ইনসাইড গ্রাউন্ড

হেরে গেলেও পারফরম্যান্স নিয়ে সন্তুষ্ট জাভি

প্রকাশ: ০৪:১৪ পিএম, ১৩ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

অতীতের দুর্দান্ত ফর্ম হারিয়ে ফেলেছে স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনা। এখন তারা পুনর্গঠন প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। মেসির বিদায়ের পর পায়ের নিচে মাটি খুঁজে পাচ্ছে না ক্লাবটি। এরই মধ্যে ছিটকে গেছে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে। স্প্যানিশ লা লিগায়ও নেই ভালো অবস্থানে।

বুধবার (১২ জানুয়ারি) রাতে স্প্যানিশ সুপার কাপের সেমিফাইনালে চির প্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের কাছে হেরে বিদায় নিয়েছে কাতালান ক্লাবটি। সৌদি আরবের কিং ফাহাদ স্টেডিয়ামে হওয়া ম্যাচটিতে ৩-২ গোলে জিতেছে রিয়াল। নির্ধারিত ৯০ মিনিটের খেলা ছিল ২-২ গোলে ড্র।

হারলেও দলের পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট বার্সেলোনার কোচ জাভি হার্নান্দেজ। তার মতে, বিশ্বের যেকোনো দলের বিপক্ষে লড়তে পারে বার্সেলোনা। পুরো ম্যাচে বল দখলের লড়াইয়ে এগিয়ে ছিল বার্সাই। এমনকি রিয়ালের ১৪টি শটের বিপরীতে গোলের জন্য ২০টি শট করেছিল বার্সেলোনা। তাই ম্যাচ শেষে নিজের শিষ্যদের বাহবাই দিয়েছেন জাভি। তবে ম্যাচটি জিততে না পারায় হতাশাও ছিল তার কণ্ঠে।

জাভি বলেছেন, ‘আমি দুঃখিত এবং রাগানিত্ব। কারণ এই ম্যাচটি আমাদের জেতার জন্য ছিল। আমরা প্রথম ২০ মিনিট জটিলতার সঙ্গে খেলেছি। তবে এরপর গুছিয়ে নিয়েছি। দিনটি সাহসী হওয়ার ছিল। এই বার্সা দল যে কারও বিপক্ষে লড়তে পারে। যে ফল চেয়েছিলাম তা পাইনি। তবে সামনে এগুনোর একটি পদক্ষেপ ছিল এটি।’

তিনি আরও যোগ করেন, ‘এই অনুভূতিগুলো আসলে সাংঘর্ষিক। কারণ আমরা ম্যাচটি প্রায় জিতে গিয়েছিলাম। আমি দুঃখিত কারণ এটি একটি ক্লাসিকো পরাজয় এবং আমরা একটি শিরোপার সুযোগ হারালাম। তবে আমরা রিয়ালের ওপর আধিপত্য বিস্তার করে খেলেছি।’

এসময় পরাজয়ের কারণ খুঁজতে গিয়ে জাভি বলেন, ‘আমাদের অভিজ্ঞতার ঘাটতি ছিল। ধৈর্য্য এবং দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে পারিনি। আমরা ভুল করেছি। রিয়ালের কাউন্টার অ্যাটাক আমরা রুখতে পারতাম। আমরা (জয়ের) খুবই কাছাকাছি ছিলাম।’


জাভি   বার্সেলোনা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

বিপিএলের ঢাকা পর্বে দাপট বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের

প্রকাশ: ১২:০২ পিএম, ২৭ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

অনেক সমালোচনাকে সঙ্গী করেই শুরু হয় এবারের বিপিএল। প্রথম চারদিন সফল ভাবে আয়োজনের পর বিপিএলের দলগুলো এখন চট্টগ্রামে। আগামীকাল (২৮ জানুয়ারি) থেকে শুরু হচ্ছে বিপিএলের চট্টগ্রাম পর্ব। বিপিএলের  প্রথম চারদিনে কেমন ছিল স্থানীয় ক্রিকেটারদের পারফরম্যান্স চলুন দেখে নেয়া যাক: 

ঢাকায় চার দিনে ৮ ম্যাচ শেষ হয়েছে। শুরুতে স্থানীয় ক্রিকেটারদের রাজত্বই বেশি। সেটা বল হাতে হোক কিংবা ব্যাট হাতে। সর্বোচ্চ রান কিংবা সবচেয়ে বেশি উইকেট; সব দেশি ক্রিকেটারদের পকেটে। তবে এটাও ঠিক এবারের অষ্টম আসরে বিদেশি তারকা ক্রিকেটারের সংখ্যা হাতে গোণা। 

৮ ম্যাচ শেষে রান-উইকেটের কাটাছেড়া করতে গিয়ে উঠে এসেছে দেশি ক্রিকেটারদের উজ্জ্বল পারফর্ম্যান্স। ব্যাট হাতে দেশি ব্যাটসম্যানরা যদিও পিওর টি-টোয়েন্টি ব্যাটিং করতে পারছেন না। কিন্তু বল হাতে দেশিদের দাপট চোখে পড়ার মতো। 

ব্যাট হাতে চার ম্যাচ শেষে ১২৪ রান নিয়ে শীর্ষে আছেন মিনিস্টার ঢাকার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। অন্যদিকে বল হাতে ২ ম্যাচে সাত উইকেট নিয়ে শীর্ষে আছেন নাজমুল ইসলাম অপু। এখন পর্যন্ত সেরা পাঁচ ব্যাটসম্যানদের মধ্যে দেশি আছেন তিনজন, আর বোলিংয়ে পাঁচজনের চারজনই বাংলাদেশি। 



সেরা পাঁচ ব্যাটসম্যান:

১। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (মিনিস্টার ঢাকা)- ৪ ম্যাচে ১২৪ রান। সর্বোচ্চ ৪৭। কোনো ফিফটি-সেঞ্চুরি নেই। স্ট্রাইক রেট ১২৬.৫৩।

২। বিনি হাওয়েল (চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স)- ৩ ম্যাচে ১১২। সর্বোচ্চ ৪১।  সর্বোচ্চ ৪৭। কোনো ফিফটি-সেঞ্চুরি নেই। স্ট্রাইক রেট ১৮৯.৮৩।

৩। তামিম ইকবাল (মিনিস্টার ঢাকা)- ৪ ম্যাচে ১০৫ রান। সর্বোচ্চ ৫২। দুটি ফিফটি, সেঞ্চুরি নেই। স্ট্রাইক রেট ১১১.৭০।

৪। উইল জ্যাকস (চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স)- ৩ ম্যাচে ৭৪ রান। সর্বোচ্চ ৪১। কোনো ফিফটি-সেঞ্চুরি নেই। স্ট্রাইক রেট ১৪৫.০৯।

৫। শুভাগত হোম (মিনিস্টার ঢাকা)- ৪ ম্যাচে ৭২ রান। সর্বোচ্চ ২৯। কোনো ফিফটি-সেঞ্চুরি নেই। স্ট্রাইক রেট ১২২.০৩।  

সেরা পাঁচ বোলার: 

১। নাজমুল ইসলাম অপু (সিলেট সানরাইজার্স)- ২ ম্যচে ৭ উইকেট। সর্বোচ্চ ১৮ রান দিয়ে ৪ উইকেট। ইকোনমি ৪.৩৭। 

২। মেহেদি হাসান মিরাজ (চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স)- ৩ ম্যচে ৬ উইকেট। সর্বোচ্চ ১৬ রান দিয়ে ৪ উইকেট। ইকোনমি ৭.৪১।

৩। শরিফুল ইসলাম (চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স)- ৩ ম্যচে ৬ উইকেট। সর্বোচ্চ ৩৪ রান দিয়ে ৪ উইকেট। ইকোনমি ৮.৩৬।

৪। নাহিদুল ইসলাম (কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স)- ২ ম্যচে ৫ উইকেট। সর্বোচ্চ ৫ রান দিয়ে ৩ উইকেট। ইকোনমি ৩.১২।

৫। আলজারি জোসেফ (ফরচুন বরিশাল)- ২ ম্যচে ৫ উইকেট। সর্বোচ্চ ৩২ রান দিয়ে ৩ উইকেট। ইকোনমি ৯.৪২।

বিপিএল  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ব্রাজিলে মাঠে ঢুকে খেলোয়াড়কে ছুরিকাঘাতের চেষ্টা (দেখুন ভিডিও)

প্রকাশ: ১১:৩৮ এএম, ২৭ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

ব্রাজিলের অনূর্ধ্ব-২০ ফুটবল প্রতিযোগিতার সেমিফাইনাল ম্যাচে মাঠে ঢুকে খেলোয়াড়কে ছুরিকাঘাতের টেষ্টা করেছে এক দর্শক। অনাকাঙ্ক্ষিত এ ঘটনাটি ঘটে সাও পাওলো-পালমেইরাস ম্যাচে। ম্যাচের তখন ৫০ মিনিট চলছিল। ডি-বক্সের ভেতরে ফাউল নিয়ে দুই দলের খেলোয়াড়রা তর্কে জড়িয়ে যান। 

এমন সময় ছুরি নিয়ে মাঠে ঢুকে পড়েন সাও পাওলোর এক উত্তেজিত সমর্থক। তিনি পালমেইরাস ফুটবলারদের ওপর চড়াও হতে ছুরি নিয়ে মাঠে ঢুকে পড়েন। 

উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচটি অবশ্য ২-০ গোলে জিতেছে পালমেইরাস। তবে ফল ছাপিয়ে আলোচনার কেন্দ্রে এখন ওই দর্শকের কাণ্ড। 

গ্যালারি থেকে আচমকা মাঠে ঢুকে ছুরি আতঙ্ক ছড়ানো, পালমেইরাস ফুটবলারের ওপর চড়াও হওয়ার জেরে বেশ কিছুক্ষণ ম্যাচ বন্ধ রাখেন রেফারি। 

সাও পাওলোর ফুটবলার ও ম্যাচ অফিসিয়ালরা দ্রুতই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনলে দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পান পালমেইরাস ফুটবলাররা। 




মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

নেইমারবিহীন ব্রাজিল মাঠে নামছে আজ

প্রকাশ: ১১:১২ এএম, ২৭ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

লাতিন অঞ্চলের বাছাই পর্বের ম্যাচে রাতে মাঠে নামছে ব্রাজিল। দলটির তারকা ফুটবলার নেইমারকে ছাড়াই অপরাজিত থাকার লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামবে পাঁচবারের বিশ্বকাপজয়ীরা। উল্লেখ্য যে, ব্রাজিল বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে ২০১৫ সালের পর অপরাজিত টানা ৩০ ম্যাচ। 

ইকুয়েডরের বিপক্ষে আজকের ম্যাচটা সহজ হবে না ব্রাজিলের জন্য। কারণ, সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে দুই হাজার ৭০০ মিটার উঁচু রদ্রিগো পাজ দেলগাদো স্টেডিয়ামে  খেলতে হবে ব্রাজিলিয়ানদের। 

বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টায় শুরু হবে ব্রাজিল-ইকুয়েডর ম্যাচটি।  পরিসংখ্যান অবশ্য ব্রাজিলের পক্ষেই।  ইকুয়েডরের বিপক্ষে টানা ১২ ম্যাচে হারেনি পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে দুর্দান্ত খেলা ভিনিসিয়ুস জুনিয়র খেলবেন এই ম্যাচে। ব্রাজিলের জার্সিতে ৯ ম্যাচে গোল পাননি তিনি। এই ম্যাচে ভিনিসিয়ুস গোলের দেখা পান কিনা সেটা দেখার বিষয়।

ব্রাজিল   ইকুয়েডর  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

গাড়ির জঞ্জালমুক্ত হচ্ছে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম

প্রকাশ: ১০:৫৯ এএম, ২৭ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম দেশের প্রধান ক্রীড়া ভেন্যু। দীর্ঘদিন ধরে এই স্টেডিয়াম চালু  থাকলেও এখনও পুরোপুরি ভাবে ক্রীড়াবান্ধব করে গড়ে তোলা যায়নি এই স্টেডিয়ামকে। বিশেষ করে স্টেডিয়ামের বাইরে গাড়ির জঞ্জাল দেখে বুঝা মুশকিল যে এখানে একটি স্টেডিয়াম আছে। দীর্ঘদিন পর হলেও সেই জঞ্জাল থেকে মুক্তি পেতে যাচ্ছে এই স্টেডিয়াম। 

পল্টন ও হকি স্টেডিয়ামের মাঝে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা করা হলেও সেখানে পরে তৈরি হয় শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্স। ফলে যে যেভাবে খুশি সেভাবেই বাইরে গাড়ি পার্কিং করতো। নতুন করে ৮৫টি গাড়ি রাখা যায় এমন একটি আন্ডারগ্রাউন্ড পার্কিং তৈরি হচ্ছে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম চত্বরে।

বাংলাদেশ রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের উদ্যোগে আন্ডারগ্রাউন্ড পার্কিংটা হবে শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্সের নিচে।
 
গত বছরের আগস্টে বাংলাদেশ রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আহমেদ আসিফুল হাসান সেখানে আন্ডারগ্রাউন্ড পার্কিং, ডরমিটরি এবং কমপ্লেক্সে আরও কিছু কাজ করতে চিঠি দিয়েছিলেন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের চেয়ারম্যান এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপিকে। সেই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে ২ জানুয়ারি আন্ডারগ্রাউন্ড পার্কিং তৈরির নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়।

প্রায় ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে আন্ডারগ্রাউন্ড পার্কিং তৈরি ছাড়াও রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্সে তৈরি করা হবে একটি ডরমিটরি। যেখানে অন্তত ২০০ শিশু-কিশোরকে রেখে স্কেটিং শেখানোর পাশাপাশি তাদের লেখাপড়া করাবে ফেডারেশন।

নতুন এই সংস্কারকাজের মধ্যে সেখানে একটি শেখ রাসেল জাদুঘর নির্মাণের পরিকল্পনাও আছে। শেখ রাসেলের স্মৃতিময় জিনিসপত্র সংরক্ষণ করা হবে ওই জাদুঘরে। কমপ্লেক্সের সামনে সৌন্দর্যবর্ধনের কাজও আছে নতুন এ সংস্কার পরিকল্পনায়।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

পাওয়েলের শতকে ইংল্যান্ডকে হারালো উইন্ডিজ

প্রকাশ: ১০:১৬ এএম, ২৭ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে ইংল্যান্ডকে ২০ রানের ব্যবধানে পরাজিত করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। রোভম্যান পাওয়েলের শতকের সুবাদে ২২৪ রানের বিশাল সংগ্রহ পায় ক্যারিবিয়ানরা। জবাবে ব্যান্টন-সল্টের অর্ধশতকের পরও ইংল্যান্ড থামে ২০৪ রানে।

বার্বাডোসে টস জিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে আগে ব্যাটিং করার জন্য আমন্ত্রণ জানায় ইংল্যান্ড। ইয়ন মরগানের অনুপস্থিতিতে ইংল্যান্ডকে এই ম্যাচে নেতৃত্ব মঈন আলি। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই ব্রেন্ডন কিংকে বোল্ড করেন জর্জ গার্টন। ১০ বলে ১০ রান করেন কিং। আরেক ওপেনার শাই হোপ শিকার হন লিয়াম লিভিংস্টোনের। দলীয় ৪৮ রানের মাথায় বিদায় নেন হোপ, তবে তখন তার ব্যক্তিগত সংগ্রহ ছিল কেবল ৬ বলে ৪ রান।

তৃতীয় উইকেট রীতিমতো টর্নেডো বইয়ে পাওয়েল ও নিকোলাস পুরান গড়েন ৬৬ বলে ১২২ রানের বড় জুটি। ৪৩ বলে ৭০ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে আদিল রশিদের শিকার হন পুরান। এই বাঁহাতি ব্যাটারের ইনিংসে ছিল চারটি চার ও পাঁচটি বাউন্ডারি। স্ট্রাইকরেট ১৬২.৭৯। চতুর্থ উইকেটে রোমারিও শেফার্ডকে নিয়ে ৪০ রানের জুটি গড়েন পাওয়েল, যেখানে শেফার্ডের অবদান ছিল ৪ বলে ১০ রান।

৫১ বলে তিন অঙ্ক স্পর্শ করেন পাওয়েল। এটি তার আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের প্রথম শতক। ক্রিস গেইল ও এভিন লুইসের পর তৃতীয় ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটার হিসেবে এই শতক হাঁকালেন পাওয়েল। ৫৩ বলে ১০৭ রানের এক বিধ্বংসী ইনিংস খেলেন তিনি। তার ব্যাট থেকে চার আসে মাত্র চারটি, তবে পাওয়েল ছক্কা হাঁকান ১০টি। তার স্ট্রাইকরেট ছিল ২০১.৮৯।

শেফার্ড ৫ বলে ১১ রান ও কাইরন পোলার্ড ৪ বলে ৯ রানে অপরাজিত থাকেন। নির্ধারিত ২০ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সংগ্রহ করে ৫ উইকেটে ২২৪ রান। রান বন্যার দিনেও আদিল রশিদ ৪ ওভারে একটি উইকেট নিয়ে খরচ করেন মাত্র ২৫ রান।

বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ইংল্যান্ডও ঝড়ো শুরু পায়। তবে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে সফরকারীরা। ১৬ বলে ১৯ রান করে বিদায় নেন জেসন রয়। ৯ বলে ১৬ রান করে সাজঘরের পথ ধরেন জেমস ভিঞ্চ। অধিনায়ক মঈন রানের খাতা খোলার আগেই প্রতিপক্ষ অধিনায়ক পোলার্ডের শিকার হন। লিয়াম লিভিংস্টোন ফেরেন ৯ বলে ১১ রান করে।

সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মিছিল দেখতে দেখতে ওপেনার টম ব্যান্টনও আউট হয়ে যান। ইংলিশদের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৩ রান করেন ব্যান্টন। তার ৩৯ বলের ইনিংসে ছিল ৩টি চার ও ৬টি ছক্কা। আরেক তরুণ ব্যাটার সল্ট ফিলিপও অর্ধশতক হাঁকান। মাত্র ২৪ বলে ৫৭ রান করেন সল্ট। তার ঝড়ো ইনিংসে ছিল ৩টি চার ও ৫টি ছক্কা।

আর কোনো ইংলিশ ক্রিকেটার প্রতিরোধ গড়তে ব্যর্থ হলে ইংলিশরা থামে ২০৪ রানে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে শেফার্ড তিনটি ও পোলার্ড দুইটি উইকেট শিকার করেন।

২০ রানের জয়ে ২-১ ব্যবধানে সিরিজে এগিয়ে গেল স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ম্যাচসেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছেন শতক হাঁকানো পাওয়েল।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ   ইংল্যান্ড  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন