ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

ভারতীয় কূটনৈতিকদের সাথে সিঙ্গাপুরে ফখরুল-আব্বাসের বৈঠক

প্রকাশ: ০৭:০০ পিএম, ৩১ অগাস্ট, ২০২৩


Thumbnail

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস এখন সিঙ্গাপুরে গেছেন। বিএনপির আরেক স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন আগে থেকেই সিঙ্গাপুরে আছেন। তিনি সত্যি সত্যি শারীরিকভাবে অসুস্থ। কিন্তু অন্য দুইজনের অসুস্থতা ততটা গুরুতর নয়। তারা চিকিৎসার জন্য নয় বরং অন্য কোনো বিশেষ মিশনে সিঙ্গাপুরে গেছেন বলে বিভিন্ন মহল মনে করেন।

একটি সূত্র বাংলা ইনসাইডারকে নিশ্চিত করেছে যে, মির্জা আব্বাস এবং ফখরুল ইসলাম আলমগীর তাদের সিঙ্গাপুর সফরকালে অন্তত তিন জন ভারতীয় কূটনৈতিদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। তবে তাদের নাম পরিচয় ইত্যাদি বিষয়ে কিছুই জানা যায়নি। সূত্রগুলো বলছে, এদের অন্তত একজন ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থার ব্যক্তি বলে ধারণা করা হচ্ছে। তারা আগামী নির্বাচন বিএনপি’র অবস্থান ইত্যাদি নিয়ে কথা বলেছেন বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

ভারতে না গিয়ে কেন সিঙ্গাপুরে এই ধরনের বৈঠক হলো সেই প্রশ্ন উঠেছে কূটনৈতিক মহলে। বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে যে, বিএনপির সঙ্গে ভারত নানা কারণেই আনুষ্ঠানিক বৈঠক করতে চায় না। আর এ কারণেই সিঙ্গাপুরে বৈঠকের স্থান নির্বাচন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য যে ২০১৮ এর নির্বাচনের আগে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থার র’এর প্রতিনিধিদের সাথে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আবদুল আউয়াল মিন্টু ও আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বৈঠক করেছিলেন। এর পরপরই ভারত গিয়েছিলেন আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, আবদুল আউয়াল মিন্টুসহ কয়েকজন নেতৃবৃন্দ। সেখানে তারা স্বামী বিবেকানন্দ ইন্সটিটিউট সহ বিভিন্ন থিংক ট্যাঙ্কের সঙ্গে কথা বলেছিলেন। বাংলাদেশ পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেছিলেন। মূলত বিএনপি ভারত বিরোধী নয়, এটা প্রমাণই ছিল সেই সময় লক্ষ্য। তবে এবার তিন কূটনৈতিকের সাথে কি বৈঠক হয়েছে ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বিবরণ থেকে জানা গেছে যে, মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতাল সংলগ্ন একটি শপিং মলের ক্যাফেটেরিয়াতে প্রথমে তাদের আধা ঘন্টার একটি বৈঠক হয়। পরবর্তীতে মেরিনা বে হোটেলের লবিতে তাদের মধ্যে বৈঠক হয়েছে। তৃতীয় বৈঠকটি হয়েছে একটি পাঁচতরকা হোটেল কক্ষের সুইট রুমে। তিনটি বৈঠকেই মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর উপস্থিত ছিলেন।

বিএনপি’র পক্ষ থেকে বলা হয়েছে তারা নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া আর নির্বাচনে যাবে না। যদিও এই অবস্থান এখন পর্যন্ত আন্তর্জাতিক সমর্থন পাইনি। অন্যদিকে ভারত বাংলাদেশের নির্বাচনকে তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয় হিসেবে বর্ণনা করেছে এবং বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক স্থিতিশীলতা যেন সমন্বিত থাকে সে ব্যাপারেও জোর দিয়েছে।

ভারতের পক্ষ থেকে মনে করা হয় যে বাংলাদেশে নির্বাচন হওয়া উচিত অন্যান্য গণতান্ত্রিক দেশে নির্বাচন যেভাবে হয় সেভাবেই। অর্থাৎ সংবিধান অনুযায়ী। কাজেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিটি যে ভারত নাকচ করে দিচ্ছে তা মোটামুটি স্পষ্ট। তবে ভারত বাংলাদেশে অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন চায় এবং এই নির্বাচনে সকল দল অংশগ্রহণ করুক সেটিও চায়। বিভিন্ন কূটনৈতিক মহল ধারণা করছেন যে, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং মির্জা আব্বাসের সঙ্গে ভারতীয় কূটনৈতিকরা মূলত বিএনপি’র নির্বাচনে যাওয়া না যাওয়ার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছে। বিএনপি কেন আগামী নির্বাচনে যেতে চায় না, কি হলে বিএনপি নির্বাচনে যাবে, এই বিষয়গুলোই আলোচনায় স্থান পেয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তবে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কিংবা মির্জা আব্বাস বিএনপি’র কোনো নীতি নির্ধারক নন। বিএনপি’র শেষ কথা হল জিয়া পরিবার, তারেক জিয়া এবং হাসপাতালে থাকা বেগম খালেদা জিয়া নির্বাচনের ব্যাপারে যে সিদ্ধান্ত নিবে সেটিই চূড়ান্ত হবে।

তবে একাধিক সূত্র মনে করে যে, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর হয়তো এই বৈঠকটি করেছেন তারেক জিয়ার অনুমতি নিয়েই এবং যেহেতু তিন ধাপে তাদের কথাবার্তা হয়েছে, কাজেই এর যেকোনো একটি পর্যায়ে তারকে জিয়ার সঙ্গেও যে ফখরুল বৈঠকের বিষয় নিয়ে আলোচনা করেননি এমনটি নয়। তাই বিএনপি নির্বাচনের ব্যাপারে তার অবস্থান পরিবর্তন করে কিনা বা কি অবস্থান গ্রহণ করে সেটাই এখন দেখার বিষয়।



মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

ঢাকা বিভাগে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন: নানক-নাছিম-রহমানে বড় চমক

প্রকাশ: ০২:৩৫ পিএম, ২৫ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

ঢাকার ৬৫ টি আসনের মনোনয়ন বড় চমক এনেছে আওয়ামী লীগ। হেভীওয়েট নেতাদের মনোনয়ন দিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতি দলের জন্য যারা নিবেদিত প্রাণ তাদের স্বীকৃতি দিয়েছেন। গতবার মনোনয়ন বঞ্চিত আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ তিন নেতা জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান এবং বাহাউদ্দিন নাছিম এবার নৌকার টিকেট পাচ্ছেন। ঢাকার মনোনয়নে আওয়ামী লীগের প্রায় অর্ধেক বর্তমান এমপি বাদ পরেছেন। বাংলা ইনসাইডার ঢাকা বিভাগে যারা মনোনয়ন পেয়েছেন তাদের কয়েকজনের নাম বিভিন্ন সূত্র থেকে পেয়েছেন। এই তালিকায় যারা আছেন (আংশিক)-

 

সংসদীয় আসন

প্রার্থীর নাম

নির্বাচনী এলাকা

১৩০

আব্দুর রাজ্জাক ভোলা

টাঙ্গাইল-১

১৬৯

মমতাজ বেগম

মানিকগঞ্জ-২

১৭০

জাহিদ মালেক

মানিকগঞ্জ-৩

১৭৩

মৃণাল কান্তি দাস

মুন্সীগঞ্জ-৩

১৭৪

সালমান এফ রহমান

ঢাকা-১

১৭৫

কামরুল হাসান

ঢাকা-২

১৭৬

নসরুল হামিদ

ঢাকা-৩

১৭৯

সাঈদ খোকন

ঢাকা-৬

১৮০

ইরফান সেলিম

ঢাকা-৭

১৮১

বাহাউদ্দিন নাছিম

ঢাকা-৮

১৮২

সাবের হোসেন চৌধুরী

ঢাকা-৯

১৮৪

এ.কে.এম.রহমতুল্লাহ

ঢাকা-১১

১৮৫

আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল

ঢাকা-১২

১৮৬

জাহাঙ্গীর কবির নানক

ঢাকা-১৩

১৮৮

কামাল আহমেদ মজুমদার

ঢাকা-১৫

১৯০

মোহাম্মদ আলী আরাফাত

ঢাকা-১৭

১৯২

এনামুর রহমান

ঢাকা-১৯

১৯৩

বেনজীর আহমদ

ঢাকা-২০

১৯৪

আ.ক.ম মোজাম্মেল হক

গাজীপুর-১

১৯৫

জাহিদ আহসান রাসেল

গাজীপুর-২

১৯৭

সিমিন হোসেন রিমি

গাজীপুর-৪

১৯৮

মেহের আফরোজ চুমকি

গাজীপুর-৫

২০২

নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন

নরসিংদী-৪

২০৪

গোলাম দস্তগীর গাজী

নায়ায়ণগঞ্জ-১

২০৫

নজরুল ইসলাম বাবু

নারায়ণগঞ্জ-২

২০৭

শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ-৪

২০৯

কাজী কেরামত আলী

রাজবাড়ী-১

২১০

জিল্লুর হাকিম

রাজবাড়ী-২

২১১

আবদুর রহমান

ফরিদপুর-১

২১৪

মজিবুর রহমান চৌধুরী

ফরিদপুর-৪

২১৫

ফারুক খান

গোপালগঞ্জ-১

২১৬

শেখ ফজলুল করিম সেলিম

গোপালগঞ্জ-২

২১৭

শেখ হাসিনা

গোপালগঞ্জ-৩

২১৮

নূর-ই-আলম চৌধুরী

মাদারীপুর-১

২১৯

শাজাহান  খান  

মাদারীপুর-২

২২০

আবদুস সোবহান গোলাপ

মাদারীপুর-৩

২২২

এ কে এম এনামুল হক শামীম

শরীয়তপুর-২

২২৩

নাহিম রাজ্জাক

শরীয়তপুর-৩

 

 

 

 


ঢাকা   মনোনয়ন   নির্বাচন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

ময়মনসিংহ বিভাগে মনোনয়ন প্রাপ্তদের তালিকা (আংশিক)

প্রকাশ: ০১:২৯ পিএম, ২৫ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ড ৩০০ আসনে মনোনয়ন চুড়ান্ত করার কাজ করছে। গতকাল (শুক্রবার) মনোনয়ন বোর্ড ময়মনসিংহ বিভাগের ৩০টি আসনে মনোনয়ন চুড়ান্ত করেছে। এবার এই বিভাগে যারা মনোনয়ন পাননি তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন জামালপুর-৪ আসনের এমপি, সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান। এই বিভাগেও অন্তত ১০ জন এমপি বাদ পরেছেন। বাংলা ইনসাইডার বিভিন্ন সূত্র থেকে যারা নৌকার টিকেট পেয়েছে তাদের কয়েকজনের নাম নিশ্চিত করতে পেরেছে। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যারা আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন তাদের মধ্যে রয়েছে (আংশিক)-

 

সংসদীয় আসন

প্রার্থীর নাম

নির্বাচনী এলাকা

১৩৮

আবুল কালাম আজাদ

জামালপুর-১

১৩৯

ফরিদুল হক খান

জামালপুর-২

১৪০

মির্জা আজম

জামালপুর-৩

১৪২

আবুল কালাম আজাদ (সাবেক মূখ্য সচিব)

জামালপুর-৫

১৪৪

মতিয়া চৌধুরী

শেরপুর-২

১৪৬

জুয়েল আরেং

মংমনসিংহ-১

১৪৭

শরীফ আহমেদ

ময়মনসিংহ-২

১৫৭

মানু মজুমদার

নেত্রকোণা-১

১৫৯

অসীম কুমার উকিল

নেত্রকোণা-৩

১৬০

সাজ্জাদ হোসেন

নেত্রকোণা-৪

১৬১

ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল

নেত্রকোণা-৫

১৬২

জাকিয়া নূর লিপি

কিশোরগঞ্জ-১

১৬৩

নূর মোহাম্মদ

কিশোরগঞ্জ-২

১৬৫

রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক

কিশোরগঞ্জ-৪

১৬৭

নাজমুল হাসান পাপন

কিশোরগঞ্জ-৬

 


জাতীয় সংসদ   নির্বাচন   ময়মনসিংহ   মনোনয়ন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

রংপুর-রাজশাহীতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রাপ্তদের তালিকা (আংশিক)

প্রকাশ: ০৫:০০ পিএম, ২৩ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

আওয়ামী লীগের প্রার্থী বাছাইয়ের কাজ শুরু হয়েছে। আজ সকাল থেকে দলটির মনোনয়ন বোর্ডের সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম দিনের বৈঠকে রংপুর ও রাজশাহীর ৬৯ টি আসনের প্রার্থী চুড়ান্ত করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওয়াবদুল কাদের বলেছেন, বেশ কয়েকজন বর্তমান সংসদ সদস্য দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পাননি। আগামী শনিবার (২৫ নভেম্বর) আওয়ামী লীগ আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করবে বলে জানিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক। বিভিন্ন সূত্র থেকে বাংলা ইনসাইডার ৬৯ টি আসনে বেশ কয়েকজন মনোনয়ন প্রাপ্তের নাম নিশ্চিত করেছেন। রাজশাহী এবং রংপুরে যারা মনোনয়ন পেয়েছেন, তারা হলেন:

 

সংসদীয় আসন

প্রার্থীর নাম

নির্বাচনী এলাকা

নুরুল ইসলাম সুজন

পঞ্চগড়-২

রমেশ চন্দ্র সেন

ঠাকুরগাঁও-১

খালেদ মাহমুদ চৌধুরী

দিনাজপুর-২

ইকবালুর রহিম

দিনাজপুর-৩

আবুল হাসান মাহমুদ আলী

দিনাজপুর-৪

১৩

আসাদুজ্জামান নূর

নীলফামারী-২

২২

টিপু মুনশি

রংপুর-৪

২৪

শিরীন শারমিন চৌধুরী

রংপুর-৬

৩০

মাহাবুব আরা বেগম গিনি

গাইবান্ধা-২

৩১

উম্মে কুলসুম স্মৃতি

গাইবান্ধা-৩

৩৫

আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন

জয়পুরহাট-২

৫৭

শাহরিয়ার আলম

রাজশাহী-৬

৬০

জুনাইদ আহমেদ পলক

নাটোর-৩

৬২

তানভীর শাকিল জয়

সিরাজগঞ্জ-১

৬৫

তানভীর ইমাম

সিরাজগঞ্জ-৪

৬৮

শামসুল হক টুকু

পাবনা-১

 

 

 


রাজশাহী   রংপুর   মনোনয়ন   জাতীয় সংসদ   নির্বাচন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

বিএনপি কেন যুক্তরাষ্ট্রের কথা শুনল না

প্রকাশ: ১০:০০ পিএম, ২২ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপিকে পরামর্শ দিয়েছিল বর্তমান সরকারের অধীনেই নির্বাচনে জেতে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আশ্বাস দিয়েছিল যে ভিসা নীতি সহ বিভিন্ন কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ সরকারকে বাধ্য করবে একটি অবাধ, নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য। আর সেই নির্বাচনে যদি কোন রকম কারচুপি বা অনিয়ম হয়, তাৎক্ষণিকভাবে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। নির্বাচনকে স্বীকৃতি দেবে না, আরোপ করবে অর্থনৈতিক অবরোধসহ নানা রকম অবরোধ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাবে রাজি হয়নি বিএনপির। একাধিক সূত্র বাংলা ইনসাইডারকে নিশ্চিত করেছে, বিএনপির শীর্ষ নেতারা এ ব্যাপারে একমত হয়েছিলেন। কিন্তু লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার অনাগ্রহ এবং অনীহার কারণেই এই এব্যাপারে কোন ঐকমত্য হয়নি। 

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বিএনপির নেতৃবৃন্দের সঙ্গে তিন দফা বৈঠক করেছিলেন এ সব নিয়ে। তাদেরকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান এবং মনোভাব সুস্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দিয়েছিলেন। তারা বলছেন যে এই মুহূর্তে সংবিধানের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। সংবিধানের বাইরে গেলে সেটি প্রশ্নবিদ্ধ হবে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভূমিকা নিয়েও বিতর্ক উঠবে। এ কারণেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফর্মুলা ছিল যে বিএনপি নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দেবে শর্তহীন সংলাপে যোগদানের মাধ্যমে। আর এই নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দেওয়ার সাথে সাথে সরকারকে মার্কিন প্রশাসন থেকে চাপ দেওয়া হবে যেন নির্বাচনকালীন সরকারে বিএনপির সহ অন্যান্য বিরোধী দলগুলোকে অন্তর্ভুক্ত করা হয় এবং নির্বাচনের আগে প্রশাসনে রদবদল, পুলিশে রদবদল সহ বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য যুক্তরাষ্ট্র চাপ দিত। এ ধরনের চাপের কাছে সরকার শেষ পর্যন্ত একটি সমঝোতার পথে যেত। কিছু কিছু জায়গায় পরিবর্তন করা হতো এবং নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান হিসেবে কিছু কিছু ব্যক্তি নিরপেক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করত। কিন্তু সেই সুযোগ বিএনপি গ্রহণ করেনি। আজ আবার গুলশানের সিক্স সিজন্স হোটেলে মার্কিন দূতাবাসের পলিটিক্যাল চিফ শ্রেয়ান সি ফিজারল্ড ও পলিটিক্যাল সেক্রেটারি ম্যাথিও বের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহআন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা। দুপুর ১টা থেকে ২টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত চলে এ বৈঠক। কিন্তু সেখান থেকেও কোন ইতিবাচক ফল আসেনি।

বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে যে সর্বশেষ বৈঠকে ড. মঈন খান এবং মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর উভয়ই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাবে সম্মত হয়েছিলেন। ২৮ অক্টোবরের সমাবেশের বড় বিএনপি একটি আল্টিমেটাম দিতে চেয়েছিল এবং সেই আল্টিমেটামের পরপরই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রাজনৈতিক দলগুলোকে শর্তহীন সংলাপের আহ্বান জানাত এবং সরকার এই ধরনের শর্তহীন সংলাপে রাজিও ছিল। কিন্তু সেই পরিকল্পনা ভেস্তে গেছে ২৭ অক্টোবর রাতে, যে দিন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা বৈঠকে বসেছিলেন এবং লন্ডন থেকে যুক্ত হয়েছিলেন পলাতক দণ্ডিত ব্যক্তি তারেক জিয়া। যখন বিএনপি নেতারা এই ফর্মুলার কথা বলেন তখন তারেক জিয়া বুঝতে পারেন যে বিএনপির নেতারা সম্ভবত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফাঁদে পা দিয়েছেন। আর একারণেই তারেক জিয়া তার নিজস্ব বাহিনী দিয়ে সহিংস তৎপরতার পথ বেছে নেন। বিশেষ করে ২৮ অক্টোবর বিএনপি বিভিন্ন স্থানে যে তাণ্ডব চালিয়েছে তা ছিল সব তারেক জিয়ার বাহিনীদের পৃষ্ঠপোষকতা এবং মদদে। 

বিএনপি কেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব গ্রহণ করল না? বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে যে এর পিছনে একাধিক কারণ রয়েছে। প্রথমত তারা মনে করেছিল, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব একটি ফাঁদ। যে রকম ফাঁদে তারা ড. কামাল হোসেনের মাধ্যমে পড়েছিল ২০১৮ সালে। একই ফাঁদে বিএনপি পা দিতে চায়নি। দ্বিতীয়ত বিএনপি মনে করেছিল যে শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় যে কোনো নির্বাচন হলেই মানসিক ভাবে আওয়ামী লীগ শক্তিশালী থাকবে এবং সেই নির্বাচনে জেতার কোন সম্ভাবনা বিএনপির নেই। তৃতীয়ত, তারেক জিয়া মনে করছেন, যদি বিএনপি এই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে তাহলে দল তার নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে। ৪০/৫০ যে আসনই বিএনপির পাক না কেন? তখন দলের ভিতর গুরুত্বহীন হয়ে পড়বেন তারেক জিয়া। ফলে এই নির্বাচনে গিয়ে তিনি বিএনপির কর্তৃত্ব হারাতে চাননি। আর এই সমস্ত বাস্তবতার কারণেই শেষ পর্যন্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরামর্শ শোনেনি বিএনপি।

বিএনপি   মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র   মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর  


মন্তব্য করুন


ইনসাইডার এক্সক্লুসিভ

আওয়ামী লীগের দুই নেতা যোগাযোগ করেছিলেন তারেকের সঙ্গে

প্রকাশ: ১১:০৬ পিএম, ০৯ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

বিএনপির বেশ কিছু নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। আটক নেতাকর্মীদের মধ্যে বিএনপির মিডিয়া ইউংয়ের প্রধানও রয়েছেন। জহির উদ্দিন স্বপন একদা বাম রাজনীতি করতেন। তিনি দক্ষিণাঞ্চল থেকে উঠে আসা জহির উদ্দিন স্বপন বাম রাজনীতি থেকে বিএনপিতে যোগ দেন। আবার এক-এগারোর সময় তিনি ছিলেন একজন সংস্কারপন্থী। বেগম খালেদা জিয়াকে যারা রাজনীতি থেকে মাইনাস করতে চেয়েছিল তাদের অন্যতম নেতা ছিলেন জহির উদ্দিন স্বপন। তিনি পরবর্তীতে আবার বিএনপিতে আসেন। এখন তারেক জিয়ার নির্দেশে বিএনপির মিডিয়া উইং পরিচালনা করেছেন।

সম্প্রতি তিনি গ্রেপ্তার হচ্ছেন। গ্রেপ্তারে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তারেক জিয়ার ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত জহির উদ্দিন স্বপন কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেছেন। তার মধ্যে একটি হল তিনি আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের দক্ষিণাঞ্চলের দুই জন হেভিওয়েট নেতার সঙ্গে তিনি নিয়মিত যোগাযোগ করতেন। এই হেভিওয়েট নেতাদের সাথে যোগাযোগের সূত্র ধরে তারেকের সঙ্গেও তাদের যোগাযোগ করিয়ে দিয়েছিলেন। তার এই বক্তব্য নিয়ে এখন আওয়ামী লীগের মধ্যে তুলকালাম চলছে।

বিভিন্ন সূত্র থেকে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন নেতা ওই দুই নেতার নাম জেনেছেন এবং জহির উদ্দিন স্বপন রিমান্ডে এই বিষয়ে যে তথ্য প্রকাশ করেছে, সেটির সম্পর্কে অবহিত হয়েছেন। তবে এ ধরনের বক্তব্য কতটুকু সত্য সে সম্পর্কে নিশ্চিত কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে যারা স্বপনকে রিমান্ডে এনেছেন, তারাও আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো বক্তব্য দিতে চাননি। তবে এ ধরনের বক্তব্যের ফলে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে হঠাৎ করে তোলপাড় শুরু হয়েছে।

যে দুই জন নেতার সঙ্গে তারেক জিয়ার যোগাযোগ হয়েছে বলে স্বপন দাবি করেছেন, তাদের দুইজনই সংস্কারপন্থী। জহির উদ্দিন স্বপন এক-এগারোর সময় এই দুই নেতার সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে যোগাযোগ রক্ষা করেছিলেন এমন তথ্যও পাওয়া যায়। সেই সময় আওয়ামী লীগ বিএনপি উভয় পক্ষের সংস্কারপন্থীরাই একসাথে কাজ করেছিলেন একটি রাজনৈতিক মেরুকরণের লক্ষ্যে। এখন প্রশ্ন হল যে সত্যি সত্যি কী তারেকের সঙ্গে আওয়ামী লীগের এই দুই নেতা যোগাযোগ করেছিলেন?

কোন কোন রাজনৈতিক বিশ্লেষক মনে করেন যে, যোগাযোগ হলেও হতে পারে। তবে এই যোগাযোগ রাজনৈতিকভাবে তাৎপর্যহীন। আবার কোন কোন নেতা মনে করেন যে বিএনপি এখন আওয়ামী লীগের মধ্যে নানারকম অবিশ্বাস, বিভক্তি এবং কোন্দল সৃষ্টি করার জন্য এই ধরনের গুজব ছড়াচ্ছে। এটি অসম্ভব ব্যাপার। কারণ এ রকম যোগাযোগ করলে সেটি আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড বা আওয়ামী লীগ সভাপতি জানবেন না এমনটি মনে করার কোন কারণ নেই। ওই দুই নেতা এখন এমনিতেই কোণঠাসা অবস্থায় আছেন। তারা এ রকম ঝুঁকি নেবেন না।

আবার অনেকে মনে করছেন যে বিএনপির বিরুদ্ধে যেমন আওয়ামী লীগ নানারকম অপপ্রচার করছে, বিশেষ করে বিএনপি ভাঙছে, বিএনপিতে নানারকম ভাঙন প্রক্রিয়া, সেই হিসেবে কাউন্টার প্রোপাগান্ডা হিসেবে এই ধরনের অপপ্রচার গুলো করা হচ্ছে। আওয়ামী লীগকে দুর্বল করে তোলা। আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের মনোবল নষ্ট করার জন্য এটা করা হচ্ছে।

২৮ অক্টোবর বিএনপির আত্মঘাতী তৎপরতার পর এমনিতেই বিএনপির অবস্থা অনেকটা শোচনীয়। তারা খাদের কিনারে চলে যাচ্ছে। দলের মধ্যে অবিশ্বাস সন্দেহ তৈরি হয়েছে। এর মধ্যে গতকাল মেজর হাফিজ এর বক্তব্য বিএনপির মধ্যে এক ধরনের নতুন বিতর্ক তৈরি করেছে। এই পরিস্থিতিতে কৌশলগত কারণে যদি তারা আওয়ামী লীগকেও বিতর্কিত করতে পারে বা আওয়ামী লীগের মধ্যেও বিভক্তি দেখাতে পারে তাহলে তাদের লাভ। সেই কৌশলের অংশ হিসেবেই এটা করা হয়েছে বলে অনেকে মনে করেন।

তবে এটি সত্য বা মিথ্যা সেটি অন্য বিষয়। তবে যদি উদ্দেশ্যপূর্ণভাবেও এই গুজব ছড়ানো হয়, সেটি এখন আওয়ামী লীগের মধ্যে বেশ ভালো প্রতিক্রিয়া হচ্ছে। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন ফোরামে এ নিয়ে বেশ আলোচনা হচ্ছে এবং আওয়ামী লীগের অনেকেই এই বিষয়টি নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছেন।


আওয়ামী লীগ   তারেক জিয়া   বৈঠক   জহির উদ্দিন স্বপন  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন