ইনসাইড গ্রাউন্ড

আবারও চমক দিতে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে মাঠে নেমেছে জাপান

প্রকাশ: ০৯:০০ পিএম, ০৫ ডিসেম্বর, ২০২২


Thumbnail

গ্রুপ পর্বের চমক দেখিয়ে নকআউট পর্বে জায়গা করে নিয়েছে জাপান। গ্রুপের দুই পরাশক্তি জার্মানি এবং স্পেনকে হারিয়েছে তারা। প্রথম ম্যাচে জার্মানিকে ২-১ গোলে হারিয়েছিলো। পরের ম্যাচেই তারা হেরে যায় ক্রোয়েশিয়ার কাছে। শেষ ম্যাচে স্পেনকে হারয়ে দেয় ২-১ গোলের ব্যবধানে।

গ্রুপের সেরা হয়েই দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠে জাপান। অন্যদিকে ‘এফ’ গ্রুপে বেলজিয়াম এবং কানাডাকে বিদায় করলেও মরক্কোর সঙ্গে পেরে ওঠেনি গত আসরের চ্যাম্পিয়নরা। মরক্কো হয়েছে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন এবং ক্রোয়েশিা হলো রানারআপ।

নির্ধারিত সূচি হিসেবে দ্বিতীয় রাউন্ডে মুখোমুখি হলো এশিয়ার অন্যতম প্রতিনিধি জাপান এবং ইউরোপের ক্রোয়েশিয়া। কেমন হবে আজকের এই ম্যাচটি? নকআউট যেহেতু, ক্রোয়েশিয়া মরণপণ চেষ্টা করবে জাপানকে গতিতে পেছনে ফেলতে। অন্যদিকে জাপান গ্রুপ পর্বে যেভাবে খেলেছে, তাতে তাদেরকে পেছনে রাখার কোনো সুযোগনেই।

দ্বিতীয় রাউন্ডের ম্যাচে দুই দল মুখোমুখি হওয়ার আগে দেখে নিন তাদের একাদশ-

জাপান একাদশ: সুইচি গোন্ডা, মায়া ইয়োশিদা, সোগো তানিগুচি, তাকেহিরো তোমিয়াসু, হিদেমাসা মোরিতা, ওয়াতারু এন্ডো, ইয়োতো নাগাতোমো, জুনিয়া ইতো, দাইজেন মায়েদা, দাইচি কামাদা, রিতসু দোয়ান।

ক্রোয়েশিয়া একাদশ: ডোমিনিক লিভাকোভিচ, জসকো জিভার্ডিওল, ডেজান লোভরেন, বোরনা বারিসিচ, জোসিপ জুরানোভিচ, মার্সেলো ব্রোজোভিচ, মাতেও কোভাসিচ, লুকা মদরিচ, ব্রুনো পেটকোভিচ, ইভান পেরিসিচ, আন্দ্রে ক্রামারিক।

কাতার বিশ্বকাপ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

নির্বাচকের দায়িত্ব পেলেন কামরান আকমল

প্রকাশ: ০৩:৪৫ পিএম, ০২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

পাকিস্তানের সাবেক উইকেট কিপার ব্যাটার কামরান আকমল সবশেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছিলেন ২০১৭ সালে। এরপর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আর দেখা যায়নি কামরানকে। তবে জাতীয় দলে দেখা না গেলেও পিএসলের নিয়মিত মুখ ছিলেন তিনি। এবার নতুন ভূমিকায় দেখা যাবে সাবেক পাকিস্তানি এই ডানহাতি ব্যাটারকে। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের খেলোয়াড় নির্বাচনের নতুন দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ৪১ বছর বয়সী কামরান আকমলকে।

পাকিস্তান অনূর্ধ্ব-১৯ জাতীয় ক্রিকেট দলের খেলোয়াড় নির্বাচনের দায়িত্ব পেয়েছেন আকমল। মূলত পাকিস্তান জাতীয় দল ও অনুর্ধ্ব-১৯ জাতীয় ক্রিকেট দলের জন্য আলাদা নির্বাচক প্যানেল গঠন করেছে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচকের দায়িত্বে দেওয়া হয়েছে দেশটির সাবেক ক্রিকেটার হারুন রশিদকে। আর অনূর্ধ্ব-১৯ দল নির্বাচনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে কামরান আকমলকে। কামরান আকমলকে সহযোগিতা করার জন্য নির্বাচক প্যানেলে রাখা হয়েছে তৌসিফ আহমেদ, আরশাদ খান, শহীদ নাজির ও শোয়েব খানকে।

নতুন নির্বাচক কমিটি নিয়ে গণমাধ্যমকে পিসিবির সভাপতি নাজাম শেঠি বলেন, ‘নির্বাচক কমিটি এমন ব্যক্তিদের নিয়ে গঠন করা হয়েছে, যারা দশকজুড়ে পাকিস্তান ক্রিকেটের সেবা করেছেন। তারা আধুনিক খেলার চাহিদা সম্পর্কে জানেন। আমি নিশ্চিত মেধার বিচারে দল নির্বাচন করা হবে এবং পাকিস্তান ক্রিকেটকে নয়া উচ্চতায় নেওয়ার মিশনে তারা আমাদের সাহায্য করবে।’

পাকিস্তানের জার্সি গায়ে ২০০২ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে কামরান আকমলের। দেশের হয়ে ১৫৭ টি ওয়ানডে ও ৫৩ টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছেন তিনি। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত সংস্করণ টি-টোয়েন্টিতে দেশের হয়ে মাঠে নেমেছেন ৫৮টি ম্যাচে। সব ফরম্যাট মিলিয়ে কামরানের ব্যাট থেকে এসেছে ৬ হাজার রান।


কামরান আকমল   পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড   প্রধান নির্বাচক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

নতুন বছরেই রোনালদোর রেকর্ড ভাঙ্গলেন মেসি

প্রকাশ: ০৩:০৯ পিএম, ০২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

ফুটবল আর রেকর্ড এ দুইটি শব্দ ওতপ্রোতভাবে জড়িত পর্তুগিজ তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো এবং আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসির সাথে। লিওনেল মেসির সাতটি ব্যালন ডিওরের বিপরীতে রোনালদো জিতেছেন ৫টি। এবার আরও একটি ক্ষেত্রে পর্তুগিজ তারকাকে ছাড়িয়ে গেছেন আর্জেন্টাইন সুপার স্টার লিওনেল মেসি। নতুন বছরের প্রথম মাসেই ক্লাব ফুটবলে রোনালদোর করার সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড ভাঙ্গলেন মেসি।

গতকাল পিএসজির হয়ে মঁপেলিয়ের বিপক্ষে গোলের দেখা পান মেসি। যেটি কাতার বিশ্বকাপের পরে প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে মেসির প্রথম গোল। আর তাতেই রোনালদোকে ছাড়িয়ে যান মেসি। ইউরোপীয় ক্লাব ক্যারিয়ারে এটি মেসির ৬৯৭তম গোল। ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগের ফুটবলারদের মধ্যে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে মেসিই এখন সর্বোচ্চ গোলের মালিক। এই গোলে তিনি ৬৯৬ গোল করা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে ছাড়িয়ে গেছেন।

রোনালদো এখন মধ্যেপ্রাচ্যের ক্লাব আল নাসেরের। সেখানে খেলবেন ২০২৫ সাল পর্যন্ত তাই মেসির রেকর্ড আপাদত ভাঙ্গার সম্ভাবনা নেই রোনালদোর। 


ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো   লিওনেল মেসি   রেকর্ড  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

আর্জেন্টিনার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি বাফুফেতে

প্রকাশ: ০১:৪৭ পিএম, ০২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

কাতার বিশ্বকাপের পর থেকেই গুঞ্জন উঠেছিলো চলতি বছরের জুনে বাংলাদেশে আসবে আর্জেন্টাইন ফুটবল দল। জানুয়ারির শুরুতে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন থেকেও জানানো হয় মেসিদের বাংলাদেশে আসার কথা। যদিও পরবর্তীতে বাফুফে তাদের অবস্থান পরিবর্তন করে।  নতুন করে আবারো মেসিদের আসার বিষয়ে নতুন মাত্র যুক্ত হয়েছে ফুটবল পাড়ায়।

গত মঙ্গল ও বুধবার দিল্লি থেকে আসা আর্জেন্টিনার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিদের বাফুফে ভবনে আসায় মেসিদের আগমনের সম্ভাবনা জোরালো হচ্ছে। তাহলে কি আর্জেন্টিনা ফুটবল দলের বাংলাদেশে আসার বিষয়টি নিয়ে কথা বলতেই ফেডারেশনে যান এই প্রতিনিধি ?

তবে মেসিদের আসার বিষয়ে স্পষ্ট কোন ধারণা দেননি আর্জেন্টিনার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সান্তিয়াগো ক্যাফিয়েরো। কিন্তু জুনে নিজ দেশের বাংলাদেশে আসার বিষয়টি জানেন তিনি। গতকাল আর্জেন্টিনার এই পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, 'আমার মন্ত্রণালয় এই বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে না। তবে আমি শুনেছি জুনে আর্জেন্টিনা দল ঢাকায় আসতে পারে। এর বেশি কিছু বলতে পারব না আমি।’

আর্জেন্টাইন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানেন বিশ্বকাপ চলাকালীন বাংলাদেশী মানুষদের আর্জেন্টিনার সমর্থনের কথাও এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘শুধু এটুকু বলব, আমি শুনেছি আর্জেন্টিনা ফুটবল দলকে নিয়ে বিশ্বকাপের সময় এ দেশে অনেক উন্মাদনা হয়েছে।’

ফুটবল সমর্থন বাংলাদেশের সাথে আর্জেন্টিনার সম্পর্ক নিয়ে গেছে কূটনৈতিক সম্পর্কে। তাইতো বাংলাদেশে খোলা হয়েছে আর্জেন্টিনার দূতাবাস। ২৭ ফেব্রুয়ারি দূতাবাস খোলার ঘোষণা দিতেই দিল্লী থেকে বাংলাদেশে আসেন সান্তিয়াগো। 


আর্জেন্টিনা   বাংলাদেশ   লিওনেল মেসি   পররাষ্ট্রমন্ত্রী  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ইনজুরির সঙ্গে না পেরে ক্রিকেট ছাড়তে চেয়েছিলেন আফ্রিদি

প্রকাশ: ১২:৫২ পিএম, ০২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বর্তমান সময়ের অন্যতম পেসার পাকিস্তানি বোলার শাহিন আফ্রিদি। ২২ গজে গতির ঝড় তোলা শাহিন আফ্রিদি ক্যারিয়ারের অনেকটা সময় পার করছেন ইনজুরির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে। অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত টি-২০ বিশ্বকাপের আগেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট খেলতে গিয়ে ইনজুরিতে পড়েন এই ক্রিকেটার। ইনজুরি নিয়েই খেলেন অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপ। তবে সেমিফাইনালে আবারো ইনজুরিতে পড়েন বাঁহাতি এই পেসার, সে থেকে এখনো জাতীয় দলের বাহিরে শাহিন।

আশার খবর হলো চলতি মাসে শুরু হওয়া পাকিস্তান প্রিমিয়ার লিগ দিয়ে আবারো মাঠের ক্রিকেটে ফিরবেন আফ্রিদি। পিএসএলের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন লাহোর কালান্দার্সের নেতৃত্ব দিবেন তিনি। ইনজুরি কাটিয়ে আবারো প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফেরা নিয়ে এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিয়েন, সুস্থ হওয়ার প্রক্রিয়া এতো কঠিন ছিল যে, ক্রিকেট ছেড়ে দিতে চেয়েছিলাম।  

পিসিবি ডিজিটালকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শাহিন আফ্রিদি বলেন,  ‘এমন সময় গেছে যে, আমি ক্রিকেট ছেড়ে দিতে চেয়েছি। সুস্থ হয়ে ফিরতে একটা মাসেলে উন্নতি আনার জন্য কাজ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু চেষ্টা করেও কোন উন্নতি আসছিল না। ওই পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় এমন হয়েছে যে, নিজের সঙ্গে নিজে বলেছি- অনেক হয়েছে আর না। এটা আমার দ্বারা আর সম্ভব না।’

নিজের মনোবল বাড়াতে ইউটিউবের ও সাহায্য নিয়েছেন বাঁহাতি এই পেসার। ইউটিউবে দেখেছেন নিজের করা সেরা স্পেলগুলো যা তাকে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। শুরুতেই প্রতিপক্ষের ব্যাটারের উইকেট ছিনিয়ে নেওয়া শাহিন জানিয়েছেন,  ‘ইউটিউবে নিজের বোলিং দেখতাম, নিজেকে বলতাম- আমি কত ভালো বোলিং করেছি, এগুলো আমাকে উৎসাহ দিত। আমাকে পুনরায় কাজ করার সাহস দিত। ইনজুরির কারণে খেলতে না পারা একজন পেসারের জন্য খুবই হতাশার।’

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ধীরে ধীরে বড় বড় দলগুলো সফর করছে পাকিস্তান। ইতিমধ্যে ইংল্যান্ড ও নিউজল্যান্ড খেলেছে ঘরের মাঠে তবে সিরিজগুলোতে ছিলেন না আফ্রিদি, তা নিয়েও রয়েছে আক্ষেপ। ইংল্যান্ড ও নিউজল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠে খেলতে না পারার আক্ষেপ নিয়ে আফ্রিদি বলেন, ‘ইনজুরির কারণে হোম সিরিজ মিস করা খুব হতাশার। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সাতটি টি-২০ মিস করেছি। টেস্ট সিরিজ মিস করেছি। টেস্ট মিস করা ছিল বেশি হতাশার।’ 



মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

হাথুরুসিংহের ফেরা ইতিবাচক না নেতিবাচক?

প্রকাশ: ১২:০২ পিএম, ০২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

রাসেল ডমিঙ্গো পদত্যাগ করার পর থেকে বাংলাদেশ জাতীয় দলের হেড কোচের পদটা শূন্য পড়েছিলো এতদিন। বাংলাদেশ দলে ডমিঙ্গো অধ্যায়টি শেষ হয়েছে মিশ্র অনুভূতি নিয়ে। কখনো ভাল তো কখনো মন্দ। কখনো ব্যাট-বলের পারদ চড়িয়ে উড়ছে আকাশে, কখনো আবার পতনের গতি সামলাতে না পেরে ধপাস করে মাটিতে! ডমিঙ্গো দেশে ফিরে যাওয়ার পর থেকেই জাতীয় দলের জন্য নতুন কোচের সন্ধানে নামে বিসিবি। এরপর থেকেই গুঞ্জন শোনা যায় আবারো বাংলাদেশে ফিরছেন সাবেক কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। সত্য হলো সেই গুঞ্জনই। দ্বিতীয় মেয়াদে হেড কোচ হয়ে বাংলাদেশে আসছেন হাতুরু।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন তার নিজ কার্যালয়ে এ তথ্য নিশ্চিত করেন। হাতুরুর সাথে আগামী ২ বছরের জন্য চুক্তি করেছে বিসিবি। আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় আসবেন এই লঙ্কান কোচ। মার্চে ইংল্যান্ড সিরিজের আগেই দলের দ্বায়িত্ব বুঝে নেবেন তিনি। বাংলাদেশের কোচের বিষয়ে বিসিবি "সময়"কে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দিয়েছে। অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ চলাকালীন সময়েই বিসিবির কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনা হয় হাথুরুর।

বছরজুড়ে নানা ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক টুর্নামেন্ট চলায় হাই প্রোফাইল কোচরা এখন আর কোন দলকে পুরো সময় দিতে চান না। স্বল্পকালীন সময়ের জন্য আগ্রহ দেখালেও, বছরজুড়ে দলের সাথে কাজ করবেন- বর্তমান বাস্তবতায় এমন কাউকে পাওয়াটা তাই একটু কঠিনই বলা যায়। সব দিক বিবেচনায় তাই হাথুরুর সাথে চূড়ান্ত চুক্তি সাড়া হয়। মঙ্গলবার সকালে সে আলোচনা উসকে যায় নিউ সাউথ ওয়েলসের এক বিবৃতিতে। বাংলাদেশের পর শ্রীলঙ্কা হয়ে গত দুই বছর ধরে নিউ সাউথ ওয়েলসের সহকারি কোচের দ্বায়িত্ব পালন করছিলেন হাথুরুসিংহে। এক বিবৃতিতে তাদের বিদায়ের কথা জানায় অস্ট্রেলিয়ার ঘরোয়া ক্রিকেটের দলটি।

হেড কোচের বিষয়টি চূড়ান্ত হলেও, এখনো হাথুরুর সহকারি বিষয়টি নিশ্চিত হয়নি। সে তালিকায় আছেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দলের টেকনিক্যাল কনসালটেন্টের দ্বায়িত্ব পালন করা শ্রীধরন শ্রীরাম। বিসিবি সভাপতি জানান, আগামী মাসের মধ্যে সেটিও চূড়ান্ত হয়ে যাবে। তবে হাথুরুসিংহের বাংলাদেশে ফেরায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে। প্রথম মেয়াদে দলের সিনিয়র ক্রিকেটারদের সাথে তার মনোমালিন্যের খবর সকলেরই জানা। ফলে কড়া হেড মাষ্টারের ভূমিকায় ফেরা হাথুরু ক্রিকেটারদের সাথে কিভাবে মানিয়ে নেবেন সেটাই এখন ক্রিকেটাঙ্গেনর সবচেয়ে বড় প্রশ্ন।

তবে হাথুরুসিংহের প্রথম মেয়াদে সময়ে বাংলাদেশ দলের সাফল্যের খাতাটাও বেশ ভারী। ঘরের মাটিতে ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ জয়। কলম্বোতে শততম টেস্টে জয়। ২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল এবং ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনাল বাংলাদেশ খেলেছে তার অধীনে। ২০১৭ সালে বাংলাদেশ দলের কোচ থাকাকালীন সময়ে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে গিয়ে হুট করে দ্বায়িত্ব ছেড়ে দেন হাথুরু। সে সময় এর পেছনের কারণ না জানালেও তা গোপন থাকেনি। কিছুদিনের মধ্যে নিজেদের কোচ হিসেবে তার নাম ঘোষণা করে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড। শুধু নিজ দেশের কোচ হওয়াই না, টাকার অঙ্কটাও ছিলো অত্যন্ত লোভনীয়। সেই সাথে তার সময়েই অনেক কাঠামোগত নিয়ম ভেঙে পড়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটে।এখন দেখার অপেক্ষা দ্বিতীয় মেয়াদে তার বাংলাদেশ অভিযান কতটা সফল হয়।


বাংলাদেশ   হেড কোচ   চন্ডিকা হাথুরুসিংহে   বিসিবি  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন