ঢাকা, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০১৯, ৯ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ঢাকাসহ সারাদেশে নববর্ষের যত আয়োজন

বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ এপ্রিল ২০১৯ শনিবার, ০৫:০০ পিএম
ঢাকাসহ সারাদেশে নববর্ষের যত আয়োজন

পয়লা বৈশাখ ঘিরে বাঙালিদের কত রকমের অনুষ্ঠান আর ভাবনা। পয়লা বৈশাখ মানেই পান্তাভাত খাওয়া, মেলায় ঘোরা, বৈশাখের নানা আয়োজনে অংশগ্রহণ ও কত কি! পাঠকদের জন্য আমরা দিয়ে দিচ্ছি বৈশাখের যত আয়োজনের খবর। পাঠক জেনে নিন কোথায় ঘুরতে পারেন বিশেষ এইদিনে। 

ঢাকা:

রমনার বটমূলে প্রতিবারের মতো এবারও নববর্ষের আয়োজনে মুখরিত আছে ধানমন্ডির ছায়ানট সংস্কৃতি ভবন। একদম ভোর থেকেই শুরু হয় তাদের আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সকাল ছয়টার পর থেকেই শুরু হয় মূল অনুষ্ঠান। সেখানে ছায়ানট চারুকলা অনুষদে।

পয়লা বৈশাখে রাজধানীর সব থেকে বড় আয়োজন করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে। বের করা হয় মঙ্গল শোভাযাত্রা। প্রতিবার চারুকলার শিক্ষার্থীরা তাদের তুলির আঁচড়ে রাঙিয়ে তোলে চারুকলাকে। তৈরি করে মুখোশ, প্ল্যাকার্ড, ফেস্টুন, আর ভাস্কর্য।

প্রতি বছর বাংলা নববর্ষকে বরণ করতে টিভি নাটক প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান টেলিহোম আয়োজন করে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের। যে অনুষ্ঠানে টিভি, চলচ্চিত্র এবং সংগীতাঙ্গনের প্রায় সকল শীর্ষ তারকারা অংশ নেন। দিনভর মেতে থাকেন বৈশাখী পানতা-ইলিশ-গল্প-গান-আড্ডায়।

এবার বর্ণিল এই আয়োজন ২৩ বছরে পা রাখছে। রাজধানীর ট্রাস্ট মিলনায়তনে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে এবারও অংশ নেবেন তারকা শিল্পী ও সংশ্লিষ্টরা। টেলিহোমের এই আয়োজনকে বিবেচনা করা হয় তারকা মিলনমেলার তীর্থস্থান হিসেবে।

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে পহেলা বৈশাখে ধানমণ্ডি লেকে আয়োজন করা হয়েছে দিনব্যাপী বর্ষবরণ অনুষ্ঠান। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ধানমণ্ডি লেক ভিউ কর্নারের আয়োজনে লেকের শতায়ু অঙ্গন মঞ্চে রোববার সকাল সাড়ে ৭টা থেকে শুরু হবে পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠান।

পহেলা বৈশাখ সকালে সংগঠনের সদস্যরা সমস্বরে গাইবেন- ‘এসো হে বৈশাখ এসো এসো।’ বর্ষবরণের আয়োজনমালায় রয়েছে পান্তা-ইলিশ, সাংস্কৃতিক পর্ব ও আলোচনা অনুষ্ঠান।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ঢাকা-১০ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

এ ছাড়া রাজধানীর কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে, বিলাসবহুল হোটেলে আয়োজন করা হচ্ছে বৈশাখী কনসার্ট। আর ঢাকার একদম আশে পাশে যেমন নবাবগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, গাজিপুর ইত্যাদির প্রায় প্রতিটি জায়গাতেই কয়েকটি গ্রাম মিলে আয়োজন করে মেলার। পয়লা বৈশাখের সেই গ্রামীণ মেলা থেকে আপনি নিতে পারেন সেই বাউল গান, আর মুড়ি মুড়কির স্বাদ।

রাজধানীর বিভিন্ন অভিজাত ক্লাব ও রেস্টুরেন্টেও রয়েছে পয়লা বৈশাখের আয়োজন।

চট্টগ্রাম:

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ ও চট্টগ্রাম চারুকলা কলেজের উদ্যোগে পৃথক পৃথক মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন রয়েছে। একই সঙ্গে বর্ষবরণের বিশেষ আয়োজন থাকছে ডিসি হল চত্ত্বরে। সকালে রাগ সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে শুরু হবে বর্ষবরণের এই আয়োজন। এছাড়াও নগরীর সিআরবি পাহাড়ে থাকছে বর্ষবরণের আরেকটি আয়োজন। দুটো আয়োজনই চট্টগ্রামের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের সম্মিলিত উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয়। দুই আয়োজনেই থাকছে বৈশাখী মেলা। এছাড়া নগরীর লালদিঘীর মাঠে রয়েছে বিশেষ মেলা।  এই মেলাতেই শুরু হবে ঐতিহাসিক জব্বারের বলী খেলা।    

খুলনা:

সকালে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সার্কিট হাউস ও খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগ নগরীর বিভিন্ন স্থান থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করা হবে। এ ছাড়া খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে হবে ঘুড়ি উৎসব। বৈশাখের সকালে ক্যাম্পাসে মেলার আয়োজন রয়েছে।

এ ছাড়া নগরীর শহীদ হাদিস পার্কে নগর সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র,শান্তিধাম মোড়ের জাতিসংঘ পার্কে আব্বাস উদ্দিন একডেমিসহ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হবে প্রতিবারের মতো।

এ ছাড়া খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্ষবরণ সঙ্গীতানুষ্ঠান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বানর খেলা, লাঠিখেলা, ম্যাজিক শো, নাগরদোলা ইত্যাদির আয়োজনও রয়েছে।

সিলেট:

সিলেটে সকাল সাড়ে ৭টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে আয়োজিত দিনব্যাপী কর্মসূচীর আয়োজন করা হয়েছে। তাতে থাকছে বৈশাখের গান, লোকসংগীত, কাঠিনৃত্য, ঝুমুরনৃত্য, লোকনৃত্য, লাঠি খেলা, একক ও সম্মেলক সংগীত, বৃন্দ আবৃত্তি, জারিগান, ধামাইল, মণিপুরীনৃত্য, আবৃত্তি, বাউলগান এবং চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা।

এ ছাড়া বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী সিলেট জেলা সংসদ বর্ষবরণ উৎসব আয়োজন করবে প্রতিবারের মতো।

এ ছাড়া সিলেটের নানা সংগঠনের আয়োজনে থাকে মঙ্গল শোভাযাত্রা,স্বরচিত কবিতা পাঠের আসর, নৃত্যানুষ্ঠান, আলোচনা সভা, সঙ্গীতানুষ্ঠানবাউল মেলা , রাধা রমনের গান, একক ও সম্মেলক কণ্ঠে সংগীত, আবৃত্তি, নৃত্যসহ নানান অনুষ্ঠান।

রাজশাহী:

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের আয়োজনে প্রতি বছর থাকে র‍্যালি, মঙ্গল শোভাযাত্রা আর নানা ধরনের সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের পরিকল্পনা। এ ছাড়া সেদিন যেহেতু ব্যবসায়ীরা ‘হালখাতা’ উদযাপন করেন তাই সেদিন প্রায় প্রতিটি ব্যবসায়ী পরিবারও নিজেদের মতো করে বৈশাখের আলাদা এক ধরনের আনন্দে মেতে ওঠেন।

বরিশাল:

প্রায় ৩৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাংলা নববর্ষ ১৪২৪ বরণ উপলক্ষে নগরীর ব্রজমোহন বিদ্যালয় মাঠে ব্যাপক কর্মসূচি রেখেছে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী বরিশাল জেলা সংসদ। তারা সকাল সাড়ে ছয়টায় প্রভাতী অনুষ্ঠান করবে। প্রভাতী অনুষ্ঠানের পরপরই থাকে রাখি বন্ধন, ঢাক উৎসব ও ৮টায় সার্বজনীন মঙ্গল শোভাযাত্রা।

মঙ্গল শোভাযাত্রা ব্রজমোহন বিদ্যালয় মাঠ থেকে শুরু হয়ে নগর প্রদক্ষিন শেষে আবার ব্রজমোহন বিদ্যালয় মাঠেই শেষ হয়। বছরের পর বছর ধরে সে ধারাই চলে এসেছে। এ ছাড়া সকালে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা আয়োজন করা হয়।

 

বাংলা ইনসাইডার