ঢাকা, শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ডাক্তার খানা: ব্রেস্ট ক্যান্সারের খুঁটিনাটি

ডা. অরুনাংশু দাস
প্রকাশিত: ০১ নভেম্বর ২০১৯ শুক্রবার, ১০:০০ এএম
ডাক্তার খানা: ব্রেস্ট ক্যান্সারের খুঁটিনাটি

‘মহিলাদের যে ধরণের ক্যান্সার হয় তার মধ্যে ব্রেস্ট ক্যান্সার অন্যতম। বাংলাদেশে প্রতিবছর প্রায় দেড়লাখ মানুষ ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়। এর মধ্যে ১৫ হাজার নারী ব্রেস্ট ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়।’

ব্রেস্ট ক্যান্সার নিয়ে আলোচনায় কথাগুলো বলছিলেন ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ ডা. অরুনাংশু দাস। এসোসিয়েট কনসালটেন্ট (অনকোলজি), স্কয়ার হসপিটাল।

বাংলা ইনসাইডারের ইউটিউব চ্যানেলের ধারাবাহিক আয়োজন ‘ডাক্তার খানা’। অনুষ্ঠানটি প্রচারিত হয় প্রতি শুক্রবার সকাল ১০ টায়। যেখানে খ্যাতিমান চিকিৎসকরা পরামর্শ দেন। অনুষ্ঠানটিতে আজকের পর্বে আমন্ত্রিত হয়েছিলেন ডা. অরুনাংশু দাস।

ব্রেস্ট ক্যান্সারের খুঁটিনাটি বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘ব্রেস্ট ক্যান্সার হলে আমাদের সামনে সাধারণত যে সিমটম বা উপসর্গ নিয়ে আসে সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ব্রেস্টে কোন চাকা দেখতে পাওয়া। অথবা বগলের নিচে চাকা দেখতে পাওয়া। অনেক সময় রোগ খুব অগ্রসর পর্যায়ে চলে গেলে দেখা যায় যে, পিঠে ব্যাথা অথবা শ্বাসকষ্ট হতে পারে। এমন সমস্যা নিয়েও আসতে পারে।’

তার মতে, ‘ব্রেস্ট ক্যান্সার সাধারণত আমাদের দেশে অ্যাডভান্স স্টেজে বা খুব অগ্রসর স্টেজে নিয়ে আসে। এর জন্য দরকার সচেতনেতা। সচেতনতার অংশ হিসাবে সবচেয়ে জরুরি হচ্ছে স্ক্রিনিং করা। অক্টোবর মাস হচ্ছে ব্রেস্ট ক্যান্সারের সচেতনতার মাস। এই মাসে সবচেয়ে বেশি জরুরি হচ্ছে সবার মাঝে ব্রেস্ট ক্যান্সারের সচেতনেতা বা স্ক্রিনিং বৃদ্ধি করা। স্ক্রিনিং বলতে বুঝায় ৪০ বছরের বেশি যে মহিলাদের বয়স তাদের সবারই বছরে একবার করে মেমোগ্রাম পরীক্ষা করতে হবে। যাদের বয়স ৪০ এর নিচে তারা যদি সন্দেহজনক কোনকিছু লক্ষ্য করে তবে চিকিৎসকের স্বরণাপন্ন হয়ে তার উচিত আল্ট্রাসনোগ্রাম পরীক্ষা করে দেখা।’

নিজের ব্রেস্ট নিজেই পরীক্ষা করতে পারেন বলে জানান ডা. অরুনাংশু দাস। তিনি বলেন, ‘প্রত্যেক মাসে অন্তত একবার করে নিজের ব্রেস্ট নিজেরই পরীক্ষা করে দেখা উচিত যেটাকে আমরা আমাদের ভাষায় বলি ব্রেস্ট সেলফ এক্জামিনেশন। যেটা ব্রেস্ট ক্যান্সার সচেতনেতায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ধাপ। কেউ যদি প্রত্যেক মাসে একবার করে সেলফ ব্রেস্ট একজামিনেশন করে তাহলে সে খুব সহজেই বুঝতে পারবে তার বেস্ট্রে কোন অস্বাভাবিক পরিবর্তন আছে কিনা। সেখান থেকে পরবর্তীতে আর্লি স্টেজে রোগটি ধরা পড়বে।’

ক্যান্সারের চিকিৎসা নিয়ে বলেন,‘আমাদের দেশে এখন বেস্ট ক্যান্সারের সব ধরনের চিকিৎসা অ্যাভেইলেবল। ব্রেস্ট ক্যান্সারের চিকিৎসা বলতে যেটা আমরা বুঝি সার্জারি কেমোথেরাপি এবং রেডিওথেরাপি। সবগুলোই এখন আমাদের দেশে দেওয়া সম্ভব।’

 

বিস্তারিত আলোচনা দেখুন ভিডিওতে…

ডাক্তার খানা: ব্রেস্ট ক্যান্সারের খুঁটিনাটি