ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ২৯ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

শাকিব কী বলবেন জালিয়াতিতে অভিযুক্ত বুবলীর ভাইকে নিয়ে?

বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৭ অক্টোবর ২০১৮ বুধবার, ০৭:৩৪ পিএম
শাকিব কী বলবেন জালিয়াতিতে অভিযুক্ত বুবলীর ভাইকে নিয়ে?

ঢাকাই চলচ্চিত্রের নায়িকা শবনম বুবলী সব সময় সিনেমা নিয়ে নতুন নতুন সুখবর জানান। কিন্তু কিছুদিন আগে হয়েছে ব্যতিক্রম। উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে বুবলী জানালেন, তার একমাত্র ছোটভাই জাহিদ হাসান আকাশ এবারের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় ঢাকা বোর্ডের অধীন রাজউক উত্তরা মডেল কলেজের বাণিজ্য বিভাগ থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে ‘জিপি ৫’ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে।

ছোট ভাইয়ের দারুন ফলাফলে এই নায়িকার পরিবারে এখন অনেকটা উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। খবরটি জানিয়ে নিজের ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছেন বুবলী। সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘আমার ছোটভাই রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ থেকে (এইচএসসি)-তে ‘জিপিএ ৫’ পেয়েছে। তোমার জন্য গর্বিত ভাইয়া। সবাই তার জন্য দোয়া করবেন।’ সেই আনন্দে ভাগ বসিয়েছিলেন নায়ক শাকিব খানও। নায়িকার ভাইয়ের এমন কীর্তিতে তিনি শুভকামনা জানান।

আজ প্রকাশ হলো অন্যরকম খবর। সি‌নেমার গ‌ল্পের ম‌তোই হঠাৎ তু‌খোড় মেধাবী হ‌য়ে গেল না‌য়িকা শবনম বুবলীর একমাত্র ছোট ভাই জাহিদ হাসান আকাশ। গ ইউনিটের পরীক্ষায় যে পাসই করেনি, আর ঘ ইউ‌নি‌টে প্রথম।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে মঙ্গলবার (১৬ অক্টোবর)। এতে ২৬.২১ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছেন। এর আগে পরীক্ষার দিনই এই ইউনিটের প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ ওঠে। এই অভিযোগের মধ্যেই ফল প্রকাশ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। যেখানে মেধা তালিকায় থাকা শিক্ষার্থীদের দুই ইউনিটের ফলাফলের মধ্যে ব্যাপক পার্থক্য দেখা যায়।

অনুসন্ধানে দেখা যায়, ঘ ইউনিটে মেধাতালিয়ায় ১০০ ক্রমের মধ্যে থাকা ৭০ জনের বেশি শিক্ষার্থী তাদের নিজ নিজ অনুষদের ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হননি।

জাহিদ হাসান আকাশ ব্যবসায় শিক্ষা শাখা থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছেন। গত ১২ অক্টোবর তিনি ঢাবির সমাজ বিজ্ঞান অনুষদে ভর্তির জন্য ঘ ইউনিটে পরীক্ষা দেন। সেখানে ব্যবসায় শাখা বিভাগে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন। অথচ ব্যবসায় শিক্ষা শাখার এই শিক্ষার্থী বাণিজ্য অনুষদে ভর্তির জন্য দেওয়া গ ইউনিটের পরীক্ষায় ফেল করেছিলেন।

ঢাবির গ ইউনিটের পরীক্ষায় ফলাফলে দেখা যায় তিনি বাংলায় পেয়েছিলেন ১০.৮, ইংরেজিতে পেয়েছিলেন ২.৪০। অথচ এই শিক্ষার্থী ঘ ইউনিটের পরীক্ষায় বাংলায় ৩০ এর মধ্যে ৩০, ইংরেজিতে ৩০ এর মধ্যে ২৭.৩০ পেয়েছেন। যা রেকর্ড বলা যায়।

ব্যবসায় শিক্ষা শাখা থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করে আসা এই শিক্ষার্থী ঢাবির গ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় সর্বমোট ১২০ নম্বরের মধ্যে পেয়েছিলেন ৩৪.৩২। অথচ মাত্র এক মাসের ব্যবধানে ঘ ইউনিটের পরীক্ষায় মোট ১২০ নম্বরের মধ্যে তিনি ১১৪.৩০ পেয়ে সম্মিলিত মেধাতালিকার বাণিজ্য শাখায় প্রথম স্থান অধিকার করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বলছে, গত ২০ বছরে ১২০ এর মধ্যে ১১৪.৩০ কেউ পায়নি। দ্বিতীয় স্থানে যিনি রয়েছেন তিনি ১২০ এর মধ্যে পেয়েছেন ৯৮.৪০। মেধাক্রমে যার ব্যবধান অনেক।

এমন কাণ্ডে শাকিব খান কী বলবেন? তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তিনি এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি। তিনি বলেন, আমি কি বলবো এ বিষয়ে! ও ভালো রেজাল্ট করেছিল শুনে ভালো লেগেছে। এখন যদি এমন কিছু সত্যিই হয়ে থাকে। সেটা দু:খজনক।

শাকিব বর্তমানে ‘একটু প্রেম দরকার’ ছবির প্রথম পর্যায়ের শুটিং নিয়ে ব্যস্ত। শুটিং চলছে শাকিব খানের শুটিং বাড়ি ‘জান্নাতে’। শাহিন সুমন পরিচালিত এই ছবিতে শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করছেন শবনম বুবলী। তিনিও জান্নাতে অবস্থান করছেন। আগামীকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত প্রথম দফার শুটিং শেষ হবে বলে জানা যায়।


বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ