ঢাকা, সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ডেঙ্গু ও করোনা: কোনটি থেকে কীভাবে সামলাবেন নিজেকে?

স্বাস্থ্য ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩ আগস্ট ২০২১ মঙ্গলবার, ১০:০৩ এএম
ডেঙ্গু ও করোনা: কোনটি থেকে কীভাবে সামলাবেন নিজেকে?

একে তো করোনা ভাইরাসের মারণথাবা, তার ওপর ডেঙ্গুর উপদ্রব। দেশবাসী আসলে কাকে ছেড়ে কার হাত থেকে বাঁচবে, সেটি চিন্তা করতে গেলে একটু গলদঘর্ম হতে হয় বৈকি। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত এবং ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত- দুটিই বেশ ভয়ের বিষয়। তবে একটু জ্বর কিংবা কাশি হলেই যে করোনার ভয়ে ভীত হতে হবে, এমন কিন্তু নয়। একটু সচেতন থাকলে আমরা দুটোর মধ্যে প্রভেদ বুঝে সে অনুযায়ী পথ্য নিতে পারি। আসুন, করোনা ভাইরাস এবং ডেঙ্গুর মধ্যে পার্থক্য কী, তা একটু জেনে আসা যাক-

১) কোভিড ও ডেঙ্গু—দুই ধরনের সংক্রমণেই জ্বর থাকবে। জ্বরের মাত্রার তারতম্য হতে পারে। জ্বরের সঙ্গে মাথাব্যথা, শরীরব্যথা, গা ম্যাজম্যাজ করা, ক্ষুধামান্দ্যর মতো প্রাথমিক উপসর্গ থাকে দুটিতেই। করোনা বারবার ধরন পাল্টাচ্ছে, তাই উপসর্গও বদলে যাচ্ছে। কখনো তীব্র অরুচি আর স্বাদহীনতা প্রকট হয়ে দেখা দেয়। কখনো উপসর্গ বলতে কেবল ডায়রিয়া আর জ্বর। আবার কখনোবা কেবল মাথাব্যথা। করোনায় অনেকে ঘ্রাণ পায় না। ডেঙ্গু জ্বরে ঘ্রাণ থাকবে।

২) করোনায় এখনো জ্বরের সঙ্গে শরীরে ফুসকুড়ি আর দাঁত-নাক বা অন্য জায়গা থেকে রক্তক্ষরণ হয়নি। রক্তে প্লাটিলেটের মাত্রা কমে যেতে পারে। এটাও কেবল ডেঙ্গুতেই হয়। আবার দ্রুত অক্সিজেনের লেভেল কমে যাওয়া, শ্বাসকষ্ট হওয়া করোনার প্রকট লক্ষণগুলোর মধ্যে অন্যতম। ডেঙ্গুতে এসব লক্ষণ বিরল। হয় না বললেই চলে। করোনার ভ্যাকসিন থাকলেও ডেঙ্গুর এখনও কোনো ভ্যাকসিন আসেনি।

৩) সাধারণ লক্ষণগুলো থাকলেই সবার আগে করোনা আর ডেঙ্গু দুটিরই পরীক্ষা করাতে হবে। চার ধরনের ডেঙ্গু ভাইরাসে মূলত দুই ধরনের জ্বর হয়। ক্লিনিক্যাল ডেঙ্গু জ্বর ও হেমোরেজিক ফিভার। ডেঙ্গু জ্বর অন্যান্য ভাইরাল ফিভারের মতো নিজে থেকেই সাত দিনের মধ্যে সেরে যায়। তবে হেমোরেজিক ডেঙ্গু জ্বর ভয়াবহ হতে পারে। শরীরের তাপমাত্রা হঠাৎ করে ১০৪ থেকে ১০৬ ডিগ্রি পর্যন্ত উঠতে পারে। চরম বিষাদগ্রস্ততা দেখা দিতে পারে। অরুচি, বমি বমি ভাব এবং ত্বক লাল হতে পারে। এই জ্বর ৩ থেকে ৭ দিন স্থায়ী হয়। শরীরের চামড়ার নিচে রক্তক্ষরণ হতে পারে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ত্বকে রক্তক্ষরণজনিত উপসর্গ দেখা যায়।

৪) ডেঙ্গুর নির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসা না থাকলেও এ সময় প্রয়োজন প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা, বিশ্রাম নেওয়া এবং প্রচুর তরল খাবার খাওয়া উচিত। জ্বর কমানোর জন্য কোনোমতেই প্যারাসিটামল ছাড়া অন্য ওষুধ খাওয়া যাবে না। জ্বরের সঙ্গে রক্তক্ষরণের লক্ষণ দেখা দিলে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করাতে হবে। জ্বর কমানোর জন্য ভেজা কাপড়ে বারবার শরীর মুছে দিতে হবে।

বিষয়: করোনা , ডেঙ্গু