ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

টাইগারদের কাছে তারকাদের এখন কি প্রত্যাশা?

বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২ জুন ২০১৯ বুধবার, ০২:২৪ পিএম
টাইগারদের কাছে তারকাদের এখন কি প্রত্যাশা?

ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপ খেলছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। আর বাংলাদেশ থেকে তাদের দিকে চেয়ে কোটি মানুষ। ক্রিকেট দলকে নিয়ে কত প্রত্যাশা কত স্বপ্ন। শোবিজ অঙ্গনের তারকারাও চেয়ে আছেন বাংলাদেশ দলের দিকে। গত তিনটি ম্যাচ দেখেছেন এমন কয়েকজন তারকা জানালেন তাদের অনুভূতি।  

ওমর সানী: ইংল্যান্ড তো বাংলাদেশের সঙ্গে চারশো রান করে ফেলতো। এত বড় স্কোর যখন বিপক্ষ দল করে। তখন নিশ্চয়ই বুঝতে হবে বোলিংয়ে গাফিলতি আছে। বোলিংয়ে দুর্বলতা আছে। সেখানে কিভাবে আমরা উন্নতি করতে পারি সেটা ভাবতে হবে। এত বড় স্কোর কিন্তু সচরাচর হয় না। যেটা ইংল্যান্ড বাংলাদেশের সঙ্গে করে ফেললো। আবার আমার কেন যেন মনে হচ্ছে ওভার কনফিডেন্সটা আমাদের কিছুটা ভোগাচ্ছে। সাউথ আফ্রিকার বিরুদ্ধে জয়টাকি ভাবিয়েছে যে যেকোন প্লেয়ারই পারফর্ম করতে পারে বাংলাদেশের? কারণ যখনই আমি দেখছি প্রথম দুই চারজন ভালো রান করছে না, তখনই টিম ধুমরে মুচরে যাচ্ছে। কেউ আর দাড়াতে পারছে না। আমি মনে করি বিশ্বের যেকান দলের চেয়ে গড়পরতা বাংলাদেশের বোলিং খারাপ নয়। বিশেষ করে ইংল্যান্ডের সঙ্গে যে আমরা এত বড় ব্যবধানে হারলাম। বাংলাদেশের বোলিংয়ের যে বৈশিষ্ঠ। রান চাপিয়ে রাখা। সেটাই তারা আজকাল পারছে না। এটা কিন্তু প্রতিটা ম্যাচে ভোগাবে। বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ে কিছু দুর্বলতা তো আছেই। তবে এই মুহূর্তে আমি বোলিংয়ে সংকট দেখতে পাচ্ছি। কিছু চেঞ্জ আনা উচিত। একটু এদিক ওদিক করলে বিপক্ষ দলের গেম প্লানেও কিন্তু অনেক সমস্যা হয়। একটা সময় হয়তো বিপক্ষ দল আমাদের নিয়ে খুব বেশি ছক আকতো না। এখন আমি মনে করি বাংলাদেশকে তারা গভীরভাবে স্টাডি করেই মাঠে নামে।

চঞ্চল চৌধুরী: বাংলাদেশ দুর্ভাগ্যক্রমে পরপর দুটি ম্যাচ হারলো। কিন্তু আমার কেন যেন মনে হয় এই দুটি ম্যাচে বাংলাদেশের সম্ভাবনা ছিল। ইংল্যান্ডের সঙ্গে বাংলাদেশে যে ২৮০ করলো। ইংল্যান্ডের অত রান তাড়া করতে গিয়ে এটা করেছে। বাংলাদেশ যদি আগে ব্যাট করতো, আমার মনে হয় ৩০০ করার সামর্থ্য ছিল। সেটা তখন ইংল্যান্ডের জন্য একটু হলেও চাপ হতো। যেমন নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে ম্যাচটায় দেখেছি। আমি ক্রিকেটার বা ক্রিকেট বোদ্ধাও নয়। তবে সাধারণ জ্ঞান থেকে আমি বলতে পারি যে বাংলাদেশ ম্যাচে যেকোন সময় ঘুরে দাড়াতে পারে। দুই ম্যাচ হারার পরে নিশ্চয়ই টিম ম্যানেজমেন্টের অনেক ভুল ত্রটি চোখে পড়েছে। সেগুলো দ্রুত শুধরে ঘুরে দাড়াতে পারে বলে মনে করি। সাকিব আল হাসান টানা ভালো খেলছে। দেখা গেল সামনের ম্যাচে আমরা তামিমের কাছ থেকে বড় স্কোর আশা করতে পারি। যেটা তামিম পারছে না বিশ্বকাপে। নতুনরা নিজেদের মেলে ধরতে পারছে না। তারা গুটিয়ে আছে। তারা যদি এই সুযোগে নিজেদের প্রমান না করতে পারে। তাহলে সেটা দু:খজনক। আমি বাংলাদেশ টিমকে নিয়ে এখনো আশাবাদি। কারণ অতীতের যেকোন সময়য়ের চেয়ে এবার বেস্ট টিম গেছে বাংলাদেশ থেকে। সবচেয়ে অভিজ্ঞ টিম বাংলাদেশের। ঘুরে দাড়াবে আশা রাখি।

সুমি (চিরকুট): বাংলাদেশ ওয়ার্ল্ড কাপে খেলছে এটা আমাদের জন্য গর্বের। বহু বছর ধরেই কোন একটা স্পোর্টস মাধ্যমে ওয়ার্ল্ড কাপে খেলছে সেটা তো ভালো লাগার বিষয় আছেই। যদি আমরা সাম্প্রতিক পারফর্মেন্স নিয়ে কথা বলি। বিশেষ করে এবারের বিশ্বকাপ নিয়ে। তাহলে সমর্থক হিসেবে বলবো ধৈর্য ধরা উচিত। আমরা সমর্থকরা ভালোবাসি বলেই অনেক কিছু বলি। কিন্তু যারা মাঠে খেলে তাদের জন্য জয় পাওয়াটা কিন্তু এত সোজা ব্যাপার নয়। মাঠে যারা খেলে তারা নিশ্চয়ই বাংলাদেশের জন্য বেস্টটাই করার চেষ্টা করে সবসময়। সামনে আমাদেও অনেকগুলো খেলা আছে। আমরা আশা করি ওখানের কমপক্ষে দুই তিনটা ম্যাচে আমরা জিতবো। এতটকু আশা করতে পারি এই মুহুর্তে বাংলাদেশের টিম থেকে। আমরা প্রথম ম্যাচে জয় পেলাম। সেটা তো ভালো লাগা আছেই। তবে দ্বিতীয় ম্যাচ নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে। সেটা বেশ ভালো লেগেছে। বাংলাদেশের প্রথমে ব্যাটিংটা তেমন ভালো হলো না। তারপর বোলিংয়ের শুরুটাও কোন আশা দেখাতে পারছিল না। কিন্তু শেষ মুহূর্তে যেভাবে ঘুরে দাড়ায় সেটা অসাধারণ ছিল। আমার মনে হয় এই বিশ্বকাপেও বাংলাদেশ এভাবে ঘুরে দাড়ানোর সামর্থ্য রাখে। তৃতীয় ম্যাচে ইংল্যান্ডের সঙ্গে টসে জিতে ব্যাটিংটাই নেওয়া উচিত ছিল বলে আমি মনে করি। কারণ ওদের ব্যাটিং যে লাইন আপ, সেখানে প্রেসার না নিয়ে খেলেছে। যা ওদের এত বড় স্কোর গড়ে দিল। আর আমরা ম্যাচের অর্ধেক সময়ই হেরে গেলাম। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে রুবেলকে দরকার ছিল। রুবেল বরাবরই বাংলাদেশের যদি কেউ ইংল্যান্ডের সঙ্গে ভালো বল করে, সে হচ্ছে রুবেল। সামনের ম্যাচগুলোতে এই দিকটায় ভাবা উচিত বলে মনে করি। আশা শেষ হয়ে যায়নি। এখনো আমরা ঘুরে দাড়াতে পারি। টিমকে ভালোবেসে পাশে থাকতে হবে।

রওনক হাসান: শুরুটা খুবই ভালো ছিল। ত্রিদেশীয় সিরিজ জয়ের পর সেভাবেই বিশ্বকাপের শুরুটা ছিল। দ্বিতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে আমাদেও কামব্যাকটাও ভালো ছিল। ইংল্যান্ডের সঙ্গে আমার মনে হয় কিছু পরিবর্তন দরকার ছিল। ওয়ার্ল্ড কাপের মতো এমন বড় একটা প্ল্যাটফর্মে আমার মনে হয় এক্সপেরিয়েন্স প্লেয়ারদের প্রাধান্য দেওয়া উচিত ছিল। মিঠুন, মোসাদ্দেকদের বদলে মনে হয় সাব্বির লিটনদের সুযোগ দিলে ভরসাটা বাড়তো। রুবেলকে মিস করি। রুবেল দেখা যায় ম্যাচের শেষের দিকে নিয়ন্ত্রিত বোলিং করতে পারে। রুবেল হয়তো কিছুটা রান চাপিয়ে রাখতে পারতো। মিঠুন ও মোসাদ্দেককে তো দেখলাম তিনটা ম্যাচ। তারা আসলে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে পারেনি। তারা যে খেলতে পারে না ব্যাপারটি তা নয়। টানা সুযোগ দিতে থাকলে হয়তো একটা ম্যাচে ভালো খেলবে। কিন্তু তাদের কাছ থেকে ধারাবাহিকতা আশা করতে পারছি না কেন যেন। আরেকটি কথা যে আমাদের দলে এতগুলো অলরাউন্ডার না রেখে মনে হয় একজন বোলার বাড়ানো উচিত। বোলিংয়ে কিন্তু দুর্বলতা পাই। আর ব্যাটিংয়ে প্রথম যে কয়জন আছে তারা ভেঙ্গে পড়লে আসলে খুব বেশি আশা করার মতো কিছু থাকে না। আমার মনে হয় দলে এতগুলো অলরাউন্ডার না রেখে সলিড একজন ব্যাটসম্যান ও একটা বোলার বাড়ানো দরকার। আমরা কি কৌশলের দিক থেকে পিছিয়ে পড়ছি কিনা সেটাও ভাবা দরকার। দ্বিতীয় ম্যাচে উইনিং কম্বিনিশন রাখা হয়েছে ভালো কথা। কিন্তু থার্ড ম্যাচে কিছুটা পরিবর্তন রাখা উচিত বলে মনে করি। ইংল্যান্ডের এক এক মাঠের এক এক রুপ। সেটা মাথায় রেখে দল করা উচিত। সেখানে যে কেই বাদ পড়তে পারে। যাই হোক আমি আশাবাদি যে এই টিমটা সেমিফাইনাল খেলার শতভাগ যোগ্যতা রাখে।

মৌসুমী হামিদ: এই মুহূর্তে বাংলাদেশ অন্যতম সেরা টিম। প্রত্যেকটা প্লেয়ার অভিজ্ঞ এবং নিজেদের প্রমান করা। বাংলাদেশ কিন্তু মাঠে নামছে আকাশ পাতাল ব্যবধান নিয়ে নয়। একটা সময় যেটা ছিল, হারালেও হারাতে পারে। সেটাকে সবাই ‘এক্সিডেন্ট’ বলতো। এখন কিন্তু সেই সুযোগটা নেই। বাংলাদেশ জয়ের টার্গেট নিয়েই মাঠে নামে। সেখানে পরপর দুটি ম্যাচ হেরে গেছে মানে এই নয় যে, আমরা বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গেছি। ভারত যেমন টানা জয় পাচ্ছে, আবার কিন্তু পরপর দুটি ম্যাচ হেরেও যেতে পারে। দু:খজনক ব্যাপার হলো আমরা যারা সমর্থক, তারা অত্যাধিক পরিমানে রিঅ্যাক্ট করি। যখন জিতে তখন প্রশংসায় ফেসবুক ভরে যায়। আবার যখন হারে, শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ধুইতে থাকে। সাকিব আজকে ভালো খেলছে তার প্রশংসায় ভরে যাবে, কাল খারাপ খেললে তাকে ধুয়ে দেওয়া হবে। এটা কেমন সমর্থক বাবা!ওরা তো একা খেলে না। ২০ কোটি মানুষ একসঙ্গে খেলে। ওরা খেললে কলিজা আটকিয়ে যায়। আমি গত ম্যাচগুলোতে মুস্তাফিজকে নিয়ে এক্সপেক্ট করেছিলাম যে ভালো বল করবে। কিন্তু পারেনি। মিরাজের খেলা আমাকে খুবই মুগ্ধ করে। মিরাজকে আমার মনে হয় ভবিষ্যৎ সাকিব আল হাসান। মিরাজ আবার আমার খুলনার ভাই। টিমের সাতটা প্লেয়ারই যদি হয় আমার খুলনার। তাও আবার ঘরের পাশের সাতক্ষীরার দুইজন। সব ভাইব্রাদার খেলছে এই টিমে। সেদিন নিলয়, শ্যামল মাওলার সঙ্গে খেলা দেখতেছিলাম শুটিংয়ের ফাকে। ওরা বলে এটা তো নিউজিল্যান্ড বনাম খুলনার খেলা হচ্ছে। যাই হোক, মাশরাফির দল। তার উপর আমাদের আস্থা আছে।  তিনি নিশ্চয়ই আমাদের জয়ের ধারায় নিয়ে যাবে।  



বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ