ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৪ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

চীনে এবার গুজবরোধী এআই নির্ভর প্লাটফর্ম

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক
প্রকাশিত: ৩১ আগস্ট ২০১৮ শুক্রবার, ০৩:৫০ পিএম
চীনে এবার গুজবরোধী এআই নির্ভর প্লাটফর্ম

প্রযুক্তির যুগে বিভিন্ন  সামাজিক মাধ্যম এখন আমাদের দৈনন্দিন জীবনেরই একটি অংশ। কিন্তু মূলত আমরা যে কারণে সামাজিক মাধ্যম ব্যবহার করি সেটা হলো সবার সঙ্গে, পুরো দুনিয়ার সঙ্গে নিজেকে সংযুক্ত রাখা। কিন্তু বর্তমান প্রেক্ষাপটে এই সামাজিক মাধ্যমেই মিথ্যা তথ্য, ভুয়া ও মিথ্যা খবর প্রকাশ করে গুজব তৈরি হয়, যা এখন সারাবিশ্বেই বড় একটা সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আর ঠিক এই সমস্যাগুলোর হাত থেকে নিরাপত্তার জন্য একটি প্লাটফরম নিয়ে এসেছে চীন। প্লাটফর্মটির মধ্যে একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআই ব্যবহার করে  সাধারণ মানুষের তৈরি প্রতিবেদন যেমন ‘অনলাইনের গুজব’ এবং মিথ্যা রিপোর্টগুলো খুঁজে বের করবে। পরে সেই কনটেন্টগুলো একদম নীচের দিকে পাঠিয়ে দেবে।

গত বুধবার চীনে এর যাত্রার ঘোষণা দেওয়া হয়। সেখানে বিভিন্ন সংবাদ বা তথ্য নিয়ে সামাজিক মাধ্যমগুলোতে ছড়ানো গুজবের বিরুদ্ধে পুলিশি ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও জানানো হয়েছে। এই  মাধ্যমগুলোতে যারা রাজনীতি, দেশের আরোপিত বিভিন্ন বিষয়ের সেন্সরশিপ নিয়ে কথা বলছেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

নির্দিষ্ট ওয়েবসাইট ছাড়াও ‘পিয়ো’ নামের ওই প্লাটফফর্মের জন্য রয়েছে মোবাইল অ্যাপ, সামাজিক মাধ্যম উইবো এবং উইচ্যাট অ্যাকাউন্ট। এগুলোর মাধ্যমে লগইন করা যাবে।

গুজব প্রতিরোধে পিয়ো একেবারে ‘সত্য ও প্রকৃত’ খবর প্রকাশ করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। আর এজন্য বিভিন্ন রাজ্যে থাকা সংবাদপত্র, সম্প্রচার মাধ্যম, দলীয় ও সরকারি  সংবাদ সংস্থা থেকে সেসব সংবাদ সংগ্রহ করে প্রচার ও প্রকাশ করবে।

গুজব ব্যক্তির অধিকার হরণ করে, গুজব সামাজিক অস্থিরতা তৈরি করে। এই গুজবের কারণে শেয়ারবাজার ওঠানামা করে, ব্যবসাতেও বড় ধরনের প্রভাব ফেলে, গুজব বিপ্লবী শহীদদের নিয়েও অপমানজনক কথা ছড়ানো হয় বলে একটি প্রোমো ভিডিওতে দেখিয়েছে পিয়ো ওয়েবসাইট।

অফিসিয়াল তথ্য দেখাচ্ছে, দেশটির ইন্টারনেট নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান গত বছর অন্তত ৬৭ লাখ ভুয়া ও মিথ্যা সংবাদ ছড়ানো হয়েছিল। আর এর বেশিরভাগই করা হয়েছে উইবো, টেনসেন্ট, উইচ্যাট, বাইদু এবং আলীবাবার মাধ্যমে। চীনের আইনানুযায়ী গুজব ছড়ানোর কাজে কেউ জড়িত থাকলে তার ৭ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। এমনকি এসব গুজব কেউ যদি বেশি শেয়ার করলে জেল জরিমানার বিধান রয়েছে। কিছুদিন আগে বিভিন্ন মাধ্যমে গুজব ছড়ানোর পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় এমন এআই নির্ভর পদক্ষেপ নিয়েছে চীন। হয়তো ভবিষ্যতে পুরো বিশ্বেই এই প্লাটফর্মের সুবিধা দেওয়া হবে।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ