ইনসাইড গ্রাউন্ড

কোন পথে ঢাকা টেস্ট?

প্রকাশ: ০৮:১০ পিএম, ০৬ ডিসেম্বর, ২০২১


Thumbnail

ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনে সমর্থকরা দুই দলের ক্রিকেট উপভোগ করতে পারলেও দ্বিতীয় আর তৃতীয় দিন যেন একক আধিপত্য বিস্তার করে শীতের বৃষ্টি। দ্বিতীয় দিনে বল মাঠে গড়াতে পারলেও আজ  (৬ ডিসেম্বর) এক বলও মাঠেই গড়ায়নি। ঢাকা টেস্টের তিন দিন শেষ হয়ে গেলেও ব্যাটে বলের লড়াই হয়েছে মাত্র ৬৩.২ ওভার। সবার মনে এখন একটাই প্রশ্ন, কোন পথে যাচ্ছে ঢাকা টেস্ট? শেষ দুই দিনে কোন চমক অপেক্ষা করছে কি? 

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা পাকিস্তান এখন পর্যন্ত ২ উইকেটে ১৮৮ রান তুলেছে। পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজম আর আজহার আলীর অবিচ্ছিন্ন তৃতীয় উইকেট জুটিতে এসেছে ১১৮* রান। দুজনেই ফিফটি তুলে নিয়েছেন। বাবর আজম তো ৭১* রান করে তিন অংকের কাছাকাছি।প্রথম দিনে ২৫ ওভারের মধ্যেই দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের উইকেট নিয়েছেন স্পিনার তাইজুল ইসলাম। সাকিবসহ আর কোন বোলার উইকেট পাননি।

কাল চতুর্থ দিনে খেলা মাঠে গড়ালেও পাকিস্তান যতটা সময় পারে ব্যাট করবে। চতুর্থ দিনে পাকিস্তানিদের অল্প রানে অল-আউট করে দেবে বাংলাদেশের বোলাররা- এমন স্বপ্ন দেখা যেতেই পারে। পরবর্তী দুই দিনের ৬টি সেশন যদি খেলা হয়, তাহলেও চার ইনিংস শেষ করা কঠিন হবে। সুতরাং, ঢাকা টেস্টের ভাগ্যে ড্র লেখা হয়ে যাচ্ছে। ক্রিকেটপ্রেমীদের জন্য সুখবর হলো, আগামীকাল মঙ্গলবার বৃষ্টি থেমে রোদ ওঠার পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। টেস্টের ভাগ্যে যাই থাক, ক্রিকেটপ্রেমীরা খেলা উপভোগ করতে পারবেন।

বাংলাদেশ   পাকিস্তান   ঢাকা টেস্ট  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

জয়ের প্রশংসায় পঞ্চমুখ রোডস

প্রকাশ: ০১:৫৩ পিএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

যুব বিশ্বকাপ আর ঘরোয়া ক্রিকেট মাতানোর পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটও রাঙিয়েছেন মাহমুদুল হাসান জয়। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) অভিষেকেও তিনি যথারীতি আলো ছড়ালেন। তার ব্যাটে ভর করেই গতকাল জয় পায় কুমিল্লা।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে নিজের প্রথম বিপিএল ম্যাচ খেলতে নামেন তরুণ এই ব্যাটার। ওপেনিংয়ে নেমে ব্যাট করেছেন ১৬তম ওভারের ২য় বল পর্যন্ত। ৩৫ বল মোকাবেলা করে রান করেছেন ৪৮, হাঁকিয়েছেন ৮টি চার ও ১টি ছক্কা।

জয়ের মতই শান্তশিষ্ট কিন্তু কার্যকরী ব্যাটিং দেখার পর তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের পরামর্শক স্টিভ রোডস। রোডস আশা প্রকাশ করলেন, ভবিষ্যতের উজ্জ্বল এক তারকা হতে যাচ্ছেন জয়।

রোডস বলেন, ‘বিপিএল অভিষেকেই জয় অনেক ভালো খেলেছে। সে খুব শান্ত স্বভাবের ছেলে। সবসময় সবকিছু খুব স্বাভাবিক রাখে। কখনও ঘাবড়ে যেতে দেখিনি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মাত্র পা রেখেছে, এখন বিপিএলেও পা রাখল। সে ভবিষ্যতের উজ্জ্বল একজন তারকা।’

জয়ের ইনিংসে একটিবারও তাড়াহুড়া দেখা যায়নি। তিন ব্যাটার সাজঘরে ফিরলে সেই পরিস্থিতিও সামলেছেন ঠাণ্ডা মাথায়। আবার সাবধানী ব্যাটিং করতে গিয়ে যেন রান কমে না যায়, সেদিকেও লক্ষ্য রেখেছেন। ২ রানের জন্য অর্ধশতক না হাঁকালেও জয় মুগ্ধ করেছেন রোডসকে।

রোডস বলেন, ‘বড় শট না হাঁকিয়েও সে রানের গতি বাড়াতে পারে। নিউজিল্যান্ডে ঐতিহাসিক জয়ে অবদান রেখেছিল তাও শক্তিশালী একটি বোলিং আক্রমণের বিপক্ষে। আজ সে অনেককে অবাক করেছে। তরুণরা আসবে, ভালো করবে, এটাই সে আজ করেছে।’


জয়   বিপিএল  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

বাবা হলেন যুবরাজ সিং

প্রকাশ: ০১:২৬ পিএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

পুত্র সন্তানের বাবা হলেন যুবরাজ সিং। স্ত্রী হ্যাজেল কিচের কোল আলোকিত করে যে এসেছে ফুটফুটে এক সন্তান, তা টুইট করে জানিয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেটের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার। সেইসাথে অনুরোধ করেছেন সন্তান সম্পর্কিত যাবতীয় গোপনীয়তা রক্ষা করতে। এমনকি পুত্র সন্তানের ছবিও পোস্ট করেননি যুবরাজ।

“আমাদের সকল ভক্ত সমর্থক, পরিবার এবং বন্ধুদের জানাতে চাই যে, ইশ্বর আমাদের এক পুত্র সন্তান আশীর্বাদ করেছেন। আশা করি আমাদের সন্তানের ব্যাপারে যাবতীয় গোপনীয়তা রক্ষা করতে আপনারা সাহায্য করবেন।” -টুইটে জানিয়েছেন যুবরাজ সিং

২০১৬ সালের ৩০ নভেম্বর বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন যুবরাজ-কিচ। গোয়ায় ভীষণ জাঁকজমকপূর্ণভাবে আয়োজিত বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন বলিউড এবং ক্রিকেটাঙ্গনের বড় বড় তারকারা। পরিবারের নতুন অতিথিকে শুভেচ্ছা আর শুভকামনা জানিয়েছেন অগণিত ভক্ত। সকলকে ভালোবাসাও জানিয়েছেন যুবরাজ, “হ্যাজেল এবং আমার পক্ষ থেকে আপনাদের প্রত্যেকের প্রতিই ভালোবাসা।”


যুবরাজ সিং  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

পিএসএলে করোনার হানা, আক্রান্ত ওয়াসিমসহ ৩ জন

প্রকাশ: ০১:০৮ পিএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

আবারও করোনা আঘাত হেনেছে পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএলে)। টুর্নামেন্ট শুরু হওয়ার আগেই একের পর এক ছোবল বসিয়ে যাচ্ছে প্রাণঘাতী করোনা।

কিছুদিন আগেই ৩ জন ক্রিকেটার এবং ৫ জন সাপোর্ট স্টাফ কোভিড পজিটিভ হন পিএসএলে। এবার কোভিড পজিটিভ হয়েছেন করাচি কিংসের প্রেসিডেন্ট পাকিস্তানের সাবেক কিংবদন্তী পেসার ওয়াসিম আকরাম। সাথে পেশোয়ার জালমির দুই ক্রিকেটার ওয়াহাব রিয়াজ ও হায়দার আলিও পজিটিভ হয়েছেন। একবার কোভিড পজিটিভ হওয়ার পর আইসোলেশন এবং পরপর দুইবার পিসিআর টেস্টে নেগেটিভ হয়ে তারপর দলের সাথে যোগ দিতে পারবেন ক্রিকেটার এবং স্টাফরা।

পেশোয়ার জালমির দুই ক্রিকেটার কামরান আকমল ও আরশাদ ইকবাল পজিটিভ হয়েছিলেন আগেই। যার ফলে এখন পেশোয়ার দলে কোভিড পজিটিভ ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে গিয়ে দাঁড়ালো ৪ এ। আগামী ২৭ জানুয়ারি মুলতান সুলতান্স এবং করাচি কিংসের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে মাঠে গড়াবে পিএসএলের এবারের আসর। টুর্নামেন্টকে সামনে রেখে যেকোনো ধরনের জরুরি অবস্থার জন্য প্রস্তুতি নিয়ে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন পিসিবি প্রধান রমিজ রাজা।

পিএসএলে অংশ নিতে যাওয়া সকল ক্রিকেটার ইতোমধ্যে আছেন কোয়ারেন্টিনে। মাঠে নামার আগে তিনবার কোভিড পরীক্ষায় নেগেটিভ হতে হবে প্রত্যেক ক্রিকেটারকে। টুর্নামেন্টের পরিচালক সালমান নাসির জানিয়েছেন, ২০ জানুয়ারি প্রথম কোভিড ধরা পড়ার পর থেকে আরও ২৫০ বার কোভিড টেস্ট করা হয়েছে।

নাসির জানান, ‘সর্বশেষ ফলাফল পাওয়া পর্যন্ত বৃহস্পতিবারের পর থেকে ২৫০ বার টেস্ট করা হয়েছে। পজিটিভ হওয়া ব্যক্তিরা এখনো পর্যন্ত আইসোলেশনে আছেন।’

রমিজ আগেই জানিয়েছিলেন, যদি উভয় দলে ১৩ জন করে কোভিড নেগেটিভ ক্রিকেটার থাকেন তখনই ম্যাচ শুরু হবে। যার অর্থ দাঁড়ায়, একটি দলে সর্বোচ্চ ৯ জন কোভিড পজিটিভ থাকলে তারা খেলতে পারবে।

তাছাড়া ড্রাফটে দল না পাওয়াদের মধ্যে থেকে ১৫-২০ জন ক্রিকেটারকে আলাদা করে প্রস্তুত রাখা হয়েছে যেন কেউ কোভিডের কারণে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে গেলে দলগুলো দ্রুতই বদলি খেলোয়াড় দলে নিয়ে নিতে পারে। কোভিড পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করলে ১০ দিনের বিরতি দিয়ে প্রতিদিন ২টি করে ম্যাচ আয়োজন করে টুর্নামেন্ট চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতিও নিয়ে রেখেছে পিসিবি।






পিএসএল   ওয়াসিম আকরাম  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

জাতীয় দলেই বেশি কাজ করবেন সিডন্স

প্রকাশ: ১২:৫৫ পিএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

দীর্ঘ এক দশক পর বাংলাদেশ দলের সাবেক প্রধান কোচ জেমি সিডন্স আবারও বাংলাদেশে আসছেন, এটা পুরনো খবর। তবে তিনি কোন দল বা কোন পর্যায়ে কাজ করবেন, তা এখনও নিশ্চিত নয়। বিসিবি অবশ্য জাতীয় দলের জন্যই সিডন্সকে বেশি কাজে লাগাতে চায়।

মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) গণমাধ্যমের সাথে আলাপকালে এমনটিই জানান বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস। তিনি বলেন, ‘সিডন্সের সাথে চুক্তি নিশ্চিত হয়েছে অনেক আগে। তাকে আমরা ক্রিকেট বোর্ডের ব্যাটিং পরামর্শক হিসেবে নিয়ে এসেছি।’

‘এখনও চূড়ান্ত হয়নি কোন জায়গায় তিনি কাজ করবেন। মেইনস্ট্রিমে কাজ করবেন, নাকি অন্য জায়গায় পরামর্শক হিসেবে কাজ করবেন তা এখনও ঠিক হয়নি। তবে আমরা বিশেষ করে চাইবো মেইনস্ট্রিমেই কাজ করুক।’

সিডন্স যখন ব্যাটিং পরামর্শক হয়ে আসছেন, তখন নানা আলোচনা জাতীয় দলের প্রধান কোচের পদ নিয়ে। যেহেতু সিডন্স অতীতে সফল ছিলেন, তাই এবারও তাকে প্রধান কোচের আসনের জন্য বিবেচনা করা হচ্ছে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে জালাল বলেন, ‘জেমি সিডন্স অনেক সিনিয়র কোচ। তার থেকে আমরা অনেক সহায়তা পাব। ব্যাটিং কোচ হিসেবে আসছে, আমরা তাকে ব্যাটিং কোচ হিসেবেই বিবেচনা করছি। ভবিষ্যতে তাকে নিয়ে কী চিন্তা করব না করব তা এখন বলতে পারছি না।’

জাতীয় দলের বর্তমান ব্যাটিং কোচ অ্যাশওয়েল প্রিন্স, যার সাথে বিসিবির চুক্তি ২০২২ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত। সিডন্স জাতীয় দলের সাথে কাজ করলে প্রিন্সের ভূমিকা কেমন হবে- এমন প্রশ্নেরও জবাব দিয়েছেন জালাল ইউনুস।

তিনি বলেন, ‘সেটা আমরা পরে দেখব। প্রিন্স অবশ্যই থাকছে, এখনও চুক্তি আছে। তাকে কোথায় কাজে লাগানো যায় সেটাও চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।’


সিডন্স  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

বল টেম্পারিং করার শাস্তি পেল নেদারল্যান্ডস

প্রকাশ: ১২:৪৪ পিএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

দোহায় সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে নেদারল্যান্ডসকে ৭৫ রানে হারিয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে ডাচদের হোয়াইটওয়াশ করেছে আফগানিস্তান। তবে ম্যাচশেষে সব আলোচনা বল টেম্পারিং বিতর্ক ঘিরে। সিরিজের শেষ ম্যাচে নেদারল্যান্ডস তাৎক্ষণিক শাস্তি পেয়েছে বল টেম্পারিং করে।

আফগানিস্তানের ইনিংসের ৩০ ওভার শেষে আফগানদের সংগ্রহ ছিল ২ উইকেটে ১১৪ রান। উইকেট না হারালেও আফগানরা দ্রুত রান সংগ্রহ করতে পারছিলেন না। ব্যাটিংয়ে ছিলেন আফগান অধিনায়ক হাসমতউল্লাহ শহিদি। ৩১তম ওভারে বোলিং করতে আসেন ব্রেন্ডন গ্লোভার। শেষ বলটির আগে দেখা যায় আম্পায়ার বল পরিবর্তন করতে যাচ্ছেন। জানা যায়, ডাচরা বিশেষ সুবিধা নেওয়ার জন্য বল বিকৃত করেছেন।

বল বিকৃত করার অপরাধে নেদারল্যান্ডসকে তাৎক্ষণিক শাস্তিও দেন আম্পায়ার। ৫ রান পেনাল্টি করা হয়। সাথেসাথে আফগানিস্তানের স্কোর বোর্ডে যোগ হয় ৫ রান। ৩১তম ওভারে গ্লোভার মাত্র ২ রান খরচ করলেও পেনাল্টির কারণে সেই ওভারে ৭ রান পায় আফগানিস্তান। নির্ধারিত ২০ ওভারে আফগানরা সংগ্রহ করে ৫ উইকেটে ২৫৪ রান।

নেদারল্যান্ডসের ব্যাটিং খুবই ভালো ভাবে শুরু হয়। বলের সাথে পাল্লা দিয়ে রান তুলে উদ্বোধনী জুটিতেই ১০৩ রান যোগ করেছিলেন কলিন অ্যাকারম্যান ও স্কট এডওয়ার্ডস। কিন্তু তারা আউট হওয়ার পরই তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে নেদারল্যান্ডসের ব্যাটিং। শেষ ৭৬ রানে ১০টি উইকেট হারিয়ে ১৭৯ রানে অল-আউট হয় ডাচরা। ফলে ৭৫ রানের ব্যবধানে জয় পায় আফগানিস্তান।

আফগানিস্তান   নেদারল্যান্ডস  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন