ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১৩ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

শিশুর জ্বরের জটিলতা

স্বাস্থ্য ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ জুন ২০১৭ মঙ্গলবার, ০৪:৩৩ পিএম
শিশুর জ্বরের জটিলতা

শিশুরা কোমলমতি। গরমের এই সিজনে প্রায়ই এই ফুলের মতো শিশুদের ভুগতে হচ্ছে জ্বরে। আদরের সন্তান যখন উত্তপ্ত শরীরে কষ্ট পায়, অস্থির হয়ে পরেন মা-বাবা।

তাই ‘ঘরোয়া চেম্বার’এর এই পর্ব আলোচনা হবে শিশুর জ্বর নিয়ে। পরামর্শ দিচ্ছেন শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. মনজুর হোসেন।

শরীরের স্বাভাবিক সর্বোচ্চ ১০০ ডিগ্রী ফারেনহাইট। তাপমাত্রা এর চেয়ে বেশি হলে তাকে জ্বর বলা হয়।শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রিত হয় থার্মোরেগুলেটরি সেট পয়েন্টের মাধ্যমে। শরীর যখন এই পয়েন্ট বাড়িয়ে দেয়, তখন শরীরের তাপ বেড়ে যায়।

শিশুদের জ্বর কেন হয়?

শরীরে যে কোন ইনফেকশনের প্রভাবে জ্বর হতে পারে যেমন সর্দি-ঠাণ্ডা, কানে ইনফেকশন, নিউমনিয়া, টনসিল, প্রসাবে ইনফেকশন, অ্যাপেন্ডিসাইটিস, পেটের সংক্রামন ইত্যাদি কারণে শিশুর জ্বর হতে পারে।
এমনকি ছোট শিশুকে অতিরিক্ত কাপড় পরিয়ে বদ্ধ ঘরে রাখা হলেও তার শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যেতে পারে। এছাড়াও শরীরে যেকোনো আঘাত, রক্তক্ষরণ সার্জারি ও ঔষধের প্রভাবেও জ্বর হতে পারে।

শিশুর জ্বর অন্য রোগের লক্ষণ হতে পারে কি?

জ্বর হওয়ার কারণগুলোই জ্বরের পরবর্তী সমস্যা হিসেবে সনাক্ত হতে পারে। জ্বর কোন রোগের লক্ষণ কি না, তা বুঝতে জ্বরের ধরণ খেয়াল করতে হবে।

সাধারণত ভাইরাসজনিত জ্বরের সঙ্গে সর্দি কাশি থাকে এবং এটি ৩-৫ দিন স্থায়ী হয়।

ডেঙ্গু জ্বরের সঙ্গে থাকে মাথা ব্যথা, শরীর ব্যথা, চোখের পেছনে ব্যথা। চিকুনগুনিয়া জ্বরের সঙ্গে জয়েন্টে ব্যথা এবং র‍্যাশ থাকে।

টাইফয়েড এবং অন্যান্য ব্যাকটেরিয়া জনিত জ্বর সাধারণত দীর্ঘ সময়ের হয়।

জ্বরে জটিলতার লক্ষণগুলো কী কী?

- শিশুর জ্বরের সাথে বমি, ডায়রিয়া, পেটব্যথা, শ্বাসকষ্ট থাকলে অবশ্যই ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে।

- নবজাতকের ক্ষেত্রে জ্বরের সঙ্গে খেতে না পারলে তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিতে হবে।

- জ্বরের সময় শিশু যদি অস্বাভাবিক আচরন করে অথবা খিচুনি হয় তাহলে শিশুকে দ্রুত হসপিটালে নিতে হবে।

- এছাড়াও জ্বরের সঙ্গে মাড়ি থেকে রক্ত পরলে, বমি বা পায়খানার সঙ্গে রক্ত গেলে, গায়ে কালচে দানা দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

শিশুর যেকোনো সমস্যায় আপনার কোনো প্রশ্ন থাকলে এখানে ক্লিক করুন

বাংলা ইনসাইডার/এমএ