক ও একুশে পদক। এছাড়া বাংলা একাডেমি পদক, আদমজী সাহিত্য পুরস্কার, পদাবলী কবিতা পুরস্কার, জাতীয় কবিতা পুরস্কার, আইএফআইসি ব্যাংক সাহিত্য পুরস্কারসহ অসংখ্য সম্মাননা। 


বাংলা ইনসাইডার/ এইচপি