ঢাকা, রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

রাশিয়া-বাংলাদেশ সম্পর্কের আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিবস আজ

ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৪ জানুয়ারি ২০১৯ বৃহস্পতিবার, ১২:০২ পিএম
রাশিয়া-বাংলাদেশ সম্পর্কের আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিবস আজ

দুঃসময়ের বন্ধুই প্রকৃত বন্ধু। একইভাবে বলা হয়ে থাকে মুক্তিযুদ্ধের বন্ধুরাই প্রকৃত বন্ধু। এদিক থেকে বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু হলো রাশিয়া। রাশিয়া এমন একটি দেশ যাদের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কটা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে।

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ ছিল বাঙালির অস্তিত্বের লড়াই। সেসময় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মতো পরাশক্তিগুলো যখন বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছিল, তখন তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন আমাদের অভূতপূর্ব সহায়তা দিয়েছিল। সে সময়কার সোভিয়েত ইউনিয়ন এখন আর নেই। তবে রাশিয়া আজও বাংলাদেশের সবচেয়ে ভাল বন্ধুদের মধ্যে অন্যতম। এদেশে যখনই কোনো সংকট দেখা দেয়, তখন রাশিয়াই সবার আগে বাংলাদেশের পাশে এসে দাঁড়ায়। ১৯৭৫ এ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে যখন সপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল, তখন প্রথমেই যে দেশগুলো ওই নৃশংস হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়েছিল, সোভিয়েত ইউনিয়ন ছিল তার মধ্যে একটি।

২০১৪’র নির্বাচনের পর যে দেশগুলো বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়ার পক্ষে সমর্থন জানিয়েছিল সেখানেও রাশিয়া ছিল অগ্রদূত। এবারের নির্বাচনের পরও রাশিয়া বাংলাদেশের অগ্রগতির পক্ষেই নিজেদের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেছে।

মুক্তিযুদ্ধ ছিল এদেশের অস্তিত্বের অগ্নিপরীক্ষা। সেই মুক্তিযুদ্ধের সময় যারা বাংলাদেশের বন্ধু ছিল তারাই দেখা যাচ্ছে যে, বাংলাদেশের সত্যিকারের বন্ধু। বাংলাদেশের সমস্ত দুর্যোগ-দুর্বিপাক, অগ্রগতি-অভিযাত্রা সবকিছুর সঙ্গেই তারা ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে। রাশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের যে বন্ধুত্ব সেটার আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিবস আজ। ১৯৭২ সালের আজকের এই দিনেই বাংলাদেশকে স্বাধীন দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিল তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন তথা আজকের রাশিয়া।

বাংলা ইনসাইডার/এএইচসি