ইনসাইড থট

বিদায় ২০২১

প্রকাশ: ১১:০০ এএম, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২১


Thumbnail

দেখতে দেখতে চোখের পলকে ২০২১ খ্রিস্টাব্দের দ্বার প্রান্তে চলে এলাম আমরা। সময় এসেছে দেনা পাওয়ার হিসাব চুকাতে। আর এই দেনা পাওয়ার হিসাব হচ্ছে মানবীয় জীবনের। যে সংকল্প নিয়ে আমরা শুরু করেছিলাম এই বছর তা কতটুকু পূরণ করতে পেরেছি? কতটুকু অন্যের প্রতি মানবিক হতে পেরেছি? নিজ নিজ ধর্মীয় মূল্যবোধ কতটুকু পালন করতে পেরেছি? আজকেই এটা উপযুক্ত সময় একটু পিছনে ফিরে তাকানো। আর সেই পিছনে ফিরে যাওয়ার জন্যে আমাদের কিছু প্রশ্নের সাহায্য নিতে হবে। মনের রাখতে হবে পিছনে ফিরে তাকানো মানে এই নয় যে পিছনে পড়ে থাকা। এই পিছনে ফিরে তাকানোর মাধ্যমে আগামীতে সামনের দিকে চলতে বেগ পেতে সাহায্য করে। তাই ইংরেজিতে বলে Looking Back, looking Ahead. কম বেশী সবার কাছে দূরে থাকার, বিচ্ছিন্নতার, আতঙ্কের, মহামারির একটি বছর ছিলো ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। অনেকে জড়তা, ভয়কে ও শঙ্কাকে পাশে ঠেলে আবার জাগছে নতুন স্বাভাবিকতায়।

এটা আমাদের স্বীকার করতে হবে যে, গত বছর ২০২০ খ্রিস্টাব্দ থেকে বিশ্বের জন্য অনিবার্য হয়ে পড়েছিল ‘ঝুঁকি’ শব্দটি। বৈশ্বিক ঝুঁকি আগেও ছিল, তবে করোনা নামের এক ভাইরাস যেন ঝুঁকি মোকাবিলা অপ্রতিরোধ্য করে তুলেছে। কত যে জটিলতায় বিশ্ব এখন। প্রথমত, কত দিন স্থায়ী হবে এই করোনা, তা নির্ণয় করা কঠিন। দ্বিতীয়ত, এর মধ্যে রয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থনীতির নেতৃত্বের পটবদল, জলবায়ু পরিবর্তন, সাইবার হামলার মতো ঝুঁকি। আমাদের দেশে করোনার ভ্যাকসিন চলে আসলেও ইতিমধ্যে করোনার নতুন ধরণ অমিক্রন এর প্রভাব চোখ রাঙাচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে শ্রমবাজারের অস্থিরতা। অনেক শ্রমিকই স্থান পরিবর্তন করেছেন, প্রণোদনার সঠিক বণ্টনসহ নানা বিষয়ে সরকারের ওপর মানুষের আস্থা কমেছে, এমন ঘটনাও দেখা গিয়েছে। ২০২০ খ্রিস্টাব্দের ন্যায় করোনার ফলে অর্থনীতির স্বাভাবিক প্রবাহ বন্ধ হয়নি এবারের ২০২১ এ। মানুষের চলাচল ব্যাহত হলেও কর্মীরা ছিলো সক্রিয়। যদিও কাজের সুযোগ ও পরিধি অনেকটা সংকুচিত হয়েছিল। অনেক মানুষকে বেকারত্বের যন্ত্রণা সহ্য করতে হয়েছে। আবার শিক্ষার্থীদের অবস্থা সবচেয়ে করুণ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনেকে ঝড়ে পড়েছে। ইতোমধ্যে আমাদের সমাজে এর সুদূরপ্রসারী প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

২১ মানে অপ্রতিরোধ্য, দুর্বার, ভেঙ্গে চুরে করে চুরমার। তারপরও করোনার ভয়াল হাত থেকে রক্ষ পায়নি টগবগে ২০২১। তার মানে এই নয় ২১ তার যৌবন হারিয়ে ফেলেছিল। এই ২০২১ এ আমারা পালন করেছি আমাদের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী। পালন করেছি আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী। আমাদের প্রবাসী দেশ ভারতের তুলনায় আমাদের জিডিপির হার তুলনামূলকভাবে ইতিবাচক দিকে ধাবিত হয়েছে। আবার অস্থিরতার ঘটনাও কম নয়। বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রাজনীতির অঙ্গনে বিএনপি নেতাদের সাইবার যুদ্ধ, বাজারে দ্রব্য মূল্য বৃদ্ধিতে ভোক্তার উত্তপ্ত, ধারাবাহিকভাবে বাস থাবায় ছাত্র-ছাত্রীর প্রাণ যার ঘা এখও শুকায়নি। সবকিছু মিলিয়ে রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক, শিক্ষাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ২০২১ বেশ ঘটনাবহুল ও তাৎপর্যমূলক একটি বছর ছিলো আমাদের জাতীয় জীবনে। নানা ক্ষেত্রে অনেক চ্যালেঞ্জ এসেছিল, ঘটেছিল উত্থান-পতন। তারপরও এগিয়ে যাচ্ছি আমরা। আর আমাদের এইভাবে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে চলার ফলে অনেকর কাছে ঈর্ষনীয় হয়ে পরেছি আমরা।

ভালো, মন্দ, আনন্দ, বেদনার স্মৃতিগুলো আরও একবার রোমন্থন করা, একইভাবে জীবনের সব ধরনের নেতিবাচক বিষয়গুলোকে দূরে ঠেলে সুন্দর আগামীর প্রত্যাশায় নতুন করে পথচলার প্রত্যয় ব্যক্ত করার সময় এখন বছরের দ্বারপ্রান্ত। আর মাত্র কয়েকদিন। তারপরও ২০২১ আমাদের জীবন থেকে শেষ। যার যার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা, ভাবনায় বছরটি নানাভাবে মূল্যায়িত হতে পারে। তবে সবার প্রত্যাশা নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে বাংলাদেশ উন্নয়নের পথে যে যাত্রা শুরু করেছে তা অব্যাহত থাকবে নতুন বছরেও। নানা বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে ২০২২ সালে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে তার লক্ষ্যে।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড থট

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিচারণ ও বর্তমান সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ

প্রকাশ: ১০:০০ এএম, ২৭ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

স্বাধীনতার রজতজয়ন্তীতে মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা আগামী প্রজন্মকে মুক্তিযোদ্ধাদের মুখে সরাসরি শোনানোর জন্য ‘শ্যামপুর-কদমতলী সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার ক্লাব’ ১৪ জানুয়ারি, ২০২২ শ্যামপুর মডেল স্কুল এন্ড কলেজের সভাকক্ষে মুক্তিযোদ্ধাদের ‘স্মৃতিচারণ’ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল। মোট ৫৪জন বীর মুক্তিযোদ্ধা সরাসরি স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছিলেন। এছাড়াও মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে আরও কয়েকজন আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন। তনমধ্যে দুটি আলোচনা এখানে উদ্ধৃত করছি। 

নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়নের খাস কামালকাটি গ্রামের অধিবাসী সাবেক ইপিআর  সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মমতাজ উদ্দিন। তিনি স্বাধীনতার পর রক্ষীবাহিনীতে যোগ দিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুবিহীন বাংলাদেশে রক্ষীবাহিনীর চাকুরী ছেড়ে দিয়ে গ্রামে ফিরে আসেন। এরই মাঝে উনার স্ত্রী মারা যান। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস, স্বাধীন বাংলাদেশে একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা দু’কন্যা ও এক পুত্রসন্তান নিয়ে কর্মহীন জীবনযাপন করতে থাকেন। অনাহারে-অর্ধাহারে জীবন কাটতে থাকে। এক পর্যায়ে বিভিন্ন স্কুলের সামনে মুড়ির মোয়া, চকলেট, চানাচুরের প্যাকেট ইত্যাদি বাচ্চাদের খাবার বিক্রি করতে শুরু করেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা মমতাজ উদ্দিন সাহেব অত্যন্ত পরহেজগার লোক ছিলেন। গ্রামের বিত্তশালীরা সাধ্যমত সাহায্য সহযোগিতা করতেন। তিনি বলতেন, "আমি গরীব ঘরের ছেলে ছিলাম। দেশ স্বাধীন করার জন্য মুক্তিযুদ্ধে গিয়েছিলাম। দেশ স্বাধীন হয়েছে, আমি আমার পূর্বাবস্থায় ফিরে এসেছি‘। মুক্তিযোদ্ধার সনদ সংগ্রহ করার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে ঢাকায় বিভিন্ন স্থানে যোগাযোগ করতেন। একদিন ঢাকা পুরাতন বিমানবন্দরের কাছে একটি মসজিদে জোহরের নামাজ আদায় করে মসজিদেই শুয়ে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন। একটু তন্দ্রা এসে যায়। এই ফাঁকে সাথে থাকা ব্যাগটা খোয়া যায়। ব্যাগে ছিল মুক্তিযুদ্ধের কাগজপত্র, জেনারেল ওসমানীর চিঠি, রক্ষীবাহিনীতে চাকুরীর কাগজপত্র ইত্যাদি। সবকিছুই শেষ, মুক্তিযোদ্ধার সনদ সংগ্রহ করতে পারলোনা। তারপর দীর্ঘদিন তিনি মনমরা হয়ে থাকতেন। টাকার অভাবে ঢাকা গিয়ে মুক্তিযুদ্ধের কাগজপত্র ঠিকও করতে পারেন না, ভাতাদিও উঠাতে পারে না, এমনকি রক্ষীবাহিনীর চাকুরীর সুবিধাদিও সংগ্রহ করতে পারেন না। টুকিটাকি যা আয় হয় তা দিয়ে নিজ হাতে রান্না করে ছেলেমেয়েদের খাওয়াতেন। এভাবেই অত্যন্ত দুঃখকষ্ট, অর্থকষ্ট অযত্নে অবহেলায় একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা জীবনযাপন করতেন। একদা নীরবে ইহলোক ত্যাগ করেন। 
আব্দুল মোতালেব নামে আরেক  মুক্তিযোদ্ধার কাহিনী উঠে আসে রূপগঞ্জের খাসকামালকাটি গ্রামের অধিবাসী মেজবাউল হক বাচ্চু সাহেবের আলোচনায়।

বাচ্চু সাহেবের নিজ গ্রাম খাসকামালকাটি থেকে দুই কিলোমিটার দূরে অবস্থিত সাপ্তাহিক হাট বসে। এই গ্রামের লোকজন নিয়মিত ঐ হাটে সওদা করে। ১৯৭৬-৭৭ সালের দিকে হবে, মাটিতে ছালা বিছায়ে বসে ঝাঁকায় করে হলুদ মরিচ পিয়াজ রসুন বিক্রি করতেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতালেব। যা বেচাকেনা হতো তা দিয়েই খুবই কষ্টে অনাহারে অর্ধাহারে জীবন যাপন করতেন। হঠাৎ একদিন উধাও। কোন খোঁজ নাই। প্রায় ৪-৫ মাস পর গ্রামে ফিরে এসে বাজারের একই স্থানে দাঁড়িয়ে মানুষের সাথে কথা বলতে বলতে কাঁদছেন। চেহারা দেখে মনে হচ্ছিল খেয়ে পরে ভালই আছেন। সবার মনেই প্রশ্ন,  কান্না করছে কেন? তিনি বলছিলেন, ‘আমি ভাল আছি। ভাল বেতন পাই। ভাল খাবার খেতে পাই। কিন্তু তারপরও আমি কেন কাঁদছি? আমি মুক্তিযোদ্ধা। আমি যুদ্ধ করে দেশকে শত্রুমুক্ত করেছি। দেশ স্বাধীন করেছি। সেই স্বাধীন দেশে আমি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা হয়ে পেটের তাগিদে রাজাকার মাওলানা মান্নানের বাড়িতে দারোয়ানের চাকুরী করি। মুক্তিযোদ্ধা হয়ে রাজাকার এর নিরাপত্তা নিশ্চিত করি। এটাই আমার দুঃখ। সেই দুঃখে আমার বুক ফেটে কান্না আসছে’।

১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট কালো রাতে বঙ্গবন্ধু পরিবারের অধিকাংশ সদস্যসহ স্বাধীনতার পরাজিত শত্রুদের ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে কতিপয় উচ্চাভিলাষী সামরিক কর্মকর্তার হাতে শাহাদাতবরণ করার পর মুক্তিযোদ্ধাদের ভাগ্যাকাশে নেমে এসেছিল অন্ধকার। তাঁদের প্রতি শুরু হয়েছিল অবজ্ঞা আর অবহেলা। মুক্তিযোদ্ধারা অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু হয়ে গিয়েছিল। দীর্ঘ ২১ বছর পর বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পঙ্গু মুক্তিযোদ্ধাদের পুনর্বাসন, মুক্তিযোদ্ধাদের নামের আগে ‘বীর’ শব্দ ব্যবহার বাধ্যতামূলক, মুক্তিযোদ্ধাদের আর্থিক সহায়তা বৃদ্ধি, চিকিৎসা সুবিধাসহ নানাবিধ কল্যাণমূলক কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন। তনমধ্যে উল্লেখযোগ্য:

১। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পারিবারিক জীবনে আর্থিক সচ্ছলতার জন্য সামাজিক নিরাপত্তাবলয় কর্মসূচির আওতায় জনপ্রতি মাসিক ১২,০০০/- টাকা হারে ১,৯২,৯৯৮ জন মুক্তিযোদ্ধাকে ভাতা প্রদান করা হচ্ছে।
২। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জীবনযাপন সুন্দর ও আনন্দময় করার লক্ষ্যে ২০২০-২১ অর্থ বছরে জনপ্রতি ১০,০০০/- টাকা করে ২টি উৎসব ভাতা, জনপ্রতি ২০০০/- টাকা হারে বাংলা নববর্ষ ভাতা ও জনপ্রতি ৫,০০০/- টাকা হারে বিজয় দিবস ভাতা ১,২০,৫২৪ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে প্রদান করা হয়েছে।

জুরাইন কবরস্থানে মৃত বীরমুক্তিযোদ্ধাদের জন্য নির্ধারিত স্থানে বিনা খরচে দাফনের ব্যবস্থা করা হয়েছে এবং বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কবর সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এছাড়া বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস সহ বিভিন্ন দিবসে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে পঙ্গু মুক্তিযোদ্ধাদের খোঁজ নেন, কুশলাদি বিনিময় করেন।

দেশমাতৃকা শত্রুমুক্ত করতে জীবন উৎসর্গ করেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধারা। বঙ্গবন্ধুকন্যা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা স্বাধীনতা অর্জনে জীবন উৎসর্গকারী সেই বীর সেনানীদের সুন্দর সচ্ছল জীবনযাপন নিশ্চিত করেছেন।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড থট

বদলে যাচ্ছে বাংলাদেশ – অস্ট্রেলিয়ার সম্পর্ক


Thumbnail

প্রায় সতেরো বছর আগের ঘটনা। ড্রয়িংরুমে বসে অস্ট্রেলিয়ান বন্ধুদের সাথে টেলিভিশন দেখছি। আফ্রিকান কোন একটা শহরের ছবিতে কয়েকটা ইটের তৈরি ভবনের ছবি দেখে এক অস্ট্রেলিয়ান বন্ধু আমাকে জিজ্ঞেস করেছিলো, বাংলাদেশে এরকম ভবন আছে? বন্ধুর প্রশ্নে আমি খুব একটা অবাক হই নি। কারণ তখন অধিকাংশ অস্ট্রেলিয়ানের কাছে বাংলাদেশ মানে ছিল প্রাকৃতিক দুর্যোগ-কবলিত দরিদ্র একটা দেশ।

এখন দিন বদলেছে। সারা বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশের ইমেজ বদলে গেছে। বিশেষ করে ২০০৮ সালের নির্বাচনের পরে ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে বদলে দিয়েছেন। পৃথিবীর কাছে বাংলাদেশ আজ এক উন্নয়ন বিস্ময়! অর্থনীতি, স্বাস্থ্যসহ উন্নয়নের সকল সূচকে বাংলাদেশের ঈর্ষণীয় উন্নতি হয়েছে।  বাংলাদেশের ব্যাপারে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ব্যাপক আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে। একদিকে যেমন বাংলাদেশের অভাবিত এই উন্নয়নের রহস্য উন্মোচনে বিশ্ব উন্মুখ, আরেকদিকে বাংলাদেশের সাথে বাণিজ্যিক ও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়নেও অনেক দেশের আগ্রহ বেড়েছে। এই তালিকায় এখন যোগ হয়েছে অস্ট্রেলিয়ার নাম।

পারস্পরিক বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কোন্নয়নের সকল সম্ভাবনা থাকা সত্বেও কোন এক অজ্ঞাত কারণে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সম্পর্কটা যেন তার কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় পৌছাতে পারছিল না। এই নিয়ে দুই দেশেরই পারস্পরিক আগ্রহে বোধ হয় ঘাটতি ছিল।  অথচ পশ্চিমা বিশ্বের দেশসমূহের মধ্যে অস্ট্রেলিয়াই স্বাধীন দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে প্রথম স্বীকৃতি প্রদান করে। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সাহসী ভূমিকা রাখার জন্য অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক ওডারল্যান্ডকে বীরপ্রতীক উপাধিতে ভূষিত করা হয়। ওডারল্যান্ডই একমাত্র বিদেশী যিনি মুক্তিযুদ্ধে সাহসী ভূমিকার জন্য বীরপ্রতীক খেতাব উপাধি পেয়েছিলেন।  তবে আশার কথা হলো, গত কয়েকবছরে এই সম্পর্কের ক্ষেত্রেও উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি দেখা যাচ্ছে। বাংলাদেশ সম্পর্কে অস্ট্রেলিয়ান সরকারসহ নীতিনির্ধারকদের ধারণা অনেক বদলে গেছে।  দুইদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে এখন নিয়মিত যোগাযোগ হয়। গত ৩১ অক্টোবরে স্কটল্যান্ডের গ্লাসগো শহরে শুরু হওয়া  জাতিসংঘের জলবায়ু সম্মেলন কপ-২৬ এ অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাত করেছিলেন। এই সাক্ষাতটা অস্ট্রেলিয়ার অনরোধের ভিত্তিতেই অনুষ্ঠিত হয়েছিল। আগে যেখানে অস্ট্রেলিয়ার ডিপার্টমেন্ট অব ফরেন অ্যাফেয়ার্স ও ট্রেডের (ডিফাট) বার্ষিক প্রতিবেদনে বাংলাদেশে মানবিক সহায়তা প্রদানের ব্যাপারটাই মূলত উল্লেখ থাকতো, সেখানে ২০২০-২১ সালের বার্ষিক প্রতিবেদনে বাংলাদেশকে অস্ট্রেলিয়ার অন্যতম ‘কী পার্টনার কান্ট্রি’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। এই একই প্রতিবেদনে শ্রীলংকা, মালদ্বীপ, আফগানিস্তান, নেপাল এবং পাকিস্তান সম্পর্কে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষ থেকে মানবাধিকার ও মানবিক সহায়তার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। 

গত কয়েক বছরে বাংলাদেশে বিনিয়োগে অস্ট্রেলিয়ার আগ্রহ বেড়েছে। দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যে বর্তমানে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতিও হচ্ছে। দ্বিপাক্ষিক এই বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাংলাদেশের সাথে অস্ট্রেলিয়া গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে ‘ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট ফ্রেমওয়ার্ক অ্যারেঞ্জমেন্ট (টিফা)’ শীর্ষক একটা চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। ভবিষ্যতের পরিবর্তিত পরিস্থিতিতেও অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশকে শুল্ক ও কোটামুক্ত সুবিধা প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা ক্ষেত্রেও দুই দেশের সম্পর্কে উল্লেখযোগ্য উন্নতি সাধিত হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার ন্যাশনাল সিকিউরিটি কলেজ, অস্ট্রেলিয়ান স্ট্রাটেজিক পলিসি ইন্সটিটিউট, লোয়ি ইন্সটিটিউটের মত বিখ্যাত নীতিনির্ধারণী প্রতিষ্ঠানগুলোও আজকাল বাংলাদেশের সাথে প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা খাতে অস্ট্রেলিয়ার সম্পর্ক নিয়ে কথা বলছে। এদের পক্ষ থেকে বাংলাদেশকে নিয়ে সম্প্রতি একাধিক নিবন্ধ লেখা হয়েছে। ঢাকার অস্ট্রেলিয়ান দূতাবাসে ডিফেন্স অ্যাটাশের অফিস খোলার ব্যাপারে অস্ট্রেলিয়ান সরকার বাংলাদেশ সরকারের কাছে অনুমতি চেয়েছে। এর থেকে বোঝা যায়, বাংলাদেশ সম্পর্কে অস্ট্রেলিয়ান নীতিনির্ধারকদের দৃষ্টিভঙ্গি অনেক বদলেছে। এছাড়াও শিক্ষাখাত, ভিসা সহজীকরণ, বাংলাদেশ থেকে দক্ষ-অদক্ষ শ্রমিক আমদানিসহ বহুমুখী খাতে দুইদেশের কূটনৈতিক পর্যায়ে আলোচনা চলছে। সিডনি-ঢাকা সরাসরি বিমান যোগাযোগের ব্যাপারেও আমাদের দূতাবাসের পক্ষ থেকে জোর প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে।  এসব কিছুই বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সম্পর্কের উন্নতিকেই নির্দেশ করে।

দুই দেশের সামগ্রিক সম্পর্ক উন্নয়নের মূলে রয়েছে দুই দেশেরই সরকারী পর্যায়ে এ ব্যাপারে আগ্রহ। বিশেষ করে ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অস্ট্রেলিয়া সফরের পর থেকে দ্বিপাক্ষিক এ সম্পর্ক বিনির্মাণের প্রচেষ্টাগুলো অধিক গতি পায়। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেনও অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়েই দুই দেশের সম্পর্কোন্নয়নে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। আর এই সম্পর্কোন্নয়নে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থিত আমাদের দূতাবাসের কর্মকর্তারাও দক্ষতার সাথে তাদের দায়িত্ব পালন করছেন। এক্ষেত্রে প্রাক্তন রাষ্ট্রদূত কাজি ইমতিয়াজ হোসেন এবং বর্তমান রাষ্ট্রদূত মো. সুফিউর রহমানের ভূমিকা উল্লেখযোগ্য। ক্যানবেরায় সরকারী অফিসে কর্মরত উচ্চ পর্যায়ের অনেক কর্মকর্তার কাছে আমি শুনেছি, আমাদের বর্তমান রাষ্ট্রদূত সুফিউর রহমান অস্ট্রেলিয়ান সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের প্রতিনিধির কাছে বাংলাদেশের উজ্জ্বল ভাবমূর্তি তুলে ধরার ব্যাপারে এবং স্বার্থরক্ষায় খুবই তৎপর। তার এই কর্মতৎপরতার ফলও আমরা পাচ্ছি। কয়েকদিন আগে কথা প্রসঙ্গে সুফিউর রহমান বলছিলেন, ‘ড. মিল্টন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সার্বিক নির্দেশে ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনের তত্ত্বাবধানে অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশের স্বার্থরক্ষায় সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। ইতোমধ্যে আপনারা তার কিছু ফলও পেয়েছেন। আরো অনেকগুলো বীজ রোপন করেছি, তারও ফল ইনশাআল্লাহ আপনারা দ্রুত পাবেন।’  

রাষ্ট্রদূত সুফিউর রহমানের কথার প্রতিফলন আমরা অস্ট্রেলিয়ায় বসে দেখতে পাচ্ছি।  কেবল অস্ট্রেলিয়া-বাংলাদেশের সম্পর্কই নয়, আমরা বাংলাদেশের দূতাবাসের নিয়মিত কর্মকাণ্ডেও অনেক পরিবর্তন দেখছি। দূতাবাসের সেবামূলক কর্মকাণ্ড আগের চাইতে অনেক বেশী পেশাদারীত্বপূর্ণ ও সন্তোষজনক হয়েছে। তাদের কাজের জবাবদিহিতা ও স্বচ্ছতাও অনেক বেড়েছে। জবাবদিহিতার অংশ হিসাবে ২০১৯ সালের আগস্ট মাস থেকে দূতাবাসের ওয়েবসাইটে আগের মাসের কনসুলার সেবার বিস্তারিত প্রকাশ করা হয়। সাম্প্রতিক একটা পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, পাঁচ হাজারের বেশী মেশিন রিডাবল পাসপোর্টের আবেদনের ক্ষেত্রে শতকরা ৯৯.৪ ভাগ আবেদনেরই সফল নিষ্পত্তি হয়েছে।  যে বত্রিশটা পাসপোর্ট আবেদন সফল হয় নি, সেটাও বাংলাদেশ সরকারের বিদ্যমান আইনের আবশ্যকতা পূরণ না করার কারণে হয় নি।  অতীতে আমরা দূতাবাসের কন্সুলার কর্মকাণ্ডে কিছুটা অনিয়ম লক্ষ্য করেছি, যা বর্তমান রাষ্ট্রদূত এসে কঠোর হাতে দমন করেছেন। আমাদের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা ছিল, ক্যানবেরায় বাংলাদেশ দূতাবাসের একটা নিজস্ব ভবন হবে। আমাদের সেই আশাও আজ পূর্ণ হবার একেবারে দ্বারপ্রান্তে, আশা করি অচিরেই এই ভবন নির্মাণের কাজ শুরু হবে। সিডনিবাসীর দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে সম্পত্তি সিডনিতে দূতাবাসের একটা অফিস খোলা হয়েছে।  সিডনির কনসুলেটটার অবস্থান ও কার্যক্রম ইতোমধ্যেই কমিউনিটির প্রশংসা অর্জন করেছে। এছাড়া অস্ট্রেলিয়ার অন্যান্য শহরেও নিয়মিত কন্সুলার ক্যাম্প আয়োজন করা হচ্ছে, যার ফলে বাঙালি কমিউনিটি উপকৃত হচ্ছে।

আজ অস্ট্রেলিয়া দিবস। আর্থর ফি-লিপের নেতৃত্বে ১৭৮৮ সালের ২৬ জানুয়ারি সিডনির জলসীমায় বৃটিশ পতাকাবাহী যে প্রথম নৌবহরটা এসেছিলো, সেটাই অস্ট্রেলিয়ায় বৃটিশ উপনিবেশের সূচনা করেছিল। এই দিনটাকেই বর্তমানে সরকারিভাবে অস্ট্রেলিয়া দিবস উপলক্ষে পালন করা হয়।  যদিও আদিবাসী অস্ট্রেলিয়ানসহ অনেকেই এই দিনটাকে অস্ট্রেলিয়া দিবসের পরিবর্তে ‘ইনভেশন ডে’ বা দখলদারিত্বের দিন হিসেবে মনে করেন।  আপাতত এই বিতর্কে না গিয়েও প্রশান্তপাড়ের দেশ অস্ট্রেলিয়া থেকে সবাইকে এই বিশেষ দিনে আন্তরিক শুভেচ্ছা। বাংলাদেশ – অস্ট্রেলিয়া সম্পর্কের পাঁচ দশক পূর্তিতে আমরা আশা করবো, আগামীতে বাংলাদেশ এবং অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ ও কূটনৈতিক সম্পর্কের আরো উন্নতি হবে। ভারত মহাসাগরীয় অঞ্চলে অস্ট্রেলিয়ার সক্রিয় অংশীদার হিসেবেও বাংলাদেশের সম্মান উজ্জ্বলতর হবে। চিয়ার্স মেটস।

বাংলাদেশ   অস্ট্রেলিয়া   প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড থট

কোভিড-১৯, ওমিক্রন এবং ভবিষ্যৎ

প্রকাশ: ১০:০০ এএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

আমার মনে হয় স্বাভাবিক কারণে বর্তমানে সংক্রমণের হার দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে দেখে বাংলাদেশে আমরা অনেকেই এখন খুব চিন্তিত। খুশি যে আমরা আমাদের লকডাউনের অতীতের ব্যর্থতার পুনরাবৃত্তি করিনি। তবে দুঃখজনকভাবে স্কুল আবার বন্ধ। কিন্তু আমি মনে করি বিশ্বের অনেক ধনী বা উন্নতশীল দেশ গুলির চেয়ে আমরা এখনো অনেক ভালো অবস্থায় আছি। আরও দ্রুত টিকা এবং বুস্টার ডোজ দেওয়ার জন্য আমাদের সমস্ত উদ্যোগ এবং শক্তি নিযুক্ত করতে হবে। প্রয়োজনে টিকাদান কর্মসূচিতে আমাদের সেনাবাহিনীকে ব্যবহার করা উচিত।

আজ (২৫ জানুয়ারি) সংক্রমণের হার এখন ৩২.৪০%। প্রায় ৫০ হাজার মানুষ পরীক্ষার জন্য এগিয়ে এসেছেন এবং সেই অনুযায়ী ১৬,০৩৩ জন ইতিবাচক সংক্রামিত ব্যক্তিকে সনাক্ত করা হয়েছে। সংক্রামিত হওয়া লোকের সংখ্যা দেখে আমি চিন্তিত নই, কারণ আমরা যদি আজ ১০০,০০০ জনকে পরীক্ষা করতাম তবে আমরা প্রায় ৩০,০০০ জন সংক্রামিত লোককে খুঁজে পেতাম। অনেকেই পরীক্ষার জন্য আসছেন না, কারণ তাদের অধিকাংশই হয় উপসর্গবিহীন বা তাদের হয়তো খুব হালকা ফ্লুর মতো উপসর্গ রয়েছে বা তাদের পরীক্ষা করার সামর্থ্য নেই বা পজিটিভ হবার ভয়ে তারা হয়ত আসছেন না। বাংলাদেশের অধিকাংশ জেলাতেই সংক্রমণের হার ২৩% এর উপরে বলে মনে হচ্ছে। বলার অপেক্ষা রাখে না যে ওমিক্রন সমগ্র বাংলাদেশে কমিউনিটি ট্রান্সমিশন শুরু করেছে এবং দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে। বেশির ভাগ মানুষ যদি স্বাস্থ্য উপদেশে প্রবাহিত না হয়, বা না মানতে পারে এবং গণসমাবেশ চলতে থাকে, তাহলে ওমিক্রনের সামাজিক সংক্রামণ শুরু হবার পর সংক্রামণের হার বাড়বে এটাই স্বাভাবিক, এতে নতুন কিছু নেই। তাই সংক্রমণের হার দ্রুত বৃদ্ধি নিয়েও আমি তেমন উদ্বিগ্ন নই। আমি বিশ্বাস করি সম্ভবত কয়েকদিন বা সপ্তাহের মধ্যে সংক্রমণ কমে আসবে, কারন আমি মনে করি বেশীর ভাগ লোক ইতিমধ্যে সংক্রামিত হয়েছেন বা হবেন। যেমন ডেল্টা তরঙ্গের সময়, যা অনেক বিপর্যয় সৃষ্টি করেছিল, সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ সংক্রামিত হবার ফলে গত বৎসর আগস্ট মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের দিকে সংক্রামণের হার কমতে শুরু করে। সুইজারল্যান্ডে, জনস্বাস্থ্যের লোকেরা ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন যে সেখানে ৫০% এরও বেশি লোক ওমিক্রন দ্বারা সংক্রামিত হবে, কোন কঠোর লকডাউন বা বিধিনিষেধ দিয়ে এটি তারা বন্ধ করতে সক্ষম হবে না। শুধুমাত্র সেখানে যেকোনো কেনাকাটা, ইনডোর, ভোজনশালা বা অনুষ্ঠানের স্থানে কঠোরভাবে মাস্ক পরা এবং কোভিড ভ্যাকসিন পাস ব্যবহার করা নিশ্চিত করছে। WHO ইউরোপীয় আঞ্চলিক অফিসও ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন যে বেশিরভাগ মানুষ ইতিমধ্যেই সংক্রমিত হয়েছে বা শীঘ্রই সংক্রমিত হবে এবং অল্প সময়ের মধ্যে সংক্রমণ কমবে বা কিছু দেশে ইতিমধ্যেই কমতে শুরু করেছে। ডব্লিউএইচওর ইউরোপীয় আঞ্চলিক পরিচালক বলেছেন যে তিনি আশা করছেন আমরা মহামারীটির শেষের কাছাকাছি।

বাংলাদেশে ১৬.৬ কোটি মানুষের মধ্যে আজ ১৬,০০০ জনেরও কিছু বেশি লোক সংক্রমিত হয়েছে দেখে আমরা আতঙ্কিত। কিন্তু হল্যান্ডে মাত্র ১.৭ কোটি লোকের মধ্য কিছুদিন প্রতিদিনের মত গতকালও তারা ৬৫,০০০ সংক্রামিত লোক নিবন্ধন করেছে, তবুও তারা সবকিছু খুলে রাখার সিদ্ধান্তে নিয়েছে। যুক্তরাজ্যে ৭.৭ কোটি লোকের মধ্যে আজ ৯৪,০০০ সংক্রামিত লোক নিবন্ধন করে, ৪৩৯ জন কোভিডের কারণে মারা গেছেন। তবুও তারা মুখোশের ম্যান্ডেট সহ সবকিছু খুলে দিয়েছে (মুখোশ ম্যান্ডেট বাদ দেওয়া আমি একটি ভুল সিদ্ধান্ত মনে করি)। কেন তাহলে আমেরিকা সহ পশ্চিমা দেশগুলো তাদের বিধিনিষেধের নিয়ম শিথিল করছে? কারণ ওমিক্রন দ্বারা সংক্রামিত বেশিরভাগ লোকই উপসর্গবিহীন বা ফ্লুর মতো হালকা লক্ষণ রয়েছে, হাসপাতালে ভর্তি কম হচ্ছে এবং গুরুতর যত্নের প্রয়োজনও খুব কম। মৃত্যুর সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে কমে এসেছে, খুব কম লোক মারা যাচ্ছে। টিকা দেওয়ার কভারেজও অনেক বেশি। আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের জার্নাল (JAMA) নীচের হিসাবে দক্ষিণ আফ্রিকার তুলনামূলক ফলাফল প্রকাশ করেছে:

দক্ষিণ আফ্রিকাডেল্টাওমিক্রন
রোগীদের গড় বয়স৫৯৩৮
তীব্র শ্বাসযন্ত্রের উপসর্গ৯১%৩১%
হাসপাতালে ভর্তির সময়কাল৭দিন৩দিন
রোগীর অক্সিজেন প্রয়োজন৭৪%১৭%
হাসপাতালে ভর্তি৬৯%৪১%
আইসিইউ ভর্তি৩০%১৮%
যান্ত্রিক বায়ুচলাচল (ventilation)১২%১.৮%
মৃত্যুহার২৯%৩%
JAMA ৩০শে ডিসেম্বর ২০২১


ডেল্টার কারণে ২০২১ সালের জুলাই থেকে দ্রুত সংক্রমণ শুরু হয় এবং আমরা দ্রুত ক্রমবর্ধমান সংক্রমণ এবং মৃত্যু দেখতে শুরু করি। ২৮শে জুলাই সবচেয়ে বেশি ১৬,২৩০ জনের মধ্যে সংক্রমণ রিপোর্ট করা হয়েছিল এবং ২৭শে জুলাই আমরা মৃত্যুর সংখ্যা ২৫৮ হিসাবে দেখেছি। ৫ই আগস্টে সর্বোচ্চ সংখ্যক ২৬৪ জন মারা গিয়েছিল। হ্যাঁ, এখন আবার সংক্রমণ বাড়ছে, সারা বাংলাদেশে দ্রুত কমিউনিটি ট্রান্সমিশন চলছে কিন্তু মৃত্যুর সংখ্যা আগের মত বাড়ছে না। আজ স্বাস্থ্য দফতর ১৭জন কোভিডের সাথে মারা যাওয়ার খবর দিয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ১৭ জনের মধ্যে ১১ জন পুরুষ ও ছয়জন নারী। বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে একজন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে সাতজন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ছয়জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে দুইজন ও ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন রয়েছে। তাদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ১১ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের দুইজন, খুলনা বিভাগের দুইজন, বরিশাল বিভাগের একজন ও ময়মনসিংহ বিভাগের একজন রয়েছেন। বাংলাদেশের মতো, যুক্তরাজ্য এবং অন্যান্য ইউরোপীয় দেশগুলিতে ৯০% ভাগের মত হাসপাতালে ভর্তি এবং মৃত্যু যারা টিকা পাননি তাদের মধ্যে রয়েছে। ভারতের দিল্লিতে নতুন সংক্রমিত লোকের সংখ্যা ১৩ই জানুয়ারি ২৮,৮৬৭ -এর সর্বোচ্চ সংখ্যা থেকে নেমে এখন অর্ধেকেরও কম হয়ে গেছে এবং সরকারী তথ্য অনুসারে শহরের হাসপাতাল জুড়ে ৮০% এরও বেশি কোভিড শয্যা খালি রয়েছে।

আইসিডিডিআরবি, রিপোর্ট অনুসারে প্রায় ৭০% সংক্রমণ ওমিক্রনের জন্য। আমি বিশ্বাস করি যে এই সংখ্যা এখন তার চেয়ে বেশি। এখন বাংলাদেশে আমরা ওমিক্রনের সাথে ভালভাবে মোকাবিলা করছি কারণ রোগটি হালকা, আমরা লোকেদের টিকা দিচ্ছি এবং উপরন্তু উন্নত হাসপাতালের যত্ন সহ আমাদের মুখে খাওয়া কোভিড ওষুধ মানুষ ব্যাপকভাবে পেতে পাচ্ছে।

আমরা যাই করি না কেন, স্কুল বন্ধ হোক বা না হোক, এখন বাংলাদেশে এই সংক্রমণ বন্ধ করা যাবে না, বা প্রায় অসম্ভব। পশ্চিমা দেশগুলির মানুষ এই সমস্ত বিধিনিষেধে ক্লান্ত এবং বিরক্ত হয়ে পড়ছে এবং আরও বেশি সংখ্যক মানুষ এর বিরুদ্ধে সহিংসভাবে প্রতিবাদ করছে। এই পরিস্থিতিতে সে দেশের সরকাররা বুঝতে পেরেছে ওমিক্রন ট্রান্সমিশন বন্ধ করা যাবে না। যেহেতু রোগটি মৃদু, হাসপাতালে ভর্তি বিশেষ করে গুরুতর যত্নের প্রয়োজন বাড়ছে না এবং মৃত্যুর সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে কম, রাজনৈতিক কারণে তারা প্রকাশ্যে না বললেও মনে হচ্ছে, সরকার সমস্ত বিধিনিষেধ শিথিল করছে, মানুষকে সংক্রামিত হতে দিচ্ছে এবং এর থেকে তাড়াতাড়ি ভালো হয়ে যাতে ওমিক্রন এবং ডেল্টার বিরুদ্ধে অনাক্রম্যতা অর্জন পারে সেই কৌশলের পথ নিয়েছে। অন্য কথায় ভাইরাসের সাথে জীবনযাপনে অভ্যস্ত হয়ে উঠছে এবং সে দেশগুলো মানুষের জীবিকা এবং সামগ্রিক অর্থনীতির আরও ক্ষতি না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পশ্চিমা দেশের অর্থনীতি আর বেশী ক্ষয়ক্ষতি সহ্য করতে পারবে না। সরকারি ঋণ বাড়ছে, মূল্যস্ফীতি বাড়ছে, নিত্যপণ্যের দামও বাড়ছে। শুধুমাত্র একটি জিনিস তারা সবচেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দিচ্ছে তা হল টিকা এবং বুস্টার ডোজ। যেহেতু আরও কম বয়সী মানুষ সংক্রামিত হচ্ছে, ডব্লিওএইচওর জন্য অপেক্ষা না করে, তারা ৫ বছরের বেশি বয়সী বাচ্চাদের টিকা দেওয়া শুরু করেছে। সিঙ্গাপুরও তাই করছে। জনস্বাস্থ্য পরিমাপের লক্ষ্য হল জনগণের দুর্ভোগ ও মৃত্যু কমিয়ে আনা এবং যে কোন ঘটনার জন্য প্রস্তুত থাকা।
 
আমি জানি অনেকেই আমার সাথে একমত হবেন না বা মনে করবেন আমি বোধগম্য কথা বলছি না, তবুও আমি বলব বাংলাদেশ এখনও ভালো অবস্থানে আছে এবং জীবন ও জীবিকার আর বেশী ক্ষতি হবে না। আমি নিশ্চিত যে বাংলাদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ ইতিমধ্যেই ওমিক্রন দ্বারা সংক্রামিত হয়েছে বা শীঘ্রই সংক্রমণের প্রান্তিক স্তরে (threshold) পৌঁছে যাবে, ওমিক্রন সবচেয়ে বিপজ্জনক রূপ ডেল্টাকে মুছে ফেলবে এবং শীঘ্রই কয়েক দিনের মধ্যে সংক্রমণের হার কমতে শুরু করবে।

বাংলাদেশের মানুষ এপর্যন্ত যথেষ্ট কষ্ট সহ্য করেছে, তারা তাদের জীবন ফিরে পেতে চায়। আমরা আগেও পারিনি, এবং আমরা এখনও তাদের আরও বিধিনিষেধ অনুসরণ করতে বাধ্য করতে পারব না (এটি দুঃখজনক কিন্তু একটি সত্য)। আমাদের মাটির বাস্তবতা মেনে নিতে হবে, বালিতে মাথা লুকিয়ে অন্ধ হতে হবে না। সুতরাং, আসুন আমরা ন্যূনতম যা করতে পারি তা করার চেষ্টা করি যা সর্বোচ্চ সম্ভাব্য ইতিবাচক প্রভাব আনবে:

১। টিকা এবং বুস্টার। আমাদের স্টকে ৯ কোটি ভ্যাকসিন রয়েছে এবং আরও ভ্যাকসিন আসছে। আমাদের অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে যে সমস্ত উপলব্ধ ভ্যাকসিন যাতে তাদের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে ব্যবহৃত হয়। আমাদের এখন J&J ভ্যাকসিন আছে, যা এক ডোজ ভ্যাকসিন। সমস্ত জেলা এবং সম্প্রদায়ের মধ্যে, আমাদের অবশ্যই টিকা এবং বুস্টার ডোজ দেওয়া আরও গতিশীল করতে হবে। প্রয়োজনে টিকাদান কর্মসূচিতে আমাদের সেনাবাহিনীকে ব্যবহার করা উচিত।
২। দয়া করে WHO-এর জন্য অপেক্ষা করবেন না। আমরা যদি আমাদের বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ স্টক সম্পর্কে নিশ্চিত হই, তাহলে সিঙ্গাপুরের মতো ৫ বছর এবং তার বেশি বাচ্চাদের টিকা দেওয়া শুরু করুন।
৩। আরও বেশি শিল্প, ব্যবসায়িক প্রাঙ্গণ, বেসরকারি ও সরকারি অফিস সহ বাড়ির বাইরে মাস্কের যথাযথ ব্যবহার আরো জোরদার করুন
৪। কিছু সময়ের জন্য, আরও কিছু মাস রাজনৈতিক, ধর্মীয়, বিবাহ প্রভৃতি গণসমাবেশ আটকে রাখুন/বন্ধ করুন। শক্ত ভাবে কোভিড পাস প্রয়োগ করুন।
 
আশা করি নিশ্চিত করবেন যে সাধারণ জনগণ সময়মত এবং ক্রমাগত অবহিত হয়। আমরা পরীক্ষার সুবিধা বাড়িয়েছি, আমাদের ভ্যাকসিন আছে, আরো আসছে এবং টিকাদান কার্যক্রম ভালোভাবে চলছে এবং আমাদের কাছে সহজলভ্য কোভিড ওষুধ রয়েছে। তাই ওমিক্রন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে কিন্তু ডেল্টার মত বিপর্যয় সৃষ্টি করছে না। অন্য দেশের মত বাংলাদেশের মানুষও ডেল্টার পরে ওমিক্রনের এই বৈকল্পিকটির সাথে জীবনযাপন করা শিখতে শুরু করেছে এবং সম্ভবত এটি স্থানীয় রোগ হয়ে উঠবে। কিন্তু আমাদের অবশ্যই প্রতি বছর একবার মানুষকে টিকা দেওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। অন্যের করুণার উপর নির্ভর না করে দেশে ভ্যাকসিন উৎপাদনে আরও বিনিয়োগ করতে হবে। আমরা ভাল করছি এবং আমি আত্মবিশ্বাসী যে আমরা খুব বেশি জীবন এবং অর্থনৈতিক দুর্ভোগ বা ক্ষতি ছাড়াই এই তরঙ্গকেও কাটিয়ে উঠবো। তাই আসুন ভাইরাসের সাথে বাঁচতে শিখি। আসুন সম্মত হই মাস্ক পরা একটা সুন্দর অভ্যাস এবং ভ্যাকসিনগুলি জীবন এবং জীবিকা রক্ষা করবে।

কোভিড-১৯   ওমিক্রন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড থট

করোনা টেস্টে অমানবিক মুনাফা এবং সময় ও ব্যয় সাশ্রয়ী বিকল্প টেস্ট পদ্ধতি

প্রকাশ: ০৫:২০ পিএম, ২৫ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

চলমান বৈশ্বিক মহামারীতে পৃথিবীর অধিকাংশ দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা যখন বেহাল, জনজীবন ও জীবিকা যখন প্রায় পর্যুদস্ত, তখন রোগ নির্ণয়, উপশম ও নিরাময়ের জন্য নিয়োজিত প্রতিষ্ঠান করছে উচ্চ মাত্রার মুনাফা। উন্নত দেশের উদ্ভাবনী প্রতিষ্ঠান যেমন দু’হাতে মুনাফা লুটেছে, তেমনি মাঠ পর্যায়ের প্রয়োগকারী প্রতিষ্ঠানও ছাড় দেয়নি। সবার উদ্দেশ্য অভিন্ন এবং তা হচ্ছে অমানবিক অতিমাত্রার মুনাফা। প্রযুক্তি কোম্পানি, ওষুধ কোম্পানি, হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক ল্যাবরেটরি- কেউ ভাবেনি মানবিকতার কথা। কোভিড টেস্টের কথাই ধরি। সারা বিশ্বে কোভিড পরীক্ষার জন্য আরটি-পিসিআর (Reverse Transcription Polymerase Chain Reaction) পদ্ধতি ব্যবহৃত হচ্ছে। এ পদ্ধতি আবিষ্কার হয়েছে ১৯৮৩ সালে। শরীরে কোন ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া বা অন্য কোন সংক্রামক এজেন্ট বা ক্যান্সারে আক্রান্ত কোষের উপস্থিতি থাকলে পিসিআর তা নির্ভুলভাবে সনাক্ত করে।

সে প্রেক্ষিতে এ দেশের অনেক সরকারি-বেসরকারি ল্যাবরেটরিতে পিসিআর ব্যবহার করা হচ্ছে আগেই থেকেই। এটি ব্যবহার করে শরীরে ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত করার জন্য রি-এজেন্ট/এনজাইম ব্যবহার করা হয়। এগুলোর উৎপাদক প্রতিষ্ঠান শুরুর দিকে এক একটি পরীক্ষার জন্য উক্ত রি-এজেন্ট যে মূল্যে বিক্রয় করেছে, বর্তমানে তারাই কম-বেশি ৮০ শতাংশ ছাড় দিচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের Roche, Thermo Fisher Scientific এবং Qiagen সহ হাতেগোনা কয়েকটি প্রতিষ্ঠান এগুলোর উৎপাদক। তারা যে পিসিআর রি-এজেন্ট কিট ২০২০ সালে ২,০০০/- থেকে ২,৫০০/- টাকায় বিক্রয় করেছে, তারাই এখন ১ লক্ষ বা তার বেশী কিট আনলে ৬০০/- টাকায় সরবরাহ করছে। কারণ অনেক কোম্পানী উৎপাদন শুরু করেছে এবং প্রতিযোগী বেড়ে গেছে। রি-এজেন্ট কিটের মূল্য এতো কমলেও এদেশে বেসরকারি পর্যায়ে কোভিড টেস্টে এর কোনই প্রভাব পড়েনি।

সরকারি হাসপাতালে কোভিড টেস্টের ফি মাত্র ১০০ টাকা, কিন্তু রি-এজেন্ট কিটের মূল্য বেশি থাকায় এপ্রিল ২৯, ২০২০ তারিখে বেসরকারি পর্যায়ে টেস্টের জন্য ফি নির্ধারণ করা হয় ৩,৫০০/- টাকা এবং একই বছর ডিসেম্বর ২৭, তারিখে পুনর্নির্ধারণ করা হয় ৩,০০০/- টাকা। বিদেশি কর্মীর জন্য ২,৫০০/- টাকা এবং বাড়ি থেকে স্যাম্পল বা নমুনা সংগ্রহ করলে ৩,৭০০/- টাকা। ইতোমধ্যে এক বছরের বেশি সময় পার হয়েছে। কোভিড টেস্টের সংখ্যা বৃদ্ধি ঘটেছে আশঙ্কাজনকভাবে এবং সংশ্লিষ্ট রি-এজেন্ট কিটের সংগ্রহ মূল্য কমেছেও একই গতিতে। লক্ষ লক্ষ কিট আমদানি করলে দামে যেমন ছাড় আছে অনেক, তেমনি কোল্ড চেইনে আনতে হয় বিধায় বেশী রি-এজেন্ট আমদানী করলে বিমান ভাড়াও কম লাগে। প্রতিবেশী দেশ ভারতে মাত্র ৯৫০ রুপিতে বেসরকারি ল্যাবে এখন কোভিড টেস্ট করা যায়। এসব বিবেচনায় এ দেশে বিশেষজ্ঞগণ এ টেস্টের ফি অনেক কমিয়ে আনার প্রস্তাব করেছেন। যা খুবই যৌক্তিক এবং বাস্তবায়ন হওয়া খুবই জরুরি।

যে কোন জীবের প্রতি কোষে থাকে ডিএনএ ও আরএনএ। ডিএনএ ওই জীবের বৈশিষ্ট্য বহন করে এবং আরএনএ বৈশিষ্ট্য বহনের পাশাপাশি প্রোটিন তৈরি করে। ভাইরাস আধা-প্রাণ বলে এর কোনটিতে ডিএনএ (ডিএনএ ভাইরাস) থাকে এবং কোনটিতে আরএনএ (আরএনএ ভাইরাস) থাকে। বর্তমান মহামারীর ভাইরাস সার্স-কভ-২ একটি আরএনএ ভাইরাস। তাই এ রোগ সনাক্তের জন্য আরটি-পিসিআর (Reverse Transcription Polymerase Chain Reaction) পদ্ধতি অবলম্বন করা হয়। পিসিআর-এর কাজ হচ্ছে দেহের বাইরে টিউবের মধ্যে সংশ্লিষ্ট নমুনার ডিএনএর লক্ষ লক্ষ প্রতিলিপি তৈরি করা। প্রথমে ডিএনএ বা আরএনএ আলাদা করা হয় ফিল্টার করে। এরপর এই ডিএনএ’র প্রাইমারের (Primer) সাথে পলিমারেজ এনজাইম মিশিয়ে লক্ষ লক্ষ ডিএনএ প্রতিলিপি তৈরি করা হয়।

প্রাইমার (Primer) হচ্ছে ডিএনএ’র অতি ক্ষুদ্র অংশ যা সংশ্লিষ্ট প্রাণ/আধা-প্রাণের সম্পূর্ণ বৈশিষ্ট্য অক্ষুণ্ন রাখে। আমরা কোন লেখার ফটোকপি করলে সম্পূর্ণ লেখা যেভাবে অক্ষুণ্ন থাকে, পিসিআর হচ্ছে সেরূপ মলিকুলার ফটোকপি তৈরির পদ্ধতি। টিউবের মধ্যে সংশ্লিষ্ট নমুনার লক্ষ লক্ষ ডিএনএ তৈরি হওয়ায় ভাইরাস বা ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতি থাকলে রং পরিবর্তিত হয় ও রোগ সনাক্ত করা যায়। সার্স-কভ-২ আরএনএ ভাইরাস বিধায় আরএনএ আলাদা করার পরে একে রিভার্স ট্রান্সক্রিপটেজ (reverse transcriptase) নামক এনজাইমের মাধ্যমে ডিএনএ (cDNA) তে রূপান্তর করে পিসিআর পদ্ধতিতে লক্ষ লক্ষ প্রতিলিপি তৈরি করা হয়। এজন্য এ পদ্ধতিকে আরটি-পিসিআর (Reverse Transcription PCR) বলে। বিভিন্ন ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া, জীব ও উদ্ভিদের দেহে এ রিভার্স ট্রান্সক্রিপটেজ এনজাইম পাওয়া যায়।

পিসিআর পদ্ধতি ছাড়াও অ্যান্টিজেন নির্ণয় করে কোভিড রোগ পরীক্ষা করা হয়। তবে শরীর থেকে সংগৃহীত নমুনায় ভাইরাস বেশি না থাকলে (২৫০ বা তার বেশি) অ্যান্টিজেন টেস্টে রোগ ধরা যায় না। রোগের প্রাথমিক অবস্থায় ভাইরাস কম থাকায় অ্যান্টিজেন টেস্ট খুব কার্যকরী হয়না। অপরদিকে, দক্ষ অনুজীব বিজ্ঞানীর তত্ত্বাবধানে পিসিআর মাধ্যমে ডিএনএ’র লক্ষ লক্ষ প্রতিলিপি তৈরিতে ভিন্ন ভিন্ন্ন তাপমাত্রা রাখার পাশাপাশি অনেক মানমাত্রা বজায় রাখতে হয়। পদ্ধতিটি সময় সাপেক্ষ, তবে সম্পূর্ণ নির্ভুল। পিসিআর যন্ত্র বেশ দামি এবং এটি স্থাপন করার জন্য সুনির্দিষ্ট পদ্ধতি অবলম্বনের প্রয়োজনে সময় বেশী লাগে এবং ব্যয়বহুল। নির্দিষ্ট ল্যাবরেটরির বাইরে এটি ব্যবহার করা যায় না। সে কারণে বর্তমান মহামারীর শুরু থেকেই পৃথিবীর সব নামকরা প্রতিষ্ঠান পিসিআর টেস্টর ন্যয় নির্ভুল সহজ পদ্ধতির টেস্ট উদ্ভাবনের প্রচেষ্টা চালায়।

২০২০ সালেই যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ এ খাতে বরাদ্দ করে ১.৫ বিলিয়ন ডলার। কিন্তু স্বল্প খরচে সহজ পদ্ধতি দ্রুত ব্যবহারে প্রথম সফলতা পায় আমাদের কাছের দেশ থাইল্যান্ড। ব্যাংককের চুলালংকর্ন বিশ^বিদ্যালয় করোনা সংক্রমণ সনাক্তের জন্য আরটি-ল্যাম্প (RT-LAMP- Reverse Transcription Loop-mediated Isothermal Amplification) পদ্ধতি ব্যবহারের তথ্য উপস্থাপন করে। বিশ্বের নামকরা বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান চলমান মহামারিতে ভাইরাস সনাক্তে আরটি ল্যাম্প পদ্ধতির ব্যবহারের উপর অনেক গবেষণাপত্র প্রকাশ করে। সে প্রেক্ষিতে এ পদ্ধতির রি-এজেন্ট তৈরীতে বিনিয়োগ শুরু হয় এবং প্রাইম তৈরি, ভেলিডেশন এবং অন্যান্য অনুমোদন প্রক্রিয়া সম্পন্নে কয়েক মাস বিলম্ব হয়।

ভাইরাস/ব্যাকটেরিয়া বা অনুরূপ সংক্রমণ সনাক্তের জন্য ল্যাম্প (LAMP) পদ্ধতি আবিষ্কার হয় ২০০০ সালে। করোনার অন্য প্রজাতির ভাইরাস, ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস, হেপাটাইটিস-বি ভাইরাসসহ অনেক সংক্রমক ভাইরাস সনাক্তে এ পদ্ধতি ব্যবহৃত হচ্ছে। এটিও পিসিআর-এর ন্যায় ডিএনএ’র লক্ষ লক্ষ প্রতিলিপি তৈরি করে, তবে ভিন্ন পদ্ধতিতে। একটি সুনির্দিষ্ট তাপমাত্রা বজায় রাখলেই হয়, ঘন ঘন তাপমাত্রা পরিবর্তন করার প্রয়োজন হয় না । তাপমাত্রা ওঠানো-নামানোর জন্য দক্ষ জনবল এবং সংশ্লিষ্ট যন্ত্রের প্রয়োজন হয় না। অধিকন্তু একই সাথে বহু নমুনা প্রক্রিয়াকরণের পাশাপাশি মাত্র ৩০ মিনিটের মধ্যে রোগ নির্ণয় করা যায়। যন্ত্রের দাম এবং সম্পূর্ণ ল্যাব স্থাপনা ব্যয় কম বেশী ৩ লক্ষ টাকা এবং কম সময়ে যে কোন স্থানে বসানো যায়। এমনকি গাড়ীতে/পিকআপে বসিয়ে ভ্রাম্যমাণ ল্যাব পরিচালনা করা যায় ও সেখানেই ৩০ মিনিটে রিপোর্ট দেওয়া যায়। লক্ষ লক্ষ প্রতিলিপি তৈরির পূর্বে ডিএনএ’র অংশ তথা ‘প্রাইম’-এর সাথে বেগুনি রং মিশানো হয়। নমুনায় ভাইরাসের উপস্থিতি থাকলে তা নীল রং ধারণ করে, আর উপস্থিতি না থাকলে রংয়ের পরিবর্তন হয় না। রংয়ের পরিবর্তন খালি চোখে দেখা যায়। এ পরীক্ষার জন্য দক্ষ অনুজীব বিজ্ঞানীর প্রয়োজন হয় না। রোগ নির্ণয়ের সঠিকতা পিসিআর-এর মতো হওয়ায় ব্যয় সাশ্রয়ী, অত্যন্ত সময় সাশ্রয়ী ও সহজ এ পদ্ধতি খুব দ্রুতই বিভিন্ন দেশে ব্যবহার শুরু হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রসহ সকল দেশে পিসিআর টেস্ট রিপোর্টের ন্যয় আরটি-ল্যাম্প টেস্ট রিপোর্ট থাকলে ঐ দেশে প্রবেশে কোন বাধা থাকেনা। সে কারণে এবং বিশেষ করে বিমানবন্দরে বসেই রিপোর্ট নিয়ে বিমানে চড়া বা বিমানবন্দর থেকে বের হওয়া যায় বিধায় আরটি-ল্যাম্প পদ্ধতি প্রতিবেশী ভারতসহ অনেক দেশের বিমানবন্দরে ব্যবহার শুরু হয়েছে বেশ জোরেসোরেই।

দেশে ওমিক্রনের সংক্রমণ বাড়ছে লাগামহীন গতিতে। আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে সাথে সাথে রিপোর্ট না পাওয়ায় সংক্রমিত ব্যক্তি একদিনের মধ্যে অপর শত শত ব্যক্তিকে সংক্রমিত করতে পারে। অপরদিকে, যথাসময়ে করোনা টেস্ট রিপোর্ট না পাওয়ায় অনেক বিদেশগামী যাত্রীর ভোগান্তির সীমা থাকেনা। সে প্রেক্ষিতে দ্রুত সময়ে অনেক বেশি নমুনা পরীক্ষার জন্য সহজ ও ব্যয় সাশ্রয়ী আরটি-ল্যাম্প টেস্ট পদ্ধতি আমাদের দেশে এখনই ব্যবহারের জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা যৌক্তিক। একইসঙ্গে আরটি-পিসিআর টেস্টের খরচ ১,০০০ টাকার মধ্যে আনয়নের জন্য এক বা একাধিক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে অপেক্ষাকৃত কম মূল্যে লক্ষ লক্ষ রি-এজেন্ট/কিট আমদানি করে তা সরকারি/বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে সরবরাহ করার বিষয়টিও বিবেচনা করা যায়। এসব বিবেচনায় জরুরী ভিত্তিতে বিমান বন্দরসহ অন্যান্য স্থানে আরটি-ল্যাম্প পদ্ধতির ব্যবহার এবং পিসিআর টেস্টের খরচ অনেক নিচে নামিয়ে আনা প্রয়োজন। এতে ওমিক্রনের লাগামহীন সংক্রমণের গতি রোধ করার পাশাপাশি অমানবিক মুনাফার গতিতেও যেমন লাগাম টানা যাবে, তেমনি বিদেশগামী যাত্রীসহ দেশের মানুষের আর্থিক ভোগান্তিও কিছুটা লাঘব করা সম্ভব হবে।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড থট

ঊনসত্তরের অগ্নিঝরা দিনগুলি

প্রকাশ: ০৯:২৫ এএম, ২৪ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

আমাদের জাতীয় মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসে ১৯৬৯-এর ২৪ জানুয়ারি এক ঐতিহাসিক দিন। প্রত্যেক মানুষের জীবনে উজ্জ্বলতম দিন আছে। আমার জীবনেও কিছু ঐতিহাসিক ঘটনা আছে। ’৬৯ আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ কালপর্ব। এই পর্বে আইয়ুবের লৌহ শাসনের ভিত কাঁপিয়ে বাংলার ছাত্রসমাজ ’৬৯-এর ২৪ জানুয়ারি গণঅভ্যুত্থান সংঘটিত করে ইতিহাস সৃষ্টি করেছিল। জাতীয় জীবনে যখন জানুয়ারি মাস ফিরে আসে তখন ’৬৯-এর অগ্নিঝরা দিনগুলি স্মৃতির পাতায় ভেসে ওঠে। জীবনের সেই সোনালি দিনগুলোর প্রতিটি মুহূর্তের কথা মনে পড়ে। অনেক সময় ভাবি, কী করে এটি সম্ভব হয়েছিল!

’৬৬-৬৭তে আমি ইকবাল হল ছাত্র সংসদের সহসভাপতি এবং ’৬৭-৬৮তে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ তথা ডাকসুর সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাঙালির জাতীয় মুক্তিসংগ্রামের সূতিকাগার। বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে ষাট দশকের গুরুত্ব অনন্য। এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই ’৪৮ ও ৫২-এর ভাষা আন্দোলন, ’৬২-এর শিক্ষা আন্দোলন, ’৬৬-এর ছয় দফা ও ’৬৯-এর ১১ দফা আন্দোলন হয়েছে। বঙ্গবন্ধু যখন ছয় দফা দিয়েছিলেন আমি তখন ইকবাল হলের (বর্তমানে শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল) সহসভাপতি। ইকবাল হলের সহসভাপতির কক্ষ ছিল ৩১৩ নম্বর। এই কক্ষে প্রায়শই অবস্থান করতেন শ্রদ্ধেয় নেতা সর্বজনাব শেখ ফজলুল হক মণি, সিরাজুল আলম খান এবং আবদুর রাজ্জাক। বঙ্গবন্ধু ছয় দফা দেওয়ার পর দেশব্যাপী ঝটিকা সফরে ৩৫ দিনে ৩২টি জনসভা করেন এবং বিভিন্ন জেলায় বারবার গ্রেফতার হন। ছয় দফা দেওয়ার পর বঙ্গবন্ধু আমাদের বলতেন, ‘সাঁকো দিলাম স্বাধিকার থেকে স্বাধীনতায় উন্নীত হওয়ার জন্য।’ অর্থাৎ এই ছয় দফার সিঁড়ি বেয়ে তিনি স্বাধীনতায় পৌঁছবেন। বিচক্ষণ নেতা ছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নির্ধারণ করে রাজনীতি করেছেন। স্বাধীনতার লক্ষ্য সামনে নিয়েই ’৪৮-এ ছাত্রলীগ ও ’৪৯-এ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা করে মহান ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতার বীজ রোপণ করে ছয় দফায় বাঙালির আত্মনিয়ন্ত্রণ অধিকার জাতির সামনে পেশ করেন। ছয় দফা দেওয়ার পর দেশের বিভিন্ন জেলায় বঙ্গবন্ধুর নামে ১০টি মামলা দায়ের করা হয়। প্রতিটি মামলায় জামিন পেলেও শেষবার নারায়ণগঞ্জ থেকে সভা করে ঢাকা আসার পর ‘পাকিস্তান দেশরক্ষা আইনে’ তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। প্রতিবাদে আওয়ামী লীগের ডাকে ৭ জুন সর্বাত্মক হরতালে ছাত্রলীগ অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। ’৬৮-এর ১৮ জানুয়ারি জেল থেকে বঙ্গবন্ধু মুক্তি পেলেও পুনরায় জেল গেটেই গ্রেফতার করে অজানা স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়। প্রথমে আমরা জানতাম না প্রিয়নেতা কোথায় কেমন আছেন। ’৬৮-এর ১৯ জুন আগরতলা মামলার বিচার শুরু হলে আমরা বুঝতে পারি আইয়ুব খান রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ তুলে বঙ্গবন্ধুকে ফাঁসিকাষ্ঠে মৃত্যুদন্ড দেবে। আইয়ুব খান প্রদত্ত মামলার নামই ছিল ‘রাষ্ট্র বনাম শেখ মুজিব ও অন্যান্য।’ আমরা ছাত্রসমাজ এই গ্রেফতারের বিরুদ্ধে গণআন্দোলন গড়ে তুলি, যা পরে তীব্রতর হয়।

স্মৃতিকথা লিখতে বসে মনে পড়ছে, ডাকসুসহ চারটি ছাত্র সংগঠনের সমন্বয়ে ঐতিহাসিক ১১ দফার ভিত্তিতে ’৬৯-এর ৪ জানুয়ারি সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ গড়ে ওঠার কথা। মনে পড়ে ১১ দফা আন্দোলনের প্রণেতা-ছাত্রলীগ সভাপতি প্রয়াত আব্দুর রউফ ও সাধারণ সম্পাদক খালেদ মোহাম্মদ আলী; ছাত্র ইউনিয়ন (মতিয়া গ্রুপ) সভাপতি প্রয়াত সাইফুদ্দিন আহমেদ মানিক ও সাধারণ সম্পাদক সামসুদ্দোহা; ছাত্র ইউনিয়ন (মেনন গ্রুপ) সভাপতি মোস্তফা জামাল হায়দার ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল্লাহ এবং এনএসএফের একাংশের সভাপতি প্রয়াত ইব্রাহিম খলিল ও সাধারণ সম্পাদক ফখরুল ইসলাম মুন্সীর কথা। ছাত্রনেতাদের প্রত্যেকেই ছিলেন খ্যাতিমান। আমি ডাকসু ভিপি হিসেবে সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সমন্বয়ক ও মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করি। আমার সঙ্গে ছিলেন ডাকসু জি এস নাজিম কামরান চৌধুরী। ’৬৯-এর ১৭ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের বটতলায় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ১১ দফা প্রণয়নের পর এটাই প্রথম কর্মসূচি। ডাকসু ভিপি হিসেবে আমার সভাপতিত্বে সভা শুরু হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে গভর্নর মোনায়েম খান ১৪৪ ধারা জারি করেন। সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব ছিল সিদ্ধান্ত দেওয়ার ১৪৪ ধারা ভাঙব কি ভাঙব না। উপস্থিত ছাত্রদের চোখে-মুখে ছিল ১৪৪ ধারা ভঙ্গের দৃঢ়তা। ১৪৪ ধারা ভঙের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে শ পাঁচেক ছাত্র নিয়ে রাজপথে এলাম। পুলিশ বাহিনী আমাদের ওপর লাঠিচার্জ করে। ছাত্রলীগ সভাপতি আবদুর রউফ ঘটনাস্থলে আহত হন। আমরা ক্যাম্পাসে ফিরে আসি। পরদিন ১৮ জানুয়ারি পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও ঢাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ধর্মঘট কর্মসূচি দিই। ১৮ জানুয়ারি বটতলায় জমায়েত। যথারীতি আমি সভাপতি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্র ধর্মঘট ছিল বিধায় সকালে বটতলায় ছাত্র জমায়েতের পর খন্ড খন্ড মিছিল এবং সহস্র কণ্ঠের উচ্চারণ, ‘শেখ মুজিবের মুক্তি চাই, আইয়ুব খানের পতন চাই।’ গতকালের চেয়ে আজকের সমাবেশ বড়। সেদিনও ১৪৪ ধারা বলবৎ ছিল। ১৪৪ ধারা ভঙ্গের সিদ্ধান্ত নিয়ে রাজপথে নেমে এলাম। দাঙ্গা পুলিশ লাঠিচার্জ আর টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে। ফিরে এলাম ক্যাম্পাসে। কর্মসূচি নেওয়া হলো ১৯ জানুয়ারি আমরা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মিছিল করব এবং ১৪৪ ধারা ভাঙব। সেদিন ছিল রবিবার। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ। কিন্তু প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় খোলা ছিল। আমরা মিছিল শুরু করি। শুরু হয় পুলিশের লাঠিচার্জ, টিয়ার শেল নিক্ষেপ। কিন্তু কিছুই মানছে না ছাত্ররা। শঙ্কাহীন প্রতিটি ছাত্রের মুখ। গত দুদিনের চেয়ে মিছিল আরও বড়। পুলিশ গুলি চালাল। প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রলীগ কর্মী আসাদুল হক, বাড়ি দিনাজপুর, গুলিবিদ্ধ হয়ে লুটিয়ে পড়ে রাজপথে। ’৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধে তিনি শহীদ হন। পুলিশের নির্যাতন ও গুলিবর্ষণের প্রতিবাদে ২০ জানুয়ারি সোমবার আবার বটতলায় সমাবেশের কর্মসূচি দিই। ২০ জানুয়ারি ’৬৯-এর গণআন্দোলনের মাইলফলক। এ দিন ১১ দফা দাবিতে ঢাকাসহ প্রদেশের সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পূর্ণ ধর্মঘট পালিত হয়। সভাপতির আসন থেকে বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ্য করি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলার পরিসর সমাবেশের তুলনায় ছোট। ৩ দিনে সাধারণ ছাত্র ও বিপুল সংখ্যক জনসাধারণের আস্থা অর্জনে আমরা সক্ষম হয়েছি। যখন সভাপতির ভাষণ দিচ্ছি তখন মিল-কারখানা, অফিস-আদালত থেকে দলে দলে মানুষ আসছে বটতলা প্রাঙ্গণে। সর্বদলীয় ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের সিদ্ধান্তক্রমে সভাপতির ভাষণে সেদিন বলেছিলাম, ‘যতদিন আগরতলা মামলার ষড়যন্ত্র কার্যকলাপ ধ্বংস করে প্রিয় নেতা শেখ মুজিবসহ সব রাজবন্দিকে মুক্ত করতে না পারব, ততদিন আন্দোলন চলবে। স্বৈরশাসক আইয়ুব-মোনায়েম শাহীর পতন না ঘটিয়ে বাংলার ছাত্রসমাজ ঘরে ফিরবে না।’ পুনরায় ১৪৪ ধারা ভঙের ঘোষণা দিলাম। লাখ মানুষের মিছিল নেমে এলো রাজপথে। কোথায় গেল ১৪৪ ধারা! আমরা ছিলাম মিছিলের মাঝখানে। মিছিল যখন আগের কলাভবন বর্তমান মেডিকেল কলেজের সামনে ঠিক তখনই গুলি শুরু হয়। আমি, ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক খালেদ মোহাম্মদ আলী ও আসাদুজ্জামান একসঙ্গে ছিলাম। আমাদের লক্ষ্য করে এক পুলিশ ইন্সপেক্টর গুলি ছোড়ে। গুলি লাগে আসাদুজ্জামানের বুকে। সঙ্গে সঙ্গে ঢলে পড়ে আসাদ। আসাদকে ধরাধরি করে মেডিকেল কলেজের দিকে নেওয়ার পথে আমাদের হাতের উপরেই সে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। একজন শহীদের শেষনিঃশ্বাস স্পষ্ট শুনতে পাচ্ছিলাম। মৃত্যু এত কাছে হাতের ওপর! মেডিকেলের সিঁড়িতে আসাদের লাশ রাখা হয়। তাঁর গুলিবিদ্ধ রক্তাক্ত শার্টটি সংগ্রামের পতাকা করে আমরা আসাদের রক্ত ছুঁয়ে শপথ নিয়ে সমস্বরে বলি, ‘আসাদ তুমি চলে গেছ। তুমি আর ফিরে আসবে না আমাদের কাছে। তোমার রক্ত ছুঁয়ে শপথ করছি, আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা মায়ের কোলে ফিরে যাব না।’ এরপর ছুটে গেলাম শহীদ মিনার চত্বরে। আসাদের মত্যুর খবর ঘোষণা করলাম শোকার্ত জনতার মাঝে। আসাদের রক্তাক্ত শার্ট সামনে রেখে সমাবেশের উদ্দেশে বললাম, ‘আসাদের এই রক্ত আমরা বৃথা যেতে দেব না’ এবং ২১ জানুয়ারি পল্টনে আসাদের গায়েবানা জানাজা ও ১২টা পর্যন্ত হরতালের কর্মসূচি ঘোষণা করি। আমাদের সত্তা ও অস্তিত্ব আসাদের রক্তের বন্ধনে আবদ্ধ হলো। শহীদ মিনার থেকে শুরু হলো শোক মিছিল। শোক মিছিল মুহূর্তেই লক্ষ মানুষের বিক্ষোভ মিছিলে পরিণত হলো। ইতোমধ্যে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। শোক মিছিলের সম্মুখভাগ যখন তিন নেতার সমাধির কাছে তখন সেনাসদস্যরা মাইকে বলছে, ‘ডোন্ট ক্রস, ডেঞ্জার-ডেঞ্জার, ডোন্ট ক্রস!’ কিন্তু শোক মিছিল ক্ষোভে উত্তাল। ‘ডেঞ্জার’ শব্দের কোনো মূল্যই নেই মিছিলের কাছে। মিছিল নির্ভয়ে এগিয়ে গেল। ২১ জানুয়ারি পূর্বঘোষিত হরতাল কর্মসূচি পালিত হলো। চারদিক থেকে মানুষের ঢল নামলো পল্টন ময়দানে। মাইক, মঞ্চ কিছুই ছিল না। পল্টনে চারাগাছের ইটের বেষ্টনীর উপর দাঁড়িয়ে বক্তব্য রাখতে হলো। বক্তৃতার পর ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের পক্ষে ৩ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করি : ২২ জানুয়ারি শোক মিছিল, কালো ব্যাজ ধারণ, কালো পতাকা উত্তোলন। ২৩ জানুয়ারি সন্ধ্যায় মশাল মিছিল, পরে কালো পতাকাসহ শোক মিছিল। ২৪ জানুয়ারি বেলা ২টা পর্যন্ত হরতাল। ২২ জানুয়ারি ঢাকা নগরীতে এমন কোনো লোক দেখিনি যার বুকে কালো ব্যাজ নেই। বাড়িতে, অফিসে সর্বত্রই কালো পতাকা উড়ছে। একমাত্র ক্যান্টনমেন্ট ছাড়া ঘৃণা প্রকাশের এই প্রতীকী প্রতিবাদ ছিল সর্বত্র। ২৩ জানুয়ারি শহরের সমস্ত অলিগলি থেকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে বের হয় মশাল মিছিল। সমগ্র ঢাকা পরিণত হয় মশালের নগরীতে। সে-এক অভূতপূর্ব দৃশ্য। চোখে না দেখলে লিখে বোঝানো যাবে না। ২৪ জানুয়ারি সর্বাত্মক হরতাল পালিত হয়। সর্বত্র মানুষের একই প্রশ্ন, ‘শেখ মুজিব কবে মুক্তি পাবে?’ ‘কবে আগরতলা মামলা তুলে নেওয়া হবে?’ ঢাকায় এ ধরনের আলোচনাই চলছিল। হরতালের পরও মিছিলের বিরাম নেই। সমগ্র জনপদ গণঅভ্যুত্থানের প্রবল বিস্ফোরণে প্রকম্পিত, অগ্নিগর্ভ। জনরোষ নিয়ন্ত্রণ করে নিয়মতান্ত্রিকতা বজায় রাখা যে কত কঠিন সেদিন মর্মে মর্মে অনুভব করেছি। কিছুক্ষণের মধ্যে সেনাবাহিনী, ইপিআর এবং পুলিশ মরিয়া হয়ে ওঠে বিক্ষোভ দমনে। যত্রতত্র গুলি চালাতে থাকে। সে গুলিতেই শহীদদের তালিকায় যুক্ত হয় মতিউর, মকবুল, আনোয়ার, রুস্তম, মিলন, আলমগীরসহ আরও অনেক নাম। লক্ষ মানুষ নেমে আসে ঢাকার রাজপথে। মানুষের পুঞ্জীভূত ঘৃণা এমন ভয়ঙ্কর ক্ষোভে পরিণত হয় যে, বিক্ষুব্ধ মানুষ ভয়াল গর্জন তুলে সরকারি ভবন ও সরকার সমর্থিত পত্রিকাগুলোয় আগুন ধরিয়ে দেয়। ‘দৈনিক পাকিস্তান’, ‘মর্নিং নিউজ’ এবং ‘পয়গাম’ পত্রিকা অফিস ভস্মীভূত হয়। আগরতলা মামলার প্রধান বিচারপতি এস রহমান তার বাসভবন থেকে এক বস্ত্রে পালিয়ে যায়। নবাব হাসান আসকারি, পাকিস্তান জাতীয় পরিষদ সদস্য এনএ লস্কর এবং রবীন্দ্র সংগীত নিষিদ্ধকারী খাজা শাহাবুদ্দীনসহ আরও কয়েক মন্ত্রীর বাসভবনে আগুন দেওয়া হয়।

ঢাকার নবকুমার ইন্সটিটিউশনের দশম শ্রেণির ছাত্র মতিউর রহমানের লাশ নিয়ে আমরা পল্টনে যাই। লাখ লাখ মানুষ পল্টনে সমবেত হয়। জানাজা অনুষ্ঠিত হয় পল্টন ময়দানে। বিক্ষুব্ধ জনতা গভর্নর হাউস আক্রমণ করতে উদ্যত। বিনামাইকে বক্তৃতা করে সংগ্রামী জনতাকে শান্ত করে মতিউরের লাশ নিয়ে পল্টন ময়দান থেকে গণমিছিল নিয়ে আমরা ইকবাল হলের মাঠে আসি। যে মাঠে এসেছিলেন সদ্য সন্তানহারা শহীদ মতিউরের পিতা আজহার আলী মল্লিক। তিনি ক্রন্দনরত অবস্থায় বলেছিলেন, ‘আমার ছেলে চলে গেছে দুঃখ নাই। কিন্তু আমার ছেলের এই রক্ত যেন বৃথা না যায়।’ যখন ইকবাল হলে পৌঁছলাম তখনই রেডিওতে ঘোষণা করা হলো ঢাকা শহরে কারফিউ। মতিউরের পকেটে নাম-ঠিকানাসহ এক টুকরো কাগজে লেখা ছিল, ‘মা-গো, মিছিলে যাচ্ছি। যদি ফিরে না আসি মা, মনে করো তোমার ছেলে বাংলার মানুষের মুক্তির জন্য, শেখ মুজিবের মুক্তির জন্য জীবন দিয়েছে। ইতি- মতিউর রহমান, ১০ম শ্রেণি, নবকুমার ইন্সটিটিউশন। পিতা- আজহার আলী মল্লিক, ন্যাশনাল ব্যাংক কলোনি, মতিঝিল।’ কারফিউর মধ্যেই আমরা মতিউরের লাশ নিয়ে গেলাম ন্যাশনাল ব্যাংক কলোনিতে। আমরা পিতামাতার আকুল আর্তনাদের আশঙ্কা করছিলাম। কিন্তু মা শুধু আঁচলে চোখ মুছে বলেছিলেন, ‘আমার ছেলে চলে গেছে দুঃখ নাই! আজ থেকে তুমি আমার ছেলে। মনে রেখ, যে জন্য আমার ছেলে রক্ত দিয়ে গেলো, সেই রক্ত যেন বৃথা না যায়।’

ঊনসত্তরের ২৪ জানুয়ারি গণআন্দোলন-গণবিস্ফোরণের মধ্য দিয়ে সংঘটিত হয় গণঅভ্যুত্থান। কারফিউর মধ্যে একদিনও থেমে থাকেনি আমাদের সংগ্রাম। দেশের মানুষ সম্পূর্ণভাবে পাকিস্তানি প্রশাসন বর্জন করেছে। কলকারখানা, অফিস-আদালত, সচিবালয় সর্বত্র প্রশাসন ভেঙে পড়েছে। সরকারি কর্মকর্তাগণ জনগুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন সিদ্ধান্তের জন্য ধরনা দিতেন ইকবাল হলে সর্বদলীয় ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের নেতৃবৃন্দের কাছে। কিছুদিনের জন্য রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে ইকবাল হল। ২৪ জানুয়ারি গণঅভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে আমরা ১১-দফার প্রতি ছাত্র, শ্রমিক, কৃষক, পেশাজীবী ও বুদ্ধিজীবীসহ বাংলার সর্বস্তরের মানুষের সমর্থন আদায় করতে পেরেছিলাম। এরপর সান্ধ্য আইন প্রত্যাহার হলে ৯ ফেব্রুয়ারি পল্টন ময়দানে ছাত্রসংগ্রাম পরিষদ ‘শপথ দিবস’ পালন করে। শপথ দিবসে আমার সভাপতিত্বে সভা শুরু হয় এবং আমরা ১০ ছাত্রনেতা ‘জীবনের বিনিময়ে হলেও ১১-দফা দাবি বাস্তবায়ন করব’ জাতির সামনে এই অঙ্গীকার ব্যক্ত করার শপথ নিয়ে সেøাগান তুলি, ‘শপথ নিলাম শপথ নিলাম মুজিব তোমায় মুক্ত করবো, শপথ নিলাম শপথ নিলাম মা-গো তোমায় মুক্ত করবো।’ আজ ভাবতে ভালো লাগে, ’৬৯-এর ২২ ফেব্রুয়ারি প্রিয় নেতাকে মুক্ত করে সেøাগানের প্রথম অংশ এবং ’৭১-এর ১৬ ডিসেম্বর দখলদার পাকিস্তানি হানাদারদের কবল থেকে প্রিয় মাতৃভূমিকে মুক্ত করে সেøাগানের দ্বিতীয় অংশের পূর্ণ বাস্তবায়ন করেছি। ১৪ ফেব্রুয়ারি হরতাল পালন ও ডাকের জনসভায় জনতার দাবির মুখে প্রিয় নেতার ছবি বুকে ঝুলিয়ে বক্তৃতা করি। ১৫ ফেব্রুয়ারি আগরতলা মামলার অন্যতম আসামি সার্জেন্ট জহুরুল হক ও ১৮ ফেব্রুয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. শামসুজ্জোহার হত্যাকান্ডের পর পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে। সংগ্রামী ছাত্র-জনতা আগরতলা মামলা প্রত্যাহার ও প্রিয়নেতা বঙ্গবন্ধু মুজিবের মুক্তির দাবিতে উত্তাল হয়ে ওঠে। মানুষ ক্যান্টনমেন্ট আক্রমণে উদ্যত হয়। ২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবসে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সভা থেকে স্বৈরশাসকের উদ্দেশে আলটিমেটাম প্রদান করে বলি, ‘২৪ ঘণ্টার মধ্যে আমাদের প্রিয়নেতা শেখ মুজিবসহ সব রাজবন্দির নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে।’ ২২ ফেব্রুয়ারি তথাকথিত লৌহমানব আইয়ুব খান আমাদের দাবির কাছে নতিস্বীকার করে বঙ্গবন্ধু মুজিবসহ সব রাজবন্দিকে নিঃশর্ত মুক্তি প্রদানে বাধ্য হয়। পরদিন ২৩ ফেব্রুয়ারি আমার জীবনের শ্রেষ্ঠদিন। সেদিন সদ্য কারামুক্ত প্রিয় নেতাকে সর্বদলীয় ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের পক্ষ থেকে ঐতিহাসিক গণসংবর্ধনা প্রদান করা হয়। স্মৃতির পাতায় ভেসে ওঠে দিনটির ছবি। এমন একজন মহান নেতার গণসংবর্ধনা সভায় সভাপতিত্ব করার সৌভাগ্য হয়েছিল আমার। সেদিনের রেসকোর্স ময়দান কানায় কানায় পরিপূর্ণ, জনসমুদ্র। চিরাচরিত প্রথা ভঙ্গ করে আগেই সভাপতির ভাষণ দেওয়ার জন্য লাখ লাখ মানুষকে অনুরোধ জানিয়েছিলাম। ১০ লক্ষাধিক লোক দুই হাত তুলে সম্মতি জানিয়েছিল। বক্তৃতায় আমি বঙ্গবন্ধুকে ‘তুমি’ বলে সম্বোধন করে বলেছিলাম, ‘প্রিয় নেতা, তোমার কাছে আমরা ঋণী, বাঙালি জাতি চিরঋণী। কারণ তুমি জেল-জুলুম অত্যাচার-নির্যাতন সহ্য করেছ। তোমার জীবন তুমি বাঙালি জাতির জন্য উৎসর্গ করেছ প্রিয় নেতা। এই ঋণ আমরা কোনো দিন শোধ করতে পারব না। তাই কৃতজ্ঞ বাঙালি জাতির পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞ চিত্তে তোমাকে একটি উপাধি দিয়ে সেই ঋণের বোঝাটা আমরা হালকা করতে চাই।’ ১০ লক্ষাধিক লোক দুই হাত উত্তোলন করে সম্মতি জানানোর পর সেই নেতাকে-যিনি জীবনের যৌবন কাটিয়েছেন পাকিস্তানের কারাগারে, ফাঁসির মঞ্চে দাঁড়িয়ে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করেছেন, ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধিতে ভূষিত করা হয়। তুমুল করতালির মধ্য দিয়ে সেদিন এই প্রস্তাব গ্রহণ করে বাংলার মানুষ লাখ লাখ কণ্ঠে ধ্বনি তুলেছিল, ‘জয় বঙ্গবন্ধু’।

সেদিন ছাত্রসমাজের নেতৃত্বে বাংলার মানুষ সুনির্দিষ্ট আদর্শ ও লক্ষ্য নিয়ে সংগ্রাম করেছে। সোনালি সেই দিনগুলোর কথা ভাবলে গর্বে বুক ভরে ওঠে। আমরা মানুষের বিশ্বাসের মর্যাদা দিয়েছি। শহীদ মতিউরের মা ক্রন্দনরত অবস্থায় বলেছিলেন, ‘আমার সন্তানের রক্ত যেন বৃথা না যায়।’ শহীদ মতিউরের রক্ত আমরা বৃথা যেতে দিইনি। ২০ জানুয়ারি আসাদের বীরোচিত আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে যে আন্দোলন রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল, সেই আন্দোলনের সফল পরিণতি বঙ্গবন্ধুসহ সব রাজবন্দির নিঃশর্ত মুক্তি, প্রাপ্তবয়স্কদের ভোটাধিকার প্রাপ্তি, ’৭০-এর নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ এবং পরিশেষে ’৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে মহত্তর বিজয় অর্জন। আর এসব অর্জনের ড্রেস রিহার্সেল ছিল ’৬৯-এর অগ্নিঝরা দিনগুলি-যা ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লেখা আছে এবং থাকবে চিরদিন।

লেখক : আওয়ামী লীগ নেতা; সংসদ সদস্য; সভাপতি, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি।

tofailahmed69@gmail.com

আওয়ামী লীগ   গণঅভ্যুত্থান   বঙ্গবন্ধু   জেল  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন