ঢাকা, সোমবার, ১০ মে ২০২১, ২৭ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

শিশুদের জন্য খেলাধুলা কতটা প্রয়োজনীয়?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৩০ মার্চ ২০২১ মঙ্গলবার, ০৮:০৯ এএম
শিশুদের জন্য খেলাধুলা কতটা প্রয়োজনীয়?

যান্ত্রিকতা আর ব্যস্ততায় ছেয়ে গেছে রাজধানী ঢাকা। এর মাঝে অবহেলিত হচ্ছে শিশু থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত সবাই। ঢাকার বাইরের শিশুরা কিছুটা খেলাধুলার সুযোগ পেলেও ঢাকার শিশুরা অধিকাংশই থাকে গৃহবন্দি। খেলার মাঠ নেই, হারিয়ে যাওয়ার ভয়ে তাদের বাসার বাইরে যেতে দেওয়া হয় না। স্কুলগুলোও অধিকাংশ ক্ষেত্রে একটি ভবনের মধ্যে সীমাবদ্ধ। আর তাছাড়া আরও বেশি ঘর বন্দি হয়ে গেছে এই করোনা কালে স্কুল বন্ধ থাকার কারণে।

পরিবেশ-পরিস্থিতি, সুযোগ-সুবিধার অভাবে আমরা অনেকেই সন্তানকে খেলার জন্য ল্যাপটপ, মোবাইল ফোন, ট্যাব দিয়ে থাকি। এতে করে দৈহিক পরিশ্রমের চেয়ে মানসিক পরিশ্রম বেশি হচ্ছে। এ ধরনের শিশুরা বড় হয়ে একটুতেই হতাশায় ভোগে। পরীক্ষায় ভালো নম্বর হয়তো পায় কিন্তু তারা বাস্তববাদী হতে পারে না। মানুষের সাথে মেশার সুযোগ তাদের হয় না। তাই বাস্তবতা থেকে তারা একটু একটু করে দূরে সরতে থাকে। আর যেসব শিশু ছোটবেলা থেকে বিভিন্ন পরিবেশে যায়, বিভিন্ন মানুষের সাথে মেশার সুযোগ পায়, তারা জীবনের বড় ধরনের দুঃখ-কষ্টগুলোর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে শেখে। তাই মানসিক পরিশ্রমের পাশাপাশি শিশুকে দৈহিক পরিশ্রমের জন্য খেলাধুলা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। খেলাধুলা না করলে যেসব ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে শিশুর অথবা খেলাধুলায় শিশুর যেসব উপকার হয়ে থাকে-
 

১. খেলাধুলায় উপস্থিত বুদ্ধি বৃদ্ধি পায়।

২. শারীরিক বৃদ্ধি স্বাভাবিক রাখতে খেলাধুলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

৩. পরিকল্পনা, দূরদর্শিতা ও পড়াশোনার প্রতি শিশুর আগ্রহ জাগিয়ে তুলতে কয়েকজন মিলে একসাথে খেলার পরিবেশ অনেকখানি সাহায্য করে। পাশাপাশি সৃজনশীলতা ও কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

৪. ক্রিকেট, ফুটবলের মতো ছুটাছুটি করার সুযোগ রয়েছে এমন খেলার মাধ্যমে শারীরিক কাঠামো মজবুত হয়। নানা ধরনের নৈপুণ্য, দক্ষতা আয়ত্তে আসে।

৫. খেলাধুলার মাধ্যমে শিশুরা পড়াশুনা, আচার-আচরন, বুধিমত্তাতে এগিয়ে থাকে।

৬. সকলের সাথে মিলেমিশে খেললে সামাজিক আচরন, সম্পর্ক দৃঢ় হয়।

৭. কল্পনাশক্তি, রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা, চিন্তাশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে।