ঢাকা, রোববার, ২৬ মে ২০১৯, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

একাত্তরের এই দিনে: অগ্নিঝরা ৯ মার্চ

ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯ মার্চ ২০১৯ শনিবার, ০৮:০৪ এএম
একাত্তরের এই দিনে: অগ্নিঝরা ৯ মার্চ

আজ ৯ মার্চ। ১৯৭১ সালের এই দিন বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা মিছিল ও সমাবেশে ছিল উত্তাল নগরী। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে সর্বাত্মক অসহযোগে সমগ্র প্রশাসন স্থবির। স্বাধিকার আন্দোলনের কর্মসূচি হিসেবে সচিবালয়, বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি অফিস, হাইকোর্ট ও জেলা কোর্টসহ বিভিন্ন অফিস-আদালতে হরতাল পালিত হয়। এই দিনে আওয়ামী লীগ প্রধান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ন্যাপ প্রধান মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর মধ্যে রাজনৈতি পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়।

বিকালে পল্টন ময়দানের জনসভায় তুমুল করতালির মধ্যে ভাসানী ভাষণ দেন। তিনি বলেন,‘প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়াকেও তাই বলি, আর নয় অনেক হয়েছে। তিক্ততা বাড়াইয়া আর লাভ নাই। লাকুম দ্বীনুকুম ওয়াল ইয়া দ্বীন। অর্থাৎ তোমার ধর্ম তোমার, আমার ধর্ম আমার। এই নিয়মে পূর্ব বাংলার স্বাধীনতা স্বীকার করিয়া লও’।

তিনি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বলেন, ‘শেখ মুজিবের সঙ্গে মিলে ১৯৫২ সালের মতো তুমুল আন্দোলন শুরু করব। খামাখা কেউ মুজিবুরকে অবিশ্বাস করো না। মুজিবুরকে আমি ভালোভাবে চিনি।’

এইদিন সামরিক কর্তৃপক্ষ রাত ৯টা থেকে রাজশাহী শহরে আট ঘণ্টার জন্য কারফিউ জারি করে। রাজশাহীতে অনির্দিষ্টকালের জন্য প্রতিদিন নৈশ কারফিউ জারির পর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, সেনাবাহিনীকে ছাউনিতে ফিরিয়ে নেয়া হয়েছে বলে ঘোষণার পর রাজশাহীতে হঠাৎ সান্ধ্য আইন জারির কারণ বোধগম্য নয়। বিবৃতিতে অবিলম্বে কারফিউ প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়। সকালে পিআইএর বাঙালি কর্মচারীরা তেজগাঁও বিমানবন্দর থেকে মিছিল করে ধানমন্ডি বঙ্গবন্ধুর বাসভবনে এলে তিনি তাদের সঙ্গে আলোচনা করেন।