ঢাকা, সোমবার, ২৭ মে ২০১৯, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

বলিউডে ভাই-ভাই সম্পর্ক

বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ মার্চ ২০১৯ বুধবার, ০৫:০৭ পিএম
বলিউডে ভাই-ভাই সম্পর্ক

বলিউড সিনেমায় উঠে এসেছে আমাদের সম্পর্কের নানা দিক। মা-ছেলের সম্পর্ক, বাবা-ছেলের সম্পর্ক, বন্ধুর সঙ্গে বন্ধুর সম্পর্ক, এমন কত পারিবারিক সম্পর্ক দেখানো হয়েছে বলিউড সিনেমায়। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্যভাবে বলা যায় ভাইয়ের সঙ্গে ভাইয়ের সম্পর্কের গল্পের কথা। বলিউডে অসংখ্য জনপ্রিয় সিনেমা নির্মাণ হয়েছে যেখানে ভাইয়ের সঙ্গে ভাইয়ের সম্পর্ককে গুরুত্ব দিয়ে নির্মাণ হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে বেশকিছু ক্ল্যাসিক সিনেমা। এ যুগেও নির্মাণ হয়েছে এই সম্পর্ক নিয়ে সিনেমা।

রাম অউর শ্যাম (১৯৬৭)

ছবিটি নির্মাণ করেছেন টাপি চানৈক্য। বলা যায় এই সিনেমাটিই বলিউডসহ উপমহাদেশে জমজ ভাইয়ের সম্পর্ক নিয়ে সিনেমা নির্মাণের পথিকৃত। সিনেমায় দীলিপ কুমার ডাবল চরিত্রে অভিনয় করেছেন। দুই ভাইয়ের নায়িকা ছিলেন ওয়াহিদা রহমান ও মমতাজ। সিনেমায় দেখা যায় দুই ভাই জন্মের সময় আলাদা হয়ে যায়। অনেক বছর পর তাদের দেখা হয়। তখন তারা দুজন ভিন্ন পরিবেশে বেড়ে উঠেছে।

গঙ্গা যমুনা (১৯৬১)

দিলীপ কুমার তার আপন ভাই নাসির খানের সঙ্গে এই সিনেমায় অভিনয় করেন। ভাইয়ের চরিত্রই ছিল দুজনার। এক ভাই ডাকাত ও অন্যজন পুলিশের চরিত্রে অভিনয় করেন। আদর্শের লড়াই এই সিনেমার মূল ইস্যু।

ওয়াক্ত (১৯৬৫)

ছবিটি পরিচালনা করেছেন যশ চোপড়া। একযাক তারকা অভিনয়শিল্পী এ্ সিনেমায় অভিনয় করেছেন। এর মধ্যে অন্যতম রাজ কুমার, সুনিল দত্ত, বলরাজ সাহনি, সাধনা, বলরাজ সাহনি, শশী কাপুর, শর্মিলা ঠাকুর, এবং আচালা সত্যদেব। সিনেমাটি মূলত এমন একটি পরিবার নিয়ে যারা আলাদা হয়ে যায়। যা কারণে তারা অনেককিছু হারায়। কোর্টরুম সিনেমাও বলা যায়। যে কোর্টে তিন ভাই ও তাদের বাবার সম্পর্ক দেখানো হয়। এটা বলিউডের অন্যতম সেরা ফ্যামিলি ড্রামা।

জনি মেরা নাম (১৯৭০)

ক্রাইম ধাচের সিনেমা। দেব আনন্দ সিনেমার মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন। হারিয়ে যাওয়া দুই ভাইয়ের সম্পর্ক নিয়ে সিনেমাটি নির্মাণ হয়েছে।

ইয়াদো কা বারাত (১৯৭৩)

নাসির হোসাইনের পরিচালনায় বলিউডের অন্যতম সেরা মিউজিক্যাল অ্যাকশন সিনেমা। সিনেমায় ধর্মেন্দ্র একমাত্র স্টার কাস্ট থাকেন। বেশ কয়েকটি নতুন মুখের দেখা মিলে এই সিনেমার মাধ্যমে। সিনেমার মিউজিক কম্পোজ করেন আরডি বর্মণ। তিন ভাইয়ের গল্প। তিন ভাই ছোটবেলায় হারিয়ে যায়।

দিওয়ার (১৯৭৫)

ভাই ভাইয়ের সম্পর্কের সবচেয়ে আলোচিত সিনেমা। নির্মাণ করেছেন যশ চোপড়া। দুই ভাইয়ের দ্বন্দ্ব নিয়ে সিনেমাটি নির্মাণ হয়েছে। হারিয়ে যাওয়া দুই ভাই আইনের ভিন্ন দুটি রুপ দেখেছে এবং তা বিশ্বাস করেছে। অমিতাভ বচ্চন ও শশী কাপুর সিনেমায় দুই ভাইয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন।

এছাড়াও ক্ল্যাসিক সিনেমার মধ্যে, ধরম ভীর (১৯৭৭), ত্রিশুল (১৯৭৮), অমর আকবর এনথনি (১৯৭৭), সোহাগ(১৯৭৯), সতী পে সাততা (১৯৮২), জানবাজ (১৯৮৬), রাম লাখান (১৯৮৯),হাম (১৯৯১), কিশেন কানহাইয়া (১৯৯০), রাম লক্ষণ (১৯৮৯)।

এ যুগের ভাইদের গল্প:

সালমান খান ও শাহরুখের ‘করণ অর্জুণ’ , সুনীল শেঠীর ‘গোপি কিষাণ’, অজয় দেবগন ও সাইফ আলী খানের ‘কাচ্চা দাগ’, সালমান খান ও সাইফ আলী খানের ‘হাম সাথ সাথ হে’, সাইফ আলী খান ও অক্ষয় খান্নার ‘রেস’, আমির খানের ‘ধুম থ্রী’, শারমান জোসির ‘সরি ভাই’, আলী আব্বাস জাফর, ইমরান খানের ‘মেরি ব্রাদার কি দুলহান’, অক্ষয় কুমার ও সিদ্দার্থর ‘ব্রাদার্স’, শাহরুখ খান ও জায়েদ খানের ‘ম্যা হুনা’, শাহরুখ খানের ‘কাভি খুশি কাভি গাম’, ববি দেওলের ‘বরদাশত’ সালমান খানের ‘রেস থ্রী’।


বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ