ইনসাইড গ্রাউন্ড

নয় নম্বর জার্সি পুনরুজ্জীবিত করলো রিচার্লিসন

প্রকাশ: ০১:৩৮ পিএম, ২৫ নভেম্বর, ২০২২


Thumbnail

গতকাল সার্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের ৭৩ মিনিটে করা রিচার্লিসনের গোলটি যেনো ফুটবলের অতীত বর্তমান সামনে নিয়ে আসলেন পিরমিনোর পরিবর্তে দলে জায়গা পেয়ে নয় নম্বর জার্সি গায়ে দেওয়ার সুযোগ পান রিচার্লিসন। গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচে মাঠে নেমেই এমন চমকপ্রদ গোল। ফুটবল প্রেমিদের করলো মুগ্ধ। রিচার্লিসনের গোলের মুগ্ধতা ছড়িয়ে গেলো সারা বিশ্বে। মনে করিয়ে দিলেন নম্বর নয়ের অতীত ইতিহাস। ব্রাজিলের সংবাদ মাধ্যমে বলা হয়েছে নয় নম্বর জার্সি পুনরুজ্জীবত করলেন রিচার্লিসন। পাশের দেশ আর্জেন্টিনার সংবাদমাধ্যমওলেলিখছেন গোলের ছবি প্রকাশ করেঅন্য মাত্রার বিশ্বকে তোলপাড় করা গোলটির রয়েছে অনবদ্য এক ইতিহাস। ২০০২ বিশ্বকাপ থেকে পরপর চারটি বিশ্বকাপে  নম্বর জার্সি গায়ে কোন খোলায়ড়ি বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে করতে পারেনি গোল। সে খরা কাটিয়ে দিলেন রিচার্লিসন।

স্পেনের সংবাদমাধ্যমমার্কামনে করছে, রিচার্লিসন এই গোলে ব্রাজিলকে জাগিয়ে তুলেছেন। এমনকি ইতালিও কাঁপছে। দেশটির সংবাদমাধ্যম গাজেত্তা দেয়ো স্পোর্তলিখেছে, কাতার বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই এত ভয়ংকর।

সার্বিয়ার বিপক্ষে কাল ব্রাজিলের - গোলের জয়ে দ্বিতীয়ার্ধে তিতের দল যে খেলা দেখিয়েছে, তা প্রতিপক্ষ দলগুলোর জন্য সত্যিই ভয়ংকর। ৭৩ মিনিটে ভিনিসিয়ুসের পাসটি প্রথম টাচে শূন্যে তুলে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে চোখ ধাঁধানো বাইসাইকেল কিকে গোল করেন ব্রাজিলের এই নম্বর নাইন। রবার্তো ফিরমিনো বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকে বাদ পড়ার পর অনেকেই তিতের সমালোচনা করেছিলেন। ব্রাজিলের হয়ে গোল করবেন কেএই প্রশ্ন উঠেছিল। রিচার্লিসন নম্বর জার্সির আবেদন কতটা পূরণ করতে পারবেন, উঠেছিল সে প্রশ্নও। তিতে রিচার্লিসনের ওপর আস্থা রেখেছিলেন। বিশ্বকাপ খেলতে কাতারে আসার আগে তুরিনে অনুশীলন ক্যাম্প করেছে ব্রাজিল। সেখানে ভলি থেকে গোল করা অনুশীলন করেছেন রিচার্লিসন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাঁর এই অনুশীলনের ভিডিও ব্রাজিলের ভক্তরা ফলাও করে প্রকাশ করেছেন কাল রাতে বাইসাইকেল কিক ভলিতে তাঁর চোখ ধাঁধানো গোলটির পর। 

টটেনহামের হয়ে এই মৌসুমে ১৫ ম্যাচে মাত্র গোল করলেও ব্রাজিলের হয়ে ৩৯ ম্যাচে রিচার্লিসনের ১৫ গোলে মজেছিলেন তিতে। ব্রাজিল কোচ যে ভুল করেননি তা তো এখন পরিষ্কার। ক্লাবের হয়ে যাই হোক, দেশের নম্বর জার্সিটা পরলের রিচার্লিসন যে অন্য মানুষ বনে যান, সেটা টের পেয়েছিলেন তিতে।

১৯৮২ বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ডান প্রান্ত থেকে উড়ে আসা ক্রসে বাইসাইকেল কিক করে গোল করেছিলেনসাদা পেলেজিকো। ২০০২ বিশ্বকাপে সেই স্মৃতি ফেরান এডমিলসন।

ব্রাজিলের সংবাদমাধ্যমে কেন বলাবলি হচ্ছে, রিচার্লিসন নম্বর জার্সিটা পুনরুজ্জীবিত করেছেন। সেখানেও জড়িয়ে আছে ২০ বছরের হিসেব। ২০০২ জাপান-কোরিয়া বিশ্বকাপের পর থেকে গত চারটি বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে নম্বর জার্সি পরা কোনো খেলোয়াড়ের কাছ থেকে গোল পায়নি ব্রাজিল। রিচার্লিসন দুই দশকের সেই খরার ইতিটা কালই টেনেছেন।

২০০২ বিশ্বকাপে তুরস্কের বিপক্ষে ব্রাজিলের প্রথম ম্যাচে গোল করেছিলেন নম্বর জার্সিকে কিংবদন্তিতে পরিণত করা রোনালদো। তাঁর আগে বিশ্বকাপের যেসব আসরে ব্রাজিলের প্রথম ম্যাচে নম্বর জার্সির খেলোয়াড়েরা গোল করেছেনবালতাজার (১৯৫০ ১৯৫৪), রেইনালদো (১৯৭৮) ক্যারেকা(১৯৯০) এর মধ্যে ৯০ ইতালি বিশ্বকাপে সুইডেনের বিপক্ষে ব্রাজিলের প্রথম ম্যাচে জোড়া গোল করেন ক্যারেকা। রিচার্লিসন সেই স্মৃতিই ফেরালেন। এই জোড়া গোলে দারুণ একটি ক্লাবেও নাম লিখিয়েছেন টটেনহাম তারকা।

বিশ্বকাপে ব্রাজিলের প্রথম ম্যাচে জোড়া গোল করা খেলোয়াড়েরা হলেনলিওনিদাস (১৯৩৮), আদেমির (১৯৫০), পিঙ্গা (১৯৫৪), মাজ্জোলা (১৯৫৮) জর্জিনিও (১৯৭০), কারেকা (১৯৯০) এবং নেইমার (২০১৪) সর্বশেষ নামটি বাদ পড়েছেরিচার্লিসন (২০২২)

মজার বিষয়, এই তালিকায় প্রথম যে খেলোয়াড়টি (লিওনিদাস), ব্রাজিলে তাঁকেবাইসাইকেল কিকএর জনক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। যদিও এই কিকের আবিষ্কার আরও আগে, কিন্তু ব্রাজিলে লিওনিদাসকে এই শটের পারফেকশনিস্ট হিসেবে ধরা হয়। আর পেলের দাবি ব্রাজিলে লিওনিদাসই প্রথম বাইসাইকেল কিক মারেন। ইতিহাস বলে, ব্রাজিলে ১৯৩২ সালের ২৪ এপ্রিল ক্যারেওকা-বোনসুকেসো ম্যাচে প্রথম এই শট নিয়েছিলেন লিওনিদাস।

ব্ল্যাক ডায়মন্ডও রাবার ম্যা নামে পরিচিত লিওনিদাস ১৯৩৮ বিশ্বকাপে সাবেক চেকোশ্লোভাকিয়ার বিপক্ষে বাইসাইকেল কিক নেওয়ার পর চমকে গিয়েছিলেন রেফারিও। শটটি নিয়মের মধ্যে পড়ে কি না, রেফারি তা নিয়ে সন্দেহে ছিলেন! কালের পরিক্রমায় সেই সন্দেহ ঘুচে গেলেও মানুষ এখনো চমকায়। এমন গোল কি করা যায়। রিচার্লিসনের বাইসাইকেল গোলটি তাকে নিয়ে গেলো ব্রাজিল কিংবদন্তীদের কাতারে।


কাতার বিশ্বকাপ   রিচার্লিসন   ব্রাজিল   বাইসাইকেল শট  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ফিফার প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করায় নিষিদ্ধ উরুগুয়ের চার ফুটবলার

প্রকাশ: ০৩:৪১ পিএম, ২৯ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

কাতার বিশ্বকাপে রেফারির প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করায় শাস্তি পেয়েছে উরুগুয়ের চার ফুটবলার। ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফার দেওয়া শাস্তি ভোগ করবেন উরুগুয়ের গোলরক্ষক ফের্নান্দো মুসলেরা ডিফেন্ডার হোসে মারিয়া। এই দুজন ছাড়াও ডিফেন্ডার দিয়েগো গদিন আক্রমণভাগের খেলোয়াড় এডিসন কাভানিও পেয়েছেন শাস্তি।

ফিফার দেওয়া শাস্তি অনুযায়ী চার ম্যাচের জন্য আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে নিষিদ্ধ হয়েছেন ফের্নান্দো মুসলেরা হোসে মারিয়া। তবে শাস্তি কিছুটা কম পেয়েছেন কাভানি গদিন। তারা নিষিদ্ধ হয়েছেন একটি ম্যাচের জন্য। বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্তা সংস্থা ফিফা শুক্রবার বিবৃতি দিয়ে এসব শাস্তির কথা জানায়।

শুধু ম্যাচ নিষিদ্ধ করেই বসে থাকেননি ফিফা চার ফুটবলারকে ফুটবল সম্পর্কিত সেবামূলক কাজে অংশ নিতেও নির্দেশ দিয়েছে বিশ্ব ফুটবলের এই নিয়ন্ত্রক সংস্থা। একই সঙ্গে ২০ হাজার সুইস ফ্রাঁ জরিমানাও দিতে হবে।

কাতার বিশ্বকাপে বাজে সময় পার করেছিলো উরুগুয়ে বাদ পড়তে হয়েছিলো গ্রুপ পর্ব থেকেই। গেলো বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বের ম্যাচে ঘানার বিপক্ষে ম্যাচে - গোলে এগিয়ে থেকে নক আউট টিকেট প্রায় নিশ্চিত করে রেখেছিলো উরুগুয়ে কিন্তু একই সময়ে তাদের গ্রুপের আরেক খেলায় পর্তুগালকে - গোলে হারায় দক্ষিণ কোরিয়া। তাই পয়েন্ট সমান হলেও উরুগুয়ের চেয়েও গোল সংখ্যায় বেশি থাকায় নক আউটের টিকেট পায় এশিয়ার দেশটি। অথচ ঘানার বিপক্ষে আর একটি গোল করতে পারলেই শেষ ষোলোয় নিশ্চিত হত সুয়ারেজের দেশের।

ঘানার বিপক্ষে ম্যাচের প্রথমার্ধে দারউইন নুনেস এবং ম্যাচের শেষ মুহূর্তে কাভানিকে প্রতিপক্ষের ট্যাকলের জন্য পেনাল্টির আবেদন করেছিল উরুগুয়ের খেলোয়াড়রা। কোনোবারই সাড়া দেননি জার্মান রেফারি ড্যানিয়েল সিবার্ট। ম্যাচ শেষে ফিফা উরুগুয়ের বিপক্ষে বলেও মন্তোব্য করেছিলেন লুইস সুয়ারেজ।


উরুগুয়ে   নিষিদ্ধ   ফুটবল   ফিফা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

২০২৪ সালে কোপা আয়োজন করবে যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশ: ০২:১৬ পিএম, ২৯ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

২০২৬ সালের ফিফা বিশ্বকাপের অন্যতম আয়োজক যুক্তরাষ্ট্র এবার আয়োজন করতে যাচ্ছে ২০২৪ সালের কোপা আমেরিকা কাপও। যেখানে অংশ গ্রহণ করবে ১৬ টি দেশ। দক্ষিণ আমেরিকার ১০ দেশের পাশাপাশি উত্তর আমেরিকা থেকেও থাকবে টি দেশ। আর এতেই দক্ষিণ আমেরিকার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ের সাক্ষী হয়ে থাকবে উত্তর আমেরিকার ফুটবল প্রেমিরা।

২০২৬ সালের বিশ্বকাপ আয়োজক দেশ মেক্সিকো, কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র একই মহাদেশে হওয়ায় আর্জেন্টিনা,ব্রাজিলের জন্য কোপা আমেরিকার ম্যাচগুলো বিশ্বকাপ প্রস্তুতির অংশও হয়ে থাকবে।

সর্বশেষ কোপা আমেরিকা, বিশ্বকাপ দুটিরই মালিক বর্তমান চ্যাম্পিয়ন লিওনেল মেসির দেশ আর্জেন্টিনা। তাই আসন্ন কোপা আমেরিকা কাপেও নিজের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখতে চাইবে আলবিসেলেস্তরা। ২০২৪ সালের কোপা আমেরিকা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো লুইস সুয়ারেজের দেশ উরুগুয়েতে। কিন্তু আয়োজনে অসম্মতি থাকায় নতুন স্বাগতিক দেশ যুক্তরাষ্ট্রের নাম ঘোষণা করে দক্ষিণ আমেরিকান ফুটবল সংস্থা কনমেবল।


কোপা আমেরিকা কাপ   যুক্তরাষ্ট্র   ব্রাজিল   আর্জেন্টিনা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

দেশকে লজ্জা উপহার দিলো জুনিয়র আর্জেন্টাইনরা

প্রকাশ: ০১:১৯ পিএম, ২৯ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

কাতার বিশ্বকাপ জয়ের সবে মাত্র মাস পেরিয়েছে আর্জেন্টাইনদের। বিশ্বকাপ জয়ের আমেজ কাটতে না কাটতে দেশকে লজ্জা উপহার দিলেন জুনিয়র আর্জেন্টাইনরা। অনূর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপের যোগ্যতাই অর্জন করতে পারলো না দেশটির জুনিয়র ফুটবলাররা। গতকাল রাতে কলম্বিয়ার কাছে হেরে যায় লিওনেল মেসির উত্তরসূরিরা। গ্রুপের ৪র্থ স্থানে শেষ করায় আসন্ন  অনূর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি দেশটি।    

বিশ্বকাপ বাচাই পর্বের গ্রুপ’-তে ছিল আর্জেন্টিনা। সেই গ্রুপ থেকে যোগ্যতা অর্জন করেছে তিনটি দল ব্রাজিল, কলম্বিয়া প্যারাগুয়ে। তিন দেশের কাছেই আবার হেরেছে আর্জেন্টিনা। একমাত্র জয় পেয়েছে পেরুর সাথে। তাই এই গ্রুপ থেকে বাদ পড়েছে পেরুও আর্জেন্টিনা। অপর গ্রুপ থেকে যোগ্যতা অর্জন করেছে উরুগুয়ে।

দক্ষিণ আমেরিকা থেকে মোট চারটি দেশ সুযোগ পাবে অনূর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করার। সে হিসেবে ব্রাজিল, কলম্বিয়া, উরুগুয়ে, প্যারাগুয়ে নিশ্চিত করছে বিশ্বকাপ অংশগ্রহণ। অন্যদিকে ২০১৩ সালের পর বিশ্বকাপ খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি আর্জেন্টিনা অনূর্ধ্ব-২০ দল।  

গতকালকে কলম্বিয়ার সাথে অনেকগুলো সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি আর্জেন্টিনা। কলম্বিয়াকে হারাতে পারলেই বিশ্বকাপ টিকেট নিশ্চিত হত আর্জেন্টাইনদের। কলম্বিয়ার জুয়ান ডেভিড ফুয়েন্তেসের কাছে স্বপ্ন ভঙ্গ হয় দক্ষিণ আমেরিকার দেশটির। কারণ কলম্বিয়ার হয়ে একমাত্র জয় সূচক গোলটি করেন জুয়ান।


আর্জেন্টিনা   বিশ্বকাপ   অনূর্ধ্ব-২০  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

তাসকিনকে সবার ফলো করা উচিৎ, বললেন নাসির

প্রকাশ: ১২:৪১ পিএম, ২৯ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

ক্যারিয়ারের শুরু থেকে চোটের সঙ্গে লড়াই করা তাসকিন আহমেদ বর্তমান সময়ে জাতীয় দলের অন্যতম তারকা। তবে তার গল্পটা মোটেও সহজ ছিলো না। জাতীয় দলে নানা সময়ে ছিলেন আসা-যাওয়ার মিছিলে। বাদ পড়তে হয়েছিলো বিশ্বকাপ দল থেকেও। তবে তাসকিন হাল ছাড়েননি, করে গেছেন কঠোর পরিশ্রম। ক্রিকেটে ফিরে পাচ্ছেন একের পর এক সাফল্যেও। জাতীয় দল ঘরোয়া ক্রিকেট কিংবা চলমান বিপিএলে নজর কাড়ছেন আলাদা ভাবে।

চলতি বিপিএল আসরে তাসনিক খেলছেন ঢাকা ডমিনেটর্সের হয়ে। দলটির অধিনায়ক জাতীয় দলের এক সময়ের ফিনিশার তকমা পাওয়া নাসির হোসেন। নাসির বয়সে তাসকিনের চেয়েও বড়। তবে নাসিরের ভরসা এখন তাসকিন আহমেদ। দেশের তারকা এই পেসারের উপর শুধু ভরসা নয় তার থেকে অনুপ্রাণিতও হচ্ছেন নাসির।]

চলতি আসরের ব্যাটে বলে টপ ফর্মারদের একজন নাসির। তার এমন অসাধারণ পারফরম্যান্স নজর কাড়ছে নির্বাচকদেরও। আবারো সুযোগ পেতে পারেন জাতীয় দলে। জাতীয় দলে ফেরা সম্পর্কে গণমাধ্যমকে তাসকিনের উদাহরণ টেনে নাসির বলেন, তাসকিন যেভাবে কামব্যাক করেছে। জাতীয় দল থেকে বের হওয়ার পর যেমন কষ্ট করেছে, আমার মনে হয় সব ক্রিকেটারেরই এই জিনিসটা ফলো করা উচিত।

ঢাকা ডমিনেটর্সের এই অধিনায়ক আরও বলেন, আপনি যদি বাংলাদেশ ক্রিকেট বা নিজে উন্নতি করতে চান, তাহলে এখন যদি দুই ঘণ্টা প্র্যাকটিস করেন, হয়তো সে জায়গায় চার ঘণ্টা অনুশীলন করতে হবে। তাহলে এটা আমার বাংলাদেশ দলের জন্য ভালো হবে। অবশ্যই ওকে ফলো করা উচিত। যে কষ্ট করে পরিশ্রম করে তার ফল পাচ্ছে। জাতীয় দলেও পাচ্ছে, বিপিএলেও আল্লাহর রহমতে ভালো করছে।


তাসকিন আহমেদ   বাংলাদেশ ক্রিকেট   পেস বোলার   নাসির হোসেন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

মাইন্ড গেম বন্ধে নতুন নিয়ম আনা হচ্ছে পেনাল্টিতে

প্রকাশ: ১১:৪৫ এএম, ২৯ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

কাতার বিশ্বকাপের শিরোপা জিতে ৩৬ বছরের আক্ষেপ,অপেক্ষা ঘুছিয়েছে আর্জেন্টাইনরা। শিরোপা জয়ের অন্যতম নায়ক ছিলেন লিওনেল মেসি গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ। টাইব্রেকার নামক পরিক্ষায় উৎরিয়ে ৩য় শিরোপার মালিক হয় আর্জেন্টাইনরা। আর টাইব্রেকারে প্রতিপক্ষের দেওয়াল হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন বাজপাখি খ্যাত মার্টিনেজ। প্রতিপক্ষের ফুটবলারদের পেনাল্টি নেওয়ার সময়ে মাইন্ড গেম খেলতেন মার্টিনেজ। যার জন্য স্পটকিক থেকে আর্জেন্টাইন গোলরক্ষকের সামনে গোল করা কঠিন হয়ে পড়ে প্রতিপক্ষের ফুটবলারদের।

এবার বদলে যাচ্ছে পেনাল্টির এই নিয়ম। স্পটকিক নেওয়ার সময় কোনো গোলরক্ষক যেনমাইন্ডগেম' খেলতে না পারে, সে জন্য নতুন নিয়ম আনছে ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা।

কাতার বিশ্বকাপের ফ্রান্স-আর্জেন্টিনার ফাইনাল গড়ায় পেনাল্টি শুটআউটে। সেখানেই এই মাইন্ডগেম খেলেন মার্টিনেজ। দ্বিতীয় পেনাল্টি নিতে আসেন কোম্যান। তার মনোযোগ নষ্ট করতে রেফারির সঙ্গে কথা বলে যান মার্টিনেজ। বল ঠিক জায়গায় বসানো আছে কিনা, বারবার জানতে চান রেফারির কাছে। মনোযোগ নষ্ট করার তার এই কৌশল বৃথা যায়নি। স্পট কিকে ব্যর্থ হন কোম্যান। একই ভাবে মনযোগ নষ্ট করেন ফরাসি তারকা অরেলিয়ে চৌয়ামেনিরও। এভাবে অনেকগুলো ম্যাচে মাইন্ড গেমের নজির গড়েন মার্টিনেজ।

আন্তর্জাতিক ক্লাব ফুটবলে অনেক গোলরক্ষকদের দেখা যায় এই ধরণের মাইন্ড গেম খেলতে। পেনাল্টির সময়ে প্রায়শ ফুটবলারদের মনযোগ নষ্ট করতে এমটি করে থাকেন তারা। এবার তাদের জন্যই বদলে যাচ্ছে পেনাল্টির নিয়ম। সংবাদ মাধ্যম দ্য সানের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্চে লন্ডনে অনুষ্ঠিত হবে ইন্টারন্যাশনাল ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন বোর্ডের বার্ষিক সাধারণসভা। সেখানেই লিখিতভাবে পরিবর্তন আনা হতে পারে পেনাল্টির নিয়মে। 

দ্যা সানের প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়, সভায় গোলরক্ষকদের অশোভন আচরণ নিয়েও আলোচনা করা হবে। গোলকিপাররা যেনো পেন্টাল্টি নিতে আসা ফুটবলারদের মনযোগ নষ্ট না করে সেটিও নিশ্চিত করা হবে। যদি মনোযোগ নষ্ট করার চেষ্টা করা হয় তাহলে শাস্তি হিসেবে নিষিদ্ধ হতে পারনে ফুটবল থেকেও। সব ঠিক থাকলে নতুন নিয়মটি বাস্তবায়ন হতে পারে পরবর্তী মৌসুম থেকেই।


পেনাল্টি   ফুটবল   গোলরক্ষক  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন