ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

উচ্চ রক্তচাপ ও হাইপারটেরশন মোকাবেলায় খাদ্যাভাস

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৫ জুলাই ২০১৮ রবিবার, ০৮:৩১ এএম
উচ্চ রক্তচাপ ও হাইপারটেরশন মোকাবেলায় খাদ্যাভাস

উচ্চ রক্তচাপ এবং হাইপারটেরশন বর্তমানের একটি বড় সমস্যা। আমাদের অসচেতনতা এবং অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন এর জন্য দায়ী। অতিরিক্ত ওজন, মানসিক চাপ, অনিয়মিত খাবার দাবার এবং ব্যায়ামের অভ্যাস না থাকার কারণে এই সমস্যাগুলো প্রকট হয়ে যায়। কিন্তু সমাধান অনেকটাই আছে আমাদের খাদ্যাভাসের মধ্যে।

লবণ কমিয়ে খান

উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সবার আগে লবণ খাওয়া কমাতে হবে। বিশেষ করে খাবার সময় কাঁচা লবণ একেবারেই খাওয়া যাবে না। সঙ্গে রান্নাতেও লবণ কম দিতে হবে। কারণ অতিরিক্ত লবণ রক্তে মিশে সোডিয়ামের মাত্রা বাড়িয়ে শরীরে সোডিয়ামের ভারসাম্য নষ্ট করে। ফলে রক্তচাপ বেড়ে যায়।

কলা খাওয়ার অভ্যাস করুন

কলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম যা রক্তচাপ কমাতে বিশেষ ভূমিকা রাখে। এছাড়া শরীরের রক্ত শোধনেও কলা বেশ সাহায্য করে। তাই প্রতিদিন কাঁচা-পাকা কলা খাওয়ার অভ্যাস করুন।

সবসময় সবুজ শাকসবজি

নিয়মিত সবুজ শাকসবজি খেলে রোগবালাই খুব কমই হয়। আঁশযুক্ত বিভিন্ন শাকসবজিতে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম, ফোলেট থাকে যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে। কম তেলে রান্না সবজি বা সিদ্ধ সবজি খাওয়ার চেষ্টা করুন, তাতে শরীরে ক্যালরি কম আক্রমণ করবে।

ওটমিল

ওজন কমাতে এবং শরীরে শক্তি বাড়াতে ওটমিল খাওয়ার অভ্যাস রাখতে পারেন। বিশেষ করে সকালের নাস্তায় ওটস খাওয়া শরীরের জন্য বেশ ভালো। এটা সারাদিনের পুষ্টিসঞ্চার করতে পারে। ওটসে সোডিয়াম খুব কম থাকে, কিন্তু উচ্চমাত্রায় আঁশ থাকে। ফলে রক্তচাপ কমে।

তরমুজ

তরমুজে রযেছে অ্যামিনো অ্যাসিড এল-সিট্রুলিন। এই উপাদানটি শুধু রক্তচাপ নয় শরীরের বিভিন্ন সমস্যা দূর করে। এতে রয়েছে লাইকোপিন, পটাসিয়াম, ভিটামিন এ এবং ফাইবার যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

শশা

শশাতে জলীয় উপাদান অনেক পর্যাপ্ত থাকে। ডায়েটে নিয়মিত শশা রাখলে রক্তচাপ কমে, শরীরে রোগ প্রতিরোধ শক্তি বাড়ে।

মধু

হাইপারটেনশন ও উচ্চ রক্তচাপ কমানোর আর একটি উৎকৃষ্ট উপায় হলো মধু। এক কাপ উষ্ণ গরম পানিতে এক চামচ মধুর সঙ্গে ৫-১০ ফোঁটা অ্যাপেল সিডার ভিনেগার মিশিয়ে প্রতিদিন নাস্তার আগে খেলে উপকার মিলবে।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ/জেডএ