ইনসাইড বাংলাদেশ

বসিক নির্বাচন: আনুষ্ঠানিক প্রচারণায় প্রার্থীরা

প্রকাশ: ০৭:৩৯ পিএম, ২৬ মে, ২০২৩


Thumbnail

প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার প্রথম দিনে জুমার নামাজে গণসংযোগ একধাপ এগিয়ে রেখেছেন বরিশাল সিটি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। আনুষ্ঠানিক প্রচারণার প্রথম দিনে প্রতিশ্রুতির ফুলঝুঁড়ি ছড়িয়েছেন তারা। নির্বাচিত হতে পাড়লে প্রত্যেকেই বরিশাল নগরীর ব্যাপক উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। 

শুক্রবার (২৬ মে) নগরীর রূপাতলী হাউজিং স্টেট জামে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আবুল খায়ের খোকন সেরনিয়াবাত। নামাজের আগে এবং পরে উপস্থিত মুসল্লীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন তিনি। 

এ সময় বরিশাল নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পরিকল্পনা বাস্তবায়ন এবং নতুন বরিশাল গড়তে ১২ জুন নৌকা প্রতীক বিজয়ী করতে দলমত নির্বিশেষে সকলের প্রতি আহ্বান জানান খোকন সেরনিয়াবাত। 

এরপর তিনি দুটি উঠান বৈঠকে বরিশালের ব্যাপক উন্নয়নে দলীয় নেতাকর্মীসহ সর্ব সাধারণকে ১২ জুন নৌকা প্রতীকে ভোট দেয়ার আহ্বান জানান খোকন সেরনিয়াবাত। 

জাতীয় পার্টির প্রার্থী ইকবাল হোসেন তাপস জুমার নামাজ আদায় করেন নগরীর ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মতাসার জামে মসজিদে। নামাজের আগে এবং পরে বরিশালকে একটি উৎপাদনমুখি ও আইটি নগরী গড়তে ১২ জুন লাঙ্গল প্রতীক বিজয়ী করার আহ্বান জানান তিনি। এ সময় তিনি বলেন, গাজীপুর সিটি নির্বাচন দেখে জনগণ কিছুটা উৎসাহিত হয়েছে।  এখন জনমনে শঙ্কা কেটে যাওয়া উচিত। তিনি দলে দলে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে লাঙ্গল প্রতীক বিজয়ী করার আহ্বান জানান। বিকেলে নগরীর ৫ নম্বর ওয়ার্ডের শাহজালাল স্কুলে এক উঠান বৈঠকে অংশ নিয়ে একই প্রতিশ্রুতির পুনরাবৃত্তি করেন জাপা প্রার্থী তাপস। 

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম শুক্রবার আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করেন নগরীর সদর রোডের বায়তুল মোকাররম জামে মসজিদে। নামাজের আগে এবং পরে উপস্থিত মুসুল্লীদের সাথে কুশল বিনিময় করেন তিনি। নির্বাচিত হতে পাড়লে বরিশাল নগরীর অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়নের পাশাপাশি মানুষের নৈতিক উন্নয়ন করার প্রতিশ্রুতি দেন ইসলামী আন্দোলন প্রার্থী।

পরে সদর রোডের অশ্বিনী কুমার হল, পুরানপাড়া, কাশীপুর এবং রূপাতলী এলাকায় বিভিন্ন ওয়াক্তের নামাজ আদায় করে মুসল্লীদের সাথে গণসংযোগ করেন মুফতি সৈয়দ ফয়জুল করীম। 

বিএনপি’র প্রয়াত সাবেক মেয়র আহসান হাবিব কামালের ছেলে স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল আহসান রূপন জুমার নামাজ আদায় করেন নগরীর কালুশাহ সড়ক জামে মসজিদে। নামাজের আগে এবং পরে উপস্থিত মুসুল্লীদের সাথে গণসংযোগ করেন তিনি। এ সময় তিনি বলেন, গত সাড়ে ৪ বছরে বরিশালে কোনো উন্নয়ন হয়নি। তিনি নির্বাচিত হলে বরিশালের ব্যাপক উন্নয়ন করবেন। বিএনপিসহ সকল শ্রেণি পেশার মানুষ ভোট দিয়ে টেবিল ঘড়ি প্রতীক বিজয়ী করবে বলে আশা করেন তিনি। জুমার নামাজ শেষে নগরীর ১শ’ মসজিদে একযোগে লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে বলে জানান রূপন।

বসিক নির্বাচন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

আবার তৎপর ড. ইউনূস

প্রকাশ: ১০:০০ পিএম, ০২ জুন, ২০২৩


Thumbnail

এক-এগোরোর মতোই আবার তৎপরতা শুরু করেছেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস। বিশেষ করে দুর্নীতি দমন কমিশন তার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরুর সিদ্ধান্ত ঘোষণা এবং হাইকোর্টে তার ১২ কোটি টাকা আয়কর দেওয়ার রায়ের পর ড. মুহাম্মদ ইউনূস এখন সরকারের বিরুদ্ধে মরিয়া হয়ে গেছেন। আর এ কারণেই তিনি তার অনুগতদেরকে আবার সক্রিয় করছেন। বিভিন্ন সুশীলদের নিয়ে তিনি দফায় দফায় বৈঠক করছেন। এছাড়া মার্কিন দূতাবাস সহ বিভিন্ন পশ্চিমা দেশগুলোর দূতাবাস এবং রাষ্ট্রদূতকেও তিনি সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষেপিয়ে তোলার এক ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন। ড. ইউনূসের ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো বলছে যে আগামী কয়েকদিন ইউনূস এ নিয়ে ব্যাপক তৎপরতা চালাবেন। তার কৌশলটা হল তার বিরুদ্ধে মামলা এবং আয়কর ফাঁকির রায় নিয়ে তিনি কোনো কথা বলবেন না। বরং সরকারের বিরুদ্ধে তিনি আন্তর্জাতিক ভাবে প্রচার-প্রচারণা চালাবেন এবং সরকারকে কোণঠাসা করার জন্য আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি করবেন। যেটি তিনি করেছিলেন ২০০৭ সালে। 

সম্প্রতি দুর্নীতি দমন কমিশন গ্রামীণ টেলিকমের অর্থপাচারের বিষয়ে তদন্ত করতে গিয়ে সেখানে ড. ইউনূসের সংশ্লিষ্ট পেয়েছে। আর এই ব্যাপারে তারা তদন্তের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই তদন্তে যদি ড. ইউনূস প্রাথমিকভাবে দোষী প্রমাণিত হয় তাহলে তাকে আইনগতভাবে সেটি মোকাবেলা করতে হবে। ড. ইউনূস এটিতে আতঙ্কিত। আবার হাইকোর্ট রাজস্ব বিভাগের এক মামলায় ড. ইউনূসকে ১২ কোটি টাকা সরকারের খাতে জমা দেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। এর ফলে জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে ইউনূসের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে বলেই মনে করেন তার সংশ্লিষ্ট ঘনিষ্টরা। 

ড. মুহাম্মদ ইউনূসের পক্ষে একটি শক্তিশালী সুশীল গ্রুপ রয়েছে। যারা ইউনূসের রায়ের পর এক সঙ্গে বসছেন এবং তারা ইউনূস এর জন্য কি করা যায় তা নিয়ে সক্রিয় হয়েছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, হোসেন জিল্লুর রহমান, দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান সহ একাধিক ব্যক্তি রয়েছেন যারা বিভিন্নভাবে ড. ইউনূস এর দ্বারা সুবিধাপ্রাপ্ত এবং ড. ইউনূসের পক্ষে যে কোনো অবস্থান নিতে তারা কার্পণ্য করবেন না। এরা ড. ইউনূস এর রায়ের পরবর্তী পর্যায়ে নিজেদের মধ্যে আলাপ আলোচনা করেছেন এমন নিশ্চিত তথ্য পাওয়া গেছে। ড. ইউনূসও তাদেরকে সরকারের বিরুদ্ধে সঙ্ঘবদ্ধ হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। তবে সুশীলরা সরকারের বিরুদ্ধে কোন আন্দোলন সংগ্রাম করবে না। তারা তিনটি প্রক্রিয়া গ্রহণ করবে। প্রথমত, বিএনপিকে তারা আন্দোলনের জন্য রসদ দিবে এবং বিএনপিকে তাতিয়ে তোলার ক্ষেত্রে কাজ করবে। দ্বিতীয়তঃ তারা বাংলাদেশস্থ মার্কিন দূতাবাস সহ বিভিন্ন পশ্চিমা দূতাবাস গুলোর কাছে সরকারের বিরুদ্ধে  নানা রকম বক্তব্য উপস্থাপন করবে এবং সরকারকে চাপে ফেলার জন্য তত্ত্বাবধায়ক সরকার, মানবাধিকার, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ইত্যাদি বিষয় সামনে আনবে। আগামী কিছুদিন এইসব বিষয়ে সুশীলদেরকে সোচ্চার দেখা দিতে পারে বলে বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে। 

তৃতীয়তঃ সুশীলরা আন্তর্জাতিক মহলে এ নিয়ে দেনদরবার করবেন। ড. মুহাম্মদ ইউনূস ইতিমধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন কংগ্রেসম্যান, সিনেটর সহ প্রভাবশালী প্রতিনিধির সাথে যোগাযোগ শুরু করেছেন। তাদেরকে দিয়ে তিনি বাংলাদেশে একটি বিবৃতি আদায়ের চেষ্টা করবেন। বাংলাদেশের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তারা যেন চাপ সৃষ্টি করেন সে কথাও বলবেন। তবে ড. ইউনূস কোনো প্রক্রিয়াতেই তার নিজের ইস্যুটিকে সামনে আনবেন না। ড. মুহাম্মদ ইউনূস এর ঘনিষ্টরা মনে করছেন সরকার চূড়ান্ত চাপে না পড়া পর্যন্ত ইউনূসের সাথে কোনো ধরনের সমঝোতা হবে না। আর এ কারণেই নিজে বাঁচার জন্য ইউনূস রাষ্ট্র এবং সরকারকে ঝুঁকিতে ফেলতে চাইছেন। 

ড. মুহাম্মদ ইউনূস  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

আমৃত্যু দেশের সেবা করেছেন আফছারুল আমীন: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশ: ০৯:৫৩ পিএম, ০২ জুন, ২০২৩


Thumbnail আমৃত্যু দেশের সেবা করেছেন আফছারুল আমীন: তথ্যমন্ত্রী।

চট্টগ্রাম-১০ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দু:খপ্রকাশ করে তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘আফছারুল আমীন ভাই মৃত্যুকাল অবধি দেশ ও দশের প্রতি দায়িত্বপালন করে গেছেন।’ 

শুক্রবার (২ জুন) বিকেলে ঢাকায় একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৭২ বছর বয়সে ক্যান্সারের সাথে যুদ্ধরত  ডা. আমীনের  ইন্তেকালের সংবাদে শোকাহত তথ্যমন্ত্রী প্রয়াতের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন ও তাঁর শোকাহত পরিবেরের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

চট্টগ্রাম-৭ আসনের সংসদ সদস্য তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান বলেন, ‘২০০৮, ২০১৪ ও ২০১৮ সালে পরপর তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত ডা. আফছারুল আমীন পূর্বে সরকারের নৌপরিবহণ ও পরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীর দায়িত্বপালন করেছেন।’ 

আর চলতি মেয়াদে তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবং চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এভাবে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত দেশ ও মানুষের জন্য কর্মের দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন ডা. আফছারুল আমীন। আমরা তার আত্মার শান্তি কামনা করি।’


আফছারুল আমীন   তথ্যমন্ত্রী   শোক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীনের মৃত্যুতে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর শোক

প্রকাশ: ০৯:৪৯ পিএম, ০২ জুন, ২০২৩


Thumbnail সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীনের মৃত্যুতে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর শোক।

চট্টগ্রাম-১০ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীনের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি। শুক্রবার (২ জুন) প্রতিমন্ত্রী এক শোকবার্তায় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

শোকবার্তায় সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ডা. আফছারুল আমীন আজীবন দেশের মানুষের কল্যাণে রাজনীতি করে গেছেন। তাঁর মৃত্যুতে দেশ একজন দেশপ্রেমিক ও নিবেদিতপ্রাণ রাজনীতিবিদকে হারালো।’

উল্লেখ্য, ডা. আফছারুল আমীন আজ (২ জুন) আনুমানিক বিকাল ৪টার দিকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি ক্যান্সার ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই পুত্রসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী ও শুভানুধ্যায়ী রেখে গেছেন।


ডা. আফছারুল আমীন   মৃত্যু   সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী   শোক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীনের মৃত্যুতে বাণিজ্যমন্ত্রীর শোক

প্রকাশ: ০৯:৪৬ পিএম, ০২ জুন, ২০২৩


Thumbnail সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীনের মৃত্যুতে বাণিজ্যমন্ত্রীর শোক।

চট্টগ্রাম-১০ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। শুক্রবার (২ জুন) এক শোকবার্তায় বাণিজ্যমন্ত্রী মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

শোকবার্তায় টিপু মুনশি বলেন, ‘টানা তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত ডা. আফছারুল আমীন সরকারের নৌপরিবহণ এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীর দায়িত্ব অত্যন্ত সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করেছেন। তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত দেশ ও দেশের মানুষের জন্য কাজ করে গেছেন। তাঁর মৃত্যুতে দেশ একজন প্রকৃত দেশপ্রেমিককে হারালো।’

উল্লেখ্য, আজ শুক্রবার বিকেলে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন চট্টগ্রাম-১০ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীন (ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।


ডা. আফছারুল আমীন   মৃত্যু   বাণিজ্যমন্ত্রী   শোক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

একটি সীমানা ভাগ হয়েছে হৃদয় ভাগ হয়নি: সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশ: ০৯:৪০ পিএম, ০২ জুন, ২০২৩


Thumbnail সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ।

সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেছেন, ‘ভারত বিভক্তির ফলে পাকিস্তান হয়েছে। পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশ হয়েছে। কথা হল যে ত্রিপুরা ভাগ হয়েছে। এটি একটি সীমানা ভাগ হয়েছে হৃদয় ভাগ হয়নি। এদেশের পাখি এখনো ত্রিপুরা যায়, ত্রিপুরার পাখি এদেশে আসে। এদেশের বাতাস ত্রিপুরায় যায় ত্রিপুরার বাতাস এদেশে আসে। ত্রিপুরার সংস্কৃতি আসে, এদেশের সংস্কৃতি ত্রিপুরায় যায়। আমরা হৃদয়কে হৃদয়ে বেঁধেছি। বর্ডার আমাদের কি কি ক্ষতি করল? এটি শুধু একটি সীমানা। সীমানা হয়েছে ১৯৪৭ সনে।’

শুক্রবার (২ জুন) বিকেলে কুমিল্লা নগরীর টাউন হল মাঠে বাংলা সংস্কৃতি বলয় এর প্রথম বিশ্ব সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী।

সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘২৩ বছরের ইতিহাসে কোথায়, কোন জায়গায় জিয়াউর রহমানের নাম আছে? কোথায় পাবো আমরা জিয়াউর রহমানের নাম? যেদিন বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হলো সেদিন জানলাম হত্যাকারী দলের নেতা জিয়াউর রহমান। ক্ষমতায় আসার পর জিয়া-এরশাদ মিলে আমার এই সংস্কৃতিকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে দাঁড় করিয়েছে। যে সংস্কৃতিতে আমরা প্রাতঃভ্রমণে বের হলে গানের রেওয়াজ শুনতাম এখন তা আর শুনি না।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সাতক্ষীরা-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র আরফানুল হক রিফাত, কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম, পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজমুল হাসান পাখী।

বাংলা সংস্কৃতি বলয়ের সাময়িক বিশ্ব কমিটির সদস্য সচিব দীপক চন্দ্র ঘোষের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক কাজী মাহতাব সুমন। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন বাংলা সংস্কৃতি বলয় এর উপদেষ্টা অধ্যক্ষ হাসান ইমাম মজুমদার ও প্রতিষ্ঠাতা সদস্য সেবক ভট্টাচার্য।

উল্লেখ্য, ‘সংস্কৃতি মনন গড়ে, বাংলা বলয় বিশ্বজুড়ে’ এই স্লোগান নিয়ে বাংলাদেশ, পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা, আসাম ও বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বাঙালির অভিন্ন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বৈশিষ্ট্যসমূহকে ধারণ লালন সংরক্ষণ করার মানসে ২০২০ সালের ২০ সেপ্টেম্বর বাংলা সংস্কৃতি বলয় আত্মপ্রকাশ করে। প্রথম বিশ্ব সম্মেলনে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত বাংলা সংস্কৃতি বলয়ের ১২টি সাংস্কৃতিক অঞ্চলের ১৫০ প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন। শনিবার এর সমাপনী অনুষ্ঠান।


সংস্কৃতি   প্রতিমন্ত্রী   কে এম খালিদ   ত্রিপুরা   বাংলাদেশ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন