ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

ব্যতিক্রমী এক প্রেসিডেন্টের গল্প

বিশ্বজুড়ে ডেস্ক 
প্রকাশিত: ১১ জুলাই ২০১৮ বুধবার, ০৮:৩৬ পিএম
ব্যতিক্রমী এক প্রেসিডেন্টের গল্প

চলছে ফিফা বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল। আজ রাত ১২টায় রয়েছে ইংল্যান্ডের সাথে ক্রোয়েশিয়ার ম্যাচ। দলটি ১৯৯৮ সালের পর আবারও সেমিফাইনালে উঠেছে। শেষ খেলায় রাশিয়াকে হারানোর পর দলটির দর্শকরা যেভাবে উল্লাস করেছে, তাঁর থেকে স্টেডিয়ামে বেশি উল্লাস করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট কলিন্ডা গ্রাবার কিতারোভি।

ওই সময় আনন্দে নেচে উঠেছিলেন ক্রোয়েশিয়ার এই প্রেসিডেন্ট। এর পাশাপাশি হাততালিও দিতে থাকেন। টুইটার-ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাঁর এ আনন্দ উদযাপনের ভিডিও অতি দ্রুতই ভাইরাল হয়ে পড়ে। এর আগেও তাঁর ছবি কয়েকবার ভায়রাল হতে দেখা গেছে। সেখানকার কিছু কিছু ছবিতে তিনি বিচের পাড়ে পোজ দিচ্ছেন। তাঁর এই পোজ দেওয়া ছবিগুলো দেখতে কিছুটা যেকোনো প্লেবল ম্যাগাজিনের নায়িকাদের মত ছিল।

ডেনমার্কের সাথে পেনাল্টি শেষ। জয়ের হাসি নিয়ে ক্রোয়েশিয়ার দল ড্রেসিংরুমে গোসলের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। এমনিতেই তাদের মনে জয়ের স্বাভাবিক আনন্দ। আর এই আনন্দ আরও বাড়িয়ে দিলেন ক্রোয়েশিয়ার প্রেসিডেন্ট কলিন্ডা, একজন মধ্যবয়স্কা সুন্দরী নারী নোটিশ ছাড়াই খেলোয়ারদের ড্রেসিংরুমে প্রবেশ করার মধ্য দিয়ে।

প্রেসিডেন্টের শরীরে তখন খেলোযারদের মতো লাল-সাদা চৌকো আকৃতির জার্সি। ড্রেসিংরুমে ঢুকেই তিনি প্লেয়ারদের প্রশংসা করছিলেন। মুখে ছিল লাগামহীন হাসি। ওই হাসি নিয়েই জড়িয়ে ধরে সংবর্ধনা জানালেন খেলোয়ারদের। দেখা গেল, ক্রোয়েশিয়ার জনপ্রিয় প্লেয়ার লুকা মদ্রিচ একটু বেশিই স্নেহ পেলেন।

ওই সময় কলিন্ডার উপস্থিতি এবং খেলোয়ারদের সঙ্গে সময় কাটানো ক্রোয়েশিয়া টিমের জন্য অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে। এটা তাদের জেতার ইচ্ছার ইচ্ছাটাকে আরও বহুগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। যার ফলস্বরূপ আজকে দলটি সেমিফাইনালে।

রাশিয়ার সঙ্গে ক্রোয়েশিয়ার খেলার সময় ভিআইপি গ্যালারিতে টোল পড়া মুখের হাসি হেসে সকলের মন জয় করছিলেন এই প্রেসিডেন্ট। একইসঙ্গে বসে ছিলেন রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ এবং ফিফার প্রেসিডেন্ট জেয়ানি ইনফান্তিনো। তারা একই খেলা দেখছিলেন, হাসছিলেন এবং আলাপ করছিলেন। এরপর ক্রোয়েশিয়া জিতে যেতেই, কলিন্ডা আনন্দে আত্মহারা হয়ে নেচে উঠলেন।

১৯৬৮ সালের ২৯ এপ্রিল জন্মগ্রহণ করেন কলিন্ডা গ্রাবার-কিতারোভি। ২০১৫ সালে তিনি ক্রোয়েশিয়ার চতুর্থ প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। তিনিই দেশটির প্রথম নারী রাষ্ট্রপ্রধান এবং তিনি ৪৬ বছর বয়সে সর্বকনিষ্ঠ প্রেসিডেন্টের খেতাব পেয়েছিলেন।

২০১৭ সালের ফোর্বস ম্যাগাজিনের সারাবিশ্বে তিনি ক্ষমতাশালী মহিলাদের তালিকায় ৩৯তম হয়েছিলেন। একই লিঙ্গের বিয়েতে সমর্থন দিয়েছিলেন। তাছাড়া পরিবেশ বিপর্যয় নিয়ে তিনি বেশ সচেতন। প্রায়ই তিনি এই প্রসঙ্গে আলাপ তোলেন এবং পরিবেশের বিপর্যয় ঠেকাতে তাঁর নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেন। ১৯৯৬ সালে তিনি বিয়ে করেন। বর্তমানে তাঁর একটি ছেলে ও একটি মেয়ে রয়েছে।

এইতো কিছুদিন আগে বেশ কিছু ছবি ভাইরাল হয়ে গেল। অধিকাংশ পোর্টাল সেইসব ছবিকে কলিন্ডার ছবি ভেবে প্রচারণা চালিয়েছিল। সেই ছবিতে দেখা যায়, একজন মধ্যবয়স্কা নারী, বিচের পাড়ে হেঁটে বেড়াচ্ছে। আপাত দৃষ্টিতে ছবিগুলো দেখে কলিন্ডা মনে হলেও, এগুলো আসেলে আমেরিকান মডেল কোকো অস্টিনের ছবি ছিল।

বাংলা ইনসাইডার/বিপি/জেডএ