ইনসাইড পলিটিক্স

বিএনপির কমিটি নাটকের নেপথ্যে

প্রকাশ: ০৯:০০ পিএম, ১০ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

বিএনপির কমিটিগুলো যেন বাংলা ছোট গল্পের মতো ‘শেষ হইয়াও হইল না শেষ’। কমিটিগুলো বিলুপ্তির পর আস্তে আস্তে কমিটিগুলো নবজন্ম লাভ করছে। কিন্তু কোনটাই পূর্ণাঙ্গ নয়। আংশিক কমিটি দেয়া হচ্ছে। এর ফলে একদিকে যেমন নেতা-কর্মীদের মধ্যে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা বাড়ছে, অন্যদিকে বাড়ছে দলের ভিতর হতাশা।

ঢাকা উত্তর, দক্ষিণ ও চট্টগ্রামের আংশিক কমিটির পর এবার আংশিক যুবদলের কামিটি গঠন করা হয়েছে। এই যুবদলের নতুন কমিটিতে মোনায়েম মুন্নাকে সভাপতি এবং নূরুল ইসলাম নয়নকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। যুবদলের সিনিয়র নেতা এবং যারা রাজপথে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করেছেন তাদেরকে কমিটি থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। যুবদলের আগের সভাপতি সালাহউদ্দিন টুকুসহ বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা নতুন কমিটি থেকে বাদ পড়েছেন। 

বিএনপিতে কমিটি নিয়ে এখন যেন চলছে মিউজিক্যাল চেয়ার। আর এই মিউজিক্যাল চেয়ার কেন হচ্ছে তা নিয়ে বিএনপির মধ্যে নানা মুখী আলাপ-আলোচনা এবং গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। বিএনপির একাধিক নেতা বলছেন, এই সবকিছুই করা হচ্ছে লন্ডন থেকে এবং এখানে বড় ধরনের কমিটি বাণিজ্য হচ্ছে। মুখে বলা হচ্ছে, ত্যাগী পরীক্ষিতদের মূল্যায়ন করা হচ্ছে, তরুণদেরকে সামনে নিয়ে আসা হচ্ছে কিন্তু বাস্তবতা হলো সম্পূর্ণ ভিন্ন। বাস্তবতা হলো যারা টাকা দিতে পারছেন তাদেরকে কমিটিতে রাখা হচ্ছে। মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে কমিটিতে অন্তর্ভুক্তি ঘটনা এখন বিএনপিতে ওপেন সিক্রেট।

উদাহরণ হিসেবে বিএনপির একজন নেতা বলেছেন, ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতির জন্য তিনজন প্রার্থী ছিলেন এবং তিনজন প্রার্থী টাকার আশ্বাস দিয়েছিলেন। এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি যিনি টাকার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি কমিটির জন্য মনোনীত হন। কিন্তু এরপরেও কমিটিতে তার নাম ঘোষণা করা হয়নি। যখন তার টাকা নির্দিষ্ট স্থানে বা গন্তব্যে পৌঁছেছে তখনই কমিটিতে তার নাম দেওয়া হয়েছে। এখন আংশিক কমিটিতে যাদেরকে রাখা হয়েছে আহ্বায়ক, যুগ্ম আহ্বায়ক তাদেরকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে টাকা সংগ্রহ করে কমিটিতে নাম প্রস্তাব করার জন্য। অর্থাৎ টাকা দিলে কমিটিতে ঢোকা হবে এবং টাকা না দিলে কমিটিতে নেয়া হবে না। 

বলা হচ্ছে, এখানে কাজের মূল্যায়ন করা হচ্ছে, ক্লিন ইমেজের অধিকারীদেরকে নেয়া হচ্ছে। কিন্তু যুবদলের নতুন যে কমিটি গঠন করা হয়েছে, তাদের কেউই ক্লিন ইমেজের নন বলে জানা গেছে। এরা অর্থনৈতিকভাবে সম্পদশালী এবং ক্ষমতাসীন সরকারের সাথে বিভিন্নভাবে সম্পর্কিত৷ 

যুব দলের নতুন সভাপতি মোনায়েম মুন্না সরকারের একজন প্রভাবশালী নেতার সঙ্গে ব্যবসায়িক অংশীদার এবং তিনি এই বর্তমান সরকারের আমলেও সরকারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ থেকে প্রচুর ব্যবসা বাণিজ্য করছেন৷ অন্যদিকে নূরুল ইসলাম নয়নকে নিয়ে বিএনপির মধ্যেই বিতর্ক রয়েছে। কিন্তু তাদের মূল যোগ্যতা হলো তারা দু’জনেই টাকা দিতে সক্ষম।

টাকা দিতে পারলেই যে কমিটিতে থাকা যায় তার বড় প্রমাণ হলো সাম্প্রতিক সময়ে যুবদলের কমিটি। আর এর ফলে বিএনপির মধ্যে হতাশা আরও ছড়িয়ে পড়েছে। যারা রাজপথে ত্যাগ স্বীকার করেছেন, যারা সরকারের সঙ্গে দূরত্ব রেখেছেন এবং যারা অভাবে অনটনে আছেন তারা কেউ কমিটিতে জায়গা পাচ্ছে না। বিএনপিতে এখন পর্যন্ত যতগুলো আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে সকলেই আর্থিকভাবে অত্যন্ত সবল। রাজপথের আন্দোলন তারা করুক না করুক তাদের বিত্ত-বৈভবের অভাব নেয়। 


বিএনপি   কমিটি বাণিজ্য   কমিটি নাটক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করলেন ওবায়দুল কাদের

প্রকাশ: ০৩:৪৭ পিএম, ১৫ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

দেশের চলমান নানা পরিস্থিতি নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেছেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। বৈঠকে দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সভাপতিত্ব করেন। এছাড়া ছাত্রলীগ, যুবলীগসহ সহযোগী সংগঠনের শীর্ষ নেতারাও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

সোমবার (১৫ জুলাই) দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ের কনফারেন্স কক্ষে এই বৈঠক হয়। 

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কামরুল ইসলাম, মির্জা আজম, বাহাউদ্দিন নাছিম, মাহবুবুল হক হানিফসহ শীর্ষ নেতারা। এছাড়া ছাত্রলীগ-যুবলীগসহ ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের সভাপতি-সম্পাদক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, সাড়ে ১০টার দিকে এই কার্যালয়ে আসেন ওবায়দুল কাদের। সাধারণত কার্যালয়ের নিচের কক্ষে বৈঠক হলেও আজকের বৈঠকটি কনফারেন্স কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রুদ্ধদ্বার বৈঠক   ওবায়দুল কাদের   আওয়ামী লীগ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

অপশক্তিকে ছাড় দেওয়া হবে না, আন্দোলনের কুশীলব বিএনপি-জামায়াত: কাদের

প্রকাশ: ০৩:৪৭ পিএম, ১৫ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার ইস্যুতে চলমান আন্দোলনে বিএনপির সংশ্লিষ্টতা রয়েছে অভিযোগ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, আন্দোলনকারীদের জবাব দিতে ছাত্রলীগসহ স্বাধীনতার পক্ষের সবাই প্রস্তুত আছেন। সোমবার (১৫ জুলাই) দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন।

কাদের উল্লেখ করেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনের নামে সরকারবিরোধী আন্দোলনের প্রচেষ্টা চলছে এবং এতে বিএনপির সমর্থন ও সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। গতকাল রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে দেশের অস্তিত্বকে আঘাত করে মুক্তিযুদ্ধবিরোধী স্লোগান দিয়ে এ আশঙ্কা প্রমাণিত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, “এ দেশের মাটিতে রাজাকারের জায়গা নেই, প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য যথার্থ। পরাজিত শক্তির আস্ফালন মেনে নেওয়া হবে না। যারা দেশের গৌরবকে অস্বীকার করে রাজাকার পরিচয় দেয়, তারা কিভাবে নিজেদের মেধাবী পরিচয় দেয়?”

কাদের সতর্ক করে বলেন, রাজাকারের চেতনা ধারণকারীরাও রাজাকার। আত্মস্বীকৃত রাজাকারদের জবাব ছাত্রলীগই দেবে।

 তিনি আরও বলেন, অপশক্তিকে ছাড় দেওয়া হবে না। আন্দোলনের কুশীলব বিএনপি-জামায়াত। সরকারের বিরুদ্ধে আল্টিমেটাম দেওয়া দৃষ্টতা। কোটা সংস্কার নিয়ে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত। জনদুর্ভোগ মেনে নেওয়া হবে না। কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের জবাব দিতে ছাত্রলীগসহ স্বাধীনতার সপক্ষের সবাই প্রস্তুত।



ওবায়দুল কাদের   কোটা আন্দোলন   বিএনপি-জামায়াত  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে ভেসে যাবে সরকার: রিজভী

প্রকাশ: ১২:৫১ পিএম, ১৫ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

কোটা সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনের স্রোতে সরকার ভেসে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। সোমবার (১৫ জুলাই) দুপুরে রাজধানীর মগবাজারে কারাবন্দি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের আহ্বায়ক খন্দকার এনামুক হক এনামের পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

এসময় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক আন্দোলনের বিষয় নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অহেতুক মন্তব্য করেছেন। ঢালাওভাবে আন্দোলকারী শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের নাতি’ বলে নিন্দা করেছেন।

‘রাগ করে ২০১৮ কোটা বাতিল করেছি- প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্য প্রমাণ করে তিনি সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন, শপথ ভঙ্গ করেছেন। দেশের আদালত আজ প্রধানমন্ত্রীর শাড়ির আঁচলে বন্দি’ বলেও মন্তব্য করেন রিজভী।

শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগকে সরকার লেলিয়ে দিয়েছে অভিযোগ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘এ আন্দোলনে ক্ষমতাসীনরা ভেসে যাবে, তাদের সিংহাসন উড়ে যাবে।’

গণতন্ত্র ফিরে না আসা পর্যন্ত বিএনপি রাজপথে থাকবে বলেও জানান রুহুল কবির রিজভী। 


বিএনপি   রাজনীতি   রুহুল কবির রিজভী   আন্দোলন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

হাসপাতালে খালেদা জিয়া, দেখতে আসেনি পরিবারের কেউ

প্রকাশ: ১২:৫৬ পিএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

সাত দিন ধরে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তার শারীরিক অবস্থার তেমন কোনও উন্নতি হয়নি বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

বিএনপির নেতারা বলছেন, বারবার অসুস্থ হয়ে পড়ার কারণে দলীয় প্রধান খালেদা জিয়াকে গত কয়েক মাসে একাধিকবার হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। টানা ১০ দিনের বেশি সময় হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে গত ২ জুলাই বাসায় নিয়ে আসা হয় তাকে। কিন্তু ৫ দিনের ব্যবধানে আবারও অসুস্থ হয়ে পড়লে ৮ জুলাই ভোর রাতে সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে আবারও হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়। এখন পর্যন্ত তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

এদিকে তাকে দেখতে দুই সন্তানের পরিবারের কেউ দেশে আসেনি। তবে নিয়মিত পরিবারের সদস্যরা ভার্চুয়ালি তার চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যের খোঁজ-খবর নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

খালেদা জিয়ার দুই সন্তান বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পরিবার ও ছোট ছেলে প্রয়াত আরাফত রহমান কোকোর পরিবার লন্ডনে থাকেন। খালেদা জিয়া কারাগারে থাকাকালে এবং বিভিন্ন সময় অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে থাকলে তাকে দেখতে দেশে আসতেন কোকোর স্ত্রী ও দুই মেয়ে। এবার এখন পর্যন্ত তাদের কেউ দেশে আসেনি।


হাসপাতাল   খালেদা জিয়া   দেশে   পরিবার  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

‘কোটা নিয়ে সংসদে বিল আনা হলে জাতীয় পার্টি ভূমিকা রাখবে’

প্রকাশ: ১১:২৪ এএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু বলেছেন, শিক্ষার্থীদের কোটা বাতিল আন্দোলনের যৌক্তিকতা আছে। কোটা যেভাবে আছে তা চলতে পারে না। সংসদে বিল আনা হলে জাতীয় পার্টি ভূমিকা রাখবে। রোববার (১৪ জুলাই) রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

সময় সরকারের সমালোচনা করে চুন্নু বলেন, বর্তমান সরকারের ব্যর্থতায় দুর্নীতির বিস্তার হয়েছে দেশে।

তিনি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের কোটা বাতিল আন্দোলনের যৌক্তিকতা আছে। কোটা যেভাবে আছে তা চলতে পারে না। সংসদে বিল আনা হলে জাতীয় পার্টি ভূমিকা রাখবে।

এদিকে সরকারি চাকরিতে সব গ্রেডে সর্বোচ্চ শতাংশ কোটা রেখে, বাকি কোটা বাতিল করে সংসদে আইন পাসের এক দফা দাবিতেবৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের ব্যানারেশিক্ষার্থীরা আন্দোলন করছেন।

গত জুলাই প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে ছয় বিচারপতির আপিল বেঞ্চ সরকারি চাকরির প্রথম দ্বিতীয় শ্রেণিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেয়া রায় আপাতত বহাল রাখার নির্দেশ দেন। পরে ১০ জুলাই হাইকোর্টের দেয়া রায়ে চার সপ্তাহের জন্য স্থিতাবস্থা দেন আপিল বিভাগ।

এর আগে ২০১৮ সালের অক্টোবর সরকারি চাকরিতে প্রথম দ্বিতীয় শ্রেণির পদে সরাসরি নিয়োগে বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি তুলে দিয়ে পরিপত্র জারি করেছিল জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।


কোটা   সংসদ   বিল   জাতীয়   পার্টি   ভূমিকা  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন