ইনসাইড হেলথ

অতিরিক্ত পানি পান শরীরের কোন উপকারে আসে না

প্রকাশ: ০৮:০০ এএম, ২৩ অক্টোবর, ২০২৩


Thumbnail

অতিরিক্ত পানি পান শরীরের জন্য বাড়তি কোনো উপকার করে না। অতিরিক্ত পানি পান ‘হাইপোনেট্রেমিয়া’র জন্য দায়ী। এটা এমন একটা অবস্থা যা রক্তে সোডিয়ামের মাত্রা গুরুতরভাবে কমায়। ফলে মস্তিষ্কের ফোলাভাব এবং ‘কমা’ বা অজ্ঞান হওয়ার মতো পরিস্থিতিও সৃষ্টি করতে পারে। সাধারণ অবস্থায়, প্রচুর পানি পানের ফলে এই সমস্যা দেখা দেয়। শারীরিক পরিশ্রম করেন, বা খুব ঘাম হয় এমন ব্যক্তিদের দ্রুত পানি পান না করে বরং ধীরে পান করা উচিত।

১৯৪৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ‘দ্যা ফুড অ্যান্ড নিউট্রিশন বোর্ড অব দ্যা ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অব সায়েন্স’ দাবি করে যে, শরীর ভালো রাখতে দৈনিক দুই থেকে আড়াই লিটার পানি পান করা জরুরি। এখানে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে বলা হয় যে, অধিকাংশ পানি গ্রহণের পরিমাণ রান্না করা খাবার থেকে আসে, যা অনেকেই সঠিকভাবে খেয়াল করা না। দেহের আর্দ্রতা রক্ষা করতে দৈনিক আট গ্লাস পানি পান করার কথা বলা হয়। তবে ভুলভাবে পানি পান অনেক সময় স্বাস্থ্য ঝুঁকির কারণ হতে পারে।

কঠিন খাবারের জলীয় অংশ বিবেচনা না করা

ইটদিস নটদ্যাট ডটকম’য়ে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুসারে, দৈনিক পানি পানের ২০ শতাংশ আসে কঠিন খাবার থেকে। দেহের আর্দ্রতা ধরে রাখতে ফল, সবজি ইত্যাদি বেশ উপকারী। কারণ এগুলো জলীয় উপাদান সমৃদ্ধ।  শসাতে ৯৬.৭ শতাংশ পানি। লেটুস, টমেটো, তরমুজ, আঙুর ও সবুজ মরিচের প্রায় ৯০ শতাংশের বেশি পানি। এই ধরনের পুষ্টি ও ভিটামিন সমৃদ্ধ সবজি খাওয়া সুসাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়তা করে।

যুক্তরাষ্ট্রের ‘ইন্সটিটিউট অব মেডিসিন’য়ের উদ্ধৃতি দিয়ে প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়, “অধিকাংশ সুস্থ মানুষই তৃষ্ণা মিটাতে পর্যাপ্ত পানি পান করেন। তবে জোর করে পানি পান হয়ত অতিরিক্ত পানি পানকে নির্দেশ করছে।”

অকারণে ক্যাফেইন বাদ দেওয়া

ক্যাফেইন মনোযোগ ও বিপাক বাড়াতে সহায়তা করে। তবে অতিরিক্ত কফি পান দেহে পানিশূন্যতা বাড়ায়। “গবেষণায় দেখা গেছে, ২৫০ থেকে ৩০০ মি.গ্রা. যা প্রায় দুই কাপ কফির সমান ক্যাফেইন গ্রহণ তিন ঘণ্টা পর মূত্রের পরিমাণ বাড়ায়” বলে জানান, ‘ইউনিভার্সিটি অব সাউথ ক্যারোলিনা’র স্বাস্থ্য প্রশিক্ষক ও সহযোগী অধ্যাপক ড. সুসান ইয়ারজিন।

সুতরাং, কফি পান মানেই যে পানিশূন্যতা সৃষ্টি এটা ভুল ধারণা।

‘পিএলওএস’ জার্নালে প্রকাশিত গবেষণা থেকে জানা যায়, পরিমিত কফি পান পানি শূন্যতা সৃষ্টি করে বলে এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তাই অকারণেই কফি পান বাদ দেওয়ার কোনো কারণ নেই। আমেরিকার খাদ্যাভাসে কফি পান প্রদাহ হ্রাসকারী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে।

ঘুমের আগে পরিমিত পানি পান

রাতে ঘুমের আগে খুব বেশি পানি পান বার বার ঘুম ভেঙে যাওয়ার কারণ হতে পারে। নিউ ইয়র্ক ভিত্তিক নিবন্ধিত পুষ্টিবিদ এরিন প্যালেন্সকি ওয়েড বলেন, “রাতে ঘুমাতে যাওয়ার তিন ঘণ্টা আগে পানি পান কিছু কমানো উচিত। এতে করে শরীর তা প্রক্রিয়াজাত করার সুযোগ পাবে।”

প্লাস্টিকের বোতলে পানি পান

প্লাটিকের বোতলে পানি পান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক। যুক্তরাষ্ট্রের ‘ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন’ অনুযায়ী, কম মাত্রার ‘বিসফেনল এ’ (বিপিএ) নিরাপদ। তবে এটা মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য ও রক্তচাপ বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখে। তাই পানি পানের ক্ষেত্রে বিপিএ মুক্ত বোতল ব্যবহার করা উচিত।

পানি ও লেবুর রস এক সঙ্গে

পানি ও লেবুর রস একসঙ্গে গ্রহণ করা কেবল মজাদারই না বরং তা ওজন কমাতেও ভূমিকা রাখে। ‘বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’ অনুযায়ী, লেবুর খোসায় থাকা শক্তিশালী অ্যান্টি অক্সিডেন্ট দেহের দুষিত পদার্থ দূরকারী যকৃতের এনজাইম তৈরিতে সহায়তা করে। এর ভিটামিন সি কর্টিসোলের মাত্রা বাড়ায়। আর চাপ সৃষ্টিকারী হরমোন কমায়। দেহের মেদ কমাতেও সহায়তা করে।  

ঘুম থেকে উঠে পানি পান

সকালে ঘুম থেকে উঠে পানি পান করা বিপাক বাড়াতে সহায়তা করে। যুক্তরাষ্ট্রের পুষ্টিবিদ লিসা জুবলির মতে, “বিপাক বাড়ানোর সহজ উপায় হল ঘুম থেকে উঠে ২০ থেকে ৩০ আউন্স পানি পান করা। কেননা রাতে ঘুমের মধ্যে লম্বা সময় পানি শূন্য থাকায় বিপাক ক্রিয়া ধীর থাকে। তাই সকালে কিছু খাওয়া বা পানের আগে পর্যাপ্ত পানি পান করে নেওয়া ভালো। এর ফলে পেট ফোলাভাব কমা, বেশি শক্তি অনুভব করা এবং ক্ষধা হ্রাস পায়।”

ক্ষুধা ও তৃষ্ণার পার্থক্য করতে না পারা

‘সাইকোলজি অ্যান্ড বিহেইভিয়ার’ জার্নালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জাননো হয়, অধিকাংশ মানুষই তৃষ্ণা লাগলেও ৬০ শতাংশ ক্ষেত্রে পানির বদলে খাবার গ্রহণ করে থাকেন। এর ফলে দেহে বাড়তি ক্যালরি যোগ হয়। তাই ক্ষুধা অনুভব হলেও প্রথমে পানি পান করে ২০ মিনিট অপেক্ষা করা উচিত। যদি এর পরেও ক্ষুধা না মিটে তাহলে খাবার খেতে হবে।

গ্রিন টি পান করা

পানিতে চা পাতা যোগ করলেও তা পানিই থাকে। বাড়তি স্বাস্থ্যপোকারিতা পেতে পানি পানের সময় তাতে গ্রিন টি যোগ করা বিপাক বাড়াতে, কোষ পুনুরুজ্জীবনে ও বিশেষত পেটের মেদ কমাতে সহায়তা করে।  

বরফ ঠাণ্ডা পানি পান করা

আয়ুর্বেদিক শাস্ত্র অনুযায়ী, ঠাণ্ডা পানির তুলনায় গরম পানি পান পাকস্থলীর জন্য বেশি আরামদায়ক।

২০০৩ সালের করা এক গবেষণা অনুযায়ী, বরফ ঠাণ্ডা পানি পান ৩০ শতাংশ পর্যন্ত বিপাক বাড়াতে সক্ষম। কিন্তু গরম পানি পান যে তা করে না এই বিষয়েও কোন প্রমাণ মিলেনি। এছাড়াও তাপমাত্রার পার্থক্যের চেয়েও পানি পান ও সময় সুস্বাস্থ্যের ওপর নির্ভর করে। তাই ঠাণ্ডা পানি পাওয়া না গেলেও সাধারণ পানিও গ্রহণ করা ভালো।

‘স্বাস্থ্যকর’ বোতলের পানি

‘স্বাস্থ্যকর’ পানীয়র নামের আড়ালে অনেক বোতলজাত পানীয়তে বাড়তি ক্যালরি ও শর্করা যোগ করা থাকে। ২০ আউন্স ভিটামিন পানীয়তে প্রায় ২৬ গ্রাম মিষ্টি উপাদান থাকে। খাবার পানীয়র স্বাদ ও মান বাড়াতে চাইলে এতে টুকরা লেবু, স্ট্রবেরি বা পুদিনা যোগ করা যেতে পারে।

কৃত্রিম স্বাদ যোগ করা

বাড়তি স্বাদ যুক্ত পানীয় পান করা মানে হল বাড়তি ক্যালরি যোগ করা। গবেষণায় দেখা গেছে, এতে থাকা কৃত্রিম রঙ, স্বাদ ও মিষ্টি দেহের জন্য ক্ষতিকারক। কৃত্রিম মিষ্টির সুক্রালোজ প্রায় ১০০০ গুণ বেশি চিনির সমপরিমাণ। তাই খাবারে যতটা সম্ভব প্রাকৃতিক মিষ্টি ও স্বাদ রাখা উচিত।

ক্লান্ত অবস্থা পানি পান না করা

নিজেকে সতেজ রাখতে সবসময় চা বা কফি পান নয় বরং পানি পান উপকারী। তাই কাগজের ফাঁকে ক্লান্তি অনুভব করলে পানি পান করা উচিত। প্যালিনস্কি ওয়েড বলেন, “অনেক সময় দেহে সামান্য পানির স্বল্পতা ক্লান্তি সৃষ্টি করে। কারণ মস্তিষ্কের ৮০ শতাংশ পানি দিয়ে তৈরি। তাই পানি অভাবে এর কার্যকারিতা হ্রাস পায়।”

পর্যাপ্ত পানি পান না করা

অধিকাংশ মানুষই পর্যাপ্ত পানি পান করেন না। ফলে নানান শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়। ক্ষুধাভাব অনুভব করা, মুখ শুকিয়ে আসা, মূত্রের রংয়ের পরিবর্তন ইত্যাদি কম পানি পানের লক্ষণ। দেহের পানির চাহিদা মেটাতে সঙ্গে পানির বোতল রাখা ও কিছুক্ষণ পর পর পানি পান উপকারী।


অতিরিক্ত   পানি   পান   শরীর   উপকার  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

বিনামূল্যেই মিলছে ব্যয়বহুল ল্যারিঞ্জিয়াল ক্যান্সারের চিকিৎসা

প্রকাশ: ০৯:৩৯ এএম, ২৬ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

যে কোনো ক্যান্সারই শরীরের জন্য অনেক মারাত্মক একটি রোগ। সেগুলোর মধ্যে ল্যারিঞ্জিয়াল ক্যান্সার বা গলায় ক্যান্সারও অন্যতম। এটি হচ্ছে— এক ধরনের টিউমার জাতীয় রোগ।

এই ক্যান্সার গলার কোষ থেকে শুরু হয়ে থাকে। আর মারাত্মক এ রোগটি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই হয়ে থাকে মদ ও ধূমপান করার কারণে। এই ক্যান্সারে আক্রান্তদের অনেকেই একটা সময় তাদের ভয়েস বক্স হারিয়ে ফেলেন।

এতদিন ভয়ংকর এই রোগে আক্রান্ত রোগীদের জন্য বিদেশের হাসপাতালগুলোই ছিল চিকিৎসার পরিচিত গন্তব্য। তবে আশার কথা হল, বর্তমানে জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে একদমই বিনামূল্যে মিলছে এই রোগের চিকিৎসা।

বেশিরভাগ ল্যারিঞ্জিয়াল ক্যান্সার ফুসফুসেও ছড়িয়ে পড়ে। ছোট টিউমার যা লিম্ফ নোডে ছড়িয়ে পড়েনি তা হল সবচেয়ে কম গুরুতর ধরনের ক্যান্সার। যেখানে, একবার টিউমারগুলি লিম্ফ নোডগুলিতে পৌঁছালে, ক্যান্সার একটি উন্নত পর্যায়ে চলে যায়। ল্যারিঞ্জিয়াল ক্যান্সারের চিকিৎসা নির্ণয়ের পর্যায়ের পাশাপাশি টিউমারের আকারের উপর নির্ভর করে। প্রাথমিক পর্যায়ে ক্যান্সার ধরা পড়লে ডাক্তার রেডিয়েশন থেরাপি বা অস্ত্রোপচারের পরামর্শ দেন।

ভারতে এই রোগের অস্ত্রোপচারসহ সুস্থ হয়ে দেশে ফিরতে খরচ পরে যায় ১৫ লাখ রূপি। যার ব্যয় বহন করা অনেকের ক্ষেত্রেই প্রায় অসম্ভব। ভারত ছাড়া এই চিকিৎসার জন্য বাংলাদেশীদের আরেক গন্তব্য সিঙ্গাপুর। কিন্তু সেখানে খরচাটা আরও বেশি। সফল অস্ত্রোপচার শেষে নিরাময় পেতে রোগীদের ব্যয় করতে হয় ৩০ লাখ টাকারও বেশি।

বাংলাদেশে এই রোগের চিকিৎসা নিয়ে এখন অনেকেই সম্পূর্ণ সুস্থ জীবনবযাপন করছেন। জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে ল্যারিঞ্জিয়াল ক্যান্সারের চিকিৎসা সেবা নিয়ে সুস্থ হওয়া একজন বলেন, আমার ক্যান্সার এখন নির্মূল হয়ে গেছে। কেমোথেরপি বা অন্যান্য থেরাপিরও প্রয়োজন পড়ে নাই। তবে গলায় হাত দিয়ে কথা বলতে হয় এজন্য কিছুটা অসুবিধা হয়।

জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে ল্যারিঞ্জিয়াল ক্যান্সারের চিকিৎসা রোগীদের জন্য স্বস্তিকর তো বটেই, বাংলাদেশের চিকিৎসা ব্যবস্থার আধুনিকায়নেও নতুন একটি মাত্রা বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।  


ল্যারিঞ্জিয়াল ক্যান্সার   জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

সরকারি তিন মেডিকেল কলেজে নতুন পরিচালক নিয়োগ

প্রকাশ: ১১:২৩ এএম, ১৬ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

দেশের সরকারি তিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নতুন পরিচালক নিয়োগ দিয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। কলেজ তিনটি হলো- শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। বুধবার (১৫ নভেম্বর) মন্ত্রণালয়ের

দেশের সরকারি তিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নতুন পরিচালক নিয়োগ দিয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। কলেজ তিনটি হলো- শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

বুধবার (১৫ নভেম্বর) মন্ত্রণালয়ের 

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের পারসোনেল-২ শাখার উপ-সচিব কমল কুমার সাহা স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, স্বাস্থ্যের ময়মনসিংহ বিভাগীয় পরিচালক ডা. মো. শফিউর রহমানকে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক, গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী আইএইচটির অধ্যক্ষ ডা. তরন মন্ডলকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক এবং মাগুরা ৫০০ শয্যা বিশিষ্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালক ডা. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমকে সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে।

বদলি ও পদায়নকৃত কর্মকর্তাদের প্রজ্ঞাপন জারির পর ৫ কর্মদিবসের মধ্যে বদলিকৃত কর্মস্থলে যোগদান করতে বলা হয়েছে। অন্যথায় ৬ষ্ঠ কর্মদিবস থেকে বর্তমান কর্মস্থল থেকে তাৎক্ষণিক অবমুক্ত হিসেবে গণ্য হবেন বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে।


সরকারি   মেডিকেল   কলেজ   পরিচালক   নিয়োগ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

বিশ্বের ২৪ কোটি মানুষ জানেন না, তারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত

প্রকাশ: ০৮:০০ এএম, ১৪ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

সারাবিশ্বে ডায়াবেটিস বর্তমানে একটি মহামারি রোগ হিসেবে চিহ্নিত এবং এই রোগ সারা জীবনের রোগ। নিয়ন্ত্রণে থাকলে স্বাভাবিক জীবন যাপন করা যায় কিন্তু অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিসের জটিলতা অনেক। বিশ্বের অধিকাংশ দেশে ডায়াবেটিসকে মৃত্যুর চতুর্থ প্রধান কারণ হিসেবে ধরা হয়ে থাকে। সুতরাং প্রতিদিন যেমন ডায়াবেটিক রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে, তেমনি বাড়ছে ডায়াবেটিক রোগীদের নানা ধরনের জটিলতা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও আন্তর্জাতিক ডায়াবেটিক ফেডারেশনের তথ্য অনুযায়ী ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ২৪ কোটি মানুষ জানেন না, তারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত।

আজ বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস। এ বছর এই দিবসটির স্লোগান হচ্ছে— ‘Know your risk, Know your response.’ বাংলায় ভাবানুবাদ করা হয়েছে, ‘ডায়াবেটিসের ঝুঁকি জানুন, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিন।’ এ প্রতিপাদ্য থেকে এটা স্পষ্ট যে, আন্তর্জাতিক ডায়াবেটিস ফেডারেশন (আইডিএফ) এবার ডায়াবেটিসের ঝুঁকি থেকে বাঁচতে এ বিষয়ে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের ওপর গুরুত্বারোপ করেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও আন্তর্জাতিক ডায়াবেটিক ফেডারেশনের সম্প্রতিক তথ্যমতে, পৃথিবীতে প্রতি ১০ সেকেন্ডে একজন ডায়াবেটিস রোগীর মৃত্যু হয় এবং দুই জন নতুন ডায়াবেটিস রোগী শনাক্ত হয়!

১৯৯১ সালে আন্তর্জাতিক ডায়াবেটিক ফেডারেশন (আইডিএফ) ১৪ নভেম্বর তারিখটিকে ‘বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করে। ২০০৭ সাল থেকে পৃথিবীজুড়ে দিবসটি পালন শুরু হয়। বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির অনুরোধে বাংলাদেশ সরকার ১৪ নভেম্বর ‘বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস’ পালনের জন্য জাতিসংঘে প্রস্তাব করে। ২০০৬ সালের ২০ ডিসেম্বর জাতিসংঘে এ প্রস্তাব সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়।

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

বাংলাদেশ এন্ডোক্রাইন সোসাইটি জানিয়েছে, বর্তমানে দেশে প্রায় ১ কোটি ৩১ লাখ মানুষ ডায়াবেটিসে ভুগছেন এবং সারা বিশ্বের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান অষ্টম। আগামী চার বছরে এই সংখ্যা দ্বিগুণ হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। সে হিসেবে দেশের চারটি অসংক্রামক রোগের মধ্যে অন্যতম এই ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা ২০২৫ সালের মধ্যে দেড় কোটি ছাড়াতে পারে বলে আশঙ্কা রয়েছে। 


আইডিএফ ডায়াবেটিস এটলাস ডায়াবেটিসের বৈশ্বিক প্রভাব সম্পর্কে সর্বশেষ যে পরিসংখ্যান এবং তথ্য দিয়েছে তাতে দেখা যায়, ২০২১ সালে ৫৩.৭ কোটি মানুষ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ছিলেন। ২০৩০ সালের মধ্যে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা ৬৪.৩ কোটিতে এবং ২০৪৫ সালে ৭৮.৩ কোটিতে পৌঁছানোর আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়া, ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ২৪ কোটি মানুষ জানেন না, তারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। তাদের অধিকাংশই টাইপ-২ ডায়াবেটিস আক্রান্ত। ১২ লাখেরও বেশি শিশু ও কিশোর (০-১৯ বছর) টাইপ-১ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। ২০২১ সালে বিশ্বের ৬৭ লাখ মানুষ ডায়াবেটিসের কারণে মৃত্যুবরণ করেন। ২০২১ সালে ৯৬৬ বিলিয়ন ডলার ব্যয় হয় ডায়াবেটিসের কারণে, যা বৈশ্বিক স্বাস্থ্য খাতে মোট ব্যয়ের ৯ শতাংশ।

ইব্রাহিম মেডিক্যাল কলেজের অধ্যাপক অরুপ রতন চৌধুরী বলেন, ডায়াবেটিসের সম্ভাবনা বেড়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে : কায়িক পরিশ্রম না করা, মোটা বা স্থূলকায় হয়ে যাওয়া, অতিমাত্রায় ফাস্টফুড খাওয়া ও কোমল পানীয় (সফট ড্রিংকস) পান করা, অতিরিক্ত মানসিক চাপের মধ্যে থাকা, ধূমপান করা ও তামাক (জর্দা, গুল, খৈনী, সাদাপাতা) খাওয়া, গর্ভকালীন বিভিন্ন সমস্যা, যাদের বাবা-মা অথবা রক্ত সম্পর্কীয় নিকটাত্মীয়ের ডায়াবেটিস আছে এবং যাদের বয়স ৪৫ বছরের বেশি তাদের ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনা আছে। কাজেই ডায়াবেটিস সম্বন্ধে তাদের অধিকতর সতর্ক থাকা দরকার।


ডায়াবেটিস   মহামারি রোগ   বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বাড়ে কোন শাক খেলে?

প্রকাশ: ০৮:০০ এএম, ৩০ অক্টোবর, ২০২৩


Thumbnail

শীতের আগমনী বার্তা জানান দিচ্ছে প্রকৃতি। বছরের যে কোনো সময়ের তুলনায় শীতকালে শাক-সবজি একটু বেশি পাওয়া যায়।  শীতকালীন শাক–সবজির মধ্যে পালংশাক অন্যতম। সহজলভ্য এই  শাকে রয়েছে অনেক খাদ্যগুণ। আসুন জেনে নিন পালংশাকের গুণের কথা: 

১. পালংশাক চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়ায় এবং শরীরের রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। এই শাকের উচ্চমাত্রার বিটা ক্যারোটিন চোখে ছানি পড়ার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

২. ভিটামিন 'ডি' বাদে পালংশাকে বাকি সব ভিটামিনই রয়েছে। বিশেষ করে বিটা ক্যারোটিন, ভিটামিন 'ই' এবং ভিটামিন 'সি'র উৎস পালংশাক। ভিটামিন সি, ভিটামিন ই ও বিটা ক্যারোটিন ফুসফুসের কার্যকারিতা বাড়ায়। এ ছাড়া পালংশাকে উচ্চমাত্রার আয়রন থাকে।

৩. পালংশাকে থাকে প্রচুর ভিটামিন এ। এটি মানুষের ত্বক  থেকে বিভিন্ন ধরনের ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া দূর করতে সহায়তা করে। এই শাক ত্বকের বাইরের স্তরের আর্দ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করে।

৪. পালংশাকে আছে উচ্চমাত্রার ম্যাগনেশিয়াম, যা রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। এতে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে।  এ ছাড়া পালংশাকে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা।

৫. কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতে এই শাকের জুড়ি মেলা ভার।  

৬. পালংশাকে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট মস্তিষ্কের কোষ সতেজ ও কর্মক্ষম রাখে। তাই মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বাড়াতেও এই শাক খেতে পারেন। 


মস্তিষ্ক   কর্মক্ষমতা   পালন শাক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড হেলথ

বিশ্ব স্ট্রোক দিবস : সঠিক সময়ে চিকিৎসা কমাবে ঝুঁকি

প্রকাশ: ০৯:৩৪ এএম, ২৯ অক্টোবর, ২০২৩


Thumbnail

মস্তিষ্কে হঠাৎ রক্ত সরবরাহে বাধা সৃষ্টি হওয়াকেই স্ট্রোক বলে। রোগটির মূল কারণ মানুষের অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন। বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বেই তরুণদের মধ্যে স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ছে।

অনিয়ন্ত্রিত উচ্চ রক্তচাপও ৫০ ভাগ স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায়। পাশাপাশি অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস, ধূমপান, নিয়মিত মদ্যপান, কায়িক পরিশ্রম না করা, ফাস্টফুড বা জাংক ফুড গ্রহণও স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়াচ্ছে।

এমন বাস্তবতায় আজ দেশে পালিত হচ্ছে বিশ্ব স্ট্রোক দিবস-২০২৩। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘টুগেদার উই আর, গ্রেটার দেন স্ট্রোক’ অর্থাৎ ‘আমাদের ঐক্য স্ট্রোকের চেয়েও প্রবল’।

দিবসটি উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ও ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসার্জারি বিভাগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া নিউরোসার্জারি সোসাইটি অব বাংলাদেশের উদ্যোগে রাজধানী, বিভাগ ও জেলা পর্যায়ের সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে রোগটি সম্পর্কে সচেতনতামূলক বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হবে।

নিউরোসার্জারি বিশেষজ্ঞরা গণমাধ্যমকে বলেন, দেশে অসংক্রামক রোগে মৃত্যুর তৃতীয় কারণ স্ট্রোক। কিন্তু অধিকাংশ মানুষ এর লক্ষণ বুঝতে না পারার কারণে রোগীকে হাসপাতালে নিতে বিলম্ব করেন। অথচ স্ট্রোকের রোগীর জন্য প্রথম চার ঘণ্টা গোল্ডেন আওয়ার বা অতি গুরুত্বপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে হাসপাতালে নিতে পারলে, শুধু ওষুধ দিয়েই রোগী একদিন পরেই সুস্থ শরীরে হেঁটে বাড়ি ফিরতে পারে। কিন্তু অধিকাংশ সময় চিকিৎসকের কাছে আনতে দেরি হয় বলে ক্ষতি বেশি হয়।

উল্লেখ্য, বিশ্ব স্ট্রোক দিবস প্রতিবছর ২৯ অক্টোবর উদযাপিত হয়। মস্তিষ্কে রক্ত সরবরাহ কোনো কারণে বিঘ্নিত হলে স্ট্রোক সংঘটিত হয়। বিশেষ করে রক্তনালী বন্ধ হয়ে কিংবা রক্তনালী ছিঁড়ে মস্তিষ্কে এই রক্ত সরবরাহ বিঘ্নিত হয়। রক্তে থাকে অক্সিজেন আর পুষ্টিগুণ। ফলে অক্সিজেনের অভাবে মস্তিষ্কের টিস্যুগুলো মারা যায়। স্ট্রোকের সবচেয়ে বড় কারণ হলো উচ্চরক্তচাপ। সারাবিশ্বে মৃত্যুর তৃতীয় প্রধান কারণ স্ট্রোক।


স্ট্রোক   চিকিৎসা   ঝুঁকি  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন