ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ৪ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আজ বিশ্ব আর্থ্রাইটিস দিবস

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২ অক্টোবর ২০২১ মঙ্গলবার, ০৮:২৪ এএম
আজ বিশ্ব আর্থ্রাইটিস দিবস

বিশ্ব আর্থ্রাইটিস দিবস আজ। গ্রিক শব্দ ‘আর্থো’-এর মানে হলো অস্থিসন্ধি বা হাড়ের জোড়া এবং ‘আইটিস’ শব্দের মানে প্রদাহ। খুব সাধারণভাবে বলা যায়, আর্থ্রাইটিস হলো অস্থিসন্ধি বা হাড়ের জোড়ার প্রদাহ। প্রতিবছর আর্থ্রাইটিস দিবস সারা বিশ্বের মতো পালন করা হয় বাংলাদেশেও। দিবসটি পালন করা হয় মূলত আর্থ্রাইটিস সম্পর্কে জনমনে ধারণা ও সচেতনতা তৈরি করার লক্ষ্যে। 

দৈনন্দিন জীবনে খুব বেশি কাজের দরুন হাড়ের জয়েন্টে অতিরিক্ত চাপ পড়ে যে ব্যথার সৃষ্টি হয় সেটাকে অস্টিওআর্থ্রাইটিস বলে। মানবদেহের ইমিউন সিস্টেম অনেক সময় ভুলক্রমে জয়েন্ট সেলকে আক্রমণ করে বসে। এ কারণে জয়েন্টে প্রদাহ তৈরি হয়, যা রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস নামে পরিচিত। রক্তের মাধ্যমে জীবাণু যখন হাড়ের জয়েন্টে গিয়ে ইনফেকশনের সূচনা ঘটায়, তখন তীব্র ব্যথার সৃষ্টি হয়, যেটাকে সেপটিক আর্থ্রাইটিস বলে। তা ছাড়া জয়েন্টে ইউরিক অ্যাসিড জমা হলে অথবা ক্যালসিয়াম পাইরুফসফেট জমা হলে বাতব্যথা নামে পরিচিত অন্য ধরনের আর্থ্রাইটিসের সৃষ্টি হয়।

বাত ( আর্থ্রাইটিস) মূলত অস্থিসন্ধির প্রদাহ যা এক বা একাধিক অস্থি সন্ধিকে আক্রান্ত করে।  এটা শিল্পোন্নত দেশে ৫০-৫৫ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সের মানুষের অক্ষমতার মূল কারণ।   প্রায় ১০০টি বিভিন্ন ধরনের রোগ নিয়ে হয় বাতরোগ।  এই রোগে প্রধানত অস্থিসন্ধি আক্রান্ত হলেও হাড়ের প্রদাহ, ক্ষয় রোগ, লিগামেন্ট ও টেন্ডনের ব্যথা, মাংসপেশীর ব্যথা, মেরুদণ্ডের প্রদাহ, ক্ষয়, আড়ষ্ঠতা এগুলোও বাতরোগের পর্যায়ে পরে।  বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে তরুণাস্থি ভঙ্গুর হয়ে পরে এবং এর পুনর্গঠনের ক্ষমতাও কমে যায়।  তাই বয়স বাড়ার সাথে বাত রোগে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনাও বাড়ে।

অতিরিক্ত ওজন এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি বিপদের।  অস্থিসন্ধি ক্ষয় খানিকটা শরীরের বাড়তি ওজনের সম্পর্কিত।  অতিরিক্ত ওজন জয়েন্টগুলোর উপর অতিরিক্ত চাপ স্থাপন করে।  তাই স্থূলকায় ব্যাক্তিরা সাধারনত বাতরোগে বেশি ভুগে থাকেন।

২০০১ সালে করা এক গবেষণায় দেখা গেছে, দেশের শতকরা ২৬ দশমিক ৩ শতাংশ জীবনের কোন না কোন সময় বাত ব্যাথায় ভুগে থাকেন।  ২০০৫ সালে এই সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৬ দশমিক ৫ শতাংশে।  পুরুষের তুলনায় নারীরা এ রোগে বেশি ভোগেন। এক্ষেত্রে পুরুষ আক্রান্তের হার ২১ দশমিক ১ ভাগ এবং নারীদের হার ৩১ দশমিক ৩ ভাগ।  আশঙ্কার বিষয় ১০ বছরের ব্যবধানে নারীদের হার প্রায় ৩ শতাংশ বেড়ে ৩৪ দশমিক ৫ শতাংশ এবং পুরুষদের হার ১৮ দশমিক ৬ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

আর্থ্রাইটিসের সাধারণ লক্ষণ ও উপসর্গগুলো সাধারণত হাড়ের জয়েন্টের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। সাধারণত জয়েন্টে অতিমাত্রায় ব্যথা অনুভূত হওয়া। জয়েন্ট ফুলে যাওয়া। হাতের আঙুল, কনুই, কাঁধ, হাঁটু, গোড়ালি ও পায়ের পাতায় ব্যথা অনুভব করা। শরীরের উভয় পাশে একসঙ্গে ব্যথা অনুভব করা। যেমন হাতে হলে দুই হাতের জয়েন্টে একসঙ্গে ব্যথা করে, ফুলে যায়। অনেক সময় শরীর দুর্বল লাগে, জ্বর জ্বর অনুভূতি হয়।

আমরা জানি প্রতিকারের চেয়ে উত্তম  প্রতিরোধ। তাই আর্থ্রাইটিসের মতো সমস্যার ক্ষেত্রে আমাদের পূর্বসচেতনতা অধিক জরুরি। যেমন নিয়মিত ব্যায়াম করা, সব ধরনের মাদকদ্রব্য পরিহার করা, স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করা। পাশাপাশি আরও যেসব বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন জরুরি, তা হলো শারীরিকভাবে অতিরিক্ত পরিশ্রম না করা, জয়েন্টে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি চাপ না দেওয়া।

অন্যদিকে সামান্য ব্যথা হলেই ব্যথার ওষুধের ব্যবহার আমাদের দৈনন্দিন বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে, যা আমাদের কিডনি, লিভার বিকল থেকে শুরু করে অনেক জটিল সমস্যার জন্ম দিতে পারে। তাই সচেতন নাগরিক হিসেবে আমাদের উচিত যখন–তখন ওষুধ ব্যবহার না করে লক্ষণ প্রকাশিত হলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়া। বিশ্ব আর্থ্রাইটিস দিবসে মানুষের মধ্যে আর্থ্রাইটিস সম্পর্কে সচেতনতার নিমিত্তে বিশদ আকারে প্রচারণা চালানো আবশ্যক। জীবনধারণ পদ্ধতি, খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে জনমতে স্বচ্ছ ধারণা প্রদানের মাধ্যমে ব্যাধিটি অনেকাংশেই কমানো সম্ভব।