ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

অনিশ্চিত ভবিষ্যত?

বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত: ২০ মার্চ ২০১৯ বুধবার, ১০:০০ পিএম
অনিশ্চিত ভবিষ্যত?

নানা কারণে বর্তমান সময়ের একঝাঁক তারকার ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে। যেমন জাজ মাল্টিমিডিয়ার হাত ধরে সিনেমায় আগমন হয়েছিল একঝাঁক তারকার। এর মধ্যে কেউ কেউ অনেক আগেই জাজের ঘর থেকে অন্যকোথাও গিয়ে কাজ করছেন। বাপ্পী ও মাহি নিজের মতো ক্যারিয়ার গুছিয়ে নিয়েছেন। বাপ্পীর একটা শ্রেনীর কাছে জনপ্রিয়তা কিছুটা ধরে রাখলেও মাহি হারিয়ে যাওয়ার মিছিলে আছেন। অনেকটা দিন ধরে তিনি কোন সিনেমার মাধ্যমে আলোচনা তৈরী করতে পারছেন না। মাহিয়া মাহির হাতে ভালো কোন সিনেমা নেই। যে এক কিংবা দুই সিনেমা আছে তা দিয়ে তিনি কোন আলোচনা তৈরী করতে পারবেন বলে আপাত দৃষ্টিতে মনে হচ্ছে না। 

কিন্তু বর্তমান সময়ে যারা জাজের ঘরের বলে স্বীকৃত, তাদের কি দশা হবে? জাজ মাল্টিমিডিয়া অনেকটা গুটিয়ে নিয়েছে নিজেদের। জাজের কর্ণধর আব্দুল আজিজ আছেন পালাতক। ফলশ্রুতিতে জাজের ঘোষণা দেওয়া অধিকাংশ সিনেমাই অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে। আর এসব সিনেমার বেশিরভাগেরই নায়িকা ছিলেন পূজা চেরি। তিনি এখন বেকার সময় কাটাচ্ছেন। শুধু পূজা চেরি নয়, রোশানও জাজের বেশ কয়েকটি সিনেমার নায়ক হয়ে আসছেন বলে ঘোষণা আসছিল। যেসব সিনেমার ভবিষ্যত এখন অনিশ্চিত। সিয়াম জাজের ঘর থেকে ‘ফাগুন হাওয়ায়’ সিনেমাটি করেছেন। তিনি জাজের বাইরের পরিচালকদের সঙ্গে কথা বলছেন। খুব শিগগিরই হয়তো তিনি কাজ শুরু করবেন। তবে নানা কারণে সিয়ামও বেকার সময় কাটাচ্ছেন।

নুসরাত ফারিয়ার হাতে ছিল শাকিব খানের সঙ্গে ‘শাহেনশাহ’ সিনেমার শুটিং। কিন্তু এই এক ছবির পরে তার ক্যারিয়ারও আছে অনেকটা অনিশ্চয়তার পথে। শোনা যাচ্ছে সিনেমাকে গুডবাইও জানাতে পারেন তিনি।

পরীমনি এখন সিনেমার চেয়ে প্রেমের দিকে বেশি মনোযোগি। বিয়ে করে ঘর সংসারের প্রতি মনোযোগি হবেন কিনা সেটা সময়ই বলে দিবে। অনেকটা দিন তো কোন নতুন ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হচ্ছেন না।

শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানের হাতে কোন সিনেমা নেই। যদিও দুইটা সিনেমা থাকে, তা কতটা আলোচিত হবে সেটা বলা যায় না। নতুন কোন সিনেমার ঘোষণা নেই অনেকদিন।

অপু বিশ্বাস ফের সিনেমায় ফিরে যে ভালো কিছু করতে পারবেন সেটা প্রত্যাশা করা যায় না। ‘শ্বশুড়বাড়ি জিন্দাবাদ ২’ সিনেমাটি হবে তার কামব্যাক সিনেমা। কিন্তু বাপ্পির সঙ্গে যে তার জুটি কতটা দর্শক গ্রহণ করবে তা আগেই আঁচ করা যায় না। ববির ক্যারিয়ারও ঠিকঠাক নেই। আচল এখন ওয়েব সিরিজে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন।

মিম সিনেমা করে যাচ্ছেন। যদিও তার সিনেমা কপাল ভীষণ খারাপ। এখন পর্যন্ত প্রশংসনীয় কোন সিনেমার অংশ হতে পারেননি। এছাড়াও যারা আছেন সিনেমার ভবিষ্যত একরকম অনিশ্চিতই বলা যায়।

নতুনদের আগমন ঘটছে ঠিকই। কিন্তু তাদের কে ধরে রাখবে। হল মালিকরা যেমন ঘোষণা দিয়ে আছেন হল বন্ধের। তেমনি অভিনয়শিল্পীরাও কবে যেন ঘোষণা দিয়ে নায়ক-নায়িকা তকমাটা গা থেকে ঝেরে ফেলেন সেটাই দেখার বিষয়। কারণ দিনের পর দিন কাজ না থাকলে কতদিন আর চলে! নায়ক তকমা মুছে নাটক কিংবা মডেলিংয়েও হতে পারে জীবিকা নির্বাহ।


বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ