ইনসাইড হেলথ

চিকিৎসকদের নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর অভিযোগ

প্রকাশ: ০৯:০৫ এএম, ২৯ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail চিকিৎসকদের নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর অভিযোগ

রোগীদের পর্যাপ্ত সময় না দেওয়া নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি অভিযোগ করে বলেন, আমি নিজেও যদি কখনো চিকিৎসক দেখাতে যাই, আমাকেও খসখস করে একটা প্রেসক্রিপশন লিখে দিয়ে দেন। ভালো করে একটু সময়ও দেন না। প্রেসক্রিপশনের বাইরে কোনো পরামর্শও দেন না।

গতকাল শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) রাতে দেশে প্রথম জাতীয় অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ সম্মেলনের সমাপনী পর্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

দীপু মনি বলেন, অসুস্থতার একটি বিরাট অনুষঙ্গ হলো আমরা কেমন জীবনযাপন করি বা আমাদের লাইফস্টাইল। যারা সঠিকভাবে জীবনযাপন করেন না, তাদেরই অনেকটা ওষুধের উপর নির্ভরশীল হয়ে যেতে হয়। কিন্তু সঠিক লাইফস্টাইলটাই তো আমাদের অনেকাংশে সুস্থ করে দিতে পারে। জীবনযাপন পদ্ধতিটাকে বদলে ফেলে একদম ভালো হয়ে যাওয়া সম্ভব, ওষুধের উপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে ফেলা সম্ভব।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এই জায়গাটিতে চিকিৎসকদের বিশাল একটি ভূমিকা রয়েছে। আমরা শুধু খসখস করে একটা প্রেসক্রিপশন লিখে দিলাম, সঠিক জীবনযাপন নিয়ে রোগীকে কিছু বললাম না, সেটা তো হলো না। যদিও আমাদের চিকিৎসকদের আসলে এতটা সময় থাকে না, তাদেরকে অল্প সময়ে অনেক রোগী দেখতে হয়। কিন্তু সেক্ষেত্রে অন্য কোনো উপায়ে রোগীদের আলাদা জীবনাচরণ নিয়ে কিছু পরামর্শ দিয়ে দেওয়া যায় কি না, সেটি নিয়ে আমাদের ভাবতে হবে।

তিনি বলেন, একজন চিকিৎসক যদি প্রেসক্রিপশনের পাশাপাশি রোগীকে বলে দেন যে, এই ওষুধগুলো লাগবে না যদি আপনি এই কাজগুলো করতে পারেন, তাহলে আমাদের চিকিৎসা ব্যবস্থা অনেকটাই পাল্টে যাবে। আমাদেরকে এই বিষয়গুলো নিয়ে অনেক বেশি কাজ করতে হবে।

মন্ত্রী আরও বলেন, সুস্থ থাকতে হলে জীবনযাপন পদ্ধতিতে পরিবর্তন খুবই জরুরি বিষয়। তাই আমাদের নতুন কারিকুলামে স্বাস্থ্য সুরক্ষা একটা বিষয় যোগ করতে যাচ্ছি। সেখানে যা থাকবে তা থেকে শিক্ষার্থীরা জানবে, শিখবে এবং সেইভাবে তারা চলতে পারবে। স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয় কারিকুলামে যুক্ত করা হলে আমাদের নতুন প্রজন্ম অনেক বেশি সচেতন হবে। সচেতন হলে তারা বেশি সুস্থ থাকবে।

দেশে স্বাস্থ্য সেবায় মাত্রাতিরিক্ত ব্যয় নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। একইসঙ্গে ব্যয় যৌক্তিক পর্যায়ে রাখারও পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি বলেন, সদ্য স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে যুক্ত হওয়ার পর অর্থের জোগান একটা বড় বিষয়। সেজন্য স্বাস্থ্য খাতে এমন সব ব্যবস্থা নেওয়া উচিত যাতে স্বাস্থ্য সেবার খচর যৌক্তিক পর্যায়ে রাখতে পারি।

সম্মেলনে সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, আইসিডিডিআরবি-র নির্বাহী পরিচালক ডা. তাহমিদ আহমেদ, ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন হসপিটাল অ্যান্ড রিসার্স ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা এবং সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এম এ মালেক, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সাইফুল হাসান বাদল, বাংলাদেশে মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, ইউনিসেফ বাংলাদেশ-এর স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপক ডা. জিয়াউল মতিন, আইসিডিডিআরবি-র সিনিয়র ডিরেক্টর শামস এল আরেফিন, আইসিডিডিআরবি-র অসংক্রামক রোগ বিভাগের প্রধান ও অর্গানাইজিং কমিটির সায়েন্টিফিক সেক্রেটারি ডা. আলিয়া নাহিদ, অ্যামিনেন্সে ইন্টার ন্যাশনালের নির্বাহী পরিচালক ও অর্গানাইজিং কমিটির মেম্বার সেক্রেটারি ডা. শামীম হায়দার তালুকদার উপস্থিত ছিলেন। সঞ্চালনায় ছিলেন ইএএসডির উপদেষ্টা আব্দুন নূর তুষার।

প্রসঙ্গত, ঢাকার প্যান প্যাসেফিক সোনারগাঁও হোটেলে ২৬ জানুয়ারি শুরু হওয়া এই সম্মেলন ২৮ জানুয়ারি (শুক্রবার) শেষ হয়। বাংলাদেশ হেলথ রিপোর্টার্স ফোরামসহ ৩০টি দেশি-বিদেশি প্রতিষ্ঠান এ সম্মেলনের আয়োজন করে।

শিক্ষামন্ত্রী   চিকিৎসক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

এফসিপিএস পরীক্ষার ফি জমা দেওয়ার সময়সীমা বাড়ল

প্রকাশ: ০১:২৪ পিএম, ১৮ মে, ২০২২


Thumbnail এফসিপিএস পরীক্ষার ফি জমা দেওয়ার সমইয়সীমা বাড়ল

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ও অধিভুক্ত সব মেডিকেল কলেজ, ডেন্টাল কলেজ ইন্সটিটিউটের এফসিপিএস বিভিন্ন পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন ও পরীক্ষার ফি জমা দেওয়ার সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে ১৯ মে পর্যন্ত।

বাংলাদেশ কলেজ অব ফিজিশিয়ান্স অ্যান্ড সার্জন্সের (বিসিপিএস) অনারারি সচিব অধ্যাপক ডা. মো. বিল্লাল আলম স্বাক্ষরিত এক নোটিশে থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

নোটিশে বলা হয়েছে, আগামী জুলাইয়ে অনুষ্ঠেয় এফসিপিএস পার্ট-১, এফসিপিএস মিডটার্ম পরীক্ষা, প্রিলিমিনারি এফসিপিএস পার্ট-২, এফসিপিএস পার্ট-২ (ফাইনাল), এফসিপিএস (সাব-স্পেশালিটি) এবং এমসিপিএস পরীক্ষার অনলাইন রেজিস্ট্রেশন এবং পরীক্ষা ফি দেওয়ার সময় ১৯ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

এফসিপিএস মিডটার্ম পরীক্ষা, প্রিলিমিনারি এফসিপিএস পার্ট-২, এফসিপিএস পার্ট-২ (ফাইনাল), এফসিপিএস (সাব-স্পেশালিটি) এবং এমসিপিএস পরীক্ষাদের প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের হার্ড কপি জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ২১ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

পরীক্ষার ফি ব্যাংকে জমা দেওয়ার পরও যেসব প্রার্থী নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ব্যাংক স্লিপ অনলাইন রেজিস্ট্রেশন সফটওয়্যারে আপলোড করতে ব্যর্থ হবেন, তারা ২১ মে বিকেল ৩টা পর্যন্ত নিম্নলিখিত শর্তাবলী অনুসরণ সাপেক্ষে পরীক্ষায় বসার সুযোগ পাবেন।

১. কলেজের সংশ্লিষ্ট বিভাগে বিলম্ব ফি হিসেবে নগদ ১০০০/- (এক হাজার) টাকা জমা দিতে হবে।

২. আবেদনকারীকে অনলাইন রেজিস্ট্রেশনসহ সফটওয়্যারে ব্যাংকের রশিদ আপলোড করার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ অবশ্যই কলেজের পরীক্ষা বিভাগে নিয়ে আসতে হবে। 

উল্লেখ্য অন্যান্য পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য অনলাইন রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া অপরিবর্তিত থাকবে।

এফসিপিএস   পরীক্ষা   সমইয়সীমা   বাড়ল  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

আজ বিশ্ব রক্তচাপ দিবস

প্রকাশ: ০৮:৫০ এএম, ১৭ মে, ২০২২


Thumbnail আজ বিশ্ব রক্তচাপ দিবস

আজ ১৭ মে বিশ্ব উচ্চ রক্তচাপ দিবস’। ওয়ার্ল্ড হাইপারটেনশন লিগের (ডাব্লিউএইচএল) সদস্য হিসেবে হাইপারটেনশন কমিটি অব ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন অব বাংলাদেশ, ২০০৬ সাল থেকে ১৭ মে দিবসটি পালন করে আসছে। এবছরও জনসচেতনতায় এ দিবসকে ঘিরে নানা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। দিবসটিকে ঘিরে এবারের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘সঠিকভাবে রক্তচাপ মাপুন, নিয়ন্ত্রণে রাখুন এবং দীর্ঘজীবী হোন।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নন-কমিউনিকেবল ডিজিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রামের (এনসিডিসি) তথ্যমতে, অসংক্রামক রোগে বিশ্বে ৭১ শতাংশ এবং বাংলাদেশে ৬৭ শতাংশ মানুষের মৃত্যু হয়। এ ছাড়া দেশে প্রতি পাঁচ জনে একজন উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন। এ অবস্থায় উচ্চ রক্তচাপ প্রতিরোধে সবাইকে খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তনের পাশাপাশি সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এনসিডি কান্ট্রি প্রোফাইল ২০১৮ অনুসারে, বাংলাদেশে প্রতি বছর মোট মৃত্যুর ৬৭ শতাংশের পেছনে দায়ী নানা অসংক্রামক রোগ। দিন দিন এসব রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। বাংলাদেশে বর্তমানে উচ্চ রক্তচাপ খুব সাধারণ রোগ হিসেবে দেখা দিয়েছে।

এনসিডি রিস্ক ফ্যাক্টর সার্ভে (স্টেপস ২০১৮) অনুসারে, দেশে প্রতি পাঁচ জন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের মধ্যে একজন (২১%) উচ্চ রক্তচাপে (সিস্টোলিক ব্লাড প্রেশার ১৪০ মিমি মার্কারি) আক্রান্ত। এর বাইরে এখনো বিপুল সংখ্যক মানুষ তাদের রক্তচাপ জানেন না। হৃদরোগ, স্ট্রোক, কিডনি রোগ, পক্ষাঘাত, অন্ধত্বসহ নানাবিধ জটিল অসুখের জন্য উচ্চ রক্তচাপ একটি মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ উপাদান।

বিশ্ব রক্তচাপ দিবস  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

করোনায় শনাক্ত ৩৭ জন

প্রকাশ: ০৪:২৭ পিএম, ১৬ মে, ২০২২


Thumbnail করোনায় শনাক্ত ৩৭ জন

সারা দেশে ২৪ ঘণ্টায়  ৩৭ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫৩ হাজার ৪৯ জনে। শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৭৭ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে কারো মৃত্যু হয়নি। ফলে মোট মারা যাওয়ার সংখ্যা ২৯ হাজার ১২৭ জন অপরিবর্তিত রয়েছে।

সোমবার (১৬ মে) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

করোনাভাইরাস   ওমিক্রন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

দেশে করোনা শনাক্ত ৩৩ জন

প্রকাশ: ০৫:২৭ পিএম, ১৫ মে, ২০২২


Thumbnail দেশে করোনা শনাক্ত ৩৩ জন

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩৩ জন। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫৩ হাজার ১২ জনে। শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৮৬ শতাংশ। এসময় দেশে করোনাভাইরাসে কারো মৃত্যু হয়নি। ফলে মোট মারা যাওয়ার সংখ্যা ২৯ হাজার ১২৭ জন অপরিবর্তিত রয়েছে।

রোববার (১৫ মে) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২৬৯ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৯৯ হাজার ৪১৯ জন।

২৪ ঘণ্টায় ৩ হাজার ৮৮৪টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৩ হাজার ৮১৮টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৮৬ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯০ শতাংশ।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। গেল বছরের ৫ ও ১০ আগস্ট দুদিন সর্বাধিক ২৬৪ জন করে মারা যান।


দেশে   করোনা   শনাক্ত   ৩৩ জন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

বুস্টার ডোজের আওতায় ১ কোটি ৩৫ লাখ ৫১ হাজার মানুষ

প্রকাশ: ১০:০৭ এএম, ১৫ মে, ২০২২


Thumbnail বুস্টার ডোজের আওতায় ১ কোটি ৩৫ লাখ ৫১ হাজার জন

করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে দেশে এখন পর্যন্ত বুস্টার ডোজের আওতায় এসেছেন ১ কোটি ৩৫ লাখ ৫১ হাজার ৯৫০ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় দেশে বুস্টার ডোজ পেয়েছেন ৯৭ হাজার ৭০৪ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন শাখার (এমআইএস) পরিচালক ও লাইন ডিরেক্টর অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমানের স্বাক্ষরিত করোনার টিকাদান বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে এ তথ্য জানা যায়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দেশে ভ্যাক্সিনেশন কার্যক্রমের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ১২ কোটি ৮৬ লাখ ৬৭ হাজার ৪৫ জন। এছাড়া দুই ডোজ টিকার আওতায় এসেছেন ১১ কোটি ৬৮ লাখ ৬৩ হাজার ৪৪০ জন মানুষ।

এতে আরও বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় (শনিবার) সারাদেশে প্রথম ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে ৭ হাজার ৬০ জনকে, দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে ৪৯ হাজার জনকে। এছাড়াও এই সময়ে বুস্টার ডোজ দেওয়া হয়েছে ৯৭ হাজার ৭০৪ জনকে। এগুলো দেওয়া হয়েছে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা, সিনোফার্ম, ফাইজার, মডার্না ও জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকা।

গত বছরের ১ নভেম্বর থেকে বাংলাদেশে ১২-১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়। তাদের মধ্যে এখন পর্যন্ত এক কোটি ৭৩ লাখ ২১ হাজার ৪৪২ জনকে প্রথম ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে এক কোটি ৫৯ লাখ ২ হাজার ৫১৩ জনকে।

অধিদপ্তর জানিয়েছে, দেশে এই পর্যন্ত ২ লাখ ১৮ হাজার ৭০১ জন ভাসমান জনগোষ্ঠী টিকার আওতায় এসেছেন। তাদেরকে জনসন অ্যান্ড জনসনের সিঙ্গেল ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, দেশে করোনা টিকার নিবন্ধন শুরু হয় গত বছরের ২৭ জানুয়ারি। ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়। ১৮ বছর বয়সী যেকোনো মানুষ এখন টিকা নিতে পারছেন।

বুস্টার ডোজ   করোনাভাইরাস  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন