ইনসাইড পলিটিক্স

১০ ডিসেম্বর পারেনি, বিএনপি ঘোড়ার ডিম পাড়বে: কাদের

প্রকাশ: ০১:০০ পিএম, ২৪ ডিসেম্বর, ২০২২


Thumbnail আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

বিএনপির সরকার পতনের আন্দোলন প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘তারা ১০ ডিসেম্বর পারেনি। ৩০ তারিখেও ঘোড়ার ডিম পাড়বে।’

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ প্রস্তুত। মোকাবিলা হবে আগুন সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে। মোকাবিলা হবে, খেলা হবে ভোট চুরির বিরুদ্ধে, দুর্নীতির বিরুদ্ধে, ভোট জালিয়াতির বিরুদ্ধে, ভুয়া ভোটারের বিরুদ্ধে, লুটপাটের বিরুদ্ধে। খেলা হবে আবারও নির্বাচনে, আন্দোলনে।’

শনিবার (২৪ ডিসেম্বর) সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের ২২তম জাতীয় সম্মেলনে দলের বার্ষিক প্রতিবেদন উপস্থাপনের সময় বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। উন্নয়ন অর্জন বাঁচাতে হলে শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রাখতে হবে। তার কোনো বিকল্প নেই।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘গত ৪৭ বছরের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা শেখ হাসিনা। সাহসী রাজনীতিক, দক্ষ প্রশাসক ও কূটনীতিকের নাম শেখ হাসিনা।’

তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনা আছেন বলেই পদ্মা সেতুর নির্মাণ সম্ভব হয়েছে।’

বিএনপিকে ইঙ্গিত করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘তাদের মনে বড় জ্বালা, বড়ই অন্তর জ্বালা। শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু করেই ফেলল। ২৮ তারিখ মেট্রোরেল উদ্বোধন করবেন। এই জ্বালা আর সইতে পারে না। নির্বাচন করলে তারা জিততে পারবে না। সেই জন্য সরকার হটানোর ষড়যন্ত্র করছে। শেখ হাসিনাকে ২০ বার হত্যার চেষ্টা হয়েছে। শেখ হাসিনাকে হটাতে পারলে ময়ুর সিংহাসন পাবে সেই আশা করছে তারা।’

তিনি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি আপনারা ঐক্যবদ্ধ হন। সকলের বিশ্বস্ত ঠিকানা শেখ হাসিনা। আগুন সন্ত্রাসকে রুখতে, জঙ্গিবাদ রুখতে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই।’ 

এর আগে আওয়ামী লীগের ২২তম জাতীয় সম্মেলন উদ্বোধন করেন দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার (২৪ ডিসেম্বর) সকাল ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সম্মেলনস্থলে এসে শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন তিনি। একই সঙ্গে জাতীয় সংগীত ও দলীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়।

প্রথমে শেখ হাসিনা জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। একই সময়ে সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সব জেলার নেতাদের নিয়ে দলীয় পতাকা উত্তোলন করেন।


বিএনপি   ওবায়দুল কাদের   ঘোড়ার ডিম  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

আফ্রিকা-ইসরায়েল দেখেন, বাংলাদেশ নিয়ে মাথা ঘামানোর দরকার নেই: যুক্তরাষ্ট্রকে কাদের

প্রকাশ: ০১:২৭ পিএম, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আফ্রিকা-ইসরায়েল দেখেন, বাংলাদেশ নিয়ে মাথা ঘামানোর দরকার নেই।

তিনি বলেন, আফ্রিকায় কদিন পরপর বিদ্রোহ হয়, সেটা থামাতে পারেন না। দুষ্ট ছেলে ইসরায়েলকে থামাতে পারেন না। নেতানিয়াহু তো কথা শোনে না। আমাদের নির্বাচন নিয়ে এত মাথা ঘামানো কেন? যুদ্ধ থামান, বড় বড় সংকট দেখেন, আমাদের নিয়ে মাথা ঘামানোর দরকার নেই। আমরা তো পরাশক্তি হতে চাই না। আবার আমরা ভেনেজুয়েলাও না।

বৃহস্পতিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলটির নির্বাচনী ইশতেহার প্রণয়ন কমিটির প্রথম সভায় তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমরা নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করবো। আমরা যা করবো, পরিপূর্ণভাবেই সংবিধান ফলো করেই করবো। দুনিয়ার অন্যান্য দেশে যেভাবে হয়, সেভাবেই হবে। কে এলো কে এলো না, এটা আমাদের দেখার বিষয় না। কে নিষেধাজ্ঞা দিলো, সেটাও আমাদের হেডেক না। আমরা তো নির্বাচন করবো, নিষেধাজ্ঞা আমাদের জন্য নয়, যারা বাধা দেবে, তাদের নিষেধাজ্ঞা দেন।

বিএনপি নেতাদের বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, মির্জা আব্বাস চাঁদরাত দেখেছেন। কী দেখেছেন, ঝিনাইদহে কয়েকজন মানুষ দেখেছে। ফখরুল বলেছেন, অক্টোবরে নাকি আমাদের চলে যেতে হবে। আমি বলেছি, এই অক্টোবরে আছি, আগামী অক্টোবরেও থাকবো। জনগণ আমাদের চায়। একটা দেশের প্রধানমন্ত্রী সংকটে শক্তহাতে হাল ধরে আছেন, কেন তাকে ছেড়ে দিতে হবে? তার বিকল্প ভাবেন। শেখ হাসিনার বিকল্প আছে কি? সেটি ভাবতে হবে, সেই আলোকে ইশতেহার সাজাতে হবে।

শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কাদের বলেন, ৭৭ বছরেও তার গতি দেখলে মনে হয়, গতিতে তিনি সত্যিকারার্থে অ্যারাবিয়ান হর্স। শেখ হাসিনা আল্লাহর পক্ষ থেকে বাংলাদেশের জন্য আশীর্বাদ।

এই সভায় নির্বাচনী ইশতেহার প্রণয়ন কমিটির আহ্বায়ক ড. আব্দুর রাজ্জাক, সদস্য সচিব ড. সেলিম মাহমুদ, সদস্য অধ্যাপক খন্দকার বজলুল হক, অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, ড. শামসুল আলম, ডা. দীপু মনি, শ ম রেজাউল করিম, অধ্যাপক মাহফুজুর রহমান, অধ্যাপক খায়রুল হোসেন, শেখর দত্ত, ওয়াসিকা আয়েশা খান, বিপ্লব বড়ুয়া, মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, তারানা হালিম, মোহাম্মদ আলী আরাফাত, সাজ্জাদুল হাসান, অধ্যাপক মাকসুদ কামাল, জুনাইদ আহমেদ পলক, সাদিকুর রহমান চৌধুরী, সায়েম খান, সাব্বির আহমেদ অংশ নেন।



মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

প্রস্তুত আওয়ামী লীগ, সময়মতোই খেলা হবে: ডা. মুরাদ

প্রকাশ: ০৭:১২ পিএম, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান বলেছেন, জামায়াত-বিএনপিকে প্রতিহত করার জন্য আওয়ামী লীগ প্রস্তুত আছে। সময়মতোই খেলা হবে। 

মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে বিক্ষোভ মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে  তিনি এ কথা বলেন। 

‘বিএনপি-জামায়াতের দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র, সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও অপপ্রচারের’ প্রতিবাদে এ কর্মসূচির আয়োজন করে অ্যাডভোকেট মতিয়র রহমান তালুকদার স্মৃতি সংসদ। বিক্ষোভ মিছিলটি পৌর এলাকার বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে বের হয়ে শিমলা বাজারসহ প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পৌরসভা চত্বরে পথসভায় মিলিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন ডা. মুরাদ হাসান।

সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, জামায়াত-বিএনপির দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে। তাদের অসৎ উদ্দেশ্য কখনোই পূরণ হবে না।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালে চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহির সঙ্গে ফোনালাপ ফাঁস হওয়ার পর ডা. মুরাদ হাসানকে মন্ত্রিসভা থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদত্যাগের নির্দেশ দেন। পরে অশালীন ও শিষ্টাচার বহির্ভূত বক্তব্যের ঘটনায় তাকে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

ডা. মুরাদ হাসান  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

নির্বাচনের আগে বড় চমক দেবে আওয়ামী লীগ

প্রকাশ: ০৬:০০ পিএম, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তিন মাস সময় রয়েছে। নির্বাচন হবে কিনা তা নিয়ে এক ধরনের অনিশ্চয়তা রয়েছে। তবে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকরা আশাবাদী। তারা বলছেন, নভেম্বরে তফসিল ঘোষণা করা হবে। জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে নির্বাচন হবে। আর নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ বড় ধরনের চমক দেবে। কি সেই চমক তা নিয়ে রাজনীতির অঙ্গনে নানামুখী আলোচনা হচ্ছে।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা একটা বিষয়ে একমত যে, বর্তমান রাজনৈতিক অচল অবস্থা কাটানো দরকার। এই অচল অবস্থা কিভাবে কাটতে পারে তা নিয়ে রাজনীতির অঙ্গনে নানা রকম আলাপ আলোচনা আছে। অনেকেই বলছেন, প্রধান দুটি রাজনৈতিক দলের মধ্যে সমঝোতা এবং সংলাপ প্রয়োজন। যেমনটি হয়েছিল ২০১৮ নির্বাচনে। ২০১৪ নির্বাচনের আগেও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তৎকালীন বিরোধী দলের নেতা বেগম খালেদা জিয়াকে সংলাপের জন্য আহ্বান জানিয়েছিলেন। কিন্তু সেই সংলাপের প্রস্তাব বেগম জিয়া প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। এবার কি তেমন কিছু হবে?

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, আওয়ামী লীগের প্রধান লক্ষ্য হলো আগামী নির্বাচন করা এবং সেই নির্বাচন যেন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক  ভাবে গ্রহণযোগ্য হয় সেজন্য আওয়ামী লীগ সবকিছুই করবে। আর তাই নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগের তরফ থেকে বেশ কিছু বড় ধরনের চমক আসতে পারে। তবে কি ধরনের চমক সেটি সম্পর্কে কেউই জানেন না। কোনো কোনো রাজনৈতিক বিশ্লেষক এই নিয়ে অনুমান করতে পারেন।

১. বিরোধী দলের সাথে সংলাপ: প্রতিটি নির্বাচনের আগেই আওয়ামী লীগ বিরোধী দলের সঙ্গে সংলাপ করেছে। যদিও এই সংলাপের আগে বলা হয়েছে, আমরা এ ধরনের সংলাপ করবো না, কিসের সংলাপ ইত্যাদি। কিন্তু একটা সময় নাটকীয় ভাবে সংলাপের প্রস্তাব লুফে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। ২০১৮ সালের কথাই যদি আমরা ধরি সেই সময় ড. কামাল হোসেন সরকারের সাথে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। সেই প্রস্তাব আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, কিসের আলোচনা। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার রাজনৈতিক বিচক্ষণতায় এই প্রস্তাবটি লুফে নিয়েছিলেন এবং গণভবনে সবাইকে দাওয়াত দিয়েছিলেন। ওই আলাপ আলোচনার ভিত্তিতেই নির্বাচনের পথ প্রশস্ত হয়। এবার যদিও সংলাপ নিয়ে একটি নেতিবাচক অবস্থান রয়েছে কিন্তু শেষ পর্যন্ত সংলাপ হবে এমনটি মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। কারণ আন্তর্জাতিক মহলের কাছে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য আওয়ামী লীগকে দৃশ্যত বিএনপির সঙ্গে একটি সমঝোতার চেষ্টা দেখাতেই হবে।

আওয়ামী লীগ আন্তরিক ভাবে চেয়েছিল বিএনপি নির্বাচনে আসুক। তাদেরকে সমঝোতার জন্য ডাকা হয়েছিল, সংলাপের জন্য ডাকা হয়েছিল কিন্তু তারা প্রত্যাখ্যান করেছে। এটি যদি আওয়ামী লীগ প্রমাণ করতে পারে তাহলে সেক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের জন্য বিএনপিকে ছাড়া নির্বাচন করার পথ প্রশস্ত হবে। আর সে কারণেই আওয়ামী লীগের বড় চমক হতে পারে যে সংলাপের জন্য বিএনপিকে প্রস্তাব দেওয়া বা এ ধরনের প্রস্তাবকে প্রশ্রয় দেওয়া। 

২. সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করা: নির্বাচনের তফসিলের আগেই সরকার তার ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার জন্য চেষ্টা করবে এবং এটি একে নাটকীয় সিদ্ধান্ত হতে পারে। অনেকেই মনে করছেন, যেহেতু নির্বাচনের সময় ঘনিয়ে এসছে এখন শেখ হাসিনা মন্ত্রিসভার রদবদল করবেন না। কিন্তু বিভিন্ন সূত্রগুলো মনে করছে, নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার আগে সরকারের ইমেজ পুনরুদ্ধার বিশেষ করে অর্থনৈতিক সংকট থেকে মুক্তি, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি রোধ ইত্যাদি নানা বিষয়ের দিকে সরকার নজর দিবে এবং একটি নাটকীয় সিদ্ধান্ত নিয়ে মন্ত্রিসভায় বা সরকারের ভিতর বড় ধরনের পরিবর্তন আনতে পারে এবং সেটি হবে একটি বড় ধরনের চমক। 

৩. মনোনয়নের ব্যাপারে নাটকের সিদ্ধান্ত: আগামী জাতীয় সংসদের মনোনয়ন প্রাপ্তির ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ নাটকীয় সিদ্ধান্ত নিতে পারে। যারা বিতর্কিত, যারা অজনপ্রিয় তাদেরকে বাদ দিয়ে এমন জনপ্রিয় ব্যক্তিদেরকে নির্বাচনের মাঠে নামাতে পারে তা যা দেখে ভোটাররা উৎসাহিত হয় এবং ভোট কেন্দ্রে ভোট দিতে যায়। এরকম একটি সিদ্ধান্ত গ্রহণের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ বর্তমান পরিস্থিতি সামাল দেওয়া দিতে পারে বলেই অনেকে ধারণা করছে। তবে কি ধরনের চমক হবে বা কি ধরনের নাটকীয়তা হবে সেটি বড় বিষয় না। আওয়ামী লীগ অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনের একটা রাস্তা খুঁজে বের করবে।

নির্বাচন   প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা   আওয়ামী লীগ   বিএনপি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

কয়েক দিনের মধ্যে দেশের ভাগ্য নির্ধারণ হবে: মির্জা ফখরুল

প্রকাশ: ০৫:২৯ পিএম, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

কয়েক দিনের মধ্যে দেশের মানুষের ভাগ্য নির্ধারণ হবে বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, আগামী দিনের দেশ কেমন হবে, তা নির্ভর করছে আগামী কয়েক দিনের ওপর। 

বুধবার (২৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রয়াত সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ’র ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে অনুষ্ঠিত এক স্মরণ সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। আ স ম হান্নান শাহ স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে এ স্মরণসভা হয়।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে বিএনপিসহ বিরোধী রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশ নেবে না বলে জানান বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, ‘তাদের অধীনে কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না। সেই কারণে এদেশের কোনো মানুষ শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে অংশ নেবে না। সমস্ত রাজনৈতিক দল একই কথা বলছে। তারপরও দেখেন এই আওয়ামী লীগ সরকার কতটা দেউলিয়া হয়ে গেছে, তারা দল ভাঙ্গার চেষ্টা করে। আমাদের দল যাদের বহিষ্কার করেছিল তাদের দিয়ে। এগুলো করে লাভ হবে না। মানুষ সিদ্ধান্ত নিয়ে নিয়েছে। মানুষ নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ এবং অংশগ্রহণমূলক একটি নির্বাচন চায়। এই দাবিতে আমরা রাজপথে আছি। যতই নির্যাতন করুক আমাদের দমিয়ে রাখতে পারবে না।

সংগঠনের আহ্বায়ক ও গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক মিলনের সভাপতিত্বে এবং দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মজিবুর রহমানের পরিচালনায় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন চৌধুরী, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা বেনজির আহমেদ টিটু, হুমায়ুন কবির খান, কৃষক দলের ওমর ফারুক শাফিন, প্রয়াত হান্নানশাহ’র পুত্র শাহ রিয়াজুল হান্নান, ডিইউজের একাংশের সহসভাপতি রাশেদুল হক, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান খন্দকার আজিজুর রহমান পেরা প্রমুখ।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর   বিএনপি   আন্দোলন   রাজনীতির খবর  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

বিএনপির আন্দোলন জমছে না কেন

প্রকাশ: ০৫:০০ পিএম, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

এক দফা আন্দোলন ঘোষণা করেছিল বিএনপি তিন মাস আগে। কিন্তু এক দফা আন্দোলন ঘোষণার পর বিএনপি আন্দোলন জমাতে পারছে না। আন্দোলনের সনাতন পদ্ধতির বদলে বিএনপি জনসংযোগ মূলক কর্মসূচি করছে। বিএনপির নেতারাই বলছেন, আন্দোলন জমছে না। জনগণ আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্ত হচ্ছে না। শুধু বিএনপির মধ্যেই হতাশা নয় বরং বিএনপিকে যারা আন্দোলনের জন্য পৃষ্ঠপোষকতা দিচ্ছিলো সেই সুশীল সমাজ এবং কিছু কিছু বিদেশি কূটনীতিকরাও বিএনপির আন্দোলনের গতিপ্রকৃতি দেখে হতাশ। মূল পরিকল্পনায় বিএনপি পার্শ্ব চরিত্র।

সুশীল সমাজ এবং কয়েকটি দেশের কূটনীতিকরা বিএনপিকে বলেছিল যে আন্দোলন তীব্র করতে হবে, জোরালো করতে হবে, তাহলেই অন্যদিক থেকে চাপ আসবে। আর এই দ্বিমুখী চাপে সরকার স্যান্ডউইচ হবে। কিন্তু বাইরে থেকে যে চাপগুলো আসছে সেই চাপের সাথে তাল মেলাতে পারছেন না বিএনপি। বিএনপির মধ্যে কর্মসূচি নিয়ে দ্বিধা, দ্বন্দ্ব, নানা রকম টানাপোড়েন দেখা যাচ্ছে। ফলে এই সমস্ত কর্মসূচিগুলো এখন কর্মী সমাবেশে পর্যবেসিত হচ্ছে। 

বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন সদস্যই স্বীকার করেছেন যে, আন্দোলনের প্রধান সমস্যা হলো, তারা জনগণকে আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্ত করছেন না। তারা ধারণা করেছিলেন যে, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি সহ বিভিন্ন সমস্যার কারণে জনগণ সরকারের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে বিএনপির আন্দোলনে যুক্ত হবে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে যে,মানুষের মধ্যে ক্ষোভ অসন্তোষ আছে বটে কিন্তু তা বিএনপি পকেট ভর্তি করতে পারছে না। বিএনপির এই ব্যর্থতার জন্য আন্দোলন জমছে না। তাছাড়া বিএনপির একটা বড় সমস্যা হলো সাংগঠনিক দুর্বলতা। দীর্ঘ সতেরো বছর ধরে ক্ষমতার বাইরে দলটি। বিএনপির জন্মই হয়েছিল ক্ষমতার গর্ভে। কাজেই সবসময় ক্ষমতার হালুয়া রুটি খাওয়া নেতাকর্মীরা যে এখনো অটুট আছে, এখনো যে বিএনপি ভাঙ্গেনি এটাকেই বিএনপির নেতাকর্মীরা একটা বড় প্রাপ্তি বলে মনে করছেন। 

তারা বলছেন যে, আন্দোলন করার মত যে কৌশলগত দক্ষতা দরকার তা বিএনপির নেই। কারণ একক ভাবে কখনো আন্দোলন করে বিএনপি জয়ী হতে পারেনি। নব্বই এর গণআন্দোলনে আওয়ামী লীগের পার্টনার হিসেবে বিএনপি অংশগ্রহণ করেছিল। আর চৌদ্দ এবং পনেরোতে আন্দোলন করে বিএনপি সফল হতে পারেনি। তাই মাঠের আন্দোলনের অনভ্যস্ততার কারণে বিএনপি আন্দোলন জমাতে পারছে না বলে কেউ কেউ মনে করেন। তাছাড়া বিএনপির নেতৃত্বের সংকট এবং একজন নেতা যিনি জনগণকে উদ্বেলিত করবে, তার অভাব আন্দোলনের মুখ থুবড়ে প্রভাব পরার অন্যতম কারণ। 

নব্বইয়ের এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের সময় বেগম খালেদা জিয়া ছিলেন বিএনপির অবিসংবাদিত নেতা। তার জনপ্রিয়তা তৈরি হয়েছিল। কিন্তু এখন বিএনপিতে সেরকম জনপ্রিয় নেতা নেই। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর একজন সজ্জন ব্যক্তি হিসাবে পরিচিত। কিন্তু জাতীয় ভাবে তার জনপ্রিয়তা বা ওই মাপের জাতীয় নেতা হিসেবে আবির্ভূত হওয়ার সক্ষমতা নিয়ে অনেকের প্রশ্ন রয়েছে। অন্য নেতাদেরও অবস্থা তাই। 

বিএনপি মূলত একটি পরিবার কেন্দ্রিক দল। বেগম খালেদা জিয়ার পর তারেক জিয়াই বিএনপির প্রধান নেতা। কিন্তু তারেক জিয়া এখন পলাতক জীবন যাপন করছেন। লন্ডনে অবস্থান করছেন। বাংলাদেশের মতো তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে আন্দোলন গড়ে তুলতে হলে নেতৃত্ব একটা বড় ফ্যাক্টর। একজন নেতার নির্দেশে বা নেতার প্রতি আনুগত্যে মানুষ উদ্বেলিত হয়। এইরকম কোনো নেতা বিএনপিতে নাই। সবকিছু মিলিয়ে বিএনপির আন্দোলন শুধু রোডমার্চ আর সমাবেশের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকছে। এরকম আন্দোলন করে আর যাই হোক সরকারকে চাপে ফেলা যাবে না। এটা বিশ্বাস করছেন বিএনপির নেতারাও।

বিএনপি   আন্দোলন   এক দফা   সুশীল সমাজ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন