ইনসাইড এডুকেশন

দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ে একক ভর্তি পরীক্ষা আয়োজন করতে ইউজিসি’র সুপারিশ

প্রকাশ: ০৭:০৩ পিএম, ১০ অক্টোবর, ২০২৩


Thumbnail


দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষ থেকে একক ভর্তি পরীক্ষা আয়োজনের বিষয়ে দ্রুত অধ্যাদেশ জারির সুপারিশ করেছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। একই সঙ্গে কমিশনের এক সদস্যের নেতৃত্বে গঠিত কমিটিকে অধ্যাদেশের খসড়া তৈরিরও দায়িত্ব দেওয়া হয়।

মঙ্গলবার (১০ অক্টোবর) একক ভর্তি পরীক্ষা আয়োজনে ইউজিসির গঠিত কমিটি সভায় সর্বসম্মতিক্রমে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত হয়, দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়কে একক আওতাভুক্ত করে ভর্তি পরীক্ষা গ্ৰহণের জন্য একটি অধ্যাদেশ জারি করা প্রয়োজন। ন্যাশনাল টেস্টিং অথোরিটি (এনটিএ) গঠনের আগ পর্যন্ত এ অধ্যাদেশ অনুযায়ী ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে। ভর্তি পরীক্ষা বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় আইনে যা থাকুক না কেন, এ অধ্যাদেশ প্রাধান্য পাবে। এছাড়া কমিশনের একজন সদস্যের নেতৃত্বে গঠিত একটি কমিটিকে অধ্যাদেশের খসড়া তৈরির দায়িত্ব দেওয়া হয়।

ইউজিসি চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যায়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাকসুদ কামাল, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. নূরুল আলম, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. এমদাদুল হক চৌধুরী, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. শেখ আবদুস সালাম, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড. কামালউদ্দিন, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের উপ-উপাচার্য ড. খোন্দকার মোকাদ্দেম হোসেন এবং ইউজিসি সচিব ড. ফেরদৌস জামান উপস্থিত ছিলেন।

সভায় প্রফেসর আলমগীর বলেন, রাষ্ট্রপতি দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য। তার অভিপ্রায় অনুযায়ী-জনস্বার্থে একক ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে যে আদেশ জারি করা হয়েছে, সেটি বাস্তবায়নে সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং শিক্ষকদের ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, কোনো বিশ্ববিদ্যালয় আচার্যের অভিপ্রায়ের বা আদেশের বাইরে গিয়ে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণের সুযোগ নেই।

সভায় উপস্থিত সদস্যরা একক ভর্তি পরীক্ষার বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। তারা বলেন, একক ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সদিচ্ছা। এ লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আচার্য ও রাষ্ট্রপতি একটি অধ্যাদেশ জারি করতে পারেন, যা বাস্তবায়নে দেশের প্রথম সারির বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নেতৃত্ব দিতে পারে।

জানা গেছে, গত জুলাই মাসে একক ভর্তি পরীক্ষা নিতে ইউজিসি চেয়ারম্যানকে আহ্বায়ক করে ১৫ সদস্যের একটি উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন কমিটি গঠন করা হয়।

এর আগে গত এপ্রিলে ইউজিসিতে অনুষ্ঠিত সভায় শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছিলেন, একক ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বকীয়তা, স্বাতন্ত্র্য, স্বায়ত্তশাসন ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। ভর্তি পরীক্ষা অন্তর্ভূক্তিমুলক করা হবে এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়বস্তু এর অন্তর্ভুক্ত থাকবে। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের স্বার্থে একক ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

 


বিশ্ববিদ্যালয়   একক   ভর্তি পরীক্ষা   ইউজিসি   সুপারিশ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড এডুকেশন

আরও তিন দিনের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা স্থগিত

প্রকাশ: ০৫:০৮ পিএম, ১৮ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

কোটা সংস্কারের আন্দোলন ঘিরে দেশব্যাপী সহিংসতার কারণে আরও তিন দিনের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) আন্তশিক্ষা বোর্ডের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা যায়।

এতে বলা হয়, অনিবার্য কারণবশত আগামী ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের অনুষ্ঠিতব্য সকল শিক্ষা বোর্ডের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা স্থগিত করা হলো। স্থগিত পরীক্ষার নতুন তারিখ পরবর্তীতে জানানো হবে।


এ ছাড়া সব বোর্ডের অধীনে ২৮ জুলাই ও পরবর্তী পরীক্ষাসমূহ যথারীতি অনুষ্ঠিত হবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।


এইচএসসি   পরীক্ষা   স্থগিত  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড এডুকেশন

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সব পরীক্ষা স্থগিত

প্রকাশ: ০৯:০৫ এএম, ১৮ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

কোটাবিরোধী আন্দোলনের কারণে আগামী শুক্র, শনি ও রবিবারের (১৯, ২০ ও ২১ জুলাই) সকল পরীক্ষা স্থগিত করেছে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাউবি)।  বুধবার (১৭ জুলাই) উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দপ্তরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ড. আ ফ ম মেজবাহ উদ্দিন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত থাকবে। এছাড়া, একই তারিখের মাস্টার্স ইন ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ (এমডিএস), মাস্টার্স অব ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট (এমডিএম), সার্টিফিকেট ইন ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ প্রফিসিয়েন্সি (সিইএলপি), এমএস ইন ইরিগেশন অ্যান্ড ওয়াটার ম্যানেজমেন্ট, এমএস ইন এনাটমোলজি, এমএস ইন অ্যাগ্রোনমি, এমএস ইন অ্যাকুয়া কালচার, এমএস ইন পোলট্রি সায়েন্স, সার্টিফিকেট ইন পিসিকালচার অ্যান্ড ফিশ প্রসেসিং (সিপিএফপি), সার্টিফিকেট ইন লাইভস্টক অ্যান্ড পোলট্রি (সিএলপি), মাস্টার অব ডিসঅ্যাবিলিটি ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড রিহ্যাবিলিয়েশন (এমডিএমআর) স্থগিত করা হয়েছে।

২০ জুলাই অনুষ্ঠাতব্য এমডিএম, এমডিএমআর এবং ২১ জুলাইয়ের বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা-২০২৩ (বাংলাদেশ নিশ-২) স্থগিত করা হয়েছে। স্থগিত পরীক্ষাগুলোর তারিখ পরবর্তী সময়ে জানানো হবে।


উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়   পরীক্ষা   স্থগিত  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড এডুকেশন

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সব কলেজ বন্ধ ঘোষণা

প্রকাশ: ১০:২৭ পিএম, ১৬ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

অনির্দিষ্টকালের জন্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সব কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ বিভাগ থেকে দেওয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সব কলেজ ও প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে সারাদেশে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ চলছে। বিক্ষোভে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগ ও পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এই সংঘর্ষে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও রংপুরে ৬ জন নিহত হয়েছেন।

এই আন্দোলনের কারণে আজ সন্ধ্যায় সারা দেশে স্কুল কলেজ অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়   কোটা আন্দোলন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড এডুকেশন

কৃষি গুচ্ছের ৯ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত

প্রকাশ: ০১:৪১ পিএম, ১৫ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

অনিবার্য কারণে ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষের ৯ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। সোমবার (১৫ জুলাই) বেলা ১১ টায় কৃষি গুচ্ছ কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির এক জুম সভায় এ তথ্য প্রকাশ করা হয়। পরে চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ ও প্রকাশনা দপ্তরের সিনিয়র পরিচালক খলিলুর রহমান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে পরীক্ষা স্থগিতের তথ্য প্রকাশ করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে সূত্রে জানা যায়, কৃষি বিজ্ঞান বিষয়ে ডিগ্রি প্রদানকারী ৯ টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ পদ্ধতিতে স্নাতক ১ম বর্ষে ভর্তিচ্ছুদের ভর্তি পরীক্ষা আগামী ২০ জুলাই অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। তবে অনিবার্য কারণে ওই ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। ভর্তি পরীক্ষার নতুন তারিখ ও সময়সূচি পরে জানানো হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, সোমবার বেলা ১১ টায় চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিভাসু) উপাচার্য এবং কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. এএসএম লুৎফুল আহসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির এক জুম সভায় ওই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এবিষয়ে কৃষি গুচ্ছ কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির সদস্য ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমদাদুল হক চৌধুরী বলেন, ‘সোমবার কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির সব সদস্য উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী অনিবার্য কারণবশত আগামী ২০ জুলাইয়ের কৃষি গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।’


কৃষি গুচ্ছ   বিশ্ববিদ্যালয়   ভর্তি পরীক্ষা   স্থগিত  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড এডুকেশন

রাতে জানা যাবে কলেজে ভর্তির শেষ ধাপের ফল

প্রকাশ: ০৩:৫৫ পিএম, ১২ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

এই বছরের একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির তৃতীয় এবং চূড়ান্ত ধাপের আবেদনকারীদের ফলাফল আজ (শুক্রবার) রাতে প্রকাশ করা হবে। একইসঙ্গে দ্বিতীয় ধাপের মাইগ্রেশনের তালিকাও প্রকাশিত হবে। তৃতীয় ধাপে আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল ৯ জুলাই এবং শেষ হয় ১০ জুলাই রাত ৮টায়।

আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটি সূত্রে জানা যায়, আজ রাত ৮টায় একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির কেন্দ্রীয় ওয়েবসাইটে তৃতীয় ধাপের ফলাফল প্রকাশ করা হবে। আবেদনকারীদের নিবন্ধিত মোবাইল নম্বরেও এসএমএসের মাধ্যমে ফলাফল জানানো হবে। ভর্তি নীতিমালা অনুযায়ী, নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের ১৫ থেকে ২৫ জুলাইয়ের মধ্যে ভর্তি হতে হবে। এরপর ৩০ জুলাই থেকে সারা দেশে একাদশ শ্রেণির ক্লাস শুরু হবে।

ভর্তি ফি ও সেশন চার্জ নীতিমালা অনুযায়ী, এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানে ভর্তির ক্ষেত্রে ঢাকা মহানগর এলাকায় বাংলা ও ইংরেজি ভার্সনে ৫ হাজার টাকা, মহানগর (ঢাকা ছাড়া) এলাকায় ৩ হাজার টাকা, জেলায় ২ হাজার টাকা এবং উপজেলা ও মফস্বলে দেড় হাজার টাকা ধার্য করা হয়েছে।

নন-এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ঢাকা মহানগর এলাকায় বাংলা ভার্সনে ৭৫০০ টাকা, ইংরেজি ভার্সনে ৮৫০০ টাকা, মহানগর (ঢাকা ছাড়া) এলাকায় বাংলা ভার্সনে ৫০০০ টাকা ও ইংরেজি ভার্সনে ৬০০০ টাকা, জেলায় বাংলা ভার্সনে ৩০০০ টাকা ও ইংরেজি ভার্সনে ২৫০০ টাকা, এবং উপজেলা ও মফস্বলে বাংলা ভার্সনে ২৫০০ টাকা ও ইংরেজি ভার্সনে ৩০০০ টাকা ধার্য করা হয়েছে।

একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির পর কোনো শিক্ষার্থীকে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ডের পূর্বানুমতি ছাড়া ছাড়পত্র (টিসি) ইস্যু করা যাবে না। বোর্ডের পূর্বানুমতি ছাড়া কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃক ইস্যুকৃত ছাড়পত্রের ভিত্তিতে ভর্তি করা যাবে না।


একাদশ শ্রেণি   শিক্ষার্থী   আবেদন  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন