ইনসাইড গ্রাউন্ড

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আয়ারল্যান্ডের বড় জয়

প্রকাশ: ১০:৪৯ এএম, ১৪ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বড় জয় পেলো আয়ারল্যান্ড। ক্যারিবিয়দের পাঁচ উইকেটে হারিয়েছে আইরিশরা। সফরকারী আয়ারল্যান্ডের পক্ষে অলরাউন্ড পারফর্ম করেছেন অ্যান্ডি ম্যাকব্রাইন। এটি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আইরিশদের মাত্র দ্বিতীয় ওয়ানডে জয়।

সাবিনা পার্কে টস জিতে আগে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নেয় আয়ারল্যান্ড। প্রথম সাফল্য পেতে দশম ওভার পর্যন্ত অপেক্ষা করা লাগে আইরিশদের। ১০ম, ১২তম ও ১৪তম- টানা তিন ওভারে তিনটি উইকেট শিকার করেন ক্রেইগ ইয়ং। সাজঘরে ফেরেন শাই হোপ, জাস্টিন গ্রেভস ও নিকোলাস পুরান। ৪৩ রানে ৩ উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

 
এরপর জোড়া আঘাত হানেন ম্যাকব্রাইন। টানা দুই ওভারে তিনি শিকার করেন কাইরন পোলার্ড ও রস্টন চেইজকে। জেসন হোল্ডারও হন। শামারহ ব্রুকস করেন ৪৩ রান। ১১১ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে ফেলে ক্যারিবিয়ানরা। অষ্টম উইকেটে রোমারিও শেফার্ডের সাথে ৩২ রানের জুটি গড়ে অকিল হোসেন বিদায় নিলে ১৪৩ রানে ৮ উইকেট হারায় সফরকারীরা।

নবম উইকেটে ৫৮ রানের জুটি গড়েন শেফার্ড ও ওডেন স্মিথ। ১৯ বলে ৪৬ রানের টর্নেডো ইনিংস আসে স্মিথের ব্যাট থেকে। তার এই বিধ্বংসী ইনিংসে ছিল দুইটি চার ও পাঁচটি ছক্কা। স্মিথের ঝড় থামান জশুয়া লিটল।

৪১ বলে ৫০ রান করা শেফার্ডকে বোল্ড করে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে অল-আউট করেন ম্যাকব্রাইন। আইরিশদের পক্ষে ম্যাকব্রাইন চারটি, ইয়ং তিনটি, লিটল দুইটি এবং জর্জ ডকরেল একটি উইকেট নেন। ওয়েস্ট করে ২২৯ রান।

জবাবে দিতে নেমে বৃষ্টির বাঁধার মুখে পড়ে আয়ারল্যান্ড। অনেকক্ষণ খেলা বন্ধ থাকার পর বৃষ্টি আইনে আয়ারল্যান্ডের লক্ষ্য দাঁড়ায় ৩৮ ওভারে ১৬৮ রান। ৩৩ বল হাতে রেখেই সে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় আইরিশরা।

১০ ওভারের ভেতরেই দুইটি উইকেট হারিয়ে ফেলে আয়ারল্যান্ড। তবে তাদের রান তোলার চাকা ছিল বরাবরই সচল। দুই ওপেনার উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড ২৯ বলে ২৬ রান ও পল স্টার্লিং ১৫ বলে ২১ রান করেন। বলের পর ব্যাট হাতেও দলের জয়ে অবদান রাখেন ম্যাকব্রাইন। ৪৫ বলে করেন ৩৫ রান।

অর্ধশতক হাঁকিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন হ্যারি টেক্টর। ৭৫ বলে অপরাজিত ৫৪ রান করেন তিনি। ৫ উইকেটের জয় পায় আয়ারল্যান্ড।৷ এই জয়ে সিরিজে এলো ১-১ সমতা। ২০১৫ সালের পর প্রথমবারের মতো ওয়ানডে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয় পেল আইরিশরা।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ   আয়ারল্যান্ড  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

চিলিতে আর্জেন্টিনার ফুটবলারদের বাথরুমে যেতে দেওয়া হয়নি!

প্রকাশ: ১১:৫১ এএম, ২৮ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচে শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) স্বাগতিক চিলির বিপক্ষে ২-১ গোলের জয় পেয়েছে আর্জেন্টিনা। যদিও এ ম্যাচে ছিলেন না লিওনেল মেসি। এমনকি ডাগআউটে ছিলেন না কোচ লিওনেল স্ক্যালোনিও। তবুও আন্তর্জাতিক ফুটবলে টানা ২৮ ম্যাচ ধরে অপরাজিত থাকার তকমা ধরে রেখেছে কোপাজয়ীরা।

তবে ম্যাচ জেতার পর গুরুতর এক অভিযোগ করেছেন আর্জেন্টাইন ফুটবলার ডি পল। তিনি বলেন, বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচ খেলতে চিলিতে আসার পর থেকেই তারা আমাদের সঙ্গে খুব বাজে ব্যবহার করেছে।

তিনি জানান, প্লেন থেকে নামার পর আমাদের বাথরুমে পর্যন্ত যেতে দেওয়া হয়নি। এ ছাড়া আমাদের এয়ার কন্ডিশনারের লাইন কেটে দিয়েছে। পানি বন্ধ করে দিয়েছে। এ ছাড়া সারাক্ষণ সাইরেনের শব্দ শুনিয়ে শুনিয়ে বিরক্ত করেছে।

মেসির এ সতীর্থ আরও বলেন, আমি বলছি না এটা ঠিক নাকি ভুল। কিন্তু একজন আর্জেন্টাইন হিসেবে, আমার দেশে আসা প্রতিটি দলই যথাসম্ভব স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। আমরা শুধু খেলায় নয়, আচার-ব্যবহার দিয়ে তাদের মনও জয় করে নেই।

আর্জেন্টিনা   চিলি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

আইপিএলের সব ম্যাচ এক শহরে, শুরু ২৭ মার্চ

প্রকাশ: ১১:২৭ এএম, ২৮ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

করোনার ঊর্ধ্বমুখীর মধ্যেই আইপিএল আয়োজনের জোড় প্রস্তুতি চালিয়ে যাচ্ছে আয়োজকরা। আগামী ২৭ মার্চ থেকে শুরু হতে পারে এবারের আইপিএল। তবে, এবারের আইপিএলে ভেন্যু কমে যাচ্ছে। 

এবারের আইপিএল সম্ভবত পুরোটাই হবে মুম্বাই শহরে। আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না আসলেও বৃহস্পতিবার ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সভায় মোটামুটি এমন সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আইপিএলের কেন্দ্র হিসেবে মুম্বাইয়ের কথা ভাবার বড় কারণ, সেখানে কোভিডের সংক্রমণ অনেকটাই কমে গেছে। তাছাড়া মুম্বাইয়ে খেলা হলে একসঙ্গে তিনটি স্টেডিয়াম পাওয়া যাবে।

ওয়াংখেড়ে, ব্র্যাবোর্ন এবং ডিওয়াই পাতিল স্টেডিয়ামে ম্যাচগুলো আয়োজনের পরিকল্পনা করা হচ্ছে। তেমন হলে দলগুলোকে আর বিমানে যাতায়াত করতে হবে না। প্রয়োজন পড়লে কিছু ম্যাচ পুনেতেও নেওয়া হতে পারে।

আইপিএল  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

অতিরিক্ত খেলোয়াড় না থাকায় উইকেটকিপিং করলেন কোচ!

প্রকাশ: ১১:০৯ এএম, ২৮ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

করোনার কারণে দলের এমনই বিপদ যে, উইকেটের পেছনে দাঁড়ানোর মতো কেউ নেই। কিন্তু দলের মুখরক্ষা করতে গিয়ে সহকারী কোচকে প্যাড-গ্লাভস করে উইকেটরক্ষা করতে নেমে পড়তে হলো। খেলোয়াড় হিসেবে দলে ছিলেন না। ফলে খেলার কোনো কথাও ছিল না। নিয়মিত উইকেটকিপার কোভিডে আক্রান্ত হওয়ায় এই কাণ্ড!

ঘটনাটি ঘটেছে অস্ট্রেলিয়ার টি-টোয়েন্টি লিগ বিগ ব্যাশে (বিবিএল)। বিবিএলে সেমিফাইনাল খেলা ছিল সিডনি সিক্সার্স ও অ্যাডিলেড স্ট্রাইকার্সের মধ্যে। কিন্তু ম্যাচের আগে সিডনির উইকেটকিপার জস ফিলিপের কোভিড পরীক্ষার ফল পজিটিভ আসে। বদলি উইকেটকিপার হিসেবে কাউকে না পাওয়ায় সিডনি বাধ্য হয় তাদের সহকারী কোচ জে লেন্টনকে উইকেটকিপার হিসেবে নামাতে।

নিয়মিত উইকেটকিপারকে না পেয়েও সিডনির অবশ্য জিততে কোনও অসুবিধে হয়নি। তারা ৪ উইকেটে হারায় অ্যাডিলেডকে। 

বিগ ব্যাশ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ধোনির ফোন নম্বার জানেন না রবি শাস্ত্রী!

প্রকাশ: ১০:৫৪ এএম, ২৮ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

খুব কম মানুষের কাছে মহেন্দ্র সিং ধোনির ফোন নম্বর রয়েছে। ২০১৪ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত এক সাজঘরে সময় কাটিয়েও রবি শাস্ত্রীর কাছে বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়কের নম্বর নেই। ধোনি এমনই মানুষ। তাঁর নাগাল পেতে সাংবাদিকরা যেমন হিমশিম খান, শাস্ত্রীরও নাকি তেমন অবস্থাই হয়।

২০১৯ সালে অবসর নেওয়ার পর ধোনি কোথায় রয়েছেন তা নিয়ে প্রশ্ন ছিল। কিন্তু তাঁর খোঁজ প্রায় কারও কাছেই ছিল না। বেশ কিছু দিন পর তিনি নিজেই জানান খামারবাড়িতে রয়েছেন তিনি। ধোনি না চাইলে তাঁর খোঁজ পাওয়া সত্যিই বেশ মুশকিল। শোয়েব আখতারকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে শাস্ত্রী বলেন, “ফোন যাতে হাতে না নিতে হয়, তার জন্য যা যা করা যায়, সব করবে ধোনি। সত্যি বলতে আমার কাছে ওর নম্বর নেই। ওর কাছে ফোন খুব কম থাকে। ধোনি এমনই মানুষ।”

ভারতীয় ক্রিকেটে ধোনিকে ‘ক্যাপ্টেন কুল’ বলে ডাকা হয়। মাঠের মধ্যে কখনও রাগতে দেখা যায়নি ধোনিকে। শাস্ত্রী বলেন, “আমি অনেক ক্রিকেটার দেখেছি। শচীন টেন্ডুলকারকে দেখেছি। কিন্তু ধোনির মতো কাউকে দেখিনি। শূন্য করুক বা ১০০, বিশ্বকাপ জিতুক বা প্রথম পর্বে হেরে যাক, ধোনির কাছে কোনওটাই যেন কোনও ব্যাপার নয়। অনেক সময় শচীনকেও রাগতে দেখেছি, কিন্তু ধোনিকে কখনও না।”

মহেন্দ্র সিং ধোনি   রবি শাস্ত্রী  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

চমক দেখিয়ে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে আফগানিস্তান

প্রকাশ: ১০:২৩ এএম, ২৮ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

চমক দেখিয়ে যুব বিশ্বকাপের সুপার লিগ সেমিফাইনালে নাম লেখালো আফগানিস্তান অনূর্ধ্ব-১৯ দল। বৃহস্পতিবার রাতে এন্টিগায় শ্বাসরুদ্ধকর এক লড়াইয়ে শ্রীলঙ্কা অনূর্ধ্ব-১৯ দলকে ৪ রানে হারিয়ে দিয়েছে তারা।

দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনালে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে আফগানিস্তানের ইনিংস গুটিয়ে যায় মাত্র ১৩৪ রানে। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৭ রান করেন আব্দুল হাদি, ৯৭ বলের মোকাবেলায়। এছাড়া নূর আহমেদ ৩০ ও আল্লাহ নূর ২৫ রান করেন।

শ্রীলঙ্কার পক্ষে ভিনুজা রানপল একাই শিকার করেন পাঁচটি উইকেট। এছাড়া তিনটি উইকেট শিকার করেন ওয়েল্লালাগে।

জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ২ রানে প্রথম উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কা পড়ে আরও ভয়ানক ব্যাটিং বিপর্যয়ে। ৪৩ রানের মধ্যেই ৭ উইকেট হারিয়ে ফেলে দলটি। এরপর হাল ধরেন অধিনায়ক দুনিথ ও রবিন ডি সিলভা।

অষ্টম উইকেটে দুজনে গড়েন ৬৯ রানের পার্টনারশিপ। ৬১ বলে ৩৪ রান করে বিদায় নেন দুনিথ। ৮৪ বলে ২১ রান করা রবিনও সাজঘরে ফেরেন।

এরপর ভিনুজাকে নিয়ে ত্রিভান ম্যাথু আপ্রাণ চেষ্টা করেছেন। তবে ভুল বোঝাবুঝিতে ম্যাথু রানআউট হলে ৪ ওভার বাকি থাকতেই ১৩০ রানে থামে লঙ্কানদের ইনিংস। ১৪ বলে ১১ রানে অপরাজিত থাকেন ভিনুজা।

আফগানদের পক্ষে জোড়া উইকেট শিকার করেন বিলাল সামি।

যুব বিশ্বকাপ   অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন