ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

শিশির মনির এবং প্রথম আলোর জামায়াত কানেকশন

প্রকাশ: ০১:১৩ পিএম, ০১ ডিসেম্বর, ২০২২


Thumbnail

যুদ্ধপরাধীদের বিচারের দাবিতে সমগ্র বাংলাদেশ যখন উত্তাল। সবাই যখন ঘৃণ্য অপরাধীদের বিচারের দাবীতে ঐক্যবদ্ধ, তখন যুদ্ধাপরাধী ব্যারিস্টার আবদুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে কিছু আইনজীবী যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচাতে মরিয়া হয়ে ওঠেন। সেই সময় ব্যারিস্টার রাজ্জাকের সহকারী হিসেবে আলোচনায় আসেন শিশির মনির।

জামায়াতের ছাত্র সংগঠন ছাত্র শিবিরের ২০০৯ সালের কেন্দ্রীয় কমিটির এই সাধারণ সম্পাদক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন বিষয়ে পড়াশোনা শেষ করেন। এসময় জামাতের সিদ্ধান্তে তাকে লন্ডনে ব্যারিস্টারি পড়তে পাঠানো হয়।

২০১২ সালে দেশে ফিরে তিনি সুপ্রিম কোর্টে প্রাকটিস শুরু করেন। বর্তমানে শিশির জামায়াতের ল উইংয়ের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হিসেবে কাজ করছেন।

বর্তমানে দেশের ব্যাংকিং সেক্টর ও আর্থিক খাত নিয়ে যে ষড়যন্ত্র চলছে তার অন্যতম কুশীলবের ভূমিকায় রয়েছেন এই শিশির মনির। ইসলামি ব্যাংকসহ বিভিন্ন ব্যাংকে সংকট সৃষ্টির লক্ষ্যে সম্প্রতি হাইকোর্টে এক রীট করে আলোচনায় এসেছেন শিশির মনির। মূলত জামাতের এজেন্ডা বাস্তবায়নে এই রীট করা হয়েছে। শিশির মনিরের এই রীট হয়েছে ইসলামী ব্যাংক নিয়ে দেশের শীর্ষস্থানীয় দৈনিক ‘প্রথম আলো’র রিপোর্টের ভিত্তিতে। এই রীট পিটিশনের পর প্রশ্ন উঠেছে, প্রথম আলো কি তাহলে জামাতের এজেন্ডা বাস্তবায়নের মিশনে নেমেছে? ইসলামী ব্যাংক জামাতের হাতছাড়া হবার প্রেক্ষিতে জামায়াত বিভিন্নভাবে এই ব্যাংকটির বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছে। এখন প্রথম আলো এই অপপ্রচার মিশনে যুক্ত হয়েছে। আর শিশির মনির এটাকে আদালতে নিয়ে গেছে।

তরুণ প্রজন্মের কাছে নির্বাচনী অঙ্গীকার হিসেবে যুদ্ধপরাধীদের বিচারের জন্য ২০১০ সালের ২৫শে মার্চ ট্রাইবুনাল গঠন করে আওয়ামী লীগ সরকার। শুধুমাত্র আইনী সাহায্যই নয়, দেশ-বিদেশের গণমাধ্যমে নানা বিতর্কিত ও মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেন শিশির মুনির। এভাবে দেশে বসেই বিচার কাজকে বিতর্কিত করতে সে বিদেশে তার নেটওয়ার্ক কাজে লাগান শিশির। আর্ন্তজাতিক অঙ্গনেও বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার অপচেষ্টা চালান তিনি। প্রশ্ন উঠছে, সেই বিতর্কিত ব্যাক্তির সংগে ‘প্রথম আলো’র সখ্যতার রহস্য কি? 


শিশির মনির   প্রথম আলো  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

মসিউর রহমানই হচ্ছেন পরবর্তী রাষ্ট্রপতি

প্রকাশ: ০৭:০০ পিএম, ২৬ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

কোন অঘটন না ঘটলে প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমানই পরবর্তী রাষ্ট্রপতি হতে যাচ্ছেন। সরকারের নীতিনির্ধারক মহল এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বাংলা ইনসাইডারকে নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ্য যে, বর্তমান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের মেয়াদ আগামী এপ্রিলে শেষ হতে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশন ইতোমধ্যে ফেব্রুয়ারির ১৯ তারিখ ভোটের দিন রেখে বাংলাদেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, আগ্রহী প্রার্থীরা ১২ ফেব্রুয়ারি সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন। ১৩ ফেব্রুয়ারি যাচাই বাছাইয়ের পর ১৪ ফেব্রুয়ারি বিকাল ৪টা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা যাবে।

মনোনয়ন জমা দেয়ার পর পরই নতুন রাষ্ট্রপতি চূড়ান্ত হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কারণ আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য কোন রাজনৈতিক দল এবার রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রার্থী দিচ্ছে না। যেহেতু ৩৪৩ জন সংসদ সদস্যের ভোটে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন হবে এবং সংসদে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে, কাজেই আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী পরবর্তী রাষ্ট্রপতি হতে যাচ্ছে। আওয়ামী লীগ ড. মসিউর রহমানকে চূড়ান্ত করেছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

মসিউর রহমান একজন বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা। মসিউর রহমান একজন সিএসপি কর্মকর্তা ছিলেন। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন। ১৯৯৬ সালে সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর তিনি অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব ছিলেন।

সরকারি চাকরি থেকে অবসরের পর মসিউর রহমান বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে যোগদান করেন। ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ের পর শেখ হাসিনা সরকার গঠন করেন এবং মসিউর রহমানকে মন্ত্রীর পদমর্যাদায় তাঁর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ দেন। ২০১৬ সালের অক্টোবরে আওয়ামী লীগের দলীয় পরিষদের নির্বাচনে তিনি প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৯ সালে তিনি পুনরায় একই পদে নিয়োগ পান।



মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

ভোটে যেতে তারেক চায় হাজার কোটি টাকা

প্রকাশ: ০৮:০১ পিএম, ১৩ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

তারেক জিয়া। লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। তিনি এখন বিএনপির সর্বেসর্বা হর্তাকর্তা। তার নির্দেশেই বিএনপির সবকিছু করছে। তিনি যা সিদ্ধান্ত দিচ্ছেন, সেটি পালন করাই যেন বিএনপি নেতাদের একমাত্র কাজ। তাকে নিয়েই বিএনপিতে সন্দেহ এবং রহস্য। বাংলা ইনসাইডারের হাতে এসেছে তার নির্বাচন ভাবনা নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য। অন্তত তিনজন বিদেশি কূটনীতিকদের সাথে তারেক জিয়ার বৈঠক হয়েছে বলে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে। ওই বৈঠকে তারেক জিয়া বিএনপিকে আগামী নির্বাচনে নিয়ে যাওয়ার  ইঙ্গিত দিয়েছেন। এজন্য তিনি দাবি করেছেন এক হাজার কোটি টাকা। এই টাকা পেলেই বিএনপির সুর পাল্টে যাবে এবং বিএনপি নির্বাচনে যাবে এমন তথ্য পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন মহলে। 

একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলছে, লন্ডনে রাজনৈতিক আশ্রয় নিয়ে বসবাসরত তারেক জিয়া মূলত চাঁদাবাজি, পদ বাণিজ্য এবং কমিটি বাণিজ্য করেই বিপুল পরিমাণ অর্থের মালিক। সেখানে তিনি রাজকীয় জীবনযাপন করছেন। আগামী নির্বাচন তার টাকা উপার্জনের একটি বড় অস্ত্র হিসেবে মনে করা হচ্ছে। 

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিভিন্ন মনোনয়ন বাণিজ্য করে তারেক জিয়া অন্তত সাড়ে তিনশ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছিলেন। এবং এই টাকাই তার রাজকীয় জীবনযাপনের প্রধান উৎস। বিএনপি নেতা আব্দুল আউয়াল মিন্টু, তাবিদ আউয়াল, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী এবং ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মাধ্যমে এই টাকার লেনদেন হয়েছিল, যে টাকাগুলো সিঙ্গাপুর, দুবাই, মালয়েশিয়া, সৌদি আরব হয়ে লন্ডনে গিয়েছে। এই টাকাগুলো যে সূত্র ধরে গেছে, তার প্রমাণ পাওয়া যায় তার একটি কনসাল্টিং পিআর ফার্মের হিসাব খতিয়ে দেখলেই। 

হিসেবে দেখা যায় যে,লন্ডনে তারেক জিয়া এবং তার স্ত্রীর এই কোম্পানির স্ফীতি ঘটেছে দুইশত গুন। তাদের অ্যাকাউন্টে এখন এই সম্পত্তির পরিমাণ বাংলাদেশি টাকায় প্রায় পাচশ কোটি টাকা। অথচ, তারা কি ব্যবসা করছে, সে সম্পর্কে তেমন কোনো তথ্য জমা দিতে পারেনি। এ নিয়ে বিভিন্ন সময় ব্রিটিশ সরকার তদন্ত করলেও রহস্যজনক কারণে সেই সমস্ত তদন্ত মাঝপথে থেমে গেছে। এখন বিএনপির ভূমিকা কি, আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে কি করবে না, ইত্যাদি বিষয়ে জানার জন্য অন্তত তিনটি দেশের কূটনীতিকরা লন্ডনে তারেক জিয়ার সাথে বৈঠক করেছেন। এই বৈঠকে তারেক জিয়া নির্বাচনে না যাওয়ার কথা সরসরি কোথাও বলেননি বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। 

সাম্প্রতিক সময়ে মার্কিন দূতাবাসের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদের সাথে একান্ত বৈঠক করেন। ওই বৈঠকে তিনি প্রথম জানেন, তারেক জিয়া নির্বাচন করতে আগ্রহী। আমীর খসরু মাহমুদ এই ঘটনায় অন্তত বিস্মিত হন। তিনি জানতে চান, তার এই তথ্যের সত্যতা কি? তখন মার্কিন কর্মকর্তা বলেন, লন্ডনে মার্কিন একজন কূটনীতিকের সাথে তারেক জিয়ার দু’দফা বৈঠক হয়েছে এবং সে বৈঠকে তারেক জিয়া বলেছেন যে, সরকার যদি তার সাথে একটি সমঝোতা করে, তাহলে তিনি নির্বাচনে যেতে পারেন। 

বিএনপির একজন নেতা বলছেন, তারেকে জিয়া ভালোমতোই জানেন, নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায় করা সম্ভব না। তিনি এটিও জানেন, আগামী নির্বাচনে তাদের যে সাংগঠনিক অবস্থা, তাতে বিজয়ী হওয়া সম্ভব নয়। এই বাস্তবতায় বিএনপির পক্ষ থেকে বিএনপিকে আন্দোলনে ঠেলে দিয়ে একটা শক্তিশালী অবস্থান তৈরি করা এবং সেই অবস্থান থেকে সরকারের সাথে পর্দার আড়ালে দর কষাকষি, টাকা-পয়সার লেনদেন চূড়ান্ত করাটাই তারেক জিয়ার রাজনৈতিক কৌশল বলে কেউ কেউ মনে করছেন। আর এই রকম একটি তথ্য তিনি আরেকটি প্রতিবেশি দেশের কূটনীতিকদেরকেও দিয়েছেন। সেখানে তিনি বলেছেন যে, বিএনপি যদি নির্বাচনে যায়, তাহলে কত টাকা আমাদেরকে দেওয়া হবে। এ ব্যাপারে তিনি একটি সুনির্দিষ্ট তথ্য চেয়েছেন। এর পর ওই কূটনীতিক তার সাথে আর কথা বাড়াননি। কারণ, যে বিপুল আর্থিক লেনদেনের কথা বলা হচ্ছে, সেটি তার কাছে অবাস্তব মনে হয়েছে। 

একাধিক সূত্র বলছে, সরকারের কাছেও তারেকের পক্ষ থেকে প্রস্তাব এসেছে, যদি তাকে এক হাজার কোটি টাকা দেওয়া হয়, তাহলে তিনি বিএনপিকে নির্বাচনমূখী করবেন। কিন্তু সরকারে অবস্থান এখন পর্যন্ত সুষ্পষ্ট। সরকার বলছে, সংবিধান অনুযায়ী আগামী নির্বাচন হবে এবং নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দলের নিজস্ব সিদ্ধান্তের ব্যাপার। সে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কোনো রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করবে কি করবে না, সেটা তাদের বিষয়। তবে শেষ পর্যন্ত তারেকের প্রস্তাব সরকার বা অন্য কেউ গ্রহণ করবে কি না সেটাই এখন দেখার বিষয়।


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

ওয়াশিংটনে পিটার ডি হাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল

প্রকাশ: ০৮:০০ পিএম, ২২ ডিসেম্বর, ২০২২


Thumbnail

বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাসের বিরুদ্ধে পক্ষপাত, কূটনৈতিক শিষ্টাচার লঙ্ঘন এবং দলীয়  রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছে। ১৪ জন বাংলাদেশের নাগরিক যৌথভাবে ওয়াশিংটনের পররাষ্ট্র দপ্তরে অভিযোগ দাখিল করেছেন। অভিযোগে পিটার ডি হাসের সাম্প্রতিক কার্যক্রম দুই দেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে বিঘ্ন সৃষ্টি করছে এবং দুই দেশের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির তৈরি করছে বলেও অভিযোগ করা হয়েছে। একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে যে, মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর এই অভিযোগ গ্রহণ করেছে এবং এই বিষয়টি তদন্ত করে দেখবে বলে আবেদনকারীদেরকে আশ্বস্ত করা হয়েছে। গত সোমবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকজন বিশিষ্ট নাগরিক ওয়াশিংটনের পররাষ্ট্র দপ্তরে এই অভিযোগটি দাখিল করেন। তারা অভিযোগে কয়েকটি সুস্পষ্ট বিষয় উল্লেখ করেছেন। অভিযোগে বলা হয়েছে যে, পিটার ডি হাস বাংলাদেশের যাওয়ার পরপরই বিভিন্ন অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলাচ্ছেন। যা আন্তর্জাতিক কূটনীতির রীতিনীতির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। অভিযোগে আরও বলা হয়েছে যে, বিএনপির একাধিক নেতাদের সঙ্গে তিনি বিভিন্ন সময় বৈঠক করছেন এবং এই সমস্ত বৈঠকগুলো একপেশে অযাচিত এবং দুই দেশের সম্পর্কের জন্য হানিকর বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে। 

অভিযোগে আরও বলা হয়েছে যে, বাংলাদেশে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত বন্ধু এবং দুই দেশের সম্পর্ক এগিয়ে চলছে। পিটার ডি হাসের কারণে এই সম্পর্ক উন্নয়নের ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করা হয়েছে। গত ১৪ ডিসেম্বর মার্কিন রাষ্ট্রদূত শাহীনবাগ যাওয়া নিয়ে এই অভিযোগে বিস্তারিত উল্লেখ করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে যে, পিটার ডি হাস যে শাহীনবাগে গেছেন সেটি সম্পর্কে বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র দপ্তর বা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় কাউকে তিনি অবহিত করেনি। অথচ এরকম একটি স্পর্শকাতর জায়গায় তার যাওয়ার আগে সরকারকে অবহিত করা উচিত ছিল। এভাবে যার কারণে তার নিরাপত্তা ঝুঁকি সৃষ্টি হয়েছে। একজন রাষ্ট্রদূত এভাবে যেতে পারেন কিনা সে ব্যাপারেও তারা প্রশ্ন তুলেছেন। ছাড়াও সাজেদুল ইসলাম সুমনের বাসায় যাওয়া প্রসঙ্গে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, তিনি একজন বিএনপি নেতা ছিলেন এবং তাঁর মাদক ব্যবসার সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। 

ধারণা করা হয় যে, মাদক ব্যবসায়ী পক্ষের সহিংসতার কারণেই তিনি গুম হয়ে থাকতে পারেন। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে তদন্ত যাচাই-বাছাই না করে এক পাক্ষিক অবস্থান গ্রহণ করে পিটার ডি হাস কূটনৈতিক শিষ্টাচার লঙ্ঘন করেছেন বলেও মনে করেন প্রবাসী এই বাংলাদেশীরা। তারা অভিযোগে এটাও উল্লেখ করেছেন যে, কূটনীতির একটি মৌলিক বিষয় হলো নিরপেক্ষ অবস্থানে থাকা এবং দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক না গলানো। কিন্তু পিটার ডি হাস অনেক ক্ষেত্রে একটি বিশেষ রাজনৈতিক দলের পক্ষ অবলম্বন করছেন। যে রাজনৈতিক দলটির সঙ্গে জঙ্গী এবং মৌলবাদীদের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। এর মাধ্যমে তিনি কূটনীতির যে আচার-আচরণ সেটি লঙঘন করেছেন। বিবৃতিতে অনতিবিলম্বে তাকে বাংলাদেশ থেকে সরিয়ে নেয়ার আবেদন করা হয়েছে। বলা হয়েছে, না হলে এটি দুই দেশের সম্পর্ক উন্নয়নের ক্ষেত্রে বিঘ্ন সৃষ্টি করবে এবং বাংলাদেশ সম্পর্কে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ভুল বার্তা দেবে। এখন দেখার বিষয় যে, মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর পিটার ডি হাসের বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো কিভাবে খতিয়ে দেখে। তবে একটি সূত্র বলছে যে, পিটার ডি হাস যেভাবে শাহীনবাগে গেছেন সেটা ওয়াশিংটন পছন্দ করেনি এবং এ রকম যাওয়ার আগে যে ধরনের সর্তকতা অবলম্বন করা উচিত ছিল এবং উপযুক্ত কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা উচিত ছিল সেটি তিনি করেননি। 

সাম্প্রতিক সময়ে ওয়াশিংটনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে নিয়ে পিটার ডি হাসের বিষয়টি উল্লেখ করা হয়। তখন  ওয়াশিংটনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ইমরান সুস্পষ্টভাবে বলেন যে, তিনি যদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অবহিত করে যেতেন তাহলে তার নিরাপত্তা উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হতো। পিটার ডি হাসের বিষয়টি এখন ওয়াশিংটন কিভাবে দেখছে এবং কিভাবে এর সমাধান করবে সেটাই এখন দেখার বিষয়। 

ওয়াশিংটন   পিটার ডি হাস   মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

২ মাস পর মানবাধিকার কমিশনের নতুন কমিটি গঠন

প্রকাশ: ০৫:২৩ পিএম, ০৬ ডিসেম্বর, ২০২২


Thumbnail

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের বর্তমান কমিটির মেয়াদ অতিক্রান্ত হওয়ার দুই মাস পর নতুন কমিটি গঠন করা হচ্ছে। আগামীকাল এই সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে বলে একাধিক সূত্র বাংলা ইনসাইডারকে নিশ্চিত করেছে।

মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান এবং একজন স্থায়ী সদস্য মনোনয়ন চূড়ান্ত করার জন্য স্পিকার ড. শিরীন শারমিনের নেতৃত্বে একটি কমিটি করা হয়েছিলো। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সার্বক্ষণিক সদস্য এবং সাবেক সচিব ড. কামাল উদ্দিন আহমেদকে মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান হিসেবে চূড়ান্ত করা হয়েছে। অন্যদিকে সাবেক রেলপথ সচিব সেলিম রেজাকে মানবাধিকার কমিশনের সার্বক্ষণিক সদস্য হিসেবে মনোনীত করা হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, ড. কামাল উদ্দিন আহমেদ একাধিক মন্ত্রণালয়ে সচিবের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। এর আগে সার্বক্ষণিক সদস্য হিসেবে তিনি দক্ষতার পরিচয় দিয়েছিলেন। বাংলাদেশ-ভারত স্থলসীমান্ত চূড়ান্তকরণের ক্ষেত্রে তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিলো এবং মানবাধিকার বিষয়ে তার দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতা রয়েছে।

অন্যদিকে সার্বক্ষণিক সদস্য সেলিম রেজা একসময় প্রবাসী কল্যাণের সচিব ছিলেন এবং পরবর্তীতে তিনি রেলপথ সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ শেষ হওয়ার পর তিনি অবসরে ছিলেন।

মানবাধিকার কমিশন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

কাল চলে যাচ্ছেন আহমেদ কায়কাউস

প্রকাশ: ১১:৪৪ এএম, ০৬ ডিসেম্বর, ২০২২


Thumbnail

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমেদ কায়কাউস আজ তার শেষ কর্মদিবস পালন করছেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব হিসেবে আজ তার চাকরির মেয়াদ শেষ হচ্ছে। বিশ্বব্যাংকের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক হিসেবে তার যোগ দিতে আগামীকাল ওয়াশিংটনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

ড. আহমদ কায়কাউসের স্থলাভিষিক্ত হতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর বর্তমান সিনিয়র সচিব মোঃ তোফাজ্জল হোসেন মিয়া। এবং প্রধানমন্ত্রীর সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন। আগামীকাল এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে বলে জনপ্রশাসন সূত্রে জানা গেছে। 

ড. আহমেদ কায়কাউস ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন। ড. আহমদ কায়কাউস প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখপাত্র হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন। বিশেষ করে তার পরিচ্ছন্ন ইমেজ এবং দক্ষতার জন্য তিনি বিভিন্ন মহলে প্রশংসিত হয়েছিলেন। তাছাড়া ড. আহমদ কায়কাউস প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালনের পর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পেশাদারিত্ব এবং শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন।


আহমেদ কায়কাউস  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন