ঢাকা, রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ২ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

যেসব ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ইউরোপ-আমেরিকার চেয়ে এগিয়ে

ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সোমবার, ০৩:৪৯ পিএম
যেসব ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ইউরোপ-আমেরিকার চেয়ে এগিয়ে

স্বাস্থ্য, শিক্ষা, বাণিজ্য, অর্থনীতিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সাফল্যের সঙ্গে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। সম্প্রতি প্রকাশিত ইউএনডিপির (জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি) ‘মানব উন্নয়ন প্রতিবেদন-২০১৮’ তেও এর প্রমাণ পাওয়া গেছে। মানব উন্নয়ন সূচকে গত বছরের চেয়ে ৩ ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে এদেশের সাফল্য অনেক বিশেষজ্ঞকেই বিস্মিত করেছে। বাংলাদেশ বিভিন্ন ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোকে তো বটেই পেছনে ফেলেছে উন্নত বিশ্বের কয়েকটি দেশকেও।

বাংলাদেশে নিরাপদ পানি পানের সুযোগ পায় ৯৭ দশমিক ৩ শতাংশ মানুষ। অথচ বর্তমান বিশ্বের অন্যতম শক্তিধর দেশ রাশিয়াতে এই সুযোগ পায় ৯৬ দশমিক ৪ শতাংশ মানুষ।

লৈঙ্গিক বৈষম্য নিরসনেও বাংলাদেশ উন্নত অনেক দেশের থেকেই এগিয়ে আছে। বাংলাদেশের পার্লামেন্টে নারীর অংশগ্রহণের হার ২০ দশমিক ৩ শতাংশ। আর রাশিয়ায় এই হার ১৬ দশমিক ১ শতাংশ। ইউরোপের দেশ ক্রোয়েশিয়ার পার্লামেন্টে নারীর অংশগ্রহণ ১৮ দশমিক ৫ শতাংশ, সাইপ্রাসে ১৭ দশমিক ৯, গ্রিসে ১৮ দশমিক ৩, হাঙ্গেরিতে ১০ দশমিক ১, তুরস্কে ১৪ দশমিক ৬ আর স্লোভাকিয়ায় ২০ শতাংশ। বিশ্ব মোড়ল যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্টে নারীর অংশগ্রহণ ১৯ দশমিক ৭ শতাংশ।

এইচআইভি এইডসকে সারা বিশ্বেই ভয়ঙ্কর ব্যাধি হিসেবে গণ্য করা হয়। এই রোগের বিরুদ্ধে সচেতনতা সৃষ্টিতেও সাফল্য দেখিয়েছে বাংলাদেশ। এদেশে এইচআইভি আক্রান্তের হার মাত্র শূন্য দশমিক ১ শতাংশ। ইউরোপের অনেক উন্নত দেশই এক্ষেত্রে পিছিয়ে রয়েছে। ফ্রান্সে এইচআইভি আক্রান্তের হার শূন্য দশমিক ৪ শতাংশ। ইতালিতে শূন্য দশমিক ৩, নেদারল্যান্ডসে শূন্য দশমিক ২, সুইডেনে শূন্য দশমিক ২, স্পেনে শূন্য দশমিক ৪ এবং বেলারুশে শূন্য দশমিক ৪ শতাংশ।

উন্নত বিশ্বের দেশগুলোকে নারী অধিকার ও স্বাস্থসেবার ক্ষেত্রে রোল মডেল হিসেবে গণ্য করা হয়। আশ্চর্যজনকভাবে সেসব দেশকেই পেছনে ফেলে দিয়েছে বাংলাদেশ। এ কারণে পৃথিবীর বেশ কয়েকটি দেশেই আর্থ সামাজিক উন্নয়নে উন্নত বিশ্বের কোন দেশ নয়, বরং বাংলাদেশকেই আদর্শ হিসেবে ভাবা হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরাও এদেশকে দক্ষিণ এশিয়ার বিস্ময় হিসেবেই উল্লেখ করছেন।


বাংলা ইনসাইডার/এএইচসি/জেডএ