ঢাকা, শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

স্বামীর জন্য বলি হবেন দুই নারী প্রার্থী?

প্রণব সাহা
প্রকাশিত: ১০ ডিসেম্বর ২০১৮ সোমবার, ১০:৩০ পিএম
স্বামীর জন্য বলি হবেন দুই নারী প্রার্থী?

২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রচারের সময় নাটোরে দেখা হয়েছিল বিএনপির প্রার্থী সাবিনা ইয়াসমিনের সঙ্গে। একটি ঘরোয়া বৈঠকে ছিলেন। বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পর কথা হলো নাটোর-২ আসনে ধানের শীষের প্রার্থীর সঙ্গে। নাটোর জেলা সদরে নিজের জয়ের ব্যাপারেই শুধু নয় কঠোর আত্মবিশ্বাসের সঙ্গেই কথা বলেছিলেন সাবিনা ইয়াসমিন। আশাবাদ ছিল যে ধানের শীষ জয়ী হয়ে সরকার গঠন করবে বিএনপি এবং তাঁর স্বামী সাবেক প্রতিমন্ত্রী রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু কারাগার থেকে বের হয়ে মন্ত্রী হবেন। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ভোটে সাবিনা ইয়াসমিন পেয়েছিলেন ১ লাখ ১১ হাজার ৮৬৬ ভোট। তাকে ২৩ হাজার ৫৬৬ ভোটে পরাজিত করেছিলেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী আহাদ আলী সরকার। নাটোর সদর কি মন্ত্রীর আসন? প্রশ্নটা এজন্য তুললাম যে ঐ আসনে জয়ী আহাদ আলী সরকার যুবও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী হয়েছিলেন শেখ হাসিনার মন্ত্রিসভায়। এবারের নির্বাচনে এই আসনে আবারও বিএনপির প্রার্থী হয়েছেন সাবিনা ইয়াসমিন। আর আওয়ামী লীগের প্রার্থী শফিকুল ইসলাম।

সাবিনা ইয়াসমিনের প্রসঙ্গটি এজন্য উল্লেখ করলাম যে দলের চূড়ান্ত মনোনয়ন, নির্বাচন কমিশনের যাচাই বাছাই এবং মনোনয়পত্র প্রত্যাহারের পর সাবিনা ইয়াসমিন যখন আনুষ্ঠানিক প্রচারে নামবেন তখনি খবর এসেছে যে তাঁর স্বামী বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা হাইকোর্টে রিট করে নির্বাচনের প্রার্থিতার বৈধতা পেয়েছেন । তাহলে প্রশ্ন হলো এখন কে করবে নির্বাচন স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন নাকি স্বামী রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু? একই রকম প্রশ্ন উঠেছে সিরাজগঞ্জ-২ আসনের বিএনপির প্রার্থী নিয়েও। এই আসনে বিএনপির সাবেক প্রতিমন্ত্রী ইকবাল মাহমুদ আদালতে দণ্ডিত থাকার অভিযোগে মনোনয়ন বাতিলের কাতারে পড়েছিলেন। নিজের ঝুঁকি জেনেই তিনিও স্ত্রী রোমানা মাহমুদকে প্রার্থী করেছেন। এবং যাচাই বাছাইয়ে সেটাই টিকেছে। কিন্তু সোমবার হাইকোর্ট ইকবাল মাহমুদ টুকুর প্রার্থিতা বৈধ বলে রায় দিয়েছেন। এখানেও কি এখন স্বামীর জন্য স্ত্রীকে ত্যাগ স্বীকার করতে হবে। সিরাজগঞ্জ-২ আসনে বিএনপির রোমানা মাহমুদের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান সাংসদ আওয়ামী লীগের ডা. হাবিবে মিল্লাত । ২০০৮ সালের নির্বাচনে এই আসনে রোমানা মাহমুদ আওয়ামী লীগের প্রার্থী জান্নাত আরা হেনরির চেয়ে ২ হাজার ১২১ ভোট বেশি পেয়ে নির্বাচিত হয়েছিলেন। এখানে ধানের শীষ ১ লাখ ২৮ হাজার এবং নৌকা ১ লাখ ২৬ হাজার ভোট পেয়েছিলেন। এই দুটি আসনেই স্বামীরা হাইকোর্টের কাগজপত্র পেয়ে সিদ্ধান্ত নিবেন যে তারা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নামবেন কি না? হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে দুদক ও নির্বাচন কমিশন কোনো আপিল করে কি না সেটাও দেখতে হবে। দুর্নীতির মামলায় বিএনপির এই দুই নেতার সাজা হয়েছিল, সে কারণে রিটার্নিং অফিসার তাদের দুজনের মনোনয়ন বাতিল করেছিল। নির্বাচন কমিশনও সেই সিদ্ধান্ত বহাল রাখলে উচ্চ আদালতের শরণাপন্ন হন সাবেক দুই প্রতিমন্ত্রী। সোমবার হাইকোর্টের বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের দ্বৈত বেঞ্চ রায় দেন যে রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু এবং ইকবাল মাহমুদ টুকুর সাজা স্থগিত থাকায় তাদের মনোনয়ন বৈধ।

এবারের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ২০ জন এবং বিএনপি ১৩ জন নারীকে মনোনয়ন দিয়েছে। ২০০৮ সালেও বিএনপি ১৩ নারীকে মনোনয়ন দিয়েছিল। এখন সাবিনা ইয়াসমিন ও রোমানা মাহমুদ যদি সরে দাঁড়ান তাহলে বিএনপির নারী প্রার্থীর সংখ্যা দাঁড়াবে ১১।

আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের শরিকদের মধ্যে নারী প্রার্থীরা হলেন:

১. গোপালগঞ্জ-৩: শেখ হাসিনা

২. রংপুর-৬: শিরীন শারমিন চৌধুরী

৩. শেরপুর-২: মতিয়া চৌধুরী

৪. ফরিদপুর-২: সাজেদা চৌধুরী

৫. চাঁদপুর-৩: দীপু মনি

৬. ঢাকা-১৮: সাহারা খাতুন

৭. গাজীপুর-৫: মেহের আফরোজ চুমকি

৮. গাজীপুর-৪: সিমিন হোসেন রিমি

৯. মানিকগঞ্জ-২: মমতাজ বেগম

১০. মুন্সিগঞ্জ-২: সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি

১১. খুলনা-৩: বেগম মন্নুজান সুফিয়ান

১২. গাইবান্ধা-২: মাহবুব আরা বেগম (গিনি)

১৩. কুমিল্লা-২: সেলিমা আহমাদ

১৪. ফেনী-১: শিরীন আখতার (জাসদ-ইনু)

১৫. নোয়াখালী-৬: আয়েশা ফেরদাউস

১৬. কক্সবাজার-৪: শাহীন আক্তার চৌধুরী

১৭. যশোর-৬: ইসমাত আরা সাদেক

১৮. বাগেরহাট-৩: হাবিবুন নাহার

১৯. সুনামগঞ্জ-২: জয়া সেনগুপ্তা

২০. নেত্রকোনা-৪: রেবেকা মমিন

বিএনপির ১৩ নারী প্রার্থী হলেন:

১. কক্সবাজার-১: হাসিনা আহমেদ

২. ফরিদপুর-২: শামা ওবায়েদ

৩. সিরাজগঞ্জ-১: রুমানা মোর্শেদ (কনকচাঁপা)

৪. ঢাকা-১১: শামীম আরা বেগম

৫. রংপুর-৩: রিটা রহমান

৬. নেত্রকোনা-৪: তাহমিনা জামান

৭. ঝালকাঠি-২: জিবা আমিন খান

৮. নাটোর-২: সাবিনা ইয়াসমিন

৯. শেরপুর-১: সানসিলা জেবরিন

১০. সিরাজগঞ্জ–২: রুমানা মাহমুদ

১১. বগুড়া–৩: মাছুদা মোমিন

১২. ঢাকা–৯: আফরোজা আব্বাস

১৩. সিলেট–২: তাহসিনা রুশদীর (লুনা)

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ