ইনসাইড ওয়েদার

বঙ্গোপসাগরে ট্রলারডুবি, ২০ নৌকার ২০০ জেলে নিখোঁজ

প্রকাশ: ০৩:১৫ পিএম, ১৭ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

ঘূর্ণিঝড় মিধিলির প্রভাবে নিশাত নামক একটি মাছ ধরার ট্রলারডুবির ঘটনা ঘটেছে। এ ছাড়া আরও ২০টি ট্রলারসহ দুই শতাধিক জেলে নিখোঁজ রয়েছে। এদিকে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় থাকা গভীর নিম্নচাপের প্রভাবে উত্তাল রয়েছে সাগর।

শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) দুপুরে বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী ট্রলারডুবি ও জেলে নিখোঁজের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ‘বৃহস্পতিবার রাতে বঙ্গোপসাগর মোহনায় বরগুনার পাথরঘাটার ছালাম মিয়া নামে এক ব্যক্তির এফবি নিশাত নামের মাছ ধরা ট্রলারটি প্রবল দমকা হাওয়ার কবলে পড়ে উল্টে যায়। এ সময় পাশে অবস্থানরত অন্য একটি ট্রলারের জেলেরা তাদের উদ্ধার করে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে আসে। এছাড়াও পাথরঘাটা উপজেলার ২০টি মাছ ধরার ট্রলাসহ ২০০ জেলের কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।’

তিনি আরও জানান, ‘সুন্দরবন এলাকার বিভিন্ন খালে শতাধিক ট্রলার নিরাপদ আশ্রয়ে অবস্থান করছে। তওব নিখোঁজ জেলে ও ট্রলারের খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে।’

দক্ষিণ স্টেশনে কোস্টগার্ড সূত্রে জানা যায়, নিখোঁজ ট্রলার ও জেলেদের খোঁজ নিতে অন্যান্য স্টেশনকে অবগত করা হয়েছে।


ঘূর্ণিঝড়   ট্রলার ডুবি   নিখোঁজ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ওয়েদার

বায়ুদূষণে আবার শীর্ষে মেগাসিটি ঢাকা

প্রকাশ: ০৯:২৫ এএম, ০৫ ডিসেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

বায়ুদূর্ষণ ছাড়ছে না রাজধানী ঢাকাকে। আজও দূষণ তালিকার শীর্ষে মেগাসিটি ঢাকা। দ্বিতীয় অবস্থানে ভারতের দিল্লি, তৃতীয় চীনের শেনইয়াং।

মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) সকাল ৮টা ৫৩ মিনিটে বায়ুর মান পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সের (আইকিউএয়ার) সূচক থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

বায়ুদূষণের তালিকায় শীর্ষে থাকা ঢাকার স্কোর হচ্ছে ১৮৬ অর্থাৎ এখানকার বায়ু অস্বাস্থ্যকর পর্যায়ে রয়েছে। এরপর দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ভারতের দিল্লি এবং শহরটির স্কোর ১৮১। এর অর্থ সেখানকার বায়ুর মানও অস্বাস্থ্যকর পর্যায়ে রয়েছে। তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে চীনের শেনইয়াং। শহরটির স্কোর ১৭৭ অর্থাৎ অর্থাৎ সেখানকার বায়ুর মানও অস্বাস্থ্যকর।

স্কোর শূন্য থেকে ৫০ এর মধ্যে থাকলে বায়ুর মান ভালো বলে বিবেচিত হয়। ৫১ থেকে ১০০ হলে মাঝারি বা সহনীয় ধরা হয় বায়ুর মান। সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর হিসেবে বিবেচিত হয় ১০১ থেকে ১৫০ স্কোর। ১৫১ থেকে ২০০ পর্যন্ত অস্বাস্থ্যকর হিসেবে বিবেচিত হয়। স্কোর ২০১ থেকে ৩০০ হলে খুবই অস্বাস্থ্যকর বলে বিবেচনা করা হয়। এছাড়া ৩০১-এর বেশি হলে তা দুর্যোগপূর্ণ বলে বিবেচিত হয়।


ঢাকা   বায়ুদূষণ   ভারত  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ওয়েদার

আজ ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে গভীর নিম্নচাপ

প্রকাশ: ০৮:৫৩ এএম, ০৩ ডিসেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপটি ঘনীভূত হয়ে আগামীকাল রোববার ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। যার প্রভাবে আগামী বুধবার সারা দেশে কমবেশি বৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

শনিবার (২ ডিসেম্বর) দেওয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আগামী সোমবার পর্যন্ত অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। পরে পাঁচ দিনের আবহাওয়া পরিবর্তন হয়ে বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টিপাত বাড়ার আশঙ্কা আছে

আরও বলা হয়েছে, নিম্নচাপটি ঘনীভূত হয়ে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। যা ঘনীভূত হয়ে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেবে। গতিপথ অনুযায়ী এটি বাংলাদেশের পরিবর্তে ভারতের হারিয়ানা অঞ্চলে আঘাত হানতে পারে। ঘূর্ণিঝড় না হলেও দেশে এর কিছুটা প্রভাব পড়বে।

আবহাওয়া অফিস বলছে, আগামী বুধবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত সারা দেশে কমবেশি বৃষ্টি হবে। ভারী বৃষ্টিপাত হবে দেশের উপকূলীয় অঞ্চলগুলোতে। তুলনামূলক কম বৃষ্টিপাত হবে উত্তরাঞ্চলে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, সোমবার পর্যন্ত সারা দেশে রাত ও দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকবে। এ সময় দেশের উত্তরাঞ্চল ও নদী অববাহিকায় শেষ রাত থেকে সকাল পর্যন্ত হালকা কুয়াশা পড়তে পারে।


ঘূর্ণিঝড়   গভীর নিম্নচাপ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ওয়েদার

সাগরে নিম্নচাপ, ১ নম্বর সংকেত

প্রকাশ: ১২:৩২ পিএম, ০২ ডিসেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

বঙ্গোপসাগরে থাকা সুস্পষ্ট লঘুচাপটি গতকাল শুক্রবার (১ ডিসেম্বর) নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। দক্ষিণপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন দক্ষিণপূর্ব বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত নিম্নচাপ কেন্দ্রের নিকটবর্তী এলাকায় সাগর উত্তাল থাকায় ১ নম্বর সংকেত জানিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

শনিবার (২ ডিসেম্বর) সকালে আবহাওয়ার পাঁচ নম্বর বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘দক্ষিণপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন দক্ষিণপূর্ব বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত নিম্নচাপটি আরও পশ্চিম-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে বর্তমানে দক্ষিণপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে।

এটি আজ সকাল ছয়টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৫২০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৪৬০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৪৩৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৪২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছে। এটি আরও পশ্চিম-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর ও ঘনীভূত হতে পারে।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‘নিম্নচাপ কেন্দ্রের ৪৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৪০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়ার আকারে ৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। নিম্নচাপ কেন্দ্রের নিকটবর্তী এলাকায় সাগর উত্তাল রয়েছে।’

সাগর উত্তাল থাকায় চট্টগ্রাম, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দর এবং কক্সবাজারকে এক নম্বর দূরবর্তী সতর্কসংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।


বঙ্গোপসাগর   নিম্নচাপ   সতর্কতা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ওয়েদার

বায়ুদূষণের শীর্ষ তিনে দিল্লি, করাচি ও ঢাকা

প্রকাশ: ০৯:৫০ এএম, ০২ ডিসেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

বায়ুদূষণের শীর্ষে আজ ভারতের দিল্লি। দ্বিতীয় পাকিস্তানের করাচি এবং তালিকায় ঢাকার অবস্থান তৃতীয়।

শনিবার ( ডিসেম্বর) সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে বায়ুর মান পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সের (আইকিউএয়ার) সূচক থেকে তথ্য জানা গেছে।

বায়ুদূষণের তালিকায় শীর্ষে থাকা দিল্লির স্কোর হচ্ছে ৪২৩ অর্থাৎ সেখানকার বায়ু দুর্যোগপূর্ণ পর্যায়ে রয়েছে। এরপর দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তানের করাচি এবং শহরটির স্কোর ১৮৭। এর অর্থ সেখানকার বায়ুর মান অস্বাস্থ্যকর পর্যায়ে রয়েছে। তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে রাজধানী ঢাকা। শহরটির স্কোর ১৮০ অর্থাৎ এখানকার বায়ুর মানও অস্বাস্থ্যকর পর্যায়ে রয়েছে। এছাড়া পাকিস্তানের লাহোর রয়েছে চতুর্থ অবস্থানে।

স্কোর শূন্য থেকে ৫০ এর মধ্যে থাকলে বায়ুর মান ভালো বলে বিবেচিত হয়। ৫১ থেকে ১০০ হলে মাঝারি বা সহনীয় ধরা হয় বায়ুর মান। সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর হিসেবে বিবেচিত হয় ১০১ থেকে ১৫০ স্কোর। ১৫১ থেকে ২০০ পর্যন্ত অস্বাস্থ্যকর হিসেবে বিবেচিত হয়। স্কোর ২০১ থেকে ৩০০ হলে খুবই অস্বাস্থ্যকর বলে বিবেচনা করা হয়। এছাড়া ৩০১-এর বেশি হলে তা দুর্যোগপূর্ণ বলে বিবেচিত হয়।

এদিকে দক্ষিণ এশিয়ায় বায়ুদূষণ দিনদিন আরও ভয়ংকর হয়ে উঠছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কোটি কোটি মানুষের জীবন। গবেষণা বলছে, বৈশ্বিক বায়ুদূষণের হটস্পট হয়ে উঠেছে দক্ষিণ এশিয়া। বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত চারটি দেশ এবং দূষণের শীর্ষে থাকা ১০ শহরের মধ্যে নয়টির অবস্থানই অঞ্চলে।


বায়ুদূষণ   ঢাকা   দিল্লি   করাচি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ওয়েদার

বায়দূষণে ঢাকার উন্নতি, শীর্ষে দিল্লি

প্রকাশ: ১০:৩৭ এএম, ২৮ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

এর আগে বায়ুদূষণের তালিকার শীর্ষ স্থানে টানা তিনদিন অবস্থান করেছে বাংলাদেশের রাজধানী। বিষয়টি সর্বোচ্চ আদালত পযন্ত গড়িয়েছে। বায়ুদূষণের সেই তালিকায় এবার কিছুটা নিচে নেমে এসেছে মেগাসিটি ঢাকা।

মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বায়ুমান পর্যবেক্ষণকারী প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সে (একিউআই) বায়ুদূষণের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রকাশিত তালিকা অনুযায়ী, বিশ্বের দূষিত শহরের তালিকায় পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে রাজধানী ঢাকা। আর সবচেয়ে বেশি দূষণের কবলে রয়েছে ভারতের দিল্লি। বিশ্বের দূষিত শহরের তালিকায় প্রথম ১০টির মধ্যে প্রথমে রয়েছে ভারতের।

ঢাকার একিউআই স্কোর ২০৭, যা ‘অস্বাস্থ্যকর’ হিসেবে বিবেচিত। আর একিউআই স্কোর ৩১৪ নিয়ে এ তালিকায় শীর্ষে রয়েছে ভারতের রাজধানী দিল্লি।

এ ছাড়া ২৪৯ স্কোর নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তানের করাচি শহর। ২১৫ স্কোর নিয়ে এই সূচকের তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তানের লাহোর, ২০৮ স্কোর নিয়ে চতুর্থ ভিয়েতনামের হ্যানয় এবং পঞ্চম শহর হিসেবে আছে ঢাকা।

সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বায়ুমান পর্যবেক্ষণকারী প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান আইকিউ এয়ার প্রতিদিনই বায়ুদূষণের তালিকা প্রকাশ করে। একিউআই স্কোরের মাধ্যমে এর মান পর্যবেক্ষণ করা হয়।

শূন্য থেকে ৫০ স্কোরকে ভালো হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ৫১ থেকে ১০০ মাঝারি হিসেবে গণ্য করা হয়; আর সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর বিবেচনা করা হয় ১০১ থেকে ১৫০ স্কোর। আর ১৫১ থেকে ২০০ স্কোর হলে তাকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ বায়ু বলে মনে করা হয়।

২০১ থেকে ৩০০-এর মধ্যে থাকা একিউআই স্কোরকে ‘খুব অস্বাস্থ্যকর’ বলা হয়। এ অবস্থায় শিশু, প্রবীণ এবং অসুস্থ রোগীদের বাড়ির ভেতরে এবং অন্যদের বাড়ির বাইরের কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে।

এদিকে ৩০১ থেকে ৪০০ এর মধ্যে থাকা একিউআই ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ বলে বিবেচিত হয়, যা নগরের বাসিন্দাদের জন্য গুরুতর স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি করে।

সাধারণত একিউআই নির্ধারণ করা হয় দূষণের ৫টি ধরনকে ভিত্তি করে; যেমন : বস্তুকণা (পিএম১০ ও পিএম২.৫), এনও২, সিও, এসও২ ও ওজোন (ও৩)।



মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন