ঢাকা, শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৯ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আওয়ামী লীগের চেয়েও জনপ্রিয় শেখ হাসিনা

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার, ১২:১৫ পিএম
আওয়ামী লীগের চেয়েও জনপ্রিয় শেখ হাসিনা

বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেড়েছে। দেশের ৬৬ শতাংশ নাগরিক প্রধানমন্ত্রীর প্রতি সমর্থন দিয়েছেন বলে জরিপে উঠে এসেছে। একই সঙ্গে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন ৬৪ শতাংশ নাগরিক।

বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে জরিপ পরিচালনা করে ইন্টারন্যাশনাল রিপাবলিক ইনস্টিটিউটের (আইআরআই) গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর ইনসাইড অ্যান্ড সার্ভে এ তথ্য জানিয়েছে।

আইআরআইয়ের জরিপ প্রতিবেদনে বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ে আরও একটি তাৎপর্যপূর্ণ তথ্য উঠে এসেছে। প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তার কারণেই জনপ্রিয় আওয়ামী লীগ।

দলের চেয়ে দলের নেতা বেশি জনপ্রিয়, এমন নজির পৃথিবীতে সাধারণত দেখা যায় না। শুধু দেশীয় রাজনীতিতেই নয়, বৈশ্বিক পরিমণ্ডলেও দলের পরিচয়েই প্রভাব ও পরিচিতি বাড়ে নেতাদের। তবে মাঝে মাঝে নিজেদের অভূতপূর্ব কারিশমার কারণে কিছু বিরল প্রজাতির নেতা জনপ্রিয়তায় দলকেও ছাড়িয়ে যান। এই রাজনীতিবিদরা এতটাই বড় হয়ে যান যে তাঁদের পরিচয়েই গর্বিত হয় দল। অতীতে বৈশ্বিক রাজনীতিতে এমনটি দেখা গেছে বারাক ওবামার ক্ষেত্রে, তিনি নিজ দল ডেমোক্রেটিক পার্টির চেয়েও জনপ্রিয় ছিলেন। বর্তমানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। তিনিও জনগণের কাছে বিজেপির চেয়ে বেশি জনপ্রিয়। এবার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও স্বীকৃতি পেলেন জনপ্রিয়তায় দলকে ছাপিয়ে যাওয়া নেতা হিসেবে। দেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে পৌঁছে দিতে অক্লান্ত পরিশ্রম করার ফলই পেলেন বাংলাদেশের ক্যারিশমাটিক প্রধানমন্ত্রী।

আন্তর্জাতিক এই গবেষণা সংস্থার জরিপ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,  শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় সন্তুষ্ট দেশের মানুষ। দেশের ৬২ শতাংশ মানুষ মনে করেন দেশ সঠিক পথে আছে। দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার ওপর সন্তুষ্ট ৬৯ শতাংশ মানুষ। দেশের বর্তমান নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে সন্তুষ্টি রয়েছে ৬৮ শতাংশ মানুষের। এমনকি আগামী দিনগুলোতে দেশ আরও নিরাপদ হবে বলে বিশ্বাস করেন ৫৭ শতাংশ মানুষ। ৪৭ শতাংশ মানুষ মনে করেন তাদের ব্যক্তিগত ও পারিবারিক অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে। নিজেদের অর্থনৈতিক ভবিষ্যত নিয়ে আশাবাদী দেশের ৪৯ শতাংশ মানুষ।

এছাড়া ৫১ শতাংশ মানুষ দেশের গণতন্ত্র নিয়ে সন্তুষ্ট বলে জরিপে উল্লেখ করা হয়েছে। জরিপ অনুযায়ী, বর্তমান সংসদের ৫১ শতাংশ মানুষ এবং বর্তমান নির্বাচন কমিশনের ওপর আস্থাশীল ৪৯ শতাংশ মানুষ। ৬৭ শতাংশ মানুষ স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে সন্তুষ্ট। ৬৪ শতাংশ মানুষ বিদ্যুতের বর্তমান অবস্থায় সন্তুষ্ট। সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে সন্তুষ্ট ৬১ শতাংশ মানুষ। জননিরাপত্তা নিয়েও নাগরিকরা সন্তুষ্ট বলে জানিয়েছে জরিপ। ৬৮ ভাগ নাগরিক জননিরাপত্তায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। সামনে জননিরাপত্তা ব্যবস্থার আরও উন্নতি হবে বলেও মনে করছেন ৫৭ ভাগ মানুষ।

জরিপের ফলাফলে বিরোধী দলগুলোর নির্বাচন বর্জন হওয়ার ডাকে জনগণ সাড়া দেবে না বলেই মনে হচ্ছে। কারণ আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দেবেন বলে জানিয়েছেন ৮১ শতাংশ মানুষ।

চলতি বছরের এপ্রিল ও মে মাসে এই জরিপ চালানো হয়। জরিপের কাজে দেশের মোট জনসংখ্যাকে কিছু স্তরে ভাগ করে কয়েকটি পর্বে বাছাই করা হয় (মাল্টি স্টেজ স্ট্রেটিফাইড প্রব্যাবিলিটি স্যাম্পল) এবং তাদের সঙ্গে সরাসরি অথবা বাসায় (ইন পারসন/ইন হোম) ফোন করে তথ্য সংগ্রহ করা হয়।

এর আগে ২০১৫ সালে ব্রিটিশ কাউন্সিল, এ্যাকশন এইড বাংলাদেশ এবং ইউনিভার্সিটি অব লিবারাল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব) যৌথ আয়োজনে হওয়া পরিসংখ্যানেও দেখা যায়, দেশের সবচাইতে জনপ্রিয় ও বিশ্বস্ত নেতা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশের ৭৩ ভাগ নাগরিক দেশ পরিচালনায় শেখ হাসিনার পক্ষে ‘ইতিবাচক মত প্রকাশ করেন বলে জরিপে উল্লেখ করা হয়।


বাংলা ইনসাইডার/এসএইচটি/জেডএ