ঢাকা, রোববার, ২০ জুন ২০২১, ৬ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

কেমন দেশ বেলজিয়াম?

ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬ জুলাই ২০১৮ শুক্রবার, ১০:০০ পিএম
কেমন দেশ বেলজিয়াম?

দেখতে দেখতে রাশিয়া বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ড শেষ। আজ থেকে শুরু হচ্ছে কোয়াটার ফাইনাল। আর কোয়াটার ফাইনাল মানেই অন্যরকম আমেজ। দল বেধে রাস্তার মোড়ে মোড়ে খেলা দেখা, তর্ক-বিতর্ক করা, প্রিয় দল জিতলে মিছিল নিয়ে বের হওয়াসহ আরও অনেক কিছু। সে যাইহোক, রাত ১২টায় রয়েছে ব্রাজিল-বেলজিয়াম ম্যাচ। ম্যাচটি দেখার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে ফুটবল বিশ্ব। বেলজিয়াম দলটির খেলোয়াড় ও তাদের খেলা সম্পর্কে অনেকেই জানি। কিন্তু বেলজিয়াম দেশটি সম্পর্কে জানি কি? জানলেও কতটুকু? আজ আমরা জানাবো ‘বেলজিয়াম’ দেশটি কেমন:

উত্তর-পশ্চিম ইউরোপের একটি দেশ বেলজিয়াম। সরকারিভাবে এটি বেলজিয়াম রাজতন্ত্র নামে পরিচিত। এটি ইউরোপের ক্ষুদ্রতম ও সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ দেশগুলোর একটি। তাছাড়া ইউরোপের সর্বাধিক নগরায়িত দেশ হিসেবেও এর পরিচয় রয়েছে। দেশটির উত্তরে উত্তর সাগর ও নেদারল্যান্ড, পূর্বে জার্মানি ও লুক্সেমবার্গ এবং দক্ষিণ ও পশ্চিমে ফ্রান্স অবস্থিত।

বেলজিয়ামের আয়তন ৩০ হাজার ৫২৮ বর্গকিলোমিটার। আয়তনের দিক থেকে বিশ্বে দেশটির অবস্থান ১৩৯তম। ২০১৭ সালের তথ্যানুযায়ী, দেশটির মোট জনসংখ্যা ১ কোটি ১৩ লক্ষ ৫৮ হাজার ৩৫৭ জন। এখানকার ৯৭ শতাংশ লোক শহরে বাস করে। বেলজিয়ামের প্রধান দুটি ভাষা হলো ফরাসি ও ফ্লেমিশ। এছাড়া অঞ্চল বিশেষে জার্মানি, ফরাসি, ইংরেজি ভাষা ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। বেলজিয়ামের অন্যান্য ভাষাগুলোর মধ্যে আরবি, তুর্কি, কাবিলে, স্পেনীয়, পর্তুগিজ এবং লেৎসেবুর্গেশ ভাষা অন্যতম।

ব্রাসেলস বেলজিয়ামের রাজধানী ও বৃহত্তম শহর। ইউরোপীয় কমিশন, ন্যাটো এবং বিশ্ব শুল্ক সংস্থার সদর দপ্তর ব্রাসেলসয়ে অবস্থিত। বেলজিয়াম ইউরো জোনে অবস্থিত হওয়ায় এখন দেশটিতে প্রচলিত মুদ্রার নাম ইউরো। তবে এর আগে বেলজিয়ামের মুদ্রার নাম ছিল বেলজিয়াম ফ্রাঁ ।

বেলজিয়ামের নাম কেল্টীয় জাতি সত্তার অন্তর্গত বেল্গায়ে নামক উপজাতির নাম থেকে এসেছে। এই জাতি এখানকার আদি অধিবাসী ছিল। খ্রিস্টপূর্ব ৫৭ অব্দে জুলিয়াস সিজার এলাকাটি দখল করে নেন। এরও অনেক পরে ১৮৩০ সালে নেদারল্যান্ডের কাছ থেকে দেশটি স্বাধীনতা লাভ করে । ১৯৫৭ খ্রিষ্টাব্দে ইউরোপীয় ইউনিয়নে অন্তর্ভুক্ত হয়। বেলজিয়াম ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য।

বেলজিয়াম তিনটি অঞ্চলে বিভক্ত- ফ্ল্যান্ডার্স, ওয়ালোনিয়া এবং ব্রাসেলস ক্যাপিটাল সিটি। ফ্ল্যান্ডার্স অঞ্চলটি ব্রাসেলসের উত্তর ও পশ্চিমে অবস্থিত। এখানে বেশিরভাগ লোক ওলন্দাজ (ফ্লেমিশ) ভাষায় কথা বলেন এবং এরা ফ্লেমিং নামে পরিচিত। ওয়ালোনিয়া ব্রাসেলসের পূর্বে ও দক্ষিণে অবস্থিত এবং এখানকার বেশিরভাগ লোক ফরাসি ভাষায় কথা বলেন। এরা ওয়ালোন নামে পরিচিত। ব্রাসেলস অঞ্চলের উভয় জাতের লোকের বাস। প্রতিটি অঞ্চলই প্রায় স্বায়ত্তশাসিত। তবে ফ্লেমিং ও ওয়ালোনদের মধ্যে এখনও তীব্র দ্বন্দ্ব বিদ্যমান। বর্তমানে ফ্ল্যান্ডার্স এলাকা স্বাধীন রাষ্ট্র হিসাবে আত্মপ্রকাশ করতে চায়। এছাড়াও বেলজিয়ামকে তিনটি প্রধান ভৌগোলিক অঞ্চলে ভাগ করা যায়, উত্তর-পশ্চিমের উপকূলীয় সমভূমি, মধ্যভাগের মালভূমি এবং দক্ষিণ-পূর্বের আর্দেন পর্বতমালা।

ইউরোপের ভৌগোলিক মিলনস্থলে অবস্থিত হওয়ায় দেশটি মধ্যযুগ থেকেই একটি প্রধান বাণিজ্যিক কেন্দ্র হিসেবে বিশেষ গুরুত্ব পেয়ে আসছে। বেলজিয়ামের অবস্থান সামরিক কৌশলগত দিক থেকেও গুরুত্বপূর্ণ। একারণে এই অঞ্চলটির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে বহু যুদ্ধ হয়েছে।

বেলজিয়ামের রাজনীতি একটি যুক্তরাষ্ট্রীয় প্রতিনিধিত্বমূলক সাংবিধানিক রাজতন্ত্র কাঠামোয় পরিচালিত হয়। রাজা বা রাণী হলেন রাষ্ট্রের প্রধান। সরকারপ্রধান হলেন প্রধানমন্ত্রী। রাষ্ট্রের নির্বাহী ক্ষমতা সরকারের উপর ন্যস্ত। আইন প্রণয়নের ক্ষমতা সরকার এবং দ্বিকাক্ষিক আইনসভা উভয়ের উপর ন্যস্ত।

বেলজিয়ামে প্রায় ৬১ শতাংশ মানুষ খ্রিষ্টান ধর্ম পালন করেন। এছাড়া ধর্ম পালন করে না এমন মানুষের সংখ্যা ৩২ শতাংশ, ইসলাম ধর্ম পালন করেন ৫ শতাংশ এবং অন্যান্য ধর্মের রয়েছে ২ শতাংশ। বিভিন্ন উৎসব, শিল্প-সাহিত্য এবং নানা ধরনের খাবারের জন্য দেশটির সুনাম রয়েছে।

ফুটবল বেলজিয়ামের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা। এছাড়াও দেশটির অন্যান্য সুপরিচিত খেলার মধ্যে রয়েছে সাইকেলিং, টেনিস, সুইমিং, জুডো, বাস্কেটবল।

বাংলা ইনসাইডার/ বিপি

বিষয়: বেলজিয়াম