ইনসাইড পলিটিক্স

সংকটে শামীম ওসমান-নাহিদ এবং অন্যান্য

প্রকাশ: ০৯:০০ পিএম, ২১ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

আওয়ামী লীগ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ এবং অংশগ্রহণমূলক করতে চায়। এ কারণে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলকে নির্বাচনের মাঠে নামানোর জন্য চেষ্টা চলছে। একই সাথে বিএনপিতে যারা নির্যাতিত নিপীড়িত এবং অমূল্যায়নের শিকার হয়েছেন, তারাও বিভিন্ন রাজনৈতিক প্লাটফর্ম তৈরি করছেন। বিএনপির মধ্যে যারা জনপ্রিয় নেতা, যারা রাজনীতি করতে চান, আগামী নির্বাচনে তারা অংশগ্রহণের পক্ষেই। এজন্য বিএনপিতে বড় ধরনের ভাঙন শুরু হয়েছে। এই ভাঙনের অংশ হিসেবে বিএনপির বহু নেতাই দলত্যাগ করেছেন অথবা দলত্যাগ করার অভিপ্রায় ব্যক্ত করার অভিযোগে তাদেরকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এই সমস্ত ব্যক্তিদের নিয়ে ইতোমধ্যে একাধিক রাজনৈতিক প্ল্যাটফর্ম গড়ে উঠেছে। তাদের মধ্যে তৃণমূল বিএনপি অন্যতম। 

শমসের মবিন চৌধুরী এবং তৈমুর আলম খন্দকারের নেতৃত্বে তৃণমূল বিএনপি আগামী নির্বাচনে তিনশ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করবে বলে জানানো হয়েছে। এছাড়াও বিএনএম নামে আরেকটি রাজনৈতিক দলের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে। তারাও এবার জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বেশ কিছু আসনে প্রার্থী দেবে বলে জানা গেছে। জাতীয় পার্টিকে ছাপিয়ে এই সমস্ত রাজনৈতিক দলগুলোকে নিয়ে এখন রাজনৈতিক অঙ্গনে নানামুখী আলোচনা চলছে। আর এই সমস্ত আলোচনার ফলে আওয়ামী লীগের দুর্গে কিছু কিছু জায়গায় আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। আর এই আতঙ্কের প্রধান কারণ হল এই সমস্ত দলগুলো যদি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে এবং অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় তাহলে আওয়ামী লীগের অনেক গুরুত্বপূর্ণ নেতার ভাগ্য বিপর্যয় ঘটতে পারে। যেমন- নারায়ণগঞ্জের শামীম ওসমানের কথাই ধরা যাক। শামীম ওসমান নারায়ণগঞ্জের যে আসনটিতে দাঁড়িয়েছেন, সেই আসনেই তৃণমূল বিএনপির মহাসচিব তৈমুর আলম খন্দকারের প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার কথা রয়েছে। তৈমুর আলম খন্দকার গত সিটি নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র পদপ্রার্থী হয়েছিলেন এবং ওই নির্বাচনে তিনি ভাল লড়াই করেও শেষ পর্যন্ত পরাজিত হয়ে যান। ওই নির্বাচনে দাঁড়ানোর জন্য তাকে বিএনপি থেকে বহিষ্কার করা হয়। এখন তিনি তৃণমূল বিএনপি নেতা। তিনি শামীম ওসমানের আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে পারেন এমন শঙ্কা করা হচ্ছে এবং শামীম ওসমানের আসনে তাকে প্রার্থী করার জন্য আওয়ামী লীগের আরেক নেতা সেলিনা হায়াৎ আইভী উৎসাহ উদ্দীপনা দিচ্ছেন। 

বিভিন্ন সূত্র বলছে, নারায়ণগঞ্জের একাধিক আসনে তৈমুর আলম খন্দকার প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে পারে। তার মধ্যে শামীম ওসমানের আসনটি অন্যতম। এই আসনে যদি তৈমুর আলম খন্দকার দাঁড়ান তাহলে নিশ্চিতভাবেই তিনি সেলিনা হায়াৎ আইভীর সমর্থন পাবেন। সেলিনা হায়াৎ আইভীর সমর্থন পেলে এই আসনে শামীম ওসমানের বড় ধরনের বিপর্যয় ঘটার শঙ্কা রয়েছে। শামীম ওসমানের আসনটি তাই ঝুঁকির মধ্যে আছে বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। 

একই অবস্থা আওয়ামী লীগের সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের আসন। তিনি সিলেটের যে আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চাচ্ছেন সেই আসনে প্রার্থী হবেন শমসের মবিন চৌধুরী। তিনি তৃণমূল বিএনপির চেয়ারপার্সন। এই আসনে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য নুরুল ইসলাম নাহিদের ভাগ্য বিপর্যয় ঘটার শঙ্কা রয়েছে। কারণ শমসের মবিন চৌধুরীর পিছনে আওয়ামী লীগের একটি বড় অংশ কাজ করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কারণ দীর্ঘদিন ধরে শমসের মবিন চৌধুরীর সঙ্গে আওয়ামী লীগের ঘনিষ্ঠতা রয়েছে। অন্যদিকে নুরুল ইসলাম নাহিদ এক সময় কমিউনিস্ট পার্টির সম্পাদক ছিলেন। কমিউনিস্ট রাজনীতির কারণে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে তিনি ততটা গ্রহণযোগ্য নন। আর এ কারণেই আওয়ামী লীগের একটি অংশ শমসের মবিন চৌধুরীর পক্ষে কাজ করা শুরু করতে পারে। ফলে তারও ভাগ্য বিপর্যয় ঘটবে। এই দুটি আসন শুধু নয়, এরকম অনেকগুলোই আসন রয়েছে যেখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা তৃণমূল বিএনপি, বিএনএম বা অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে বড় চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে পারে। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে এবং আওয়ামী লীগের দলের অন্তর্দ্বন্দ্ব না মিটলে এ সব আসনে আওয়ামী লীগের ভাগ্য বিপর্যয় ঘটতে পারে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

শামীম ওসমান   নির্বাচন   নুরুল ইসলাম নাহিদ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

বাংলাদেশের ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক

প্রকাশ: ০৬:৪৪ পিএম, ১৮ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের অফিশিয়াল ওয়েবসাইট (bsl.org.bd) হ্যাক করা হয়েছে।

ওয়েবসাইটিতে প্রবেশ করলে ছাত্রলীগ এবং এর কার্যক্রম সম্পর্কে স্বাভাবিক তথ্যের পরিবর্তে, অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের ছবিসহ চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলন সম্পর্কে একাধিক বার্তা রয়েছে।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সন্ধ্যা ৬টা ২৩ মিনিটের সময়ও ওয়েবসাইটটি একই অবস্থায় ছিল।

ওয়েবসাইটের উপরে একটি লেখা দেখা যাচ্ছে যাতে লেখা ছিল ‘Hacked by The Resistance’।

এ ছাড়া ছাত্রহত্যা বন্ধের আহ্বান জানিয়ে কালো ব্যাকগ্রাউন্ডে লাল বর্ণে লেখা রয়েছে: ‘এখন আর প্রতিবাদ নয়, এটা এখন যুদ্ধ’।

ওয়েবসাইটের যে কোনো জায়গায় ক্লিক করলে অপারেশন হান্টডাউন নামে একটি টেলিগ্রাম চ্যানেলের সঙ্গে লিঙ্ক করা অবস্থা দেখা যায়।


বাংলাদেশ   ছাত্রলীগ   ওয়েবসাইট   হ্যাক  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্রতি জামায়াতে ইসলামীর আনুষ্ঠানিক সমর্থন

প্রকাশ: ০৯:৪৮ এএম, ১৮ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের ব্যানারে চলমান কর্মসূচীর প্রতি সর্বাত্মক সমর্থন ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। আজ বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকালে এক বিবৃতিতে দলটি এই সমর্থনের কথা জানায়।  

এ সময় বিবৃতিতে শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে পুলিশ ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং ছাত্রলীগের হামলায় এ পর্যন্ত ৭ জন মারা যাওয়ার ঘটনার কথা উল্লেখ করে দলটি। 

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, বেশ কিছুদিন যাবত সরকারি চাকরিতে বিদ্যমান কোটা ব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে দেশের ছাত্রসমাজ শান্তিপূর্ণভাবে তাদের দাবি আদায়ের আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে। দেশের শিক্ষক সমাজ, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবী, আইনজীবী, ওলামায়ে কেরামসহ দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলসমূহ ছাত্রসমাজের আন্দোলনের প্রতি সমর্থন দেয়ায় ছাত্রসমাজের আন্দোলন একটি সিদ্ধান্তকারী পর্যায়ে পৌঁছেছে।'

সংগঠনটির সেক্রেটারি জেনারেল ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর পক্ষ থেকে আজ ১৮ জুলাই বৃহস্পতিবার সারাদেশে সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে বৈষম্য বিরোধী ছাত্র আন্দোলনের কর্মসূচির প্রতি সর্বাত্মক সমর্থন জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, বৈষম্য বিরোধী ছাত্র আন্দোলনের কর্মসূচির প্রতি সমর্থন এবং ছাত্রসমাজের পাশে দাঁড়াবার জন্য আমি বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর পক্ষ থেকে সমগ্র দেশবাসী তথা আপামর জনসাধারণের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি।'


কোটা   আন্দোলন   জামায়াতে ইসলামী  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচিতে বিএনপির সর্বাত্মক সমর্থন ঘোষণা

প্রকাশ: ০৯:৩৪ এএম, ১৮ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সারাদেশেকমপ্লিট শাটডাউনঘোষণা করেছেন আন্দোলনকারীরা। শিক্ষার্থীদের কর্মসূচিতে সর্বাত্মক সমর্থন জানিয়েছে বিএনপি।

বুধবার (১৭ জুলাই)  রাত ১০ টায় দলের পক্ষ থেকে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে সমর্থনের কথা জানান বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদেরকমপ্লিট শাটডাউনকর্মসূচিতে বিএনপির সর্বাত্মক সমর্থন রয়েছে। এতে দেশের আপামর জনসাধারণকে অংশ নেওয়ার জন্য জোরালো আহ্বান জানানো হয়েছে।

এর আগে, নিরাপদ ক্যাম্পাস নিশ্চিত এক দফা দাবিতে আগামীকাল বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সারা দেশেকমপ্লিট শাটডাউনকর্মসূচি ঘোষণা করে কোটা সংস্কার দাবিতে আন্দোলনের প্লাটফর্মবৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন


কমপ্লিট   শাটডাউন   কর্মসূচি   বিএনপি   সর্বাত্মক   সমর্থন   ঘোষণা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

কোটাবিরোধী আন্দোলনে সমর্থন দিয়ে বিক্ষোভের ডাক হেফাজতের

প্রকাশ: ০৮:৩৪ এএম, ১৮ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

দেশে চলমান সহিংসতা ও কোটা সংস্কার আন্দোলনের পক্ষে সমর্থন জানিয়ে কওমি মাদ্রাসার শিক্ষর্থীদের রাজপথে নামার ঘোষণা দিয়েছে হেফাজতে ইসলাম। বুধবার (১৭ জুলাই) রাত ১০টার দিকে দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার সামনে ডাকবাংলো চত্বরে সাধারণ শিক্ষার্থীদের পক্ষে এ ঘোষণা দিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মীর ইদ্রিস নদভী।

এদিন এশারের নামাজের পর হঠাৎ মাদ্রাসা থেকে শতাধিক মাদ্রাসা শিক্ষার্থী ডাকবাংলো চত্বরে জমায়েত হয়ে সারা দেশে কোটা বিরোধী আন্দোলনকারীদের উপর হামলা, নিহত ও আহত হওয়ার প্রতিবাদে সংহতি সমাবেশ করেন। 

এসময় হেফাজতে ইসলামের একাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। নেতারা অনতিবিলম্বে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে নিয়ে তাদের উপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। একইসঙ্গে হামলা অব্যাহত থাকলে কওমি মাদরাসা শিক্ষার্থীরাও রাজপথে নেমে আসবে বলেও হুশিয়ারী দেন তারা। 

আজ বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) আসরের নামাজের পর হাটহাজারী মাদ্রাসা থেকে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের পালনের কথা জানায় হেফাজত ইসলাম। 

এ সময় হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মীর ইদ্রিস নদভী বলেন, ৫৬% হারে কোটা পদ্ধতিতে নিয়োগ, প্রশাসন যন্ত্রে মেধাহীনতার সৃষ্টি হচ্ছে। রাষ্ট্র ও জাতির স্বার্থে কোটা পদ্ধতির সংস্কার জরুরী। এ বিষয়ে জাতীয় ঐক্যমত সময়ের দাবি। কোটা পদ্ধতিতে নিয়োগের কারণে রাষ্ট্রযন্ত্র মেধাশূন্য।


কোটা   আন্দোলন   বিক্ষোভ   হেফাজত  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

কোটা আন্দোলনে সমর্থন দেওয়ায় আ.লীগ নেতাকে অব্যাহতি

প্রকাশ: ০৮:২৬ এএম, ১৮ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

দেশজুড়ে চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলন ইস্যুতে সমর্থন দিয়ে বিপাকে পড়েছেন জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মোশারফ হোসেন মিরাজ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আন্দোলনের সমর্থনে পোস্ট দিতেও দেখা যায় তাকে। আর এর ফলে তাকে দল থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে বকশীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আকরামুজ্জামান ফরহাদ তাকে এই অব্যাহতির নোটিশ দেন। একইসঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদপ্তর সম্পাদক পদধারী মিরাজ আগামী সাত দিনের মধ্যে নোটিশের যৌক্তিক ও যথাযথ জবাব না দিতে পারলে চূড়ান্তভাবে বহিষ্কার হতে পারেন বলেও নোটিশে জানানো হয়। 

এর আগে, গত ১৫ ও ১৬ জুলাই কোটা সংস্কার আন্দোলনে সমর্থন জানিয়ে নিজের ফেসবুক ওয়ালে দুটি পোস্ট করেন আওয়ামী লীগ নেতা মিরাজ।

অব্যাহতি পাওয়ার বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করে এই নেতা বলেন, ’আমি আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতিতে বিশ্বাসী। বঙ্গবন্ধু সারা জীবন বৈষম্যের বিরুদ্ধে আন্দোলন করে গেছেন। তাই যৌক্তিক দাবির সঙ্গে আমি একমত পোষণ করেছি। এ কারণে আমাকে দল থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।’

 অব্যাহতির বিষয়ে জানতে চাইলে বকশীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আকরামুজ্জামান ফরহাদ বলেন, ‘উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নির্দেশক্রমে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।’


জামাল্পুর   কোটা আন্দোলন   আ.লীগ নেতা   অব্যাহতি  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন