ইনসাইড ট্রেড

আজ থেকে ১১০ টাকায় সয়াবিন তেল, ৫৫ টাকায় চিনি দেবে টিসিবি

প্রকাশ: ০৮:২৭ এএম, ১০ নভেম্বর, ২০২২


Thumbnail

সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) আজ বৃহস্পতিবার থেকে বোতলজাত সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ১১০ টাকায় ও চিনি প্রতি কেজি ৫৫ টাকায় বিক্রি করবে। পাশাপাশি ৬৫ টাকা কেজি দরে ভর্তুকি মূল্যে মসুর ডালও বিক্রি করবে সরকারি সংস্থাটি।

দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে টিসিবি। এতে বলা হয়েছে, দেশব্যাপী এক কোটি ফ্যামেলি কার্ডধারী নিম্ন আয়ের পরিবারের কাছে ভর্তূকি মূল্যের এসব পণ্য বিক্রি করা হবে।

ভর্তূকি মূল্যে তেল, চিনি ও ডাল দিতে টিসিবির মাধ্যমে ঢাকা মহানগরসহ সারা দেশে চলতি মাসের বিক্রয় কার্যক্রম ১০ নভেম্বর শুরু হবে। এদিন সকাল ১০টায় রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজসংলগ্ন এজিবি কলোনির কাঁচাবাজারে সামনে টিসিবির এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ।

পরিবার কার্ডধারীরা ৫৫ টাকায় ১ কেজি চিনি, ৬৫ টাকা দরে ২ কেজি মশুর ডাল ও প্রতি লিটার ১১০ টাকা দরে ২ লিটার সয়াবিন তেল কিনতে পারবেন। টিসিবি এসব পণ্যের সঙ্গে পেঁয়াজও বিক্রি করে থাকে। তবে এ মাসে পেঁয়াজ বিক্রি করবে না সংস্থাটি। 



মন্তব্য করুন


ইনসাইড ট্রেড

জ্বালানির সাথে বাড়ছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম

প্রকাশ: ১২:০০ পিএম, ০৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

ফেব্রুয়ায়রি মাসের প্রথম দিন শুরু হয়েছিল বিদ্যুৎ ও গ্যাসের বাড়তি দাম কার্যকরের মধ্য দিয়ে। দ্বিতীয় দিনে এসে জানা গেল, রান্নার গ্যাস, মুরগি, ডিম, ডাল ও কাঁচা মরিচের দাম বৃদ্ধিতে ব্যয়ের চাপ আরও বেড়ে গেছে।

বাজারে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে। সরকার গ্যাস–বিদ্যুতের মতো সেবামূল্য বাড়িয়ে দিচ্ছে। দ্বিমুখী চাপে চ্যাপটা হচ্ছে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত। আগে যেসব পণ্যের দাম বেড়েছিল, তা কমারও কোনো লক্ষণ নেই। আরেকটি দিক হলো, সরকার যেসব পণ্যের দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে, তা–ও কোনো কোনো ক্ষেত্রে মানা হচ্ছে না।

ঢাকার কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়, ডিমের দাম বেড়েছে ডজনে ১০ টাকা। ফার্মের মুরগির বাদামি ডিম গত সপ্তাহেও প্রতি ডজন ১২৫ টাকায় কেনা যেত, তা এখন কিনতে হচ্ছে ১৩৫ টাকা দরে। এ দর বড় বাজারের ডিমের দোকানের। তবে পাড়া–মহল্লার মুদিদোকানে গেলে দাম আরও বেশি দিতে হয়। বাজারে ডিমের ডজন সাধারণত ৯০ থেকে ১০০ টাকার মধ্যে থাকে। কয়েক মাস ধরে দাম অত্যন্ত চড়া। সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) হিসাবে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এখন ডিমের দাম ২৩ শতাংশ বেশি।

অনেকের জন্য পুষ্টির যোগানে বড় ভরসা ফার্মের ব্রয়লার ও সোনালি মুরগি। কিন্তু সাম্প্রতিক কালে মুরগির দাম অনেকটা বেশি থাকছে। ব্রয়লার মুরগি ১৮০ থেকে ১৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। বিক্রেতারা জানান, দাম কেজিতে ২০ থেকে ৩০ টাকা বেড়েছে। সোনালি মুরগি ৩০০ থেকে ৩২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা যায়। গত সপ্তাহে যা ২৭০ থেকে ২৮০ টাকা ছিল। খাবার ও এক দিন বয়সী মুরগির বাচ্চার দাম বেড়ে যাওয়ায় খুচরায় মুরগির দর বেড়েছে।

ব্রয়লার মুরগি মাংসের মধ্যে সবচেয়ে সস্তা। গরুর মাংস ৬৮০ থেকে ৭০০ টাকা এবং দেশি মুরগি ৪৫০ থেকে ৫০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হওয়ার বিপরীতে ব্রয়লার মুরগির দাম সাধারণত ১৩০ থেকে ১৪০ টাকার মধ্যে থাকে। শুধু উৎসব এবং পবিত্র শবে বরাতের সময় ১৮০ টাকার আশপাশে বিক্রি হতে দেখা যায়। কিন্তু এখন দাম প্রায়ই দ্বিশতকের কাছাকাছি চলে যাচ্ছে। গত অক্টোবরে ব্রয়লার মুরগির কেজি ২০০ টাকা ছাড়িয়েছিল। টিসিবির হিসাব বলছে, গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এখন ব্রয়লার মুরগির দাম ২২ শতাংশ বেশি।

মাছের বাজারেও স্বস্তি নেই। যেসব চাষের মাছের দাম বছরজুড়ে স্থিতিশীল থাকে, সেগুলোর দরও বেড়েছে। যেমন তেলাপিয়া মাছ সাধারণত ১৫০ থেকে ১৮০ টাকার মধ্যে পাওয়া যেত। এখন তা ২০০ থেকে ২২০ টাকা দরে বিক্রি হয়। টিসিবি রুই মাছের দামের হিসাব রাখে। তাদের তালিকায় দেখা যায়, গত বছর একই সময়ে যে রুই মাছের কেজি ২৫০ থেকে ৩৫০ টাকা ছিল, সেটা এখন ৩৫০ থেকে ৪৫০ টাকা দরে বিক্রি হয়।

ডালের মধ্যে বেড়েছে অ্যাংকরের দাম। অ্যাংকর ডাল আমদানি করা। এটি মূলত নিম্ন আয়ের মানুষ কেনে। গত বছরও এ ডালের দাম কেজিতে ৫০ টাকা বা তার কম ছিল। এখন বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৭৫ টাকা দরে। এক সপ্তাহে দাম বেড়েছে ৫ টাকা। অন্য ডালের দামও চড়া। মসুর ডাল মানভেদে ৯৫ থেকে ১৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছেন বিক্রেতারা।

রান্না করতে কাঁচা মরিচ লাগেই। কাঁচা মরিচের কেজি উঠেছে ১২০ থেকে ১৪০ টাকা। গত সপ্তাহে কাঁচা মরিচ বিক্রি হয় ১০০ টাকা কেজির নিচে। বেশির ভাগ সবজির কেজি ৪০ থেকে ৫০ টাকা। বিক্রেতারা বলছেন, সবজির দাম স্থিতিশীল আছে। তবে মৌসুমের সময় দাম যতটা কমে, এবার ততটা কমেনি।

চাল, আটা ও তেল

দেশের মানুষের প্রধান খাদ্য চালের দাম উচ্চ মূল্যে স্থিতিশীল রয়েছে। আমদানি ও আমনে ভালো ফলনও দাম কমাতে পারেনি। টিসিবির তালিকায় মোটা চালের দাম ৪৬ থেকে ৫০ টাকা লেখা রয়েছে। তবে বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ভালো মানের মোটা চাল কিনতে দর পড়ছে কেজিপ্রতি ৫০ থেকে ৫৫ টাকা। মাঝারি চালের দর ৬০ থেকে ৬২ টাকা। আর সরু মিনিকেট চাল কিনতে লাগছে ৬৫ থেকে ৭৫ টাকা।

জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার গতকাল বলেন, বিএনপির আমলে ৫০ থেকে ৫৫ টাকায় মোটা চাল বিক্রি হতো। তখন একজন নারী শ্রমিক মজুরি পেতেন ৪০ থেকে ৪৫ টাকা। পুরুষ পেতেন ৬০ থেকে ৭০ টাকা। এক কেজি চাল কিনলে তেল ও লবণ কেনার টাকা থাকত না। এখন মোটা চাল যদি ৪৮ কিংবা ৫০ টাকা ধরি...এখন একজন শ্রমিক মজুরি পান ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা। সেই দিকে ধরলে তাঁরা পাঁচ গুণ, ছয় গুণ, সাত গুণ কিংবা আট গুণ বেশি আয় করেন।

চালের দাম কতটা বেড়েছে, তা বোঝা যায় টিসিবির ২০২০ সালের জানুয়ারি মাসের দর দেখলে। তখন মোটা চালের সর্বনিম্ন দাম কেজিপ্রতি ৩০ টাকা ও সরু চাল ৪৫ টাকা ছিল। চালের দাম কমাতে সরকার আমদানির সুযোগ দিয়েছে। শুল্ক কমিয়েছে। তবে তারপরও দাম কমাতে পারেনি।

২০২০ সালের শুরুতে খোলা আটার কেজি ছিল ২৮ থেকে ৩০ টাকা; তা এখন কেজিপ্রতি ৫৮ থেকে ৬০ টাকা দিয়ে কিনতে হচ্ছে মানুষকে। প্যাকেটজাত আটার দাম আরও বেশি। কেজিপ্রতি ৬৫ থেকে ৭৫ টাকা। টিসিবির হিসাবে গত বছরের এ সময়ের তুলনায় আটার দাম এখন ৬৬ শতাংশ বেশি।

২০২১ ও ২০২২ সালজুড়ে ভোজ্যতেলের দাম চড়া ছিল। এখনো চড়া। ২০২০ সালের শুরুতে লিটারপ্রতি সয়াবিন তেলের দাম ছিল ১০০ টাকার আশপাশে। এখন তা ১৮০ টাকার বেশি।

মসলার মধ্যে পেঁয়াজের মৌসুম চলছে। দাম নাগালে আছে। কেজিপ্রতি ৩০ থেকে ৪০ টাকা। দেশি রসুনের কেজি ১২০ থেকে ১৪০ টাকা। চীনা রসুন ১৮০ থেকে ২০০ টাকা দরে বিক্রি করছেন বিক্রেতারা। বিক্রেতারা বলছেন, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণে ট্রাকভাড়া, ডলারের মূল্যবৃদ্ধি ও সারের দাম বাড়ার কারণে পণ্যের উৎপাদন ও আমদানি ব্যয় বেড়েছে। ফলে মৌসুমের সময় দাম ততটা কমছে না, যতটা আগে কমত।

যেমন টিসিবির হিসাবে গত বছর একই সময়ের তুলনায় এখন পেঁয়াজের দাম ৪০ শতাংশ বেশি। এবার আবাদে কোনো সমস্যা হয়নি।

নির্ধারিত দর কেউ মানে না

সরকারি সংস্থাগুলো এখন ভোজ্যতেল, চিনি ও তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের (এলপিজি) দাম নির্ধারণ করে দেয়। ভোজ্যতেলের দাম মাঝেমধ্যে মানা হয় না। এটা মূলত নির্ভর করে বৈশ্বিক বাজার পরিস্থিতি কোন দিকে যাচ্ছে, সেটির ওপর।

চিনি ও এলপিজির নির্ধারিত দর এখন মানা হচ্ছে না। গত ২৬ জানুয়ারি চিনির খুচরা মূল্য কেজিপ্রতি ৫ টাকা বাড়িয়ে ১০৭ টাকা নির্ধারণ করা হয়। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, দাম আসলে কেজিপ্রতি ১১০ থেকে ১২০ টাকা। টিসিবির তালিকায়ও এ দর উল্লেখ করা হয়েছে।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান বলেন, ‘চিনির বাড়তি দাম ঠেকাতে আমরা সক্রিয় আছি। এলপিজির দাম আজই (গতকাল) বাড়ল। বেশি নেওয়া হলে আমরা দেখব।’

অবশ্য গ্রাহকেরা বলছেন, সব সময়ই এলপিজি নির্ধারিত দামের বেশি দরে বিক্রি হয়।

গ্যাস–বিদ্যুৎ দাম ‘আরও বাড়াবে’

সরকার গত ১৮ জানুয়ারি গ্যাসের দাম গড়ে ৮২ শতাংশ বাড়িয়েছে। বাসাবাড়ির গ্যাসের দাম না বাড়লেও তা পরোক্ষভাবে পরিবারের ব্যয় বাড়াবে। কারণ, গ্যাস পণ্যের উৎপাদন খরচ বাড়িয়ে দেবে। বিদ্যুতের দাম গত মাসে দুই দফায় ১০ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে। এতে সরাসরি মানুষের বাসার বিদ্যুৎ বিল বাড়বে। পণ্যের উৎপাদন ব্যয়ে প্রভাব ফেলবে।

গ্যাস–বিদ্যুতের দাম বাড়ানোয় ডিম ও মুরগির দাম আরও বাড়তে পারে। কারণ, গ্যাসের বাড়তি দামে পোলট্রি খাবারের উৎপাদন ব্যয় বাড়বে। আর বিদ্যুৎ সরাসরি খামারের ব্যয় বাড়িয়ে দেবে।

দেশে গত ৫ আগস্ট জ্বালানি তেলের দাম রেকর্ড হারে বাড়ানো হয়েছিল। ওই মাসে মূল্যস্ফীতি দাঁড়ায় ৯ দশমিক ৮৬ শতাংশ, যা আগের ১১ বছর ৩ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ ছিল।

এসব মূল্যবৃদ্ধি সাধারণ মানুষের ওপর কী প্রভাব ফেলছে, তা আঁচ করা যায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আবদুল মজিদের কথায়, যিনি নিউমার্কেট কাঁচাবাজারে কেনাকাটা করতে গিয়েছিলেন। তিনি বলেন, ‘এখন মাসে ৩০ হাজার টাকা আয় করেও পাঁচজনের সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছি। মাসের শেষ দিকে ধার করা লাগে।’



মন্তব্য করুন


ইনসাইড ট্রেড

পোশাক খাতে রপ্তানি আয় বেড়েছে ৩২ বিলিয়ন ডলার

প্রকাশ: ১০:৩১ এএম, ০৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

চলতি অর্থবছরের জন্য রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৫৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এর মধ্যে জুলাই-জানুয়ারি পর্যন্ত সাত মাসে পণ্য খাতে অর্জিত রপ্তানি আয় দাঁড়িয়েছে ৩২ দশমিক ৪৪৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এটি আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ৯ দশমিক ৮১ শতাংশ বেশি।

ইপিবির পর্যালোচনায় দেখা গেছে। মূলত তৈরি পোশাকের ওপর নির্ভর করেই রপ্তানি আয় বাড়ছে। গত সাত মাসে যে ৩২ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয় এসেছে তার মধ্যে ২৭ বিলিয়ন ডলারের বেশি এসেছে তৈরি পোশাক থেকে।

২০২১-২২ অর্থবছরের সাত মাসে পণ্য খাতে রপ্তানি আয়ের পরিমাণ ছিল ২৯ দশমিক ৫৪ বিলিয়ন ডলার।

পোশাক খাতে রপ্তানি আয় বেড়েছে ১৪ শতাংশের বেশি। চলতি অর্থবছরের জুলাই থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত সাত মাসে পোশাক খাতে রপ্তানি প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৪ দশমিক ৩১ শতাংশ। দেশের প্রধান এ শিল্প খাতে রপ্তানি আয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৭ দশমিক ৪১ বিলিয়ন ডলার; যা আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ৩ দশমিক ৪৩ বিলিয়ন ডলার বেশি।



মন্তব্য করুন


ইনসাইড ট্রেড

১২ কেজি এলপিজি সিলিন্ডারের দাম বাড়ল ২৬৬ টাকা

প্রকাশ: ০৭:২৮ পিএম, ০২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

আবারও বেড়েছে ভোক্তা পর্যায়ে তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের (এলপিজি) দাম। ১ হাজার ২৩২ টাকা থেকে ২৬৬ টাকা বাড়িয়ে ১২ কেজি সিলিন্ডারের নতুন মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১ হাজার ৪৯৮ টাকা।

বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) এই দাম ঘোষণা করেছে। বর্ধিত এই দাম আজ থেকে কার্যকর হবে। পরবর্তী আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত এটি বলবৎ থাকবে।

ঘোষণায় বলা হয়, বেসরকারি এলপিজির রিটেইলার পয়েন্টে ভোক্তাপর্যায়ে মূসকসহ মূল্য প্রতি কেজি ১২৮.৮৫ পয়সা নির্ধারণ করা হলো। এছাড়া রেটিকুলেটেড পদ্ধতিতে তরল অবস্থায় সরবরাহ করা বেসরকারি এলপিজির ভোক্তাপর্যায়ে মূসকসহ মূল্য প্রতিকেজি ১২১ দশমিক ৬২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এর আগে গত ২ জানুয়ারি ১২ কেজি এলপিজির দাম ৬৫ টাকা কমানো হয়। তার আগের মাস ডিসেম্বরে ১ হাজার ২৫১ টাকা থেকে ৪৬ টাকা বাড়িয়ে ১ হাজার ২৯৭ টাকা নির্ধারণ করেছিল নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিইআরসি।


এলপিজি   দাম বৃদ্ধি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ট্রেড

৬ মাসে কেরুর ২৩৩ কোটি টাকা আয়

প্রকাশ: ০৫:০৬ পিএম, ২৮ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail চলতি অর্থবছরের ৬ মাসে কেরুর ২৩৩ কোটি টাকা আয়।

চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে কেরু অ্যান্ড কোম্পানি রেকর্ড পরিমাণ রাজস্ব আয় করেছে। চিনি উৎপাদনে মিলটি প্রতিবছর লোকসান গুনলেও অ্যালকোহল বিক্রি করে শত কোটি টাকা আয় করছে কোম্পানিটি। প্রতিষ্ঠানটি চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে ২৩২ কোটি ৯৬ লাখ টাকার মদ বিক্রি করেছে, যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ২১ শতাংশ বেশি।

কেরু অ্যান্ড কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচারক মোশারফ হোসেন জানান, মদ উৎপাদনের প্রধান উপকরণ চিটাগুড়। মিলেই উৎপাদন হয় প্রয়োজনীয় চিটাগুড়। দেশের অন্য চিনিকল থেকেও চিটাগুড় আনা হয়। এ চিটাগুড় প্রক্রিয়াকরণ শেষে মদ উৎপাদনের কাজে ব্যবহার করা হয়। কেরু অ্যান্ড কোম্পানির ইতিহাসে এ অর্থ বছরের ছয় মাসে রেকর্ড পরিমাণ বাংলা ও বিলেতি মদ উৎপাদন করা হয়েছে। বিদেশি মদ আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা থাকায় কেরুর উৎপাদিত মদের চাহিদা দেশের বাজারে কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।


কেরুর ডিস্টিলারি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে অর্থাৎ জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলা ও বিলেতি মদ বিক্রি করে প্রতিষ্ঠানটি আয় করেছে ২৩২ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। এর আগে ২০২১-২২ অর্থবছরের জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত আয় হয়েছিল ১৯২ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। যা গতবছরের একই সময়ের তুলনায় ৪০ কোটি ৫৮ লাখ টাকা বেশি। প্রতিমাসে প্রায় ২১ হাজার কেসেরও বেশি অ্যালকোহল বিক্রি করছে কেরু। প্রতিষ্ঠানটি ১৭৫ মিলিলিটার, ৩৭৫ মিলিলিটার ও ৭৫০ মিলিলিটারের বোতলে বিলেতি মদ বাজারজাত করে। প্রত্যেকটি কেসে ৭৫০ মিলিলিটারের ১২টি, ৩৭৫ মিলিলিটারের ২৪টি এবং ১৭৫ মিলিলিটারের ৪৮টি করে প্লাস্টিকের বোতল থাকে। 

জানা গেছে, কেরুর ডিস্টিলারিতে সেমি-অটোমেশন পদ্ধতিতে মদ উৎপাদনের লক্ষ্যে কাজ চলছে। কেরুর কক্সবাজার ও কুয়াকাটায় নতুন দুটি বিক্রয়কেন্দ্র অল্পদিনেই চালু হতে যাচ্ছে। দেশে প্রতিষ্ঠানটির ১৩টি ওয়্যারহাউস ও তিনটি বিক্রয়কেন্দ্র রয়েছে।

প্রসঙ্গত, ১৯৩৮ সালে চুয়াডাঙ্গার দর্শনায় কেরু অ্যান্ড কোম্পানি লিমিটেড গড়ে ওঠে। রবার্ট কেরু নামে ব্রিটিশ নাগরিক ব্যক্তি উদ্যোগে প্রতিষ্ঠা করেন মিলটি। দেশ স্বাধীনের পর বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশন মিলটি পরিচালনা করছে। প্রতিষ্ঠার পর থেকে সমস্যা আর সম্ভাবনার মধ্যে দিয়ে মিলের কার্যক্রম চলছে। ডিস্টিলারি বিভাগ ছাড়া বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির সব ইউনিটে প্রতিবছর প্রায় ৭০-৮০ কোটি টাকা লোকসান গুনতে হয়।


চলতি অর্থবছর   কেরু অ্যান্ড কোম্পানি   রাজস্ব আয়  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ট্রেড

সরবরাহ কমেছে শীতের সবজির, চিনি আদার দাম আগুন

প্রকাশ: ০১:০০ পিএম, ২৭ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

শেষের দিকে শীতের মৌসুম। শুরু হয়েছে নতুন ঋতুর আগমনী বার্তা। এর ফলে অনেক কিছুরই পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বিশেষ করে কাঁচাবাজারে শীত শেষের বার্তা পাওয়া গেছে। আগের তুলনায় রাজধানীর বিভিন্ন কাঁচাবাজারের শীতকালীন অনেক সবজিরই সরবরাহও কমেছে।

এ অবস্থা চলতে থাকলে আগামী সপ্তাহ পর সবজির দাম বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এছারা বাজারে কাগজ-কলমে আরও এক দফা বাড়ছে চিনির দাম। আগামী ফেব্রুয়ারি মাস থেকে নতুন করে প্রতি কেজি চিনিতে দাম বাড়বে পাঁচ টাকা। এতে এক কেজি পরিশোধিত খোলা চিনি ১০৭ টাকা ও প্যাকেটজাত চিনি ১১২ টাকায় বিক্রি হবে। কিন্তু জানুয়ারিতেই বাড়তি দামে চিনি বিক্রি শুরু করেছেন ব্যবসায়ীরা। বর্তমানে বাজারে প্রতি কেজি চিনি ১১৫ থেকে ১২০ টাকার কমে মিলছে না।

ক্রেতা-বিক্রেতারা বলছেন, দাম এখনো না বাড়লেও শীতের টাটকা সবজির সরবরাহ কিছুটা কমেছে। সবজির দোকানগুলোতেও কাঁচামালের পদের সংখ্যা ও পরিমাণ কমেছে। এই অবস্থা চলতে থাকলে আগামী সপ্তাহ পর সবজির দাম বাড়তে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

শীতের শুরুতে টাটকা সবজিতে ভরপুর থাকলেও এখন এ চিত্রে কিছুটা ভাটা পড়েছে। খুচরা বিক্রেতারা বলছেন, চলতি সপ্তাহ থেকে শীতের সবজির উৎপাদন অনেকটা কমেছে। ফলে বাজারে সবজির সরবরাহ ধীরে ধীরে কমে আসছে। আর দুয়েক সপ্তাহ পর বাজারে অনেক শীতের সবজির সংকট দেখা দিতে পারে।

এদিকে সবজি বাজারের সর্বশেষ খুচরা দাম অনুযায়ী, প্রতি কেজি আলু ৩০ টাকা, কাঁচামরিচ ১২০ টাকা, ধনিয়া পাতা ১২০ টাকা, টমেটো ৫০ টাকা, শিম ৪০ টাকা, ঢ্যাঁড়স ১২০ টাকা, করলা ১২০ টাকা, বাঁধাকপি আকার অনুযায়ী ৫০-৪০ টাকা, ফুলকপি আকার অনুযায়ী ৫০-৪০ টাকা, গাজর ৬০ টাকা, বরবটি ১২০ টাকা, চিচিঙ্গা ৮০ টাকা, ঝিঙ্গা ১০০ টাকা, বেগুন ৬০ টাকা ও পেঁপে ৩০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।

অন্যদিকে প্রতি পিস লাউ ৮০-১০০ টাকা, প্রতি হালি কাঁচকলা ৪০ টাকা, প্রতি আটি লাল ও পালন শাক ১০-১৫ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে চিনির দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্তের কথা জানায় চিনি পরিশোধনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ সুগার রিফাইনার্স অ্যাসোসিয়েশন। সবশেষ গত বছরের ১৭ নভেম্বর খুচরা পর্যায়ে চিনির দাম বাড়ানো হয়েছিল। তখন প্রতি কেজি প্যাকেটজাত চিনি ৯৫ টাকা থেকে ১২ টাকা বাড়িয়ে ১০৭ টাকা এবং খোলা চিনি দাম বাড়িয়ে করা হয় ১০২ টাকা। সেক্ষেত্রেও চিনি বিক্রি হয়েছে বাড়তি দামে। নতুন করে দাম বাড়ায় চিনির বাজার লাগামছাড়া হতে পারে বলে আশঙ্কা খুচরা বাজারের ব্যবসায়ীদের।

শুধু চিনি নয়, মসলাসহ আদা-রসুন ও শুকনো মরিচের দামেও অস্থিরতা চলছে। সপ্তাহান্তেই বাড়ছে দাম। এখন প্রতি কেজি আদা ১৫০-২০০ টাকায় ঠেকেছে। রসুনের দামও বেড়ে হয়েছে ১৫০-১৮০ টাকা। বাজারে তুলনামূলক কিছুটা কম দামে দেশি জাতের আদা-রসুন থাকলেও সেগুলোর চাহিদা কম।

আগে যে শুকনো মরিচ প্রতি কেজি বিক্রি হতো ১০০-১৫০ টাকায় তা এখন ৫০০ টাকা পর্যন্ত পৌঁছেছে। আমদানি কমে যাওয়ার পাশাপাশি উৎপাদন সংকটে পণ্যটির রেকর্ড পরিমাণ দাম বেড়েছে। বর্তমানে শুকনো মরিচ কেজিপ্রতি সর্বনিম্ন ৩৫০-৫০০ টাকায় ওঠানামা করছে। আসন্ন রমজানের আগে সরবরাহ না বাড়লে দাম আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা ব্যবসায়ীদের।



মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন