ইনসাইড গ্রাউন্ড

বিশ্বকাপের ‘শেষ ১৬’তে কারা পৌঁছালো, কারা পৌঁছাবে

প্রকাশ: ০১:২৬ পিএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২২


Thumbnail

বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে প্রতিটি দল ইতোমধ্যে দুইটি করে ম্যাচ খেলেছে। এরমধ্যে ফ্রান্স, ব্রাজিল এবং পর্তুগাল শেষ ১৬ নিশ্চিত করেছে। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচের পর নির্ধারিত হবে বাকি ১৩টি দল। দেখে নেই কোন ১৩ দল পৌঁছাতে পারে শেষ ১৬ তে এবং কেমন অবস্থায় আছে হিসেব-নিকেশ কিংবা সমীকরণ।

গ্রুপ এ: ইকুয়েডর - সেনেগাল, নেদারল্যান্ডস - কাতার

নেদারল্যান্ডস এবং ইকুয়েডরের যোগ্যতা অর্জনের জন্য একটি ড্রই যথেষ্ট। রাউন্ড ১৬ তে  থাকতে চাইলে সেনেগালকে অবশ্যই জিততে হবে কারণ তাদের কাছে উপলব্ধ অন্য বিকল্পটি একটু কঠিন। হয়  ইকুয়েডরের বিপক্ষে গোলের সাথে ড্র করতে হবে নতুবা নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে কাতারকে ২-০ বা তার বেশি গোলে জয় পেতে হবে। এদিকে কাতার আগেই বিদায় নিয়েছে।

গ্রুপ বি: ওয়েলস - ইংল্যান্ড, ইরান - মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

ইংল্যান্ড ও ইরান তিন পয়েন্ট পেলে রাউন্ড অফ ১৬-এ উঠবে। ম্যাচটি ড্র হলে তা  ইংলিশদের জন্য ভাল। কিন্তু ইরান  ড্র করলে অন্য ম্যাচে ওয়েলসকে সাউথগেটের কাছে জিততে  হবে। নকআউট পর্বে নিজেদের জায়গা পাকাপোক্ত করতে জয় দরকার যুক্তরাষ্ট্রের। ওয়েলশদের কাছে দুটি বিকল্প রয়েছে- ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৪-০ বা তার বেশি জয় অথবা তাদের প্রতিবেশীদের বিরুদ্ধে ১-০ জয় এবং ইরান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে একটি ড্র।

গ্রুপ সি: সৌদি আরব - মেক্সিকো, পোল্যান্ড - আর্জেন্টিনা

পোল্যান্ড, আর্জেন্টিনা এবং সৌদি জিতলেই নিশ্চিত রাউন্ড ১৬। অবশ্য শেষ ১৬ রাউন্ডে নিশ্চিতে পোল্যান্ডের জন্য একটি ড্রই যথেষ্ট। তবে পোল্যান্ড হেরে গেলে সৌদি আরব ও মেক্সিকোর ম্যাচের ড্র কামনা করতে হবে। সৌদি আরব ও মেক্সিকোর মধ্যে ড্র হলে পরের রাউন্ড নিশ্চিতে আর্জেন্টিনার জন্যও ড্র যথেষ্ট। মেক্সিকোর শেষ ১৬ নিশ্চিতে নিজেদের জয় এবং আর্জেন্টিনার হার প্রয়োজন অথবা যতটা সম্ভব গোল করে এগিয়ে যেতে হবে। সেক্ষেত্রে আর্জেন্টিনা কিংবা পোল্যান্ডের হার কিংবা ড্র প্রয়োজন। অন্যদিকে সৌদিরা ড্র করলে পরের রাউন্ড নিশ্চিত আর্জেন্টিনার হার কামনা করতে হবে।

গ্রুপ ডি: অস্ট্রেলিয়া - ডেনমার্ক, তিউনিসিয়া - ফ্রান্স

ফ্রান্স ড্র করলে বা হারলেও তাদের গ্রুপের শীর্ষে থাকা নিশ্চিত। অস্ট্রেলিয়াও একটি জয় পেলে বা তিউনিসিয়া ফরাসিদের হারাতে ব্যর্থ হলে রাউন্ড -১৬ থাকবে। একটি জয় ডেনমার্ককে পরবর্তী লড়াইয়ের ময়দানে পৌঁছে দেবে। শুধুমাত্র একটি দৃশ্যই তাদের রাউন্ড অফ ১৬ থেকে বাদ দিতে পারে, ডেনসদের চেয়ে এক গোলে তিউনিসিয়ার জয়।

গ্রুপ ই: কোস্টারিকা - জার্মানি, স্পেন - জাপান

স্পেন ড্র করে রাউন্ড অফ ১৬-এ তাদের জায়গা নিশ্চিত করতে পারে। শুধুমাত্র একটি বিপর্যয় তাদের বিপদে ফেলতে পারে: জাপানের বিরুদ্ধে ১-০ হারলে অথবা  জার্মানি কোস্টারিকাকে ৭-০ বা তার বেশি গোলে পরাজিত করলে। জাপান এবং কোস্টারিকা একটি জয়ের সাথে যোগ্যতা অর্জন করবে। জাপানিরা হারলে কোস্টারিকানদের জন্য একটি ড্রই যথেষ্ট হবে। জার্মানি না জিতলে জাপানিরা একটি পয়েন্ট নিশ্চিত করবে। জার্মানি দুই গোলের ব্যবধানে জিতলে নকআউট পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে, যদি জাপানি এবং লুইস এনরিকের দল ড্র করে। তাদের জয় এবং/অথবা স্পেন এবং জাপানের মধ্যে ড্রয়ের উপর নির্ভর করে এক গোলের জয়ও যথেষ্ট হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, যদি জার্মানি ১-০ তে জয়ী হয় এবং স্পেন এবং জাপান গোলশূন্য ড্রতে শেষ হয়, ফ্লিক এর দল ১৬ রাউন্ডে চলে যাবে।

গ্রুপ এফ: কানাডা - মরক্কো, ক্রোয়েশিয়া - বেলজিয়াম

ইতোমধ্যে কানাডার বিদায় নিশ্চিত হয়েছে। ক্রোয়েশিয়া, মরক্কো ও বেলজিয়ামকে  জয়ের মধ্য দিয়ে যেতে হবে। ক্রোয়েশিয়ান এবং মরক্কোর জন্য একটি ড্রও গুরুত্ব পেতে পারে। কানাডা মরক্কোকে হারালে বেলজিয়ানদের ড্র এর মধ্যে দিয়ে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে।

গ্রুপ জি: সার্বিয়া - সুইজারল্যান্ড, ক্যামেরুন - ব্রাজিল

ব্রাজিল ইতিমধ্যেই ১৬ রাউন্ডে রয়েছে এবং ক্যামেরুনের সাথে ড্র করলেও গ্রুপের শীর্ষে থাকবে। হারলেও, সুইজারল্যান্ড না জিতলে তারা আগে শেষ করবে। আর সুইস জিতলেও ব্রাজিলের পক্ষে (+৩) গোল ব্যবধান রয়েছে। এদিকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা চলছে  সুইজারল্যান্ড, ক্যামেরুন ও সার্বিয়ার মধ্যে । সার্বিয়ানদের পরাজিত করে সুইসরা তাদের ভাগ্য নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। অথবা যদি তারা ড্র করে এবং ক্যামেরুন ব্রাজিলকে না হারায় তবে ১৬ রাউন্ডে থাকবে। ক্যামেরুনকে অবশ্যই ব্রাজিলিয়ানদের হারাতে হবে এবং সুইস ও সার্বদের মধ্যে ড্রয়ের আশা করতে হবে। সার্বিয়ার বিকল্প হলো সুইজারল্যান্ডকে পরাজিত করা এবং আশা করা যায় যে ক্যামেরুন ব্রাজিলকে হারাতে পারবে না, যদি তারা করে তবে তাদের   ভাল গোল পার্থক্য নেই।

গ্রুপ এইচ: দক্ষিণ কোরিয়া - পর্তুগাল, ঘানা - উরুগুয়ে

ফ্রান্স ও ব্রাজিলের পর পর্তুগাল তৃতীয় দল যারা ১৬ রাউন্ডে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে।দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে ড্র করলে তারা প্রথম স্থান নিশ্চিত করবে এবং ঘানা উরুগুয়েকে হারাতে না পারলেও তাদের প্রয়োজন হবে না। ঘানাকে হারালে এবং পর্তুগালের বিপক্ষে দক্ষিণ কোরিয়ানরা জিততে ব্যর্থ হলে উরুগুয়ের এখনও দ্বিতীয় স্থানে থাকার সুযোগ রয়েছে। ঘানা রাউন্ড অফ ১৬-এ উঠবে যদি তারা উরুগুয়েকে হারায় বা ড্র করে এবং দক্ষিণ কোরিয়া যদি জিততে না পারে। তারা জিতলেও গোল পার্থক্যে তাদের হারানো যাবে না। দক্ষিণ কোরিয়াকে অবশ্যই জিততে হবে এবং ঘানা-উরুগুয়ের ফলাফল অবশ্যই তাদের দিকে যেতে হবে: ঘানার জয় এবং অন্য কোন সমন্বয় (ড্র বা উরুগুয়ের জয়)তাদের গোল পার্থক্যের সাথে থাকতে হবে।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

বাংলাদেশের দায়িত্ব নিতে নিউ সাউথ ওয়েলস ছাড়লেন হাতুরুসিংহে!

প্রকাশ: ০২:৫৪ পিএম, ৩১ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

বাংলাদেশ জাতীয় দলের ওয়ানডে এবং টেস্ট ক্রিকেট দলের দায়িত্ব নিতে নিউ সাউথ ওয়েলসের চাকরি ছাড়লের চান্দিকা হাথুরুসিংহে। হাতুরু সিংহের দায়িত্ব ছাড়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে নিউ সাউথ ওয়েলস।

নিউ সাউথ ওয়েলসের সঙ্গে দুই মেয়াদে কাজ করেছেন হাথুরুসিংহে। প্রথমে ২০১১-১৪ পর্যন্ত ছিলেন ক্লাবটির দায়িত্বে। এরপর অস্ট্রেলিয়ার সিডনি থান্ডারের হয়ে কাজ করেন তিনি। তারপরে বাংলাদেশ এবং পরবর্তীতে নিজ দেশ শ্রীলঙ্কার দায়িত্ব পালনের পরে আবারো ২০২০ সালে যোগ দেন সাউথ ওয়েলসে। হাথুরুর বিদায়ে ক্রিকেট নিউ সাউথ ওয়েলসের এলিট মেল ক্রিকেটের প্রধান মাইকেল ক্লিঞ্জার তাকে শুভকামনা জানিয়ে সামাজিক মাধ্যমে একটি পোস্ট করেন। 

যেখানে হাতুরুর উদ্দেশ্যে তিনি বলেনক্রিকেট নিউ সাউথ ওয়েলস সিডনি থান্ডারের সঙ্গে গত দুটি বছর চমৎকার অবদান রেখেছেন চন্ডি। তাকে চলে যেতে দেখে আমরা দুঃখিত। কিন্তু আমরা বুঝি তার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোচিংয়ের প্রবল স্পৃহার কথা এবং তার কোচিং ক্যারিয়ারের পরবর্তী অধ্যায়ের জন্য শুভ কামনা।

গেলো বছরের ডিসেম্বরে রাসেল ডমিঙ্গোর বিদায়ে বাংলাদেশ জাতীয় দলের প্রধান কোচের পদ ফাঁকা হয়ে পড়ে। সে থেকে গুঞ্জন শুরু হয় সাকিব-মুশফিকদের দায়িত্বে আবারো আসবেন হাথুরুসিংহ। গতকাল সিলেটে বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছিলেন আসছে ফেব্রুয়ারির ২০ তারিখের মধ্যেই বাংলাদেশ দলের প্রধান কোচ নিয়োগ করা হবে। আর আজকেই নিউ সাউথের দায়িত্ব ছেড়েছেন হাথুরে। তাই এখন প্রশ্ন জাগছে তাহলে কি বাংলাদেশ দলের কোচ হতেই নিউ সাউথের দায়িত্ব ছেড়েছেন এই শ্রীলঙ্কান?


হাথুরুসিংহ   নিউ সাউথ   কোচ   বাংলাদেশ দল  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

সব বাধা পেরিয়ে বিশ্বকাপ জয়ের বিশ্বাস ছিলো মেসির

প্রকাশ: ০১:৫০ পিএম, ৩১ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

কাতার বিশ্বকাপ শেষের মতো শুরু করতে পারেনি আর্জেন্টিনা। গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচেই হারতে হয় অপেক্ষাকৃত দুর্বল প্রতিপক্ষ সৌদি আরবের কাছে। সে ম্যাচে লিওনেল মেসি-ডি মারিয়াদের পারফরম্যান্সে হতাসায় ডুবেছিলো আর্জেন্টাইন সমর্থকরা। শঙ্কা জেগেছিলো বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকে বাদ পড়ারও।

গ্রুপের প্রথম ম্যাচ হারায় বাকি দুইটি ম্যাচ ছিলো বাঁচা মরার লড়াই। এমন সমীকরণ নিয়ে প্রতি ম্যাচে জয় তুলে নিয়েছিলো লিওনেল মেসিরা। আর্জেন্টাইনদের অন্যতম তারকা লিওনেল মেসি ও গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজের দৃঢ়তায় ৩৬ বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে শিরোপা ঘরে নেয় দলটি। দুইজনে হন কাতার বিশ্বকাপের সেরাদের সেরা। লিওনেল মেসি পান গোল্ডেন বল আর মার্টিনেজ জিতেন গোল্ডেন হ্যান্ড।

কাতার বিশ্বকাপের ফাইনালে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সকে টাইব্রেকারে হারিয়ে শিরোপা জয়ের সে সাফল্যের গাঁথা গল্প বললেন এবার লিওনেল মেসি। আর্জেন্টিনার রেডিও উরবাঁ প্লেকে সোমবার দেওয়া সাক্ষাৎকারে ৩৫ বছর বয়সী মেসি বলেন, বিশ্বকাপে সব বাধা পেরিয়ে যাওয়ার বিশ্বাস তার ছিল।

আর্জেন্টাইনদের ৩৬ বছর পর শিরোপা এনে দেওয়া লিওনেল মেসি বলেন, সৌদি আরবের বিপক্ষে হার সবচেয়ে কঠিন মুহূর্ত ছিল। মেক্সিকোর বিপক্ষে ম্যাচটি সবচেয়ে কঠিন ছিল, কারণ আমরা ঝুঁকির মধ্যে ছিলাম। এটি এমন একটি ম্যাচ ছিল, যেখানে আমরা সবচেয়ে খারাপ খেলেছিতবে আমি আত্মবিশ্বাসী ছিলাম যে আমরা উতরে যাব। আমাদের দলটা যেমন ছিল, তা না থাকলে আমার মনে হয় এই পরিস্থিতি অতিক্রম করা খুব কঠিন হতো।

লিওনেল মেসির এমন বিশ্বাস দলকে একাতবদ্ধ করেছে। মাঠের পারফরম্যান্সে ডি পল, মার্টিনেজ ফার্নান্দেজরা নিজেদের উজার করে দিয়েছে। আর মাঠের বাহিরে স্কালোনির মাস্টার মাইন্ড সবকিছুর সাফল্য গেলো বছরের ১৮ ডিসেম্বর কাতার বিশ্বকাপের শিরোপা।


লিওনেল মেসি   আর্জেন্টিনা   কাতার বিশ্বকাপ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

সিলেট পর্বের শেষ ম্যাচে আজ কুমিল্লার প্রতিপক্ষ খুলনা

প্রকাশ: ০১:০৪ পিএম, ৩১ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

ইতিমধ্যে সিলেটের মাটিতে অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো বিপিএল চতুর্থ পর্বের ৭টি ম্যাচ পূর্বনির্ধারিত সূচি অনুযায়ী বাকি আর একটি ম্যাচ। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ বিপিএলের সিলেট পর্বের শেষ ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে আজ। সিলেট পর্বের শেষ  ম্যাচটিতে মুখোমুখি হবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স খুলনা টাইগার্স। ম্যাচটি শুরু হবে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম থেকে সন্ধ্যা ৬:৩০ মিনিটে

বিপিএলের ৩১ টি ম্যাচ ইতিপূর্বে শেষ হয়েছে। প্লে-অফের দলগুলো অনেকটা নিশ্চিত। কোন অঘটন না ঘটলে বর্তমান পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা চার দল লড়াই করবে শেষ চারের। সেক্ষেত্রে সবার আগে প্লে-অফ নিশ্চিত করেছে সিলেট স্ট্রাইকার্স। হার আট জয়ে ষোলো পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে সিলেট। মুখোমুখি হওয়া দুই দল কুমিল্লা এবং খুলনার অবস্থান ৩য় ৫ম স্থানে। আট ম্যাচে জয়ে ১০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের ৩য় স্থানে কুমিল্লা। অন্যদিকে কুমিল্লার সমান ম্যাচ খেলে মাত্র ম্যাচে জয় পাওয়া খুলনার পয়েন্ট চার, তাদের অবস্থান টেবিলের ৫ম স্থানে।

চলতি আসরে হার দিয়ে শুরু করা কুমিল্লা রয়েছে টানা জয়ের মধ্যে। প্লে-অফের রেসেও এগিয়ে রয়েছে ভিক্টোরিয়ান্সরা। আজ খুলনাকে হারাতে পারলেই প্লে-অফে এক পা দিয়ে রাখবে ইমরুল কায়েসের দলটি। অন্যদিকে পয়েন্ট টেবিলের ৫ম স্থানে থাকা খুলনার ক্ষীণ সম্ভাবনা রয়েছে প্লে-অফের। তবে সেক্ষেত্রে বাকি ম্যাচগুলো জিততে হবে ইয়াসির রাব্বির খুলনাকে এবং উপরে থাকা রংপুর এবং কুমিল্লার মধ্যে যে কোন দলকে হারতে হবে প্রতি ম্যাচ। এমন সমীকরণ নিয়েই আজ কুমিল্লার বিপক্ষে মাঠে নামবে খুলনা। তাই চাপে থাকবে দলটি।

তবে দুই দলের শেষ দেখায় তুমুল লড়াই হয় মাঠের ক্রিকেটে। টান টান উত্তেজনায় ভরপুর সে ম্যাচে রানে হারতে হয় খুলনা টাইগার্সকে। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে কুমিল্লার দুই ওপেনার লিটন কুমার দাস মোহাম্মদ রিজওয়ানের অধর্শতকে ১৬৫ রানের টার্গেট ছুড়ে দেয় খুলনাকে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে সব ওভার শেষে ১৬১ রান পর্যন্ত যেতে পারে খুলনা। অধিনায়ক ইয়াসির  রাব্বির শেষের ১৯ বলে ৩০ রানের ঝড় ইনিংসও জয় ছিনিয়ে আনতে পারেনি দলটি।  টুর্নামেন্টের সেরা উইকেট শিকারি বোলার ওহাব রিয়াজ না থাকা খুলনার জন্য বড় দুশ্চিন্তার কারণ। তবে নাহিদ রানা সাইফুদ্দিনরাও দলটির বড় শক্তির জায়গা। অন্যদিকে কুমিল্লার দুই ওপেনারের পারফরম্যান্স বড় শক্তির জায়গায় দলটিতে। পেসার মুস্তাফিজুর রহমানের ইনজুরি কাটিয়ে ফিরে আসাও শক্তি যোগাবে বোলিং লাইন আপে।        

দেখে নেওয়া যাক আজ দুই দলের সম্ভাব্য একাদশঃ

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স : লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), মোহাম্মদ রিজওয়ান, ইমরুল কায়েস (অধিনায়ক), জনসন চার্লস, মোসাদ্দেক হোসেন, খুশদিল শাহ, জাকের আলী, তানভীর ইসলাম, মুকিদুল ইসলাম, নাসিম শাহ, মুস্তাফিজুর রহমান।

খুলনা টাইগার : তামিম ইকবাল, অ্যান্ড্রু বালবির্নি, শাই হোপ, মার্ক ডেয়াল, মাহমুদুল হাসান জয়, আজম খান (উইকেটরক্ষক), ইয়াসির আলী (অধিনায়ক), মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, নাহিদুল ইসলাম, নাসুম আহমেদ, নাহিদ রানা। 


বিপিএল   কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স   খুলনা টাইগার্স  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

প্লে-অফ নিশ্চিতের লক্ষ্যে ঢাকার বিপক্ষে মাঠে নামবে বরিশাল

প্রকাশ: ১২:০৭ পিএম, ৩১ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

ইতিমধ্যে সিলেটের মাটিতে অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো বিপিএল চতুর্থ পর্বের টি ম্যাচ পূর্বনির্ধারিত সূচি অনুযায়ী বাকি আরও দুইটি ম্যাচ। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ বিপিএলের সিলেট পর্বের ম্যাচের আজকে অনুষ্ঠিত হবে শেষ দুইটি ম্যাচ। দিনের প্রথম খেলায় মুখোমুখি হবে ফরচুন বরিশাল ঢাকা ডমিনেটর্স। ম্যাচটি শুরু হবে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম থেকে দুপুর দেড়টায়।

বিপিএলের ৩০ টি ম্যাচ ইতিপূর্বে শেষ হয়েছে। প্লে-অফের দলগুলো অনেকটা নিশ্চিত। কোন অঘটন না ঘটলে বর্তমান পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা চার দল লড়াই করবে শেষ চারের। সেক্ষেত্রে সবার আগে প্লে-অফ নিশ্চিত করেছে সিলেট স্ট্রাইকার্স। হার আট জয়ে ষোলো পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে সিলেট। টি ম্যাচে জয় নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে সাকিবের ফরচুন বরিশাল। টানা জয়ে থাকা কুমিল্লা ১০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের ৩য় স্থানে। কুমিল্লার সমান পয়েন্ট নিয়ে চারে রংপুর রাইডার্স। অন্যদিকে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে যাওয়া ঢাকার পয়েন্ট ৪। নয় ম্যাচ খেলে নাসিরের হোসেনের দলটি জিতেছে মাত্র দুইটি ম্যাচে।

ফরচুন বরিশাল টুর্নামেন্টে একমাত্র সিলেট স্ট্রাইকার্সের বিপক্ষে হেরেছে দুইটি ম্যাচ। অন্যান্য দলগুলোর সঙ্গে জয় পেয়েছে বরিশাল। ইতিমধ্যে ৮টি ম্যাচের মধ্যে ৬টিতে জয় পেয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে প্লে-অফে এক পা দিয়ে রেখেছে বরিশাল। আজ ঢাকাকে হারালেই দ্বিতীয় দল হিসেবে চলতি আসরের প্লে-অফ নিশ্চিত করবে দলটি। সাম্প্রতিক সময়ে বরিশালের অধিনায়ক দেশ সেরা ক্রিকেটার সাকিবের পারফরম্যান্সে অনেকটাই নির্ভার পয়েন্ট টেবিলে দ্বিতীয় থাকা দলটি। এখন পর্যন্ত ৩০৬ রান নিয়ে তৃতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক বাঁহাতি এই অলরাউন্ডার। ৫ম স্থানে আছে সাকিবের সতীর্থ ইফতেখার আহমেদ। পাক এই ক্রিকেটারের সংগ্রহ ২৮৬ রান।

অন্যদিকে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায়ের পথে ঢাকা ডমিনেটর্স। তবে বাকিম্যাচগুলো জিতে পয়েন্ট টেবিলের ভালো অবস্থানে থেকে টুর্নামেন্ট শেষ করতে চাইবে নাসির হোসেনের দলটি। সেক্ষেত্রে আজ বরিশালের বিপক্ষেও জলে উঠতে হবে অধিনায়ক নাসির হোসেনকে। এখন পর্যন্ত টুর্নামেন্টে সেরা অলরাউন্ডারিং পারফর্মে এগিয়ে নাসির। ব্যাটে বলে দুই বিভাগেই সমান তালে পারফর্ম করে যাচ্ছেন জাতীয় দলে আবারো সম্ভাবনা জাগানো এই ক্রিকেটার। ব্যাট হাতে টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩২০ রান আর বল হাতে ১১ উইকেট শিকার করে বোলিং তালিকার ৫ নম্বরে তিনি।

চলতি আসরে দুই দলের শেষ দেখায় ফরচুন বরিশালের কাছে ১১ রানে হেরেছিলো ঢাকা ডমিনেটর্স। সে ম্যাচে বরিশালের দেওয়া ১৭৩ রানের টার্গেট ভেদ করতে পারেনি ঢাকা। উইকেট হাতে থাকলেও ২০ ওভার শেষে ১৬০ রান সংগ্রহ করতে পেরেছিলো ঢাকা। ফলে ১১ রানের হার মেনে নিতে হয় নাসির হোসেনদের। আজ সে জয়ের আত্নবিশ্বাস নিয়েই ঢাকার বিপক্ষে মাঠে নামবে বরিশাল।

ঢাকা ডমিনেটরস:সৌম্য সরকার, মিজানুর রহমান, উসমান গনি, মোহাম্মদ মিঠুন (উইকেটরক্ষক), অ্যালেক্স ব্লেক, নাসির হোসেন (অধিনায়ক), আরিফুল হক, তাসকিন আহমেদ, আল-আমিন হোসেন, সালমান ইরশাদ, আমির হামজা।

ফরচুন বরিশাল: সাইফ হাসান, চতুরাঙ্গা ডি সিলভা, আনামুল হক (উইকেটরক্ষক), সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), ইফতিখার আহমেদ, মাহমুদউল্লাহ, করিম জানাত, মোহাম্মদ ওয়াসিম জুনিয়র, কামরুল ইসলাম, সালমান হোসেন, খালেদ আহমেদ।


বিপিএল   ঢাকা ডমিনেটর্স   ফরচুন বরিশাল  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

‘আমরা সব সময় চাই মাশরাফি মাঠ থেকে বিদায় নেক'

প্রকাশ: ১০:৫৩ এএম, ৩১ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

বাংলাদেশ ক্রিকেটে সফলতম অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা এখন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নির্বাচকদের বিবেচনায় থাকেন না। আবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকেও তিনি অবসরে যাননি। সব শেষ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন ২০২০ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। তাহলে মাশরাফি কি অবসরে? নতুন করে আবারও আলোচনায় মাশরাফির অবসর ইস্যু। কারণ চলতি বিপিএলে সিলেট স্ট্রাইকার্সের হয়ে রয়েছেন দারুণ ফর্মে। ১০ ম্যাচে ১২ উইকেট নিয়ে আছেন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি তালিকায়।

গতকাল সিলেটে আয়োজিত বিসিবির সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেছেন নাজমুল হাসান পাপন। সেখানেই মাশরাফির অবসর এবং নির্বাচকদের বিভিন্ন সময়ে মাশরাফিকে নিয়ে করা মন্তব্যে সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতির কাছে মাশরাফির অবসর প্রসঙ্গ প্রশ্ন আসলে বিসিবি সভাপতি বলেন, তারা মাশরাফিকে মাঠ থেকে বিদায় দিতে প্রস্তুত আছেন। কিন্তু সে জন্য মাশরাফিকে তো আগে অবসর ঘোষণা করতে হবে।আমরা সবসময় চাই, মাশরাফি মাঠ থেকে বিদায় নেক। এজন্য আমরা একটি বিদেশি দলও আনতে চেয়েছিলাম। কিন্তু উনি তো(মাশরাফি)কিছু বলেন না। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, মাশরাফি অধিনায়কত্ব ছেড়েছেন। কিন্তু ক্রিকেট থেকে অবসর নেননি।

বোর্ড সভাপতির ভাষায়,এখন আমি কি ওকে জোর করে বলতে পারি যে তুমি রিটায়ার করো? ডেফিনেটলি সে যখন রিটায়ার করবে, এটা শুধু মাশরাফির জন্য নয়, সব খেলোয়াড়দের জন্য যদি রাজি হয় তাহলে আমরা চাই খেলার মাধ্যমে বিদায় দিতে। সবাই জানুক যে এটাই তার শেষ ম্যাচ হতে যাচ্ছে। আমরা বিদেশে দেখেছি যেমনটা হয়, আমরাও তাই চাই। নিঃসন্দেহে আমরা এটাই আশা করি।


মাশরাফি   নাজমুল হাসান পাপন   বাংলাদেশ ক্রিকেট  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন