ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

গ্রামীণফোন ও বাংলালিংকের সিমের রেজিস্ট্রেশন অনলাইনে

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ বুধবার, ০৪:৫৬ পিএম
গ্রামীণফোন ও বাংলালিংকের সিমের রেজিস্ট্রেশন অনলাইনে

এবার গ্রামীণফোন ও বাংলালিংক তাদের সিমের ই-নিবন্ধন বা ইলেকট্রনিক রেজিস্ট্রেশন সেবা চালু করেছে। গতকাল গুলশানের জিপি লাউঞ্জে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে ব্যবস্থাটি মিডিয়ার কাছে তুলে ধরে গ্রামীণফোন।

ই-নিবন্ধন হলো একটি কাগজবিহীন সিম নিবন্ধন প্রক্রিয়া। এখানে গ্রাহকদের নতুন সিম কেনার জন্য ছবি কিংবা কোনো আইডি (জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স) দিতে হবে না। গ্রাহক সিম বিক্রেতাকে শুধু তার নাম, আইডি নম্বর, জন্মতারিখ, বর্তমান ঠিকানা ও আঙুলের ছাপ দিলেই নতুন সিম কিনে নিতে পারবেন।

এছাড়াও, আগের মতো কাগজে কলমের আনুষ্ঠানিকতার দীর্ঘ ঝামেলা গ্রাহককে আর পোহাতে হবে না। অর্থাৎ, কাগজের সব বিষয়গুলোও পূরণ করতে হবে না। এই প্রক্রিয়ায় গ্রাহকদের ব্যক্তিগত তথ্যের নিরাপত্তা আরো জোরদার হবে বলে মনে করছে গ্রামীণফোন।

গ্রামীণফোন সূত্রে জানা গেছে, এই উদ্যোগ একটি নির্দিষ্ট ব্যবস্থার মাধ্যমে গ্রাহকদের জীবনকে সহজ করার পাশাপাশি, টেলিযোগাযোগ ইকোসিস্টেমের ডিজিটালকরণকে আরও সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে। তাছাড়া, দীর্ঘমেয়াদে এটা পরিবেশ সংরক্ষণেও ইতিবাচক অবদান রাখবে।

তবে প্রাথমিকভাবে, ই-নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুধুমাত্র নতুন সিম বিক্রির ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য হবে। ধীরে ধীরে এ প্রক্রিয়া মালিকানা হস্তান্তরসহ (গ্রাহক ও করপোরেট), দ্বৈত দাবি, মৃত্যুর মামলা নিষ্পত্তি, এমএনপি এবং ঠিকানা পরিবর্তন প্রভৃতি ক্ষেত্রেও কার্যকর হবে।

অবশ্য গ্রামীণফোনের আগেই গত সোমবার ব্যবস্থাটি চালু করেছে বাংলালিংক। বাংলালিংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জানান, সরকারের ইলেকট্রনিক ও কাগজবিহীন সিম রেজিস্ট্রেশন ব্যবস্থা চালু করার উদ্যোগকে তারা স্বাগত জানায়। এই উদ্যোগ মোবাইল গ্রাহকদের রেজিস্ট্রেশন ব্যবস্থা আরও সহজ করবে ও গ্রাহকদের ব্যক্তিগত তথ্যের সুরক্ষার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

 যেহেতু এই উদ্যোগের ফলে রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে কাগজের ব্যবহার প্রয়োজন হবে না, সেহেতু এটি একটি দৃষ্টান্তমূলক পরিবেশ-বান্ধব উদ্যোগ হিসেবে এটিকে দেখছে বাংলালিংক। তারা একে  দেশের ডিজিটালাইজেশনের ক্ষেত্রে এটি এক উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি বলে মনে করেন। বেশ কিছুদিন আগে থেকেই এই ই-রেজিস্ট্রেশন পদ্ধতি চালুর দাবি করছিল অপারেটরগুলো। গ্রামীণফোন, বাংলালিংকের পর অন্য অপারেটরগুলোও হয়তো এই সেবা নিয়ে আসবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ/জেডএ