ইনসাইড ইকোনমি

কয়লা মাপার যন্ত্র নেই, রাজস্ব ফাঁকি

প্রকাশ: ০৪:৫৭ পিএম, ১২ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

আগের মতোই চলছে ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটের দুই স্থলবন্দর। ওজন মাপার যন্ত্র নেই। চোখের আন্দাজ আর ভারতীয় শুল্ক বিভাগ থেকে লিখে দেওয়া ওজনকে সত্য মেনে রাজস্ব আদায় করেন বাংলাদেশের শুল্ক কর্মকর্তারা। ফলে রাজস্ব ফাঁকির পুরনো অভিযোগ থেকে বের হতে পারছে না এই দুই বন্দর।

এই দুই স্থলবন্দরের মধ্যে গোবরাকুড়া বড়। ছোট বন্দরটি কড়ইতলি। এক বছর আগে এই দুই বন্দর সরেজমিন ঘুরে যে চিত্র দেখা গেছে তা থেকে বের হতে পারেনি বন্দর দুটি।

গোবরাকুড়া বন্দর দিয়ে গত বছর কয়লা আমদানি করা হয়েছে ৩৫ হাজার ৮০৬ টন। রাজস্ব আদায় হয়েছে সাত কোটি ৭৫ লাখ ২৯ হাজার টাকা। অভিযোগ আছে, কয়লা আমদানিকারক আর শুল্ক কর্মকর্তাদের যোগসাজশে এই সময়ে সোয়া পাঁচ কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি দেওয়া হয়।

কিভাবে এই ফাঁকির ঘটনা ঘটে, জানতে চাইলে বন্দরসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, প্রতিটি ট্রাকে ২০-২২ টন কয়লা ভারত থেকে আসে। কিন্তু শুল্ক আদায় হয় গড়ে প্রতি ট্রাকে ১২ টন কয়লা ধরে। এতে আমদানিকারক প্রতিটি ট্রাকে প্রায় আট টন কয়লার রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছেন। টাকার অঙ্কে তা ১৭ হাজার ৩২২ টাকা।

এই একই প্রক্রিয়ায় চলছে আট মাইল দূরে অবস্থিত কড়ইতলি বন্দর। গত বছর এই বন্দর দিয়ে কয়লা এসেছে ২৩ হাজার টন। এখানেও প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগ আছে। এতে বেশি লাভবান হচ্ছেন এই বন্দর দিয়ে কয়লা নিয়ে আসা ব্যবসায়ীরা।

প্রতিদ্বন্দ্বী কয়লা ব্যবসায়ীদের দাবি, শুল্ক ফাঁকি দেওয়ার সুযোগ পাওয়ায় এই দুই স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি করা কয়লা কিছুটা কম দামে বিক্রি করে দ্রুত লাভবান হচ্ছেন এক শ্রেণির ব্যবসায়ী। এতে বিপদে পড়ছেন যথাযথ শুল্ক দিয়ে অন্য স্থলবন্দর ও সমুদ্রবন্দর দিয়ে আমদানি করা কয়লা ব্যবসায়ীরা। আবার মান দেখার সুযোগ না থাকায় নিম্ন মানের কয়লাও ঢুকছে এই দু্ই বন্দর দিয়ে। মূলত ইটভাটায় এসব কয়লা ব্যবহার করা হয়। 

সম্প্রতি গোবরাকুড়া বন্দরে গিয়ে দেখা যায়, ভারত থেকে কয়লা নিয়ে ঢুকছে একটার পর একটা ট্রাক। প্রবেশপথে দায়িত্বরত বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরা ট্রাকে কোনো অবৈধ মালপত্র আছে কি না, তা তল্লাশি করে দেখছেন। এরপর কয়লার চালানের কাগজপত্র দায়িত্বরত কাস্টমস ও ভ্যাট কর্মকর্তাকে দেখিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে ট্রাকগুলো। কোনো ট্রাকের কয়লা মাপা হয়নি। গত ৪ জানুয়ারি এই প্রক্রিয়ায় অর্ধশত ট্রাক কয়লা নিয়ে বাংলাদেশে ঢুকেছে গোবরাকুড়া স্থলবন্দর দিয়ে।

ট্রাক থেকে কয়লা নামানোর কাজে নিয়োজিত শ্রমিকরা জানান, তাঁদের হিসাবে প্রতি ট্রাকে ২০-২২ টন কয়লা ধরে। তাঁরা দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে তা ট্রাক থেকে নামান।

বর্তমানে প্রতি টন কয়লা থেকে ২১৬৫.২৫৭ টাকা রাজস্ব পায় সরকার। সেই হিসাবে প্রতি ট্রাকেই ১৭ হাজার ৩২২ টাকার বেশি রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছেন অসাধু আমদানিকারকরা।

তবে কয়েকজন আমদানিকারক দাবি করেছেন, বন্দরে ওজন মাপার স্কেল না থাকায় প্রায় সময় এলসিতে উল্লেখ করা পরিমাণের চেয়ে কম কয়লা পান তাঁরা। আর ভারত থেকে আসা ট্রাকগুলো সে দেশেই ওজন করে এপারে পাঠানো হয়। তাই কখনোই বেশি আনার সুযোগ নেই।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, কিছুদিন আগেও কড়ইতলি বন্দরের নিয়ন্ত্রণ ছিল এমপি জুয়েল আরেং এবং হালুয়াঘাট উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক আলী আজগরের হাতে। গত বছর করোনায় আক্রান্ত হয়ে আলী আজগর মারা যাওয়ার পর জুয়েল আরেংয়ের একক নিয়ন্ত্রণে চলে যায় বন্দর। তিনি গোবরাকুড়া স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক সমিতির সভাপতিও।

বন্দর থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নেওয়া নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক আমদানিকারক জানান, গোবরাকুড়া আমদানি-রপ্তানিকারক সমিতির সদস্য তিন শতাধিক। কিন্তু এখন সক্রিয় আছেন মাত্র ১১০ জন। কারণ বন্দরে শুধু এমপির লোকজনই ব্যবসা করতে পারেন। অনেক ব্যবসায়ী চাইলেও প্রয়োজনমতো কয়লা আমদানি করতে পারেন না বলে জানান। কেউ কেউ তাই বন্দর থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নিয়েছেন।

বন্দরের লোড-আনলোড এলাকায় গিয়ে এই ব্যবসায়ীর অভিযোগের সত্যতা মেলে। মেসার্স দত্ত অ্যান্ড ব্রাদার্স, বাংলা ইন্টারন্যাশনাল, সেতু ইন্টারন্যাশনাল, ফ্রেন্ড ইন্টারন্যাশনাল, আনিতা ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল, মেসার্স সিদ্দিক ইন্টারন্যাশনাল, আবির ট্রেডার্স, মেসার্স বড় ভাই এন্টারপ্রাইজসহ অনেক ডিপো খালি পড়ে থাকতে দেখা যায়।

নাজমুল নামের এক শ্রমিক জানান, একজন কয়লা শ্রমিক সারা দিন খেটে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা আয় করতে পারেন। আমদানিকারক কম থাকায় অনেক শ্রমিকই দিনের পর দিন কাজ পান না। এতে খেয়ে না খেয়ে দিন কাটে তাঁদের। পাশে দাঁড়িয়ে থাকা রমজান ও ইসমাইল নামের দুই শ্রমিক বলেন, ‘দুই দিন ধরে কোনো কাজ পাইনি। এই বন্দরে প্রায় ছয় হাজার শ্রমিক কাজ করে। তাদের বেশির ভাগেরই অবস্থা আমাদের মতো।’

৫ জানুয়ারি উপজেলার কড়ইতলি স্থলবন্দরে গিয়েও চোখে পড়ে প্রায় একই রকম দৃশ্য। আমদানি করা কয়লার ওজন যাচাই না করে শুধু এলসিপত্র দেখিয়ে একের পর এক ট্রাক বাংলাদেশে ঢুকছে। এই বন্দরের নিয়ন্ত্রণে আছেন এমপি জুয়েল আরেংয়ের ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত ১ নম্বর ভুবনকুড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. সুরুজ মিয়া। কড়ইতলি কোল অ্যান্ড কোক ইম্পোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতিও তিনি।

এলসিপত্রের অতিরিক্ত কয়লা আনার অভিযোগ অস্বীকার করে গোবরাকুড়া আমদানি-রপ্তানিকারক অ্যাসোসিয়েশনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অশোক সরকার অপু ওরফে অপু সরকার বলেন, ‘ভারতীয় বন্দরে প্রতিটি ট্রাক ওজন স্কেলে পরিমাপ করে তবেই বাংলাদেশে পাঠানো হয়। তাই নির্দিষ্ট পরিমাণের চেয়ে কয়লা বেশি আনার কোনো সুযোগ নেই। বরং ট্রাকে ১২ মেট্রিক টন কয়লা থাকার কথা থাকলেও প্রায় সময় ২০০ থেকে ৫০০ কেজি কম থাকে। এতে অনেক ক্ষতির মুখে পড়েন ব্যবসায়ীরা। আর আমাদের বন্দরে ওজন মাপার স্কেল না থাকায় কয়লা গ্রহণের সময় ভারতের পাঠানো কাগজের ওপরই ভরসা করতে হয়।’

ট্রাকে কয়লা যদি ওজনে কম আসার সুযোগ থাকে তাহলে বেশি আসারও তো সুযোগ আছে। এটা হয় কি না? এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি তিনি।

কড়ইতলি কোল অ্যান্ড কোক ইম্পোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. সুরুজ মিয়াও অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘খুব শিগগির আমাদের দুটি বন্দরেই ওজন স্কেল বসানো হয়ে যাবে। আশা করছি, আগামী জুন-জুলাই মাসেই চলমান উন্নয়নকাজ শেষ হয়ে বন্দর দুটি পুরোপুরি চালু হয়ে হয়ে যাবে। তখন আর এমন অভিযোগ করার সুযোগ থাকবে না।’

এসব বিষয়ে জানতে গোবড়াকুড়া আমদানি-রপ্তানিকারক সমিতির সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য জুয়েল আরেংয়ের মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ধরেননি। এসএমএস করা হলেও সাড়া দেননি।

একইভাবে কথা বলতে রাজি হননি দুই স্থলবন্দরের কোনো শুল্ক কর্মকর্তা। তাঁরা বলেন, ‘ওপর থেকে অনুমতি নিয়ে আসেন। তারপর কথা বলব।’


বসুন্ধরা   কয়লা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ইকোনমি

ব্যাংকারদের সর্বনিম্ন বেতন নির্ধারণ করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

প্রকাশ: ০৭:৪৬ পিএম, ২০ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

প্রথমবারের মতো ব্যাংকারদের জন্য সর্বনিম্ন বেতন ২৮ হাজার টাকা বেঁধে দিয়ে নির্দেশনা জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। একইসঙ্গে লক্ষ্য অর্জন করতে না পারা বা অদক্ষতার অজুহাতে চাকরি থেকে কাউকে বাদ দেওয়া যাবে না বলেও জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। চলতি বছরের মার্চ থেকে এই নির্দেশনা কার্যকর হবে।

বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ব্যাংকের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের একনিষ্ঠতা, নৈতিকতা, মনোবল ও কর্মস্পৃহা অটুট রাখার লক্ষ্যে তাদের যথাযথ বেতন-ভাতা দেওয়া আবশ্যক। তবে সম্প্রতি লক্ষ্য করা গেছে যে, কতিপয় ব্যাংক-কোম্পানির এন্ট্রি লেভেলের কর্মকর্তাদের বেতন-ভাতা যথাযথভাবে নির্ধারণ না করে ইচ্ছামাফিক নির্ধারণ করা হচ্ছে। যা একই ব্যাংকের অন্য উচ্চ পর্যায়ে কর্মরত কর্মকর্তাদের বিদ্যমান বেতন-ভাতার তুলনায় খুবই কম। উচ্চ এবং নিম্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদির মধ্যে এত অস্বাভাবিক ব্যবধান কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

চলতি বছরের ১ মার্চ থেকে অ্যাসিস্ট্যান্ট অফিসার বা ট্রেইনি অ্যাসিস্ট্যান্ট অফিসার বা ট্রেইনি অ্যাসিস্ট্যান্ট ক্যাশ অফিসার অথবা সমপর্যায়ের কর্মকর্তা, যে নামেই অভিহিত হোক না কেন, ব্যাংকের এন্ট্রি লেভেলে এরূপ নিযুক্ত কর্মকর্তাদের শিক্ষানবিশকালে ন্যূনতম বেতন-ভাতাদি হবে ২৮ হাজার টাকা।

শিক্ষানবিশকাল শেষে কর্মকর্তাদের প্রারম্ভিক মূল বেতনসহ ন্যূনতম সর্বমোট বেতন-ভাতাদি হবে ৩৯ হাজার টাকা। নতুন নির্ধারিত বেতন-ভাতাদি কার্যকর করার পর একইপদে আগে থেকে কর্মরত কর্মকর্তার বেতন-ভাতাদি আনুপাতিক হারে বৃদ্ধি করতে হবে। এছাড়া প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার অব্যবহিত নিম্ন পদে কর্মরত কর্মকর্তার বেতন-ভাতাদির সঙ্গে ব্যাংকে সর্বনিম্ন পদে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদির পার্থক্য যৌক্তিক পর্যায়ে নির্ধারণ করতে হবে। অনুরূপভাবে সব স্তরের কর্মকর্তাদের জন্যও আনুপাতিকহারে বেতন-ভাতাদি নির্ধারণ করতে হবে।

কোনো কর্মকর্তা বা কর্মচারীর বেতন-ভাতাদি কোনো অবস্থাতেই বর্তমান বেতন-ভাতাদির চেয়ে কম হবে না। এরূপ পরিস্থিতির উদ্ভব হলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা বা কর্মচারীকে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ইনক্রিমেন্ট দিয়ে বেতন-ভাতাদি নির্ধারণ করতে হবে। ব্যাংকের সার্ভিস রুলস অনুযায়ী কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অন্যান্য ভাতা ও সুযোগসুবিধা যথানিয়মে পাবেন।

ব্যাংক-কোম্পানি কর্তৃক নিয়োগকৃত কর্মকর্তাদের চাকরি স্থায়ীকরণ বা বার্ষিক বেতন বৃদ্ধির জন্য আমানত সংগ্রহের লক্ষ্য অর্জনের শর্ত আরোপ করা যাবে না। কেবল নির্ধারিত লক্ষ্য অর্জন করতে না পারা বা অদক্ষতার অজুহাতে ব্যাংক-কোম্পানির কর্মকর্তাদের প্রাপ্য পদোন্নতি থেকে বঞ্চিত করা যাবে না। অনুরূপ অজুহাতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চাকরিচু্ত করা যাবে না। অর্থাৎ সুনির্দিষ্ট ও প্রমাণিত কোনো অভিযোগ না থাকলে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চাকরিচ্যুত করা বা পদত্যাগে বাধ্য করা যাবে না।

পরিচ্ছন্নতাকর্মী, নিরাপত্তাকর্মী, অফিস সহায়ক অথবা সমজাতীয় পদে বা সর্বনিম্ন যেকোনো পদে নিয়োগকৃত কর্মচারীদের ন্যূনতম প্রারম্ভিক বেতন-ভাতাদি হবে ২৪ হাজার টাকা। কর্মচারীদের কাজ যদি চুক্তিভিত্তিক বা দৈনিক ভিত্তিতে বা আউট সোর্সিং বা অন্য কোনো প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নিয়োগকৃত কর্মচারীদের মাধ্যমে সম্পন্ন করা হয়, সেক্ষেত্রে কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে এরূপ কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদি নির্ধারণ করতে হবে।

তবে ব্যাংকের এজেন্ট ব্যাংকিং বা মোবাইল ব্যাংকিং বা অন্য কোনো প্রক্রিয়ায় ব্যাংকিং সেবায় নিয়োজিত বিভিন্ন আউটলেটে নিযুক্ত ব্যাংকের এজেন্ট বা এজেন্টের মাধ্যমে নিযুক্ত ব্যক্তিদের বেতন-ভাতাদি-পারিশ্রমিক চুক্তি নিজ নিজ এজেন্ট কর্তৃক নির্ধারিত হয় বিধায় তাদের ক্ষেত্রে ওপরে বর্ণিত এ নির্দেশনা প্রযোজ্য হবে না।

রষ্ট্রমালিকানাধীন ব্যাংকের বেতন কাঠামো সরকার কর্তৃক জারি করা জাতীয় বেতনস্কেলের আওতাভুক্ত বা অনুসরণে নির্ধারিত হওয়ায় উক্ত ব্যাংকসমূহের জন্য ওপরে বর্ণিত নির্দেশনা প্রযোজ্য হবে না।

বর্ণিত নির্দেশনাসমূহ পরিপালন নিশ্চিতকল্পে ব্যবস্থাপনা পরিচালকরা নিজ নিজ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের পরবর্তী সভায় উপস্থাপন করে এসব নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যাংকের এ সংক্রান্ত নীতিমালায় প্রয়োজনীয় সংশোধন আনবেন।

এতে আরও বলা হয়, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ সার্কুলারে বর্ণিত নির্দেশনা বলবৎ থাকবে। ব্যাংকিং খাতে শৃঙ্খলা, সুশাসন ও যথাযথ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ব্যাংক-কোম্পানি আইন, ১৯৯১ এর ধারা ৪৫ এর উপ-ধারা (ঘ) এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এই নির্দেশনা জারি করা হলো।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ইকোনমি

জ্বালানি তেল ও বিটুমিনের মূল্যবৃদ্ধির শঙ্কা

প্রকাশ: ০৪:২৭ পিএম, ১৯ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

উদ্বেগ বাড়িয়ে বিশ্ববাজারে ব্রেন্ট ক্রুড অয়েলের দাম ছাড়িয়ে গেল ব্যারেলপ্রতি ৮৮ ডলার, যা গত ৭ বছরে সর্বোচ্চ। বেড়েছে অন্যান্য অপরিশোধিত তেলের দামও। তবে নতুন বছরে টানা তিন সপ্তাহ লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে ব্রেন্ট ক্রুডের দাম। এক মাসের ব্যবধানে এই তেলের মূল্যবৃদ্ধির হার অন্তত ২৩ শতাংশ। এতে দেশের বাজারে বিটুমিনের দাম ব্যারেলপ্রতি এক হাজার থেকে এক হাজার ২০০ টাকা পর্যন্ত বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। ফের বাড়তে পারে জ্বালানি তেলের দামও। 

বছরের প্রথম সপ্তাহে ৫.১২ শতাংশ বেড়ে প্রতি ব্যারেল ব্রেন্ট ক্রুড অয়েলের দাম ৮১.৭৬ ডলারে উঠে আসে। দ্বিতীয় সপ্তাহে ৫.৭৭ শতাংশ বেড়ে প্রতি ব্যারেল ব্রেন্ট ক্রুড অয়েলের দাম দাঁড়ায় ৮৬.৪৭ ডলার। এক মাস আগে এই তেলের দাম ছিল ৭১.৫৭ ডলার। গতকাল মঙ্গলবার বিশ্ববাজারে ব্রেন্ট ক্রুডের দাম ছিল প্রতি ব্যারেল ৮৮.০৪ ডলার। মাসের ব্যবধানে ব্রেন্ট ক্রুড অয়েলের দাম বাড়ল ২৩ শতাংশ। অন্যদিকে, ডাব্লিউটিআই ক্রুডের দামও ঊর্ধ্বমুখী। এক দিনের ব্যবধানে প্রায় দেড় শতাংশ বেড়ে তা ছাড়িয়ে যায় ৮৫ ডলার।

উল্লেখ্য, দেশে বছরে বিটুমিনের মোট চাহিদা কমপক্ষে সাড়ে পাঁচ লাখ টন। সরকারি পর্যায়ে উৎপাদন সক্ষমতা মাত্র ৬০ থেকে ৭০ হাজার টন। চাহিদা মেটাতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বিদেশ থেকে নিম্নমানের ভেজাল বিটুমিন আমদানি করে আসছিল। সেসব নিম্নমানের বিটুমিনে তৈরি সড়কগুলো ছয় মাসেই খানাখন্দে ভরে যায়। বাড়ে জনদুর্ভোগ এবং স্থায়িত্ব কমে সেসব সড়কে চলা যানবাহনেরও। আবার ক্ষতিগ্রস্ত সেই সড়কগুলো মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণে রাষ্ট্রের বিপুল পরিমাণ অর্থ অপচয় হয় বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও বিশেষজ্ঞরা। এ অবস্থায় উন্নতমানের বিটুমিনের ব্যবহার নিশ্চিত করতে দেশে বেসরকারি পর্যায়ে বিটুমিন উৎপাদনের প্লান্ট গড়ে উঠেছে।

গত এক বছরে অপরিশোধিত তেলের দাম লাফিয়ে লাফিয়ে বৃদ্ধি পাওয়ায় উদ্বেগ বাড়ছে, বিশেষ করে ব্রেন্ট ক্রুড অয়েলের দাম গত বছর ঠিক এই সময়ে ছিল প্রতি ব্যারেল মাত্র ৫৫.৯০ ডলার। এক বছরের মাথায় তা বেড়ে ছাড়িয়ে গেছে ৮৮ ডলার। বিটুমিন উৎপাদনে ব্যবহৃত প্রধান এই উপকরণের দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধির প্রভাব পড়তে পারে বিটুমিনের বাজারে। এ ছাড়া ডিজেল, পেট্রলসহ বিভিন্ন জ্বালানি তেলের ওপরও পড়তে পারে নেতিবাচক প্রভাব।

জ্বালানী তেল   বিটুমিন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ইকোনমি

ভোজ্যতেলের দাম আপাতত বাড়ছে না: বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রকাশ: ০১:০০ পিএম, ১৯ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

ভোজ্যতেলের দাম আপাতত বাড়ছে না বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। আজ বুধবার (১৯ জানুয়ারি) সচিবালয়ে এক সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আমি ব্যবসায়ীদের অনুরোধ করেছি একটু সময় দিতে। আমরা আগামী ৬ তারিখ মানে ১৬ দিন পর বসে দাম বাড়ানোর প্রয়োজন হলে বাড়াবে আর কমানোর প্রয়োজন হলে কমাব।

সবকিছু বিবেচনা করে যেটা সুবিধাজনক হয়, সেটি করা হবে বলেও এসময় জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।

টিপু মুনশি বলেন, ভারতের বড় সুবিধা তাদের ডিউটি স্ট্রাকচার আমাদের চেয়ে কম। আমাদের যেখানে ১৮ থেকে ২০ শতাংশ, সেখানে তারা ৫ শতাংশ দেয়। এসব বিবেচনা করে আমাদের দেখতে হবে। এজন্য আমি ব্যবসায়ীদের অনুরোধ করেছি একটু সময় দিতে। আমরা আগামী ৬ তারিখ, মানে ১৬ দিন পর বসে দাম বাড়ানোর প্রয়োজন হলে বাড়াবো। কমানোর প্রয়োজন হলে কমাবো। সবকিছু বিবেচনা করে যেটা সুবিধাজনক হয় সেটি করা হবে।
 
উল্লেখ্য, এর আগে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বাড়ার কথা উল্লেখ করে নতুন দাম কার্যকরের দাবি জানিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠিয়েছিলো বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন। পরে সেটি যাচাই-বাছাইয়ের জন্য ট্যারিফ কমিশনে পাঠায় মন্ত্রণালয়।

বাণিজ্যমন্ত্রী   ভোজ্যতেল  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ইকোনমি

দেশে সর্বোচ্চ রেকর্ড ১৭ লাখ মেট্রিকটন চাল মজুদ আছে: খাদ্যমন্ত্রী

প্রকাশ: ১২:০৫ পিএম, ১৯ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

দেশে সর্বোচ্চ রেকর্ড ১৭ লাখ মেট্রিকটন চাল মজুদ আছে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। 

আজ বুধবার (১৯ জানুয়ারি) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনের দ্বিতীয় অধিবেশন শেষে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, আমাদের চালের মজুত সর্বকালের সর্ববৃহৎ মজুত। সেটা মানসম্মত চালের মজুত। আশা করি মানুষ এই চাল নিয়ে খাবে।

তিনি বলেন, ওএমএস সারা বছরই চালু আছে। বৃহস্পতিবার থেকে ১,৭৬০ জন ডিলারের মাধ্যমে ‍উপজেলা পর্যায়ে খোলাবাজারে চাল বিক্রি হবে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত এই ওএমএস কার্যক্রম চলবে বলেও জানান সাধন চন্দ্র মজুমদার।

কৃষি মন্ত্রণালয় ও খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে জেলা প্রশাসকদের এ কার্য অধিবেশন হয়। মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এতে সভাপতিত্ব করেন।

খাদ্যমন্ত্রী   চাল  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ইকোনমি

বাড়তে পারে গ্যাসের দাম

প্রকাশ: ১১:৩৫ এএম, ১৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

তেলের দাম বাড়ানোর পর এবার দাম বাড়ছে প্রাকৃতিক গ্যাসের। এলএনজিতে ভর্তুকি সামাল দিতেই এ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে এবং ইতোমধ্যে এ নিয়ে বিতরণকারী কম্পানিগুলো তোড়জোড় শুরু করেছে। এরই মধ্যে দুটি কম্পানি বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে (বিইআরসি) দাম বাড়ানোর প্রস্তাব জমা দিয়েছে। আগামী সপ্তাহেই কোম্পানিগুলো প্রস্তাব জমা দেওয়া শুরু করতে পারে বলে সূত্রগুলো জানায়।

জানা গেছে, আবাসিক, বাণিজ্যিকসহ সব ধরনের গ্যাসের দাম বাড়ানোর চূড়ান্ত প্রস্তাব এ সপ্তাহে জমা দিতে পারে গ্যাস বিতরণ কম্পানিগুলো। বিইআরসি বলছে, গত সপ্তাহে দু-একটি গ্যাস বিতরণ কম্পানি দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে। তবে তা বিধিসম্মত না হওয়ায় ফেরত পাঠানো হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে জ্বালানি বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘গ্যাস বিতরণকারী বেশির ভাগ কম্পানি এরই মধ্যে দাম বাড়ানোর প্রস্তাব তৈরির কাজ শেষ করেছে। চলতি সপ্তাহে গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব বিইআরসিতে যাবে।’

তবে গ্যাস বিতরণকারী কম্পানিগুলো কতটুকু দাম বাড়াতে চায় তার ব্যাপারে বিস্তারিত কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে বিইআরসির একজন কর্মকর্তা বলেন, প্রস্তাব এলে প্রথমে তা কমিশনের বৈঠকে উত্থাপন করা হয়। এরপর নিয়ম অনুযায়ী গণশুনানি করে বর্ধিত দাম ঘোষণা করা হয়। একই সঙ্গে বিতরণ এবং সঞ্চালন কম্পানির মার্জিন বৃদ্ধি করা হয়।

গত ২২ ডিসেম্বর অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে ‘বাজেট মনিটরিং ও সম্পদ কমিটির’ বৈঠকে অর্থ বিভাগ থেকে দাম সমন্বয়ের প্রস্তাব দেওয়া হয়। ওই সভায় বলা হয়, গ্যাস, বিদ্যুৎ ও সারের দাম সমন্বয় বা বাড়ানো না হলে বাজেটে ভর্তুকি ব্যয় জিডিপির ২ শতাংশ বেড়ে যাবে। এরপর বাংলাদেশ তেল, গ্যাস ও খনিজ সম্পদ করপোরেশন (পেট্রোবাংলা) থেকে নির্দেশনা পেয়ে গ্যাস বিতরণ কম্পানিগুলো প্রস্তাব তৈরির কাজ শুরু করে।

জ্বালানি বিভাগ বলছে, আন্তর্জাতিক বাজারে এলএনজির দাম বাড়ায় চলতি বছর সার, বিদ্যুৎ এবং গ্যাসে ৭০ হাজার কোটি টাকার ভর্তুকি লাগবে। কিন্তু বাজেটে মাত্র সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকার ভর্তুকি রাখা হয়েছে। ফলে বিপুল পরিমাণ ভর্তুকির সংস্থানে দাম বাড়ানো ছাড়া উপায় নেই।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, গত বছরের জানুয়ারিতে প্রতি এমএমবিটিইউ (ব্রিটিশ থার্মাল ইউনিট) বা প্রতি ইউনিট স্পট এলএনজির দাম গড়ে ১০ ডলার ছিল। বর্তমানে এটির দাম বেড়ে ৪০ থেকে ৪৫ ডলার হয়ে গেছে।

জ্বালানি বিভাগ চায় ভর্তুকি বাড়াতে। কিন্তু অর্থ বিভাগ জানিয়ে দিয়েছে, ভর্তুকি বাড়ানো সম্ভব নয়। বাজেট বরাদ্দ সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকার বেশি করা সম্ভব নয়। নিজেদের তহবিল থেকেই সমন্বয় করতে হবে। সে কারণে দাম বাড়ানো ছাড়া কোনো উপায় দেখছে না জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ।

জানতে চাইলে অর্থনীতিবিদ এ বি মির্জ্জা মো. আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘বিশ্ববাজারে এলএনজির দাম বাড়ায় ভর্তুকি বাড়ছে। ভর্তুকি সামাল দিতে গিয়ে এখন গ্যাসের দাম বাড়াতে সরকার বাধ্য হচ্ছে। তবে গ্যাসের দাম বাড়লে উৎপাদন খরচ বাড়বে।’ তিনি মনে করেন, এখন গ্যাসের দাম বাড়ানো হলেও, যখন বিশ্ববাজারে কমে আসবে, তখন কমানো উচিত।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ড. ম. তামিম বলেন, ‘কয়েক গুণ বেশি দামে এলএনজি আমদানি করছে সরকার। এ জন্য বড় ভর্তুকি যাচ্ছে গ্যাস আমদানিতে। সুতরাং গ্যাসের দাম কিছুটা হলেও বাড়াতে হবে। তবে গ্যাসের দাম বেশি বাড়ালে শিল্প-কারখানায় ব্যাপকভাবে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। কারণ, শিল্পের বড় একটি অংশ গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুতে চলে।’

দেশের সবচেয়ে বড় গ্যাস বিতরণ কম্পানি তিতাসের কর্মকর্তারা বলছেন, পেট্রোবাংলার নির্দেশনায় গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব তৈরি করেছেন তাঁরা। রবি-সোমবার (আজ-কাল) নাগাদ সেটি কমিশনে জমা দেওয়া হতে পারে।

গত ৩ নভেম্বর ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারপ্রতি ১৫ টাকা করে বৃদ্ধি করেছে সরকার। গ্যাসের দাম বাড়লে গ্যাসনির্ভর বিদ্যুকেন্দ্রগুলোর উৎপাদন খরচও বাড়বে। সে হিসাবে ভবিষ্যতে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবও দিতে পারে বিদ্যুৎ বিতরণকারী কম্পানিগুলো। সর্বশেষ ২০১৯ সালের ১ জুলাই গ্যাসের দাম বাড়িয়েছিল বিইআরসি।


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন