ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৩০ জানুয়ারি ২০২০, ১৬ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সায়মা ওয়াজেদ পুতুল: মানসিক স্বাস্থ্যে সৃষ্টিশীল নারী

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯ সোমবার, ০৯:২৩ এএম
সায়মা ওয়াজেদ পুতুল: মানসিক স্বাস্থ্যে সৃষ্টিশীল নারী

অটিজম মোকাবেলায় বাংলাদেশের সাফল্য প্রশংসনীয়। এ সাফল্যের পেছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তনয়া সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুল। তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় অটিজম নিয়ে বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। আজ তার জন্মদিন, ১৯৭২ সালের ৯ ডিসেম্বরে তিনি জন্ম নেন। জন্মদিনে বাংলা ইনসাইডারের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা এবং ভালোবাসা।

সায়মা ওয়াজেদ পুতুল বাংলাদশের অটিজম বিষয়ক জাতীয় পরামর্শক কমিটির চেয়ারম্যান। তিনি ২০০৮ সাল থেকে শিশুদের অটিজম এবং স্নায়বিক জটিলতা সংক্রান্ত বিষয়ের ওপর কাজ শুরু করেন। অল্প সময়ের মধ্যেই তার কাজ বিশ্বজুড়ে প্রশংসা কুড়ায়। প্রথমে নিজ দেশ বাংলাদেশে এবং পরবর্তীতে জাতিসংঘ ও বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থায় তিনি কাজ করেন।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে পুতুলকে ‘হু অ্যাক্সিলেন্স’ অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত করে। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক পুনম ক্ষেত্রপাল সিংয়ের উদ্যোগে এই অঞ্চলের ১১টি দেশের জন্য এ পুরস্কার চালু করা হয়।

এর আওতায় জনস্বাস্থ্যে অবদানের জন্য প্রতি বছর একজন ব্যক্তি ও একটি প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কৃত করা হয়। মনস্তত্ত্ববিদ সায়মা যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘অটিজম স্পিকস’-এর পরামর্শক হিসেবেও কাজ করেন।

তিনি ২০১৩ সালের জুন থেকে মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার ‘বিশেষজ্ঞ পরামর্শক প্যানেলে’ অন্তর্ভুক্ত আছেন। পুতুলের উদ্যোগেই ২০১১ সালের জুলাইয়ে ঢাকায় অটিজম নিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম আন্তর্জাতিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ওই সম্মেলনের পর গড়ে ওঠে সাউথ এশিয়ান অটিজম নেটওয়ার্ক। সংগঠনটি দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে অটিস্টিক শিশুদের স্বাস্থ্য, সামাজিক ও শিক্ষা সহায়তা দেয়ার জন্য অবকাঠামো গড়তে কাজ করছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যার উদ্যোগেই অটিজম সচেতনতায় বাংলাদেশের একটি প্রস্তাব বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার নির্বাহী পরিষদে সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হয়।

২০০৮ সালের পর থেকে সায়মা ওয়াজেদ অটিজম সমস্যার উন্নয়নে কাজ করার জন্য অনেক অ্যাওয়ার্ড পান। অটিজম আন্দোলন ও বিশ্বস্বাস্থ্যে অবদান রাখার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ব্যারি ইউনিভার্সিটি ডিসটিংগুইসড অ্যালামনাই অ্যাওয়ার্ডস প্রদান করে সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুলকে। ফ্লোরিডার মায়ামিতে ব্যারি ইউনিভার্সিটি মিলনায়তনে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

সায়মা ওয়াজেদ হোসেন ব্যারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৯৭ সালে মনোবিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি, ২০০২ সালে ক্লিনিক্যাল সাইকোলজির ওপর মাস্টার্স ডিগ্রি এবং ২০০৪ সালে স্কুল সাইকোলজির ওপর বিশেষজ্ঞ ডিগ্রি লাভ করেন। ব্যারি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নের সময় তিনি বাংলাদেশের নারীদের উন্নয়নের ওপর গবেষণা করেন। এ বিষয়ে তার গবেষণাকর্ম ফ্লোরিডার একাডেমি অব সায়েন্স কর্তৃক শ্রেষ্ঠ সায়েন্টিফিক উপস্থাপনা হিসেবে স্বীকৃত হয়।

সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুল অটিস্টিক শিশুদের জন্য যে অবদান রেখে যাচ্ছেন, তাতে মানবতার জয় নিশ্চিত।