ইনসাইড বাংলাদেশ

গুম নিয়ে চাপে সরকার

প্রকাশ: ০৬:০০ পিএম, ১৪ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাত কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এই নিষেধাজ্ঞা আরোপের রেশ কাটতে না কাটতেই আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বাংলাদেশের মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা নতুন করে সামনে নিয়ে এসেছে। তারা বলেছে যে, মানবাধিকার লঙ্ঘন রোধে বাংলাদেশের কোন ব্যবস্থা গ্রহণের ইচ্ছাই নেই। এই প্রতিবেদনটি প্রকাশের পরপরই বাংলাদেশের পক্ষ থেকে এর আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। কিন্তু হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এই প্রতিবেদনটি ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, যুক্তরাজ্য, কানাডাসহ বিভিন্ন দেশে পাঠানো হয়েছে এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনের কারণে বাংলাদেশ সরকারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বলা হয়েছে।

বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে, এখন গুম নিয়ে সরকারকে চাপে ফেলার একটা কৌশল প্রকাশ্য রূপ ধারণ করেছে। দেশে সুশীল সমাজের একটি অংশ এবং বিদেশে লবিস্ট, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার মাধ্যমে গুমের বিষয়টিকে সামনে এনে সরকার মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে, এমন একটি প্রচারণা এখন দৃশ্যমান। এই প্রচারণার মূল লক্ষ্য হলো, সরকারকে মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী হিসেবে চিহ্নিত করা এবং আগামী নির্বাচনে আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং গোষ্ঠীর প্রভাব বিস্তার নিশ্চিত করা। বিশেষ করে বিএনপি এবং কয়েকটি রাজনৈতিক দল যে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি করছে সেই দাবিটিকে সামনে আনার জন্যই গুম নাটক সাজানো হচ্ছে বলে অনেকে মনে করছেন। বাংলাদেশ মানবাধিকার লঙ্ঘন করে, বাংলাদেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড হয় ইত্যাদি প্রচার করতে পারলে আগামী নির্বাচনে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে হতে পারে। ইতিমধ্যে এরকম একটি দাবি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাইডেন প্রশাসনের কাছে দেয়া হয়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

যখন আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে গুম নিয়ে সরকারকে চাপে ফেলার চেষ্টা হচ্ছে তখন বাংলাদেশেও সুশীল সমাজ নিয়ন্ত্রিত একটি দৈনিকে গুম ব্যক্তিদের বাড়ি যাচ্ছে পুলিশ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। যে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, গুম হওয়া ব্যক্তিদের বাড়িতে গিয়ে তাদের স্বজনদের জেরা ও চাপ প্রয়োগের অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে, কাউকে কাউকে থানায় ডেকে পাঠানো এবং ক্ষেত্র বিশেষে সাদা কাগজে সই দিতে চাপ দেওয়ার অভিযোগও তুলেছেন ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। আর এই প্রতিবেদন প্রকাশের পরপরই ‘মায়ের ডাক’ ও আইন সালিশ কেন্দ্র পৃথক পৃথক বিবৃতি দিয়েছে।

লক্ষণীয় যে, বাংলাদেশের মানবাধিকার লঙ্ঘনের যে ঘটনাগুলো আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রচারিত হয় সেই ঘটনাগুলো উৎসভূমি হলো বাংলাদেশই। প্রথমে সুশীল সমাজ নিয়ন্ত্রিত জাতীয় একটি বাংলা এবং ইংরেজি দৈনিকে এ সংক্রান্ত খবরগুলো প্রকাশিত হয়। এর পরপরই এই প্রতিবেদনের আলোকে দেশীয় মানবাধিকার সংগঠনগুলো বিবৃতি দেয় এবং এই বিবৃতির পরপরই আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন সেটি লুফে নেয় এবং সেটি বিভিন্ন দেশের প্রদান করে।

বলা হচ্ছে, বাংলাদেশে ৮৭ জন গুম হয়েছে, এই ৮৭ জন্যের একটি তালিকা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রশাসন সরকারের কাছে দিয়েছে। কিন্তু সরকারের কোন কোন মহলের অদক্ষতা, দায়িত্বহীনতা এবং অনাগ্রহের কারণে এর জবাব দেওয়া হয়নি। এর মাত্র ৭ জনকে জবাব দেওয়া হয়েছে। এখন আইন প্রয়োগকারী সংস্থা গুম হওয়া ব্যক্তিদের সম্বন্ধে খোঁজ খবর নেওয়ার জন্য তাঁদের বাড়িতে যাচ্ছেন এবং এ সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করার কাজটা করছেন যেন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে এই সংক্রান্ত সঠিক তথ্য দেয়া হয়। বাংলাদেশে যাদেরকে গুম বলা হচ্ছে তারা আসলে নিখোঁজ এবং বিভিন্ন কারণেই মানুষ নিখোঁজ হয়। শুধু বাংলাদেশে নয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনে দেখা গেছে যে, গত বছর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ৫ লক্ষ ৭৫ হাজার মানুষ নিখোঁজ হয়েছিল। বাংলাদেশের কোন ব্যক্তি নিখোঁজ হলে তাকে গুম বলে প্রচারিত করা একটি প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এই নিখোঁজ ব্যক্তিরা নানা কারণে নিখোঁজ হন।

বাংলাদেশে মোটদাগে পাঁচটি কারণে মানুষ নিখোঁজ হন। প্রথমত, দায়-দেনা পরিশোধে অক্ষমতার কারণে আত্মগোপন করেন এবং নিখোঁজ হন। দ্বিতীয়ত, প্রতিপক্ষের মামলা এবং গ্রেপ্তারি পরোয়ানা এড়ানোর জন্য নিখোঁজ হন। তৃতীয়ত, জঙ্গিবাদ বা কোন সংগঠনে যোগদানের জন্য নিখোঁজ হন। চতুর্থত, অভিবাসী হওয়ার জন্য নিখোঁজ হন। পঞ্চমত, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তারা আটক হন। কিন্তু যেকোনো নিখোঁজই গুম বলে প্রচারের যে প্রবণতায় সে প্রবণতা বাংলাদেশের ওপর একটি চাপ সৃষ্টি করছে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের মানবাধিকার কমিশন, তথ্য অধিকার কমিশন এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাৎক্ষণিকভাবে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারছে না বলেই পরিস্থিতি ক্রমশ নেতিবাচক হচ্ছে এবং আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, এটি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে একটি পরিকল্পিত এবং সঙ্ঘবদ্ধ প্রচারণা। দেশের একটি গোষ্ঠী এই প্রচারণার মূল নেতৃত্ব দিচ্ছেন বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

যুক্তরাষ্ট্র   গুম   হিউম্যান রাইটস ওয়াচ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

‘টিকা আবিষ্কারের আগেই সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছিলাম’

প্রকাশ: ০১:৫৪ পিএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিশ্বজুড়ে করোনা প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পরই সংক্রমণ প্রতিরোধে কার্যকরী ব্যবস্থা হিসেবে বিনামূল্যে টিকাদানের বিষয়টি আমার সরকার অগ্রাধিকার দিয়েছে। এ লক্ষ্যে করোনা টিকা আবিষ্কার ও ব্যবহারের অনুমতি প্রাপ্তির পূর্ব হতেই আমরা টিকা সংগ্রহ ও টিকা প্রদানের বিষয়ে সকল উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলাম। তারই ফলস্বরূপ দেশব্যাপী ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ তারিখে বিনামূল্যে কোভিড টিকাদানের কার্যক্রম শুরু হয় এবং অদ্যাবধি অব্যাহত রয়েছে।

বুধবার (২৬ জানুয়ারি) জাতীয় সংসদের ১৬তম অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে টাঙ্গাইল-৬ আসনের সংসদ সদস্য আহসানুল ইসলামের (টিটু) এক লিখিত প্রশ্নের উত্তরে তিনি এসব কথা বলেন।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয়।

তিনি বলেন, দেশব্যাপী টিকাদান কার্যক্রমের আওতায় ১৭ জানুয়ারি ২০২২ পর্যন্ত আট কোটি ৯১ লাখ ৬৩ হাজার ৯৭৮ জনকে ১ম ডোজ এবং ৫ কোটি ৭০ লাখ ২০ হাজার ৮৩৪ জনকে ২য় ডোজসহ মোট ১৪ কোটি ৬১ লাখ ৮৪ হাজার ৮১২ জনকে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সারাবিশ্বের মতো দেশের কোভিড-১৯ মহামারি পরিস্থিতি বিবেচনা করে। বাংলাদেশ সরকারও চলমান কোভিড-১৯ টিকাদান কার্যক্রমের আওতায় বুস্টার ডোজ প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। এ বিষয়ে ন্যাশনাল ইম্যুনাইজেশন টেকনিক্যাল অ্যাডভাইজরি গ্রুপ, বাংলাদেশের সুপারিশ অনুযায়ী এবং করোনাভাইরাস টিকাদান কার্যক্রম বাস্তবায়ন সংক্রান্ত জাতীয় কমিটির অনুমোদনক্রমে দেশব্যাপী গত ২৮ ডিসেম্বর থেকে বুস্টার ডোজ প্রদান শুরু করা হয়েছে।

বর্তমানে দেশে ষাটোর্ধ্ব জনগোষ্ঠী, সম্মুখসারির স্বাস্থ্যকর্মী ও বিদেশগামী কর্মীদের বুস্টার ডোজ দেওয়া হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী   শেখ হাসিনা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

বিএনপি লবিস্ট হিসেবে ৮ প্রতিষ্ঠানকে নিয়োগ দেয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশ: ০১:৩১ পিএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

বিএনপি প্রথম লবিস্ট নিয়োগ করেছিল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধের জন্য। দেড় লাখ ডলার ব্যয়ে একটি মার্কিন প্রতিষ্ঠানকে এ জন্য নিয়োগ দেওয়া হয়। এভাবে দেশের স্বার্থবিরোধী কাজের জন্য ৮টি প্রতিষ্ঠানকে লবিস্ট হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। লবিস্টের জন্য ব্যয় করা অর্থের উৎস্য নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।

আজ বুধবার জাতীয় সংসদে ৩০০বিধিতে দেওয়া বিবৃতিতে এ তথ্য তুলে ধরেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে তিনি বলেন, বিএনপির সঙ্গে ওই সকল প্রতিষ্ঠানের চুক্তিপত্রগুলো আমাদের কাছে রয়েছে। যা আমরা যথাযথভাবে তুলে ধরেছি। তিনি আরো বলেন, দেশের স্বার্থের বিরুদ্ধে এই অপতৎপরতা নিশ্চয়ই বিএনপি নেতা-কর্মীরাও সমর্থন করবেন না। কারণ তারা নিশ্চয়ই চাইবেন না দেশের উন্নয়ন বন্ধ হয়ে যাক। বাংলাদেশের সাহায্য-সহযোগিতা বন্ধ হোক। তাই শীর্ষ কয়েকজন নেতার এই অপতৎপরতার বিরুদ্ধে বিএনপির তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা নিশ্চয়ই প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন।

সরকারের পক্ষ থেকে লবিস্ট নিয়োগের অভিযোগ অস্বীকার করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সরকার ও দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার বন্ধে যা যা করণীয়, তা করছে সরকার। দেশের মঙ্গলের জন্য, উন্নয়নের জন্য কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। বিশ্ববাসীর কাছে সত্য তুলে ধরা হচ্ছে। উন্নয়ন ও অগ্রগতির চিত্র দেখানো হচ্ছে। এর ফলে বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জল হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

এর আগে অধিবেশনে নির্বাচন কমিশন গঠন সংক্রান্ত প্রস্তাবিত আইন ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল-২০২২’ পাসের সুপারিশ করে প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি শহীদুজ্জামান সরকার। এছাড়াও মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি মেহের আফরোজ এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব সংশ্লিষ্ট কমিটির রিপোর্ট উত্থাপন করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

নীলফামারীতে ট্রেনের ধাক্কায় নিহত ৩

প্রকাশ: ১২:২২ পিএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

নীলফামারীতে ট্রেনের ধাক্কায় তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন একটি অটোরিকশার চালকসহ আরও পাঁচ শ্রমিক। নিহতরা উত্তরা ইপিজেডের শ্রমিক। বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে জেলা সদরের দারোয়ানী রেল ক্রসিংয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ওই শ্রমিকরা সকালে দারোয়ানী বাজার এলাকার বাড়ি থেকে অটোরিকশায় কর্মস্থল উত্তরা ইপিজেডে যাচ্ছিলেন। দারোয়ানী রেলক্রসিং অতিক্রম করার সময় খুলনা থেকে চলাহাটিগামী সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনটি অটোরিকশাটিকে ধাক্কা দিলে রিকশাটি কয়েক ফুট দূরে ছিটকে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলে শেফালী বেগম (৩৫) নামের এক নারী শ্রমিক মারা যান। এলাকাবাসীর সহায়তায় ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা আহত ৭ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে রোমানা (৩৫) ও সাহেরা (৩৫) নামের আরো দুই নারীর মৃত্যু হয়। আহতদেরকে নীলফামারী জেনারেল হাসপাতাল ও রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।  

সৈয়দপুর রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রহমান বিশ্বাস এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।  

নীলফামারী   ট্রেন দুর্ঘটনা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

আজ সংসদে পাস হতে পারে নির্বাচন কমিশন আইন

প্রকাশ: ০৯:০০ এএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

যোগ্যতা ও অযোগ্যতার দুই ধারায় কিছু সংশোধনী এনে সংসদে উত্থাপিত ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল ২০২২’ এর রিপোর্ট চূড়ান্ত করেছে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সংসদের ১৭তম অধিবেশনে কমিটির প্রতিবেদন উপস্থাপন করে নির্বাচন কমিশন আইনটি পাস হতে পারে।

এর আগে, রোববার (২৩ জানুয়ারি) আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বিলটি সংসদে উত্থাপন করেন। বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশিদ বিলটি উত্থাপনে আপত্তি তুললে কণ্ঠভোটে তা নাকচ হয়।

সংসদে উত্থাপিত বিলে সিইসি ও কমিশনারদের যোগ্যতা সংক্রান্ত ধারায় পরিবর্তন করার সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। ৫ (গ) ধারায় বলা আছে, সিইসি ও কমিশনার হতে গেলে, কোনো গুরুত্বপূর্ণ সরকারি, বিচার বিভাগীয়, আধা সরকারি বা বেসরকারি পদে তার অন্যূন ২০ বছর কাজের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

এই ধারায় সরকারি, বিচার বিভাগীয়, আধা সরকারি বা বেসরকারি পদের পাশাপাশি ‘স্বায়ত্তশাসিত ও অন্যান্য পেশা’ যুক্ত করা হবে।

আর অযোগ্যতার ক্ষেত্রে ৬ (ঘ) ধারায় পরিবর্তন আনা হচ্ছে। এখন সেখানে বলা আছে, নৈতিক স্খলনজনিত ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে অন্যূন দুই বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হলে সিইসি ও কমিশনার হওয়া যাবে না। এখানে দুই বছরের কারাদণ্ড উঠিয়ে শুধু কারাদণ্ডের সুপারিশ করা হয়েছে। অর্থাৎ নৈতিকস্খলন, ফৌজদারি অপরাধে যেকোনো মেয়াদের সাজা হলেই সিইসি বা কমিশনার হওয়ার ক্ষেত্রে অযোগ্যতা হিসেবে বিবেচনা করা হবে।

সংসদীয় কমিটির বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি শহীদুজ্জামান সরকার সাংবাদিকদের এসব পরিবর্তনের বিষয়ে জানান।

তিনি বলেন, সংসদীয় কমিটি বিস্তারিত আলোচনা করে প্রতিবেদন চূড়ান্ত করেছে। আমরা যোগ্যতা ও অযোগ্যতার জায়গায় কিছু পরিবর্তন এনেছি। সেভাবেই সংসদে প্রতিবেদন দেওয়া হবে।

তিনি জানান, দুই বছরের কারাদণ্ডের জায়গাটা পরিবর্তন করা হয়েছে। দুই বছর উঠিয়ে দিয়ে কারাদণ্ড করে দেওয়া হয়েছে। আর সরকারি, বিচার বিভাগীয়, আধাসরকারি বা বেসরকারি পদের পাশাপাশি ‘স্বায়ত্তশাসিত ও অন্যান্য পেশা’ যুক্ত করার জন্য সুপারিশ করেছি।

সংসদে উত্থাপিত বিলটিকে আগের সার্চ কমিটি ও নির্বাচন কমিশনকে ‘বৈধতা’ দেওয়া হচ্ছে বলে যে আলোচনা রয়েছে সে বিষয়ে জানতে চাইলে শহীদুজ্জামান বলেন, ইনডেমনিটি বলছে অনেকে। ইনডেমনিটি নয়। বিলের ৯ দফায় কিন্তু আগের দুটো সার্চ কমিটির বৈধতা দেওয়া হয়েছে। ওই দুই সার্চ কমিটিকে আইনি বৈধতা দেওয়া হয়েছে। একটা লিগ্যাল সাপোর্ট দেওয়া। সার্চ কমিটি রাষ্ট্রপতি ঐকমত্যের ভিত্তিতে করেছিলেন। সেটাকে সাপোর্ট দেওয়া হলো। কোনো দায়মুক্তি নয়। আর আইনটা কিন্তু নির্বাচন কমিশন গঠনের বিষয়ে। সার্চ কমিটির আইন নয়।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আগের দুটো কমিশনের কার্যক্রমকে হেফাজত দেওয়ার বিষয় এখানে আসেনি। শুধুমাত্র সার্চ কমিটির বৈধতা দেওয়া হয়েছে।

সংসদে উত্থাপিত বিলে বলা হয়েছে, ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগদানের উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক ইতঃপূর্বে গঠিত অনুসন্ধান কমিটির ও তৎকর্তৃক সম্পাদিত কার্যাবলী এবং উক্ত অনুসন্ধান কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনারের নিয়োগ বৈধ ছিল বলিয়া গণ্য হইবে এবং উক্ত বিষয়ে কোনো আদালতে কোনো প্রশ্ন উত্থাপন করা যাইবে না।’

ইসি গঠন আইন   সংসদ   বিএনপি   আওয়ামী লীগ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

আজ গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব নিয়ে সিদ্ধান্ত

প্রকাশ: ০৮:৪৫ এএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়াতে বিতরণ কম্পানিগুলোর প্রস্তাবের বিষয়ে বৈঠকে বসছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে (বিইআরসি)। আজ বুধবার (২৬ জানুয়ারি) বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে। বিইআরসি সূত্র বলছে, আদৌ তাদের প্রস্তাব আমলে নিয়ে দাম বাড়ানোর প্রক্রিয়া শুরু করা হবে কি না সে বিষয়ে আজ বৈঠকে সিদ্ধান্ত হবে।

দেশে আবারও উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ, যার কারণে নতুন করে আবারও মানুষের জীবনযাত্রায় প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। কিছুদিন আগে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে, যার প্রভাব পড়েছে গণপরিবহনে ভাড়াসহ সব ধরনের পণ্যের মূল্যে।

এখন যদি আবার গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বেড়ে যায়, সে ক্ষেত্রে মানুষের জীবনে বাড়তি চাপ পড়বে। সংগত কারণে সরকার বিষয়টি নিয়ে আবারও ‘চিন্তা করছে’ বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

বিইআরসির আইন অনুযায়ী, যদি কমিশন প্রস্তাবগুলো আমলে নেয়, তাহলে গণশুনানিতে দাম নির্ধারিত হবে। গণশুনানিতে আবেদনকারী কম্পানিগুলো দাম বাড়ানোর যৌক্তিকতা প্রমাণ করতে পারলে কমিশন ৯০ কার্যদিবসের মধ্যে নতুন দাম নির্ধারণ করবে।

সম্প্রতি গ্যাস বিতরণকারী কম্পানিগুলো দ্বিগুণের বেশি দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে। তাদের প্রস্তাব অনুসারে বাসাবাড়ির দুই চুলার মাসিক বিল হবে দুই হাজার ১০০ টাকা, যা এখন ৯৭৫ টাকা।

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন