ইনসাইড বাংলাদেশ

বিএনপি লবিস্ট হিসেবে ৮ প্রতিষ্ঠানকে নিয়োগ দেয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশ: ০১:৩১ পিএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail বিএনপি লবিস্ট হিসেবে ৮ প্রতিষ্ঠানকে নিয়োগ দেয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বিএনপি প্রথম লবিস্ট নিয়োগ করেছিল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধের জন্য। দেড় লাখ ডলার ব্যয়ে একটি মার্কিন প্রতিষ্ঠানকে এ জন্য নিয়োগ দেওয়া হয়। এভাবে দেশের স্বার্থবিরোধী কাজের জন্য ৮টি প্রতিষ্ঠানকে লবিস্ট হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। লবিস্টের জন্য ব্যয় করা অর্থের উৎস্য নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।

আজ বুধবার জাতীয় সংসদে ৩০০বিধিতে দেওয়া বিবৃতিতে এ তথ্য তুলে ধরেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে তিনি বলেন, বিএনপির সঙ্গে ওই সকল প্রতিষ্ঠানের চুক্তিপত্রগুলো আমাদের কাছে রয়েছে। যা আমরা যথাযথভাবে তুলে ধরেছি। তিনি আরো বলেন, দেশের স্বার্থের বিরুদ্ধে এই অপতৎপরতা নিশ্চয়ই বিএনপি নেতা-কর্মীরাও সমর্থন করবেন না। কারণ তারা নিশ্চয়ই চাইবেন না দেশের উন্নয়ন বন্ধ হয়ে যাক। বাংলাদেশের সাহায্য-সহযোগিতা বন্ধ হোক। তাই শীর্ষ কয়েকজন নেতার এই অপতৎপরতার বিরুদ্ধে বিএনপির তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা নিশ্চয়ই প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন।

সরকারের পক্ষ থেকে লবিস্ট নিয়োগের অভিযোগ অস্বীকার করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সরকার ও দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার বন্ধে যা যা করণীয়, তা করছে সরকার। দেশের মঙ্গলের জন্য, উন্নয়নের জন্য কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। বিশ্ববাসীর কাছে সত্য তুলে ধরা হচ্ছে। উন্নয়ন ও অগ্রগতির চিত্র দেখানো হচ্ছে। এর ফলে বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জল হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

এর আগে অধিবেশনে নির্বাচন কমিশন গঠন সংক্রান্ত প্রস্তাবিত আইন ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল-২০২২’ পাসের সুপারিশ করে প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি শহীদুজ্জামান সরকার। এছাড়াও মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি মেহের আফরোজ এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব সংশ্লিষ্ট কমিটির রিপোর্ট উত্থাপন করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

হজে যেতে না পারলে জমাকৃত টাকা তুলে নেওয়ার নির্দেশ

প্রকাশ: ০৩:০০ পিএম, ১৮ মে, ২০২২


Thumbnail হজে যেতে না পারলে জমাকৃত টাকা তুলে নেওয়ার নির্দেশ

সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে নিবন্ধন করে রাখা কেউ হজে যেতে না পারলে জমাকৃত টাকা তুলে নেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়।  

বুধবার (১৮ মে) মন্ত্রণালয়ের এক নির্দেশনা সংশ্লিষ্টদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, যেসকল হজযাত্রী ইতোমধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন/অসুস্থ আছেন অথবা ৬৫ বছর ঊর্ধ্ব বয়সসীমার কারণে এ বছর হজে যেতে পারছেন না, তার পরিবর্তে প্রতিস্থাপিত ব্যক্তি তার নিবন্ধন বাবদ জমাকৃত অর্থ সমন্বয় করতে পারবেন না।  

এরূপ ব্যক্তি বা মৃত হজযাত্রীর ক্ষেত্রে তার প্রতিনিধি নিবন্ধন বাবদ জমাকৃত অর্থ ফেরত পাওয়া জন্যে www.hajj.gov.bd-এ প্রবেশ করে ‘নিবন্ধন রিফান্ড সিস্টেমে’ আবেদন করে জমাকৃত অর্থ উত্তোলন/ফেরত নিতে পারবেন। এক্ষেত্রে প্রতিস্থাপিত হজযাত্রীকে প্যাকেজের সম্পূর্ণ অর্থ পরিশোধ করে নিবন্ধন সম্পন্ন করতে হবে।


হজে   জমাকৃত   টাকা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

চট্টগ্রামে অগ্নিকাণ্ডে ১ জনের মৃত্যু

প্রকাশ: ০২:৫৪ পিএম, ১৮ মে, ২০২২


Thumbnail

চট্টগ্রাম নগরের ইপিজেড থানাধীন কলসি দীঘির পাড়ের ধুমপাড়া এলাকায় দোকান ও বসতঘরে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এই অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে আব্দুল করিম নামের একজন বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। 

বুধবার (১৮ মে) দুপুর ১টার দিকে মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আগ্রাবাদ ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার নিউটন দাস। 

তবে আগুন লাগার কারণ এখনও নিশ্চিত হতে পারিনি। ফায়ার সার্ভিসের তিনটি স্টেশনের ১৩টি ইউনিট প্রায় দেড় ঘণ্টার চেষ্টায় বেলা সাড়ে ১২টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। 

ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক মো. ফারুক হোসেন বলেন, নগরের ইপিজেডের কলসি দীঘির পাড়ে কয়েকটি দোকান ও বসতঘরে সকাল সোয়া ১১টার দিকে আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে। আগুনে পুড়ে আব্দুল করিম নামের ওই বৃদ্ধ মারা গেছেন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, তিনি শতবর্ষী এবং কানে শোনেন না ও চোখে দেখেন না। আমরা তার লাশ উদ্ধার করেছি।


চট্টগ্রামে   অগ্নিকাণ্ডে   মৃত্যু  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির জন্য আন্তর্জাতিক বাজার দায়ী: বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রকাশ: ০২:১১ পিএম, ১৮ মে, ২০২২


Thumbnail নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির জন্য আন্তর্জাতিক বাজার দায়ী: বাণিজ্যমন্ত্রী

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম না কমলে কিছুই করতে পারবো না। কারণ দেশে নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির জন্য আন্তর্জাতিক বাজার দায়ী।

বুধবার (১৮ মে) দুপুরে সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে দ্রব্যমূল্য ও বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত টাস্কফোর্স কমিটির সভায় তিনি এ কথা বলেন।

নিত্যপণ্যের দাম কবে মানুষের নাগালে আসবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, এ প্রশ্নের উত্তর আমার জানা নেই। এটির উত্তর জানতে হলে আমার আর্জেন্টিনা-ব্রাজিলে যেতে হবে। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম না কমা পর্যন্ত আমরা কিছুই করতে পারবো না। কলকাতায় খবর নিন সেখানে কত দামে তেল বিক্রি হচ্ছে। মানুষকে বৈশ্বিক অবস্থা জানাতে হবে।

ডলারের দাম বাড়ায় সমস্যা তৈরির বিষয়ে তিনি বলেন, আমাদের দুই বছর আমদানি কম ছিল। এখন খুলে যাওয়ায় ক্যাপিটালে প্রভাব পড়েছে, দুই বছরের চাপ পড়েছে একসঙ্গে। সবকিছু মিলে একটা প্রভাব পড়েছে। আমাদের বৈদেশিক রিজার্ভে চাপ পড়েছে। গত দুই বছর আমদানি কমায় বেড়েছিল রিজার্ভ। এখন চাপ পড়ায় এই সমস্যা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, শ্রীলঙ্কায় বিপদ বলে আমাদের বিপদ তা তো নয়। আমরা তো তাদের সহায়তা করেছি। আমাদের ঘাবড়ানোর কোনো কারণ নেই। প্রধানমন্ত্রী এটি নিয়ে সুন্দরভাবে বলেছেন আমাদের দেশে বৈশ্বিক প্রভাব পড়েছে, সাশ্রয়ী হতে হবে।


আন্তর্জাতিক   বাজার   দায়ী   বাণিজ্যমন্ত্রী  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

কক্সবাজারকে পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তোলা হবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ: ০২:০০ পিএম, ১৮ মে, ২০২২


Thumbnail কক্সবাজারকে পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তোলা হবে: প্রধানমন্ত্রী

কক্সবাজারকে পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তোলা হবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারের বাসিন্দাদের উদ্দেশে বলেন, কক্সবাজারে আমরা অনেকগুলো প্রকল্প নিয়েছি। একটা মাস্টার প্লান করার আমরা নির্দেশ দিয়েছি পুরো কক্সবাজার ঘিরে। যত্রতত্রভাবে কোনো স্থাপনা আপনারা নির্মাণ করবেন না। এর উন্নয়ন যেন অপরিকল্পিতভাবে না হয়ে পরিকল্পিতভাবে হয়।

বুধবার (১৮ মে) কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নবনির্মিত বহুতল ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত ছিলেন তিনি।


শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের এই যে বিশাল সমুদ্রসীমা রয়েছে, এর পর্যটনের ক্ষেত্রটি আরও প্রসারিত করা হবে। দেশীয় পর্যটকদের জন্য যেমন সুযোগ সৃষ্টি করা হবে, পাশাপাশি আন্তর্জাতিক পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয় করার সেই উদ্যোগটাই আমরা নিতে চাচ্ছি।’

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতিসংঘের আগে ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধুই সমুদ্রসীমা আইন করেছিলেন। বিশাল সমুদ্রে আমাদের অধিকার নিশ্চিত করতে জাতির পিতা আইনটি করে দিয়ে যান। আমাদের দুর্ভাগ্য, তার পরের বছর ৭৫ সালেই তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। এরপর যারা ক্ষমতা দখল করেছিলেন, তারা কেউই এ সমুদ্রসীমায় আমাদের অধিকারের বিষয়টি নিয়ে কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেননি।’


তিনি বলেন, ‘৯৬ সালে সরকার গঠনের পর আমি প্রথম এ উদ্যোগটি গ্রহণ করি। এজন্য অনেক তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করে কাজ করতে হয়। আমরা অনেক দূর কাজ করে যাই। কিন্তু এর পরবর্তী সময় ২০০১ থেকে ২০০৮ সালে আমরা দেখেছি তখনো কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। ২০০৮– এর নির্বাচনে সরকারে এসে তখন থেকে আমরা আবার উদ্যোগ নেই। আজ সমুদ্রসীমায় আমরা নিজেদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছি। এখন এই সমুদ্র সম্পদ যেন আমাদের অর্থনীতিতে অবদান রাখতে পারে, সে ব্যবস্থাটি আমরা করতে চাই।’

‘তাছাড়া এটি আন্তর্জাতিক এয়ার রুটে পড়ে। তাই কক্সবাজার বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার কাজ চলমান রয়েছে। এই বিমানবন্দরটি যখন হবে, তখন পশ্চিমা দেশ থেকে মধ্যপ্রাচ্যের দেশে যারা যায়, তারা কিন্তু এই কক্সবাজার থেকেই রিফুয়েলিং করবে।’

তিনি বলেন, ‘রিফুয়েলিংয়ের ক্ষেত্রে একেক সময়, একেক দেশ অগ্রাধিকার পায়। এক সময় হংকং ছিল। এরপর থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর- এখন দুবাই। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে কক্সবাজারই হবে আন্তর্জাতিক আকাশ পথে রিফুয়েলিংয়ের একটি জায়গা।’

‘কক্সবাজারে আমরা ক্রিকেট স্টেডিয়াম করেছি, ফুটবল স্টেডিয়ামও হবে। সেখানে অন্যান্য খেলাধুলার পুরো করা হবে। যেকোনো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট যাতে এখানে আয়োজন করা যায়, আমরা সে ব্যবস্থাটিও করছি।’

কক্সবাজার প্রান্তে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিব মো. শহীদ উল্লা খন্দকার।


কক্সবাজারকে   পর্যটন   নগরী   তোলা হবে   প্রধানমন্ত্রী  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

‘দ্রব্যমূল্যে বিশ্বের তুলনায় স্বস্তিতে বাংলাদেশ’

প্রকাশ: ০১:২২ পিএম, ১৮ মে, ২০২২


Thumbnail ‘দ্রব্যমূল্যে বিশ্বের তুলনায় স্বস্তিতে বাংলাদেশ’

বিশ্বব্যাপী দ্রব্যমূল্য নিয়ে অস্থির পরিস্থিতি চললেও বিশ্বের তুলনায় বাংলাদেশ স্বস্তিতে রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ। স্বস্তি থাকলেও ব্যবসায়ীদের যার যার অবস্থান থেকে সর্বোচ্চ সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার (১৮ মে) দুপুরে সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে দ্রব্যমূল্য ও বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত টাস্কফোর্স কমিটির দ্বিতীয় সভায় তিনি এ আহ্বান জানান। সভায় সভাপতিত্ব করেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

সচিব বলেন, বিশ্বব্যাপী দ্রব্যমূল্য অস্থির। অনেক পণ্যের ঘাটতিও আছে। বাড়ছে দাম। তবে সে দিক থেকে বাংলাদেশ এখনো বেশ স্বস্তিতে। দেশে যা হয়েছে সেটি কিছু ব্যবসায়ীর অপতৎপরতার কারণে হয়েছে। যার দায় পুরো ব্যবসায়ী সমাজের ওপর পড়ছে। সরকার সে দিক থেকে সতর্ক। এখানে যা করার করছে। তবে শঙ্কা কাটেনি।

তিনি বলেন, সামনে কোরবানির ঈদ। সেখানে পেঁয়াজ, আদা রসুন, ভোজ্যতেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে হবে। ভবিষ্যতে এসব পণ্য মজুত করে কেউ যাতে সুযোগ নিতে না পারে সে জন্য যার যার জায়গা থেকে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।


দ্রব্যমূল্যে   স্বস্তিতে   বাংলাদেশ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন