ঢাকা, সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ঠিক কি কারণে ভেঙ্গেছে ‘পাখি’র সংসার?

বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ শনিবার, ০৭:২০ পিএম
ঠিক কি কারণে ভেঙ্গেছে ‘পাখি’র সংসার?

ভারতের ছোট পর্দায় জনপ্রিয় অভিনেত্রী মধুমিতা সরকারের শুরুটা হয়েছিল ২০১১ সালে। সিরিয়ালটির নাম ‘সবিনয় নিবেদন’। প্রচারিত হয় সানন্দা টিভিতে। একই সিরিয়ালে কাজ করেছেন সৌরভ চক্রবর্তী। মন দেওয়া নেওয়ার জন্য সময় লেগেছে ছয় মাস। এরপর কঠিন প্রেম। অনেক বাধা আর বিপত্তি কাটিয়ে ২০১৫ সালের ২৬ জুলাই তাঁরা বিয়ে করেন। নতুন খবর হলো, বাস্তবে জুটি হওয়া পর্দার জনপ্রিয় এই তারকারা বিবাহবিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। দুজনের কেউই চান না তা নিয়ে কাদা ছোড়াছুড়ি হোক। পারস্পরিক সমঝোতার ভিত্তিতে তাঁরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। শুরু হয়েছে বিবাহবিচ্ছেদের আইনি প্রক্রিয়াও।

বিয়ের পর পূর্ব কলকাতার আনন্দপুরে ফ্ল্যাট কিনেছিলেন মধুমিতা ও সৌরভ। সাজিয়েছেন নিজেদের মনের মতো করে। জানা গেছে, গত আগস্ট মাসে এই ফ্ল্যাট থেকে চলে যান মধুমিতা। পর্দায় তাঁরা খুব জনপ্রিয় হলেও একসঙ্গে অনেকদিন কাজ করেননি।

মধুমিতা এখন ব্যস্ত ওয়েব সিরিজ নিয়ে। নাম ‘জাজমেন্ট ডে’। পরিচালক অয়ন চক্রবর্তী। মধুমিতা এই মুহূর্তে ওয়েব সিরিজটির শুটিং করছেন দার্জিলিংয়ে। বিবাহবিচ্ছেদ নিয়ে তিনি কোনো মন্তব্য বা বিবৃতি দেননি।

সৌরভ ব্যস্ত নিজের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ট্রিকস্টার নিয়ে। ‘কার্টুন’, ‘জাপানি টয়’, ‘ধানবাদ ব্লুজ’- গত দুই বছরে তিনটি সফল ওয়েব সিরিজ প্রযোজনা করেছে ট্রিকস্টার। যদিও অশ্লীলতার চুড়ান্ত নিদর্শন এই ওয়েব সিরিজগুলো। কলকাতার এক সংবাদমাধ্যমকে সৌরভ বলেছেন, ‘একসময় প্রেম থেকে বিয়ের দিকে বিষয়টি এগিয়েছিল। কিন্তু এখন আমাদের মনে হচ্ছে, আমরা আলাদা থাকলে আরও ভালো থাকতে পারব, যেটা একসঙ্গে থেকে হচ্ছিল না। সেখান থেকেই সরে আসার সিদ্ধান্ত। আলাদা করে দোষারোপ করার কোনো প্রশ্ন নেই। আমাদের দুজনের জীবন আলাদা। তাই দুজনের জীবনে বিপর্যয় ডেকে আনার কোনো ইচ্ছা নেই। বিষয়টা কষ্টকর। কিন্তু কিছু করার নেই।’

এই দুই তারকার বন্ধুদের মতে, ২০১১ সালে নিজেদের মধ্যে যে চমৎকার সম্পর্ক ছিল, এখন মধুমিতা আর সৌরভের সেই ভালোবাসার টান নেই বললেই চলে। শুরুতে তাঁদের মধ্যে যে রসায়ন তৈরি হয়েছিল, তা আর কাজ করছে না। ধীরে ধীরে তাঁরা বুঝতে পেরেছেন, নিজেদের পছন্দ অপছন্দগুলো আলাদা হয়ে গেছে। এক ছাদের নিচে থেকেও একে অন্যের থেকে অনেক দূরে সরে গেছেন। তাই আলোচনা মাধ্যমে তাঁরা বিবাহবিচ্ছেদের পথ বেছে নিয়েছেন।

 ‘বোঝে না সে বোঝে না’র ‘পাখি’ আর ‘কুসুম দোলা’র ‘ইমন’। দুটি সিরিয়ালই প্রচারিত হয় স্টার জলসায়। এই সিরিয়াল দুটি দারুণ জনপ্রিয় হয়। অল্প সময়েই বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বেশির ভাগ পরিবারের একজন হয়ে যান মধুমিতা সরকার। ‘পাখি’ হিসেবে তিনি পেয়েছিলেন তুমুল জনপ্রিয়তা, তেমনি ‘ইমন’ও দর্শকের দারুণ পছন্দের।

‘বোঝে না সে বোঝে না’র প্রচার শুরু হয়েছিল ২০১৩ সালের ৪ নভেম্বর। এই সিরিয়াল শেষ হওয়ার পর ২০১৬ সালের ২২ আগস্ট শুরু হয় ‘কুসুম দোলা’। সংসার কিংবা নিজের জন্য আলাদা করে এতটুকু সময় পাননি মধুমিতা। টানা কাজ করেছেন। তবে ২০১৮ সালের ২ সেপ্টেম্বর ‘কুসুম দোলা’ শেষ হওয়ার পর আর কোনো সিরিয়ালে দেখা যায়নি তাঁকে। তখন ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে মধুমিতা বলেছেন, ‘এই মুহূর্তে আর মেগা সিরিয়াল করব না। ওয়েব সিরিজে অভিনয় করব। সিনেমায় কাজের ব্যাপারেও আলোচনা হচ্ছে।’ ‘পাখি’ আর ‘ইমন’ থেকে বেরিয়ে তিনি পুরোপুরি মধুমিতা হয়ে যান।

বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ