ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২১, ৬ মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

অবৈধ মোবাইল ফোন বন্ধে গ্রাহকের করনীয় 

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৫ নভেম্বর ২০২০ বুধবার, ০৯:৪৫ পিএম
অবৈধ মোবাইল ফোন বন্ধে গ্রাহকের করনীয় 

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) সঙ্গে বৈধ মোবাইল হ্যান্ডসেটের নিবন্ধন সংক্রান্ত এক চুক্তি সই করেছে দেশের আইটি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান সিনেসিস আইটি। বুধবার, ২৫ নভেম্বর রাজধানীর রমনায় বিটিআরসি ভবনে দুই পক্ষের চুক্তি সই হয়।


বিটিআরসি জানায়, এরইমধ্যে ১৩ কোটি ৫২ লাখ ৯৯ হাজার ৩টি আইএমইআই নম্বর সংযোজন করা হয়েছে। মোবাইলফোন আমদানিকারক ও প্রস্তুতকারকেরা বিটিআরসি থেকে সংশ্লিষ্ট ব্র্যান্ড ও মডেলের আমদানি ও বাজারজাতকরণের অনাপত্তিপত্র পাওয়ার পর তা তাদের স্ব–স্ব ব্যবস্থায় স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে তথ্যভান্ডারে সংযোজন করে থাকেন।

বাজারে ও সাধারণ গ্রাহকের কাছে আগে থেকেই যে মুঠোফোন রয়েছে সেগুলোতে  এনইআইআর সিস্টেম চালু হলে সেগুলোর ভবিষ্যৎ কী হবে সে বিষয়ে বিটিআরসি জানায়, গত বছরের ১ আগস্টের আগে মোবাইল অপারেটরের নেটওয়ার্কে ব্যবহৃত ও ওই সময়ের পরে বৈধ পথে আমদানি কিংবা বাংলাদেশে উৎপাদিত মোবাইলেরতথ্য বিটিআরসির কাছে সংরক্ষিত রয়েছে। এর বাইরে যদি কোনো অবৈধ মোবাইল থাকে সে বিষয়ে তারা পরে সিদ্ধান্ত নেবে।

এসএমএসে  অনেক সময় আইএমইআই সংশ্লিষ্ট তথ্য পাওয়া যায় না । এ বিষয়ে করণীয় সম্পর্কে জানতে চাইলে বিটিআরসি জানায়, অবৈধভাবে আমদানি করা ও  বিটিআরসির তালিকাভুক্ত আমদানিকারক ও প্রস্তুতকারক সংযোজন করা হয়নি, সে মোবাইলগুলোর আইএমইআই নম্বর এই তথ্যভান্ডার থেকে পাওয়া সম্ভব নয়। গত বছরের আগস্টের আগে এই তথ্যভান্ডার চালু হওয়ায় এর আগের আইএমইআই নম্বর তথ্যভান্ডারে নেই।

বিটিআরসি আরও জানায়, বিদেশ থেকে ব্যক্তিগতভাবে নিয়ে আসা  বা অনলাইনে কেনা ফোনের ক্ষেত্রে এনইআইআর ওয়েবসাইটের মাধ্যমে গ্রাহকের আবেদন করতে পারবে। সেই পরিপ্রেক্ষিতে কেনার রসিদ যাচাই করে নিবন্ধন দেওয়া হবে। বিদেশ থেকে উপহার পাওয়ার ক্ষেত্রেও যথেষ্ট প্রমাণ দেখাতে হবে। একই ব্যক্তি বারবার দেওয়া মোবাইল ফোন উপহার গ্রহযোগ্য হবে না।

দেশে ব্যবহৃত একই আইএমইআই নম্বরের নকল ফোন তালিকা করে তাদের একটি নির্দিষ্ট সময় দেওয়া হবে। পরে তা বন্ধ করে দেওয়ার হতে পারে।