ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘টেলিমেডিসিনেরও নিয়ম আছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৩ জুলাই ২০২০ সোমবার, ০৫:০০ পিএম
‘টেলিমেডিসিনেরও নিয়ম আছে’

প্রখ্যাত মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও সাবেক স্বাস্থ্য মহাপরিচালক অধ্যাপক মো. আবুল ফয়েজ বলেছেন, “কোভিড-১৯ এ আক্রান্তদের মধ্যে মৃদু উপসর্গ যাঁদের, তাঁদের বাড়িতে চিকিৎসা নিতে বলা হচ্ছে। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, তিনি নিজের ইচ্ছানুযায়ী ঔষুধ সেবন করবেন। এজন্য তাঁকে অবশ্যই একজন চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। সরাসরি চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলতে না পারলে টেলিমেডিসিনের মাধ্যমেও এটা করতে পারেন।’’ এক্ষেত্রে একটা বিষয় খেয়াল রাখতে হবে যে, টেলিমেডিসিনেরও একটা নিয়ম আছে। বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে করোনা ভাইরাসের (কোভিড-১৯) চিকিৎসা প্রসঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন তিনি।

অধ্যাপক ফয়েজ বলেন, “টেলিফোনের মাধ্যমে একজন চিকিৎসকের কাছ থেকে একবার পরামর্শ নিলেই হবে না, সকাল বিকাল অর্থাৎ দিনে অন্তত দু`বার রোগীর শারীরিক অবস্থা সম্পর্কেও চিকিৎসককে জানাতে হবে। কারণ রোগীর অবস্থা যেকোনো সময় যেকোনো দিকে মোড় নিতে পারে।’’

প্রখ্যাত এই মেডিসিন বিশেষজ্ঞ বলেন, ‘কোভিড-১৯ এর চারটি পর্যায় রয়েছে। মৃদু, মাঝারি, মারাত্মক এবং সংকটপূর্ণ। সামাজিক মাধ্যম বা অন্য কোনো মাধ্যম থেকে কোভিড সংক্রান্ত বিভিন্ন লেখা পড়ে বা দেখে কিংবা আগে থেকে পরীক্ষা করে বোঝা  সম্ভব নয় যে, একজন রোগীর অবস্থা কখন কোন দিকে মোড় নেবে। আগে থেকে বলে কয়ে রোগীর অবস্থা মৃদু থেকে মাঝারি বা মাঝারি থেকে মারাত্মক হয় না। হঠাৎ করেই রোগী মৃদু থেকে মারাত্মক অবস্থায় চলে যেতে পারে। এজন্যই চিকিৎসককে দিনে অন্তত দু`বার রোগীর অবস্থা জানানো দরকার। অবস্থা বিবেচনা করে রোগীকে বাড়ীতে কি চিকিৱসা নিবেন তা পরার্মশ দিতে পারেন কিংবা হাসপাতালে যাওয়ার পরামর্শ দিতে পারেন।

করোনায় আজকাল অনেকেই হাসপাতালে না গিয়ে বা চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া বাড়িতেই নিজের চিকিৎসা নিজে করছেন, এ প্রসঙ্গে ডা. ফয়েজ বলেন, ‘সব মানুষ যদি চিকিৎসা জানেন, তাহলে তো আর হাসপাতাল বা চিকিৎসা ব্যবসার দরকার হয় না। যে কোনো রোগের চিকিৎসা চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসক টিমের মাধ্যমে হতে হয়। এটা চিকিৎসক সরাসরি করুন বা টেলিমেডিসিনের মাধ্যমে করুন অথবা তার অধস্তন কোনো সহযোগীর মাধ্যমে করুন। আমি পত্রিকা দেখলাম, বই পড়লাম, সামাজিক মাধ্যমে দেখলাম, তারপর নিজের চিকিৎসা নিজে করলাম, এর অর্থ হলো নিজেকে অতিরিক্ত ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দেওয়া। শরীর তো নিজের, কেউ নিজের চিকিৎসা করতে চাইলে করতেই পারেন। তবে এটা তার বিপদ ডেকে আনতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘মেডিকেল প্রফেশনের মূলমন্ত্র হচ্ছে, একজন চিকিৎসক নিজেও যদি অসুস্থ হন, তবে তিনি আরেকজন চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন। এটা সব সময়ের জন্যই প্রযোজ্য। কোভিড-১৯ এর জন্য তো আরও বেশি প্রযোজ্য। পশ্চিমা বিশ্বে আমরা যেমনটা দেখি যে, যে কোনো শারীরিক সমস্যায় মানুষ হাসপাতালে যান কিংবা চিকিৎসকের পরামর্শ নেন। কিন্তু আমাদের দেশে সব সময়ই এই প্রবণতাটা কম। মানুষ চিকিৎসক/হাসপাতালের পরিবর্তে ওষুধের দোকানে যায় বেশি। অনেকে আবার পল্লী চিকিৎসকের কাছে যান। এই করোনাকালেও অনেকেই এমনটা করছেন। এটা ঠিক নয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা যেকোনো পত্র পত্রিকায় কিছু ওষুধের নাম দেখছেন, একটু অসুস্থ হলেই করোনা ভেবে সেটা কিনে এনে খাচ্ছেন। অনেকে আবার বাসায় পালস অক্সিমিটার, অক্সিজেন সিলিন্ডার কিনে রাখছেন। পালস অক্সিমিটার ব্যবহার করা যেতে পারে। কিন্তু নিজেদের ইচ্ছামতো অক্সিজেন সিলিন্ডার এনে রাখা এবং তা গ্রহণ করা, এটা বিপজ্জনক এবং রোগীর কোনো কাজেও আসে না। এগুলো কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। অক্সিজেন দেওয়াটা তো হেলাফেলা করার মতো জিনিস নয়। এটার একটা নিয়ম রয়েছে এবং মাত্রা রয়েছে। অক্সিজেন ঘরে বসে দেওয়ার জিনিস নয়। যাঁরা এটা বিক্রি করেন, তাঁদেরও জানা উচিৎ যে, এটা ব্যক্তি পর্যায়ে বিক্রির জন্য নয়।

এ বিষয়ে ডা. ফয়েজ আরও বলেন, বাসায় বসে অক্সিজেন দেওয়ার মানে হলো, রোগী নিজে ঝুঁকির মধ্যে পড়ছেন, পাশাপাশি অন্যদেরও ঝুঁকির মধ্যে ফেলছেন। কারণ অক্সিজেন গ্রহণের সময় সেখানে বাতাসসহ এরোসল তৈরি হয়। এর ফলে করোনা  সংক্রমণ অন্যদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়তে পারে। সুতরাং করোনা প্রতিরোধ করতে আমাদের যেমন সচেতন হতে হবে, তেমনি করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পরও সুস্থ হওয়ার জন্যও আমাদের সচেতনতা খুব বেশি জরুরী। এটা ঠিক যে করোনায় আক্রান্ত বেশিরভাগ মানুষই মৃদু উপসর্গযুক বা উপসর্গহীন। বেশিরভাগ মানুষেরই হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। কিন্তু যিনি অসুস্থ বোধ করছেন বা অসুস্থ বোধ করার আগেই নিজের মতো করে ওষুধ খাচ্ছেন, তিনি নিজের বিপদ নিজে ডেকে আনছেন। এই অসচেতনতা মানুষের মৃত্যুও ঘটাতে পারে। সুতরাং আমাদের সাবধান হতে হবে, সচেতন থাকতে হবে।’