ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

১০ মহররম: কী ঘটেছিল সেদিন?

ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ মঙ্গলবার, ০৮:৩১ এএম
১০ মহররম: কী ঘটেছিল সেদিন?

ইসলামী বর্ষপঞ্জির প্রথম মাস মহররম। ইসলামী পরিভাষায় আরবি বর্ষপঞ্জি হিজরি সনের প্রথম মাস মহররমের ১০ তারিখকে আশুরা বলা হয়। আশুরা মানে দশম। ইসলামের বিভিন্ন বই ও ধর্ম তত্ত্ববিদদের লেখা থেকে জানা যায় এ মাসের ১০ তারিখ ১০টি বড় ঘটনা সংঘটিত হয়েছিল। এ কারণে এ দিনটাকে আশুরা বলা হয়।

সাহিত্যের শ্রেষ্ঠ লেখকদের অন্যতম মীর মশাররফ হোসেন তার বিখ্যাত ‘বিষাদ সিন্ধু’ মহাকাব্যে এই আশুরা তথা ১০ মহররমের কাহিনী তুলে ধরেছেন। তার বর্ণনা এবং বিভিন্ন ইতিহাসবিদদের লেখা থেকে জানা যায়, মহররমেই ইসলামের সর্বশেষ ও শ্রেষ্ঠ নবী হযরত মুহম্মদ (সা.)-এর প্রিয় দৌহিত্র হযরত ইমাম হাসান ও হযরত ইমাম হোসেনকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। এই হত্যার পেছনে ছিল গভীর ষড়যন্ত্র।

বিভিন্ন কাহিনী থেকে জানা যায়, আবদুল জব্বার নামে এক ব্যক্তির স্ত্রী ছিলেন জয়নাব। তিনি ছিলেন খুবই রূপবতী। দামেস্ক অধিপতি মুয়াবিয়ার পুত্র ইয়াযীদ তাকে দেখে মুগ্ধ হয় এবং তাকে বিয়ে করতে চায়। ইয়াযীদের মা মারওয়ানের সঙ্গে পরামর্শ করে এবং প্রলোভন দেখিয়ে জয়নাবের সঙ্গে আবদুল জব্বারের বিচ্ছেদের ব্যবস্থা করে সে। আবদুল জব্বার জয়নাবকে তালাক দেয়। এরপর ইয়াযীদ জয়নাবের কাছে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে দূত পাঠায়। পথে এ দূতের সঙ্গে ইমাম হাসানের সাক্ষাৎ হয়। ইমাম হাসান জয়নাবের কাছে তার পক্ষ থেকেও বিয়ের প্রস্তাব দেওয়ার জন্য দূতকে অনুরোধ করেন। জয়নাব ইয়াযীদের প্রস্তাব প্রত্যাখান করে এবং ইমাম হাসানের প্রস্তাব গ্রহণ করে। ইমাম হাসান জয়নাবকে বিয়ে করেন। ইয়াযীদ ক্রোধে ফেটে পড়ে। অন্যদিকে ইমাম হাসানের অপর স্ত্রী জায়েদা জয়নাবকে হিংসা করতে শুরু করে।

এর মধ্যে মুয়াবিয়া অসুস্থ হয়ে মারা যান। ইয়াযীদ বাদশাহ হয়। সে মদিনার অধিবাসীদের তার আনুগত্য স্বীকার করার নির্দেশ দেয়। মদিনার অধিবাসীরা তা অস্বীকার করলে ইয়াযীদ মারওয়ানকে মদিনা আক্রমণের জন্য পাঠায়। মদিনার সেনাদলের সঙ্গে মারওয়ানের সেনাদলের যুদ্ধ হয় এবং মারওয়ান পরাজিত হয়। পরে মারওয়ান মায়মুনা নামের এক বৃদ্ধার সাথে ইমাম হাসানকে হত্যার ব্যাপারে ষড়যন্ত্র করে। মায়মুনা ইমাম হাসানের স্ত্রী জায়েদার মাধ্যমে বিষ প্রয়োগে ইমাম হাসানকে হত্যা করে। ইমাম হুসাইন এ হত্যার প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হন।

এদিকে কুফার শাসক উবায়দুল্লাহ ইবনে যিয়াদ (আবদুল্লাহ জেয়াদ) ধোঁকা দিয়ে ইমাম হুসাইনকে বন্দি করার জন্য বাহ্যিকভাবে ইমাম হুসাইনকে নেতা বলে স্বীকার করে এবং তাকে কুফায় আসার আহ্বান জানিয়ে চিঠি পাঠায়। ইমাম হুসাইন কুফার অবস্থা যাচাইয়ের জন্য মুসলিম ইবনে আকীলকে পাঠান। মুসলিম কুফার ব্যাপারে ইতিবাচক পত্র পাঠানোর পর ইমাম ছয় হাজার সৈন্য নিয়ে কুফার দিকে রওয়ানা হন। পথে তিনি মুসলিমের শাহাদাতের খবর পান। মহররম মাসের আট তারিখে ইমাম হুসাইন কারবালার প্রান্তরে পৌঁছেন। এখানে ইয়াযীদের সেনাবাহিনী তাকে অবরুদ্ধ করে। তারা ফোরাত নদীর পানি বন্ধ করে দেয়। ইমামের পরিবার ও সাথীরা পানির তৃষ্ণায় কাতর হয়ে পড়েন। এ অবস্থার মধ্যেও ইমাম হুসাইন তার মেয়ে সাকীনার সাথে ইমাম হাসানের ছেলে কাসেমের বিয়ে দেন। অবশেষে মুহররমের ১০ তারিখে ইয়াযীদের সেনাদলের সাথে যুদ্ধ করতে করতে ইমাম হুসাইন তার সব সঙ্গী-সাথীসহ শাহাদাত বরণ করেন।

হাসান হুসেনের ঘটনাটি ছাড়াও ১০ মহররম মুসলিমসহ আরও বেশকিছু ধর্মাবলম্বীদের কাছে তাৎপর্যময়। কারণ এ দিনটির সাথে জড়িয়ে আছে আরও কিছু ঘটনা। এখানে সেগুলো তুলে ধরা হলো-

# ১০ মহররম হজরত আদম (আ.) বেহেশত থেকে দুনিয়ায় নেমে আসেন। মহররমের ১০ তারিখে আল্লাহ পাক আদম (আ.)-এর দোয়া কবুল করেন এবং এ দিনে তিনি স্ত্রী হাওয়া (আ.)-এর সঙ্গে আরাফার ময়দানে সাক্ষাৎ করেন।

# হজরত নুহ (আ.)-এর জাতির লোকেরা আল্লাহর গজব মহাপ্লাবনে নিপতিত হওয়ার পর ১০ মহররম তিনি নৌকা থেকে ঈমানদারদের নিয়ে দুনিয়ায় অবতরণ করেন।

# হজরত ইবরাহিম (আ.) নমরুদের অগ্নিকুণ্ডে নিক্ষিপ্ত হওয়ার ৪০ দিন পর ১০ মহররম সেখান থেকে মুক্তি লাভ করেন।

# হজরত আইয়ুব (আ.) ১৮ বছর কঠিন রোগ ভোগ করার পর মহররমের এ দিনে আল্লাহর রহমতে সুস্থতা লাভ করেন।

হজরত ইয়াকুব (আ.)-এর পুত্র হজরত ইউসুফ (আ.) তার ১১ ভাইয়ের ষড়যন্ত্রে কূপে পতিত হন এবং এক বণিক দলের সহায়তায় মিসরে গিয়ে হাজির হন। তারপর আল্লাহর বিশেষ রহমতে তিনি মিসরের প্রধানমন্ত্রী হন। ৪০ বছর পর ১০ মহররম পিতার সঙ্গে মিলিত হন তিনি।

# হজরত ইউনুস (আ.) জাতির লোকদের প্রতি হতাশ হয়ে নদী অতিক্রম করে দেশান্তরিত হওয়ার সময় নদীর পানিতে পতিত হন এবং মাছ তাকে গিলে ফেলে। মাছের পেট থেকে তিনি ৪০ দিন পর মুক্তি পান ১০ মহররম তারিখে।

# হজরত মুসা (আ.) ফেরাউনের অত্যাচারের কারণে তার দলবলসহ অন্যত্র চলে যান। পথিমধ্যে নীল নদ পার হয়ে তিনি ফেরাউনের হাত থেকে আশুরার দিন মুক্তি পান। আর ফেরাউন তার দলবলসহ নীল নদের পানিতে ডুবে মারা যায়।

# হজরত ঈসা (আ.)-এর জাতির লোকেরা তাঁকে হত্যা করার চেষ্টা করলে মহররমের ১০ তারিখ আল্লাহ পাক তাঁকে আসমানে উঠিয়ে নিয়ে মুক্তি দান করেন।

এই ঘটনাগুলো ছাড়াও ১০ মহররম আরও একটি কারণে তাৎপর্যময়। ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা বিশ্বাস করেন, এ দিনে আল্লাহ তাআলা পৃথিবী সৃষ্টি করেছিলেন। আবার এই দিনেই কিয়ামত সংঘটিত হবে।

মুসলিম বিশ্বে ত্যাগ ও শোকের প্রতীক হিসেবে পালিত হচ্ছে পবিত্র আশুরা। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, জাতীয় জীবনে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে পবিত্র আশুরা থেকে শিক্ষা নিতে হবে।

আশুরা উপলক্ষে পুরান ঢাকার হোসেনি দালানসহ রাজধানীর বিভিন্ন স্থান থেকে আজ শিয়া সম্প্রদায়ের উদ্যোগে তাজিয়া মিছিল বের হবে।  ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগেও বিভিন্ন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। 

বাংলা ইনসাইডার/এএইচসি