ঢাকা, সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

যেভাবে নাকচ হলো বেগম জিয়ার আবেদন

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০ মে ২০২১ সোমবার, ০৮:৫৯ পিএম
যেভাবে নাকচ হলো বেগম জিয়ার আবেদন

বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা নিশ্চিত ছিলেন যে বেগম খালেদা জিয়ার আবেদনটি গৃহীত হবে এবং তার বিদেশযাত্রা নিশ্চিত হবে। আর এ জন্যই বেগম খালেদা জিয়ার জন্য পাসপোর্টের আবেদন করা হয়েছিল। বেগম খালেদা জিয়ার পাসপোর্ট যেন দ্রুত করা হয় সেজন্য ছুটির দিন পাসপোর্ট অফিস খোলা রাখা হয়েছিল। আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়েছিল। শামীম ইস্কান্দার এরকম আশ্বাস সরকারের কারো কারো কাছ থেকে পেয়েছিলেন যে বেগম খালেদা জিয়াকে অবশ্যই বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে। আর সেরকম আশ্বাস পেয়ে তিনি ছুটির দিনেও ব্রিটিশ হাইকমিশনের যোগাযোগ করেছিলেন এবং ব্রিটিশ হাইকমিশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন। তারেককে তিনি টেলিফোন করে জানিয়েছিলেন যে সবকিছু ঠিক আছে।

বেগম খালেদা জিয়া লন্ডনে পৌঁছবে। এয়ার অ্যাম্বুল্যান্স ঠিক করা হয়েছিল, ঠিক করা হয়েছিল লন্ডনের হাসপাতালও। কিন্তু সবকিছু পাল্টে গেল। কীভাবে পাল্টে গেল, কিভাবে বেগম খালেদা জিয়ার জামিনের আবেদন নাকচ হয়ে গেল। এই অনুসন্ধানে বাংলা ইনসাইডার পেয়েছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা যখন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে ৫ মে (বুধবার) আবেদন করলেন তখন সরকার বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়ার ব্যাপারে সহানুভূতিশীল ছিল বলে বিভিন্ন সূত্র নিশ্চিত করেছে। এই জন্যই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাতেই এটি পাঠিয়ে দেন আইনমন্ত্রীর কাছে। আইনমন্ত্রীও তাড়াহুড়ো করে এটিকে সহমর্মিতা এবং মানবিকভাবে দেখার জন্য আইনমন্ত্রী বলেন, এখানে আদালতের কোন প্রয়োজন নেই।

সরকারের ভিতরে সমন্বয়হীনতা এখানে স্পষ্ট হয়েছিল। যেখানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রথম বলেছিলেন যে, এটি আদালতের এখতিয়ারাধীন বিষয়। আর সেখানে আইনমন্ত্রী যখন বললেন যে, আদালতে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। এটি নির্বাহী আদেশ। নির্বাহী আদেশেই এই বিষয়টি ফয়সালা করা যায়। দুইজনে দুই রকম বক্তব্যের পর বোঝা গেল যে সরকার ইতিবাচকভাবে বিষয়টি নিচ্ছে। যখন আইনমন্ত্রী জানালেন যে, তিনি আজ কোনো সিদ্ধান্ত দিচ্ছেন না তখনই সকলের নড়েচড়ে বসল যে সিদ্ধান্ত বোধহয় সঠিক নয়।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসময় দুটি বিষয়ের উপর গুরুত্ব দিয়েছিলেন। একটি হলো, লন্ডনে কি হচ্ছে বেগম খালেদা জিয়ার যাওয়া নিয়ে। দ্বিতীয়ত, বেগম খালেদা জিয়া আসলে কতটুকু অসুস্থ। প্রথমেই এভারকেয়ার হাসপাতাল যোগাযোগ করা হয় সরকারের পক্ষ থেকে। এভারকেয়ার হাসপাতালের চিকিৎসকরা যে তথ্যটি দেন সরকারের কাছে তা ছিল অত্যন্ত চাঞ্চল্যকর তথ্য। এভারকেয়ার হাসপাতালের চিকিৎসকরা সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদেরকে জানান যে, বেগম জিয়ার পরিবারের সদস্যরা রীতিমতো চাপ দিচ্ছে যে তারা যেন সার্টিফিকেট দেয় কিন্তু তারা মনে করছেন (এভারকেয়ার হাসপাতালের চিকিৎসকরা) মনে করছেন বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশে যাওয়ার মধ্যে কোনো প্রয়োজন নেই। তার এরকম কোনো গুরুতর জটিল শারীরিক পরিস্থিতি নেই যে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিতে হবে। বরং দুই-একদিন পর তার হাসপাতালে থাকারও প্রয়োজন নেই।

কিন্তু এভারকেয়ার হাসপাতালের কর্তৃপক্ষকে রীতিমত চাপ দিয়ে তারা বেগম খালেদা জিয়াকে সিসিইউতে রাখেন। অনুসন্ধানে দেখা গেছে যে, ৮ তারিখে বেগম খালেদা জিয়ার অবস্থার উন্নতি হয়েছিল এবং তখনই তাকে সিসিইউ থেকে সরিয়ে নেয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল এভারকেয়ার হাসপাতালের চিকিৎসকরা। কিন্তু বেগম জিয়ার পরিবারের সদস্যরা বেগম খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে যাওয়ার জন্য তাকে অসুস্থ দেখাতে হবে, এ কারণেই সিসিইউতে রাখে। বেগম খালেদা জিয়ার রিপোর্ট এবং আনুষঙ্গিক বিষয়গুলো যখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পান এবং একই সময়ে লন্ডন ষড়যন্ত্রের বিশদ তথ্য তার কাছে দেওয়া হয়। তখন তিনি আইনগতভাবে এটি মোকাবেলা করেন। বেগম খালেদা জিয়া লন্ডনে তারেক জিয়া কি কি করতে পারে সে সম্পর্কে একটি পূর্ণাঙ্গ বলুন গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে হস্তান্তর করা হয়। আর এই দুইটি বিষয় পাওয়ার পরই সরকারের জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ সঠিক হয়ে যায় এবং বেগম খালেদা জিয়ার আবেদনটি নাকচ হয়ে যায়।